টেকনাফ-সেন্টমার্টিনদ্বীপ নৌপথে নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে পর্যটক পরিবহণ

প্রকাশ: ২৫ জানুয়ারি, ২০২০ ১২:৫৬ : পূর্বাহ্ণ

হাফেজ মুহাম্মদ কাশেম, টেকনাফ … আদালতের নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা ও নৌ বন্দরের ট্রাফিক কর্মকর্তা মোঃ জহির উদ্দিন ভুইয়াকে লাঞ্চিত করে পর্যটক নিয়ে সেন্টমার্টিন যাতায়ত করেছে এমভি পারিজাত জাহাজ ও এমভি দোয়েল পাখি নামে ২টি জাহাজ। ২৪ জানুয়ারী শুক্রবার সকালে টেকনাফের দমদমিয়া জাহাজ ঘাটে এ ঘটনা ঘটে।
টেকনাফ নৌ বন্দরের ট্রাফিক কর্মকর্তা মোঃ জহির উদ্দিন ভুইয়া বলেন, ‘জাহাজ ২টি চলাচলের উপর আদালতের নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। আদালতের নির্দেশমতে পর্যটক নিয়ে টেকনাফ-সেন্টমার্টিনদ্বীপ নৌপথে চলাচল না করার কথা থাকায় নৌ পরিবহন মন্ত্রনালয়ের লোকজনের মাধ্যমে জাহাজের কর্তৃপক্ষকে বুঝিয়ে জাহাজগুলিকে আটকানোর চেষ্টা করা হয়। অনেকক্ষণ আটকে রাখার পরে জাহাজে থাকা যাত্রীরা আমাদেরকে মারতে দৌড়াইয়া আসলে আমরা কোনমতে পালিয়ে এসে প্রাণে রক্ষা পাই। এ ঘটনায় অনেক প্রত্যক্ষদর্শী মোবাইলে ভিডিও ধারণ করেছে। পরে জাহাজের মাস্টাররা জোরপূর্বক জাহাজ ছেড়ে সেন্টমার্টিন চলে যায়। আমরা পালিয়ে না আসলে বড় একটি দূর্ঘটনা আজকে ঘটে যেত। এ ঘটনা আমি টেকনাফ উপজেলা প্রশাসনের পাশাপাশি নৌ পরিবহন কর্তৃপক্ষের সকলকে অবগত করেছি। এমভি পারিজাত ও এমভি দোয়েল পাখি ১ নৌযান দুটির উপরে এ রুটে চলাচলে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে উচ্চ আদালত থেকে। হাইকোর্টের পূর্বের একটি রিট পিটিশন (চলাচলের অনুমতি) স্থগিতের জন্য নৌ পরিবহন মন্ত্রনালয় থেকে আবেদন করা হলে, হাইকোর্ট এই পিটিশন নিস্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত আগামী ফেব্রুয়ারী মাসের ২৮ তারিখ পর্যন্ত এমভি পারিজাত (গ-০১-১১২১) ও এমভি দোয়েল পাখি ১ (গ-০১-১৬৬৯) এর টেকনাফ-সেন্টমার্টিন নৌ-পথে চলাচল স্থগিত রাখতে আদেশ দিয়েছেন। সেইসাথে পিটিশনটির পুনরায় শুনানির জন্য ২রা মার্চ তারিখ নির্ধারণ করা হয়। এছাড়া বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ পরিবহন কর্তৃপক্ষের বন্দর ও পরিবহন বিভাগের ভারপ্রাপ্ত উপ-পরিচালক নয়ন শীলের স্বাক্ষরিত চিঠির মাধ্যমে জাহাজ দুইটির উপর আদালতের জারীকৃত রুট পারমিট স্থগিতকরণের জন্য টেকনাফ নৌ পুলিশ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাসহ অনেকের কাছে চিঠি পাঠিয়ে অনুরোধ করা হয়েছে’।
এমভি পারিজাত ও দোয়েল পাখি জাহাজের টেকনাফের দায়িত্বে থাকা মোহাম্মদ সোহেলের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি টেকনাফ নদীবন্দর ট্রাফিক কমকর্তার উপরে হামলার কথা অস্বীকার করেন। আদালতের নিষেধাজ্ঞা থাকা স্বত্বেও জাহাজ ছাড়লেন কেন জানতে চাইলে বলেন, ‘জাহাজ চলাচলে নিষেধাজ্ঞার উপরে কোন কাগজপত্র আমাদের হাতে এসে পৌঁছায়নি’।
টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম সাইফ বলেন, ‘জাহাজগুলো চলাচলের উপরে আদালতের নিষেধাজ্ঞা থাকলে চলাচলের প্রশ্নই উঠেনা’। ##


সর্বশেষ সংবাদ