টেকনাফে সমাপণী পরিক্ষায় ১২টি কেন্দ্রে ৫৬০৪ জন ক্ষুদে পরিক্ষার্থী

প্রকাশ: ১৬ নভেম্বর, ২০১৯ ১০:০১ : অপরাহ্ণ

হাফেজ মুহাম্মদ কাশেম, টেকনাফ … ক্ষুদে পরিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে পাবলিক পরিক্ষার সর্র্র্র্র্ববৃহৎ আসর শিক্ষা জীবনের প্রথম সার্টিফিকেট পরিক্ষা প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী (পিইসি) এবং ইবতেদায়ী শিক্ষা সমাপনী (ইইসি) পূর্ব নির্ধারিত তারিখ অনুসারে ১৭ নভেম্বর রবিবার থেকে শুরু হবে।
জানা যায়, এবারে টেকনাফ উপজেলায় ১২টি কেন্দ্রে মোট ১৩৮টি প্রতিষ্ঠানের ৫ হাজার ৬০৪ জন পরীক্ষার্থী অংশ নেবে। তম্মধ্যে ৯৯টি স্কুলের (কেজি, সরকারী-বেসরকারী স্কুলসহ) ১ হাজার ৭৭৭ জন বালক, ১ হাজার ৯৮০ জন বালিকা, মোট ৩ হাজার ৭৫৭ জন। এতে মুসলিম ৩ হাজার ৬২৫ জন, হিন্দু ৪৯ জন, বৌদ্ধ ৮৩ জন, খ্রিস্টান নেই। তাছাড়া ৮ জন প্রতিবন্ধী পরিক্ষার্থী রয়েছে। স্কুলে ছেলের চেয়ে ১০৩ জন মেয়ে পরিক্ষার্থী বেশী। ৩৯টি মাদ্রাসার ৭৪৫ জন বালক এবং ১১০২ জন বালিকা মোট ১ হাজার ৮৪৭ জন। মাদ্রাসাসমুহে ছেলের চেয়ে ৩৫৭ জন মেয়ে পরিক্ষার্থী বেশী। মোট পরীক্ষার্থীদের মধ্যে (স্কুল ও মাদ্রাসা) ২ হাজার ৫২২ জন ছাত্র এবং ৩ হাজার ৮২ জন ছাত্রী। এবারে মোট পরীক্ষার্থীদের মধ্যে বালকের চেয়ে ৫৬০ জন বালিকা বেশি। টেকনাফ উপজেলায় মোট ১২টি কেন্দ্রে ১২ জন ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা, ১২ জন কেন্দ্র সচিব, ১২ জন হল সুপার, ১২ জন সহকারী হল সুপার, ২২৩ জন হল পর্যবেক্ষক নিয়োগ ইতিমধ্যেই চুড়ান্ত করা হয়েছে।
টেকনাফ উপজেলা শিক্ষা অফিসার মোঃ এমদাদ হোসেন চৌধুরী (০১৮১৬৬০৯১৪৭) উক্ত তথ্য নিশ্চিত করে জানান, আনন্দ-উৎসব পরিবেশে পরিক্ষা সুষ্ঠ ও সুন্দরভাবে অনুষ্টানের লক্ষ্যে ইতিমধ্যেই যাবতীয় প্রস্ততি সম্পন্ন করা হয়েছে। প্রতিটি কেন্দ্রের সচিবদের দায়িত্বে উত্তরপত্রসহ আনুষাঙ্গিক প্রয়োজনীয় কাগজপত্র পৌঁছানো এবং বুঝিয়ে দেয়া হয়েছে। জিনজিরা কেন্দ্রের প্রশ্নপত্র সেন্টমার্টিনদ্বীপ পুলিশ ফাঁিড়র লকারে, হোয়াইক্যং কেন্দ্রের প্রশ্নপত্র হোয়াইক্যং পুলিশ ফাঁিড়র লকারে এবং শামলাপুর কেন্দ্রের প্রশ্নপত্র শামলাপুর পুলিশ ফাঁিড়র লকারে রাখা হয়েছে। অবশিষ্ট ৯টি কেন্দ্রের প্রশ্নপত্র টেকনাফ মডেল থানার লকারে থাকবে। প্রতিদিন পরিক্ষা শুরু হওয়ার আগে যথানিয়মে কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তগণ পুলিশ প্রহরায় প্রশ্নপত্র পরিক্ষা কেন্দ্রে পৌঁছানো নিশ্চিত করবেন। টুল-টেবিল ছাড়া অন্য কোন সমস্যা আপাততঃ নেই।
পিইসিতে ১৭ নভেম্বর রবিবার ইংরেজী, ১৮ নভেম্বর সোমবার বাংলা, ১৯ নভেম্বর মঙ্গলবার বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচয়, ২০ নভেম্বর বুধবার প্রাথমিক বিজ্ঞান, ২১ নভেম্বর বৃহষ্পতিবার ধর্ম ও নৈতিক শিক্ষা, ২৪ নভেম্বর রবিবার গণিত।
ইএসসিতে ১৭ নভেম্বর রবিবার ইংরেজী, ১৮ নভেম্বর সোমবার বাংলা, ১৯ নভেম্বর মঙ্গলবার বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচয় এবং বিজ্ঞান, ২০ নভেম্বর বুধবার আরবী, ২১ নভেম্বর বৃহষ্পতিবার কুরআন ও তাজবীদ এবং আকাইদ ও ফিকাহ ২৪ নভেম্বর রবিবার গণিত। পরিক্ষা প্রতিদিন সকাল ১০.৩০টায় শুরু হয়ে ১টায় শেষ হবে। তবে বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন পরিক্ষার্থীদের (প্রতিবন্ধী) জন্য অতিরিক্ত ৩০ মিনিট বরাদ্দ থাকবে। ১৭ নভেম্বর রবিবার এই পরীক্ষা এক যোগে শুরু হয়ে ২৪ নভেম্বর রবিবার শেষ হবে।
টেকনাফ উপজেলায় এবারের ১২টি কেন্দ্র হচ্ছে যথাক্রমে হোয়াইক্যং সরকারী প্রাইমারী স্কুল, নয়াবাজার সরকারী প্রাইমারী স্কুল, হ্নীলা শাহ মজিদিয়া সিনিয়র মাদ্রাসা, হ্নীলা আদর্শ সরকারী প্রাইমারী স্কুল, লেঙ্গুরবিল সরকারী প্রাইমারী স্কুল, দরগাহরছড়া হামিদিয়া সরকারী প্রাইমারী স্কুল, সাবরাং সরকারী প্রাইমারী স্কুল, শাহপরীরদ্বীপ সরকারী প্রাইমারী স্কুল, শামলাপুর সরকারী প্রাইমারী স্কুল, বড়ডেইল সরকারী প্রাইমারী স্কুল, জিনজিরা (সেন্টমার্টিনদ্বীপ) সরকারী প্রাইমারী স্কুল, টেকনাফ মডেল সরকারী প্রাইমারী স্কুল।
ইবতেদায়ী মাদ্রাসা সমূহের পরীক্ষার্থীদের জন্য পৃথক কেন্দ্র করা হয়নি। নিকটবর্তী স্কুল কেন্দ্রেই তারা পরীক্ষা দেবে। তবে ৪নং হ্নীলা আদর্শ সরকারী প্রাইমারী স্কুল, ৭নং শাহপরীরদ্বীপ সরকারী প্রাইমারী স্কুল ও ৮নং জিনজিরা সরকারী প্রাইমারী স্কুল এই ৩টি কেন্দ্রে মাদ্রাসার এবং ৩নং হ্নীলা শাহ মজিদিয়া সিনিয়র মাদ্রাসা কেন্দ্রে স্কুলের কোন পরিক্ষার্থী নেই। প্রত্যেক কেন্দ্রে একজন সরকারী অফিসার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা, একজন কেন্দ্র সচিব হিসাবে স্ব-স্ব স্কুলের প্রধান শিক্ষক, একজন হল সুপার, একজন সহকারী হল সুপার, প্রতি ২৫ থেকে ৩০ জন পরীক্ষার্থীর জন্য একজন করে হল পর্যবেক্ষক নিয়োজিত থাকবেন বলে জানা গেছে।
১নং হোয়াইক্যং সরকারী প্রাইমারী স্কুল কেন্দ্রে দৈংগাকাটা সরকারী প্রাইমারী স্কুলের প্রধান শিক্ষক (চদা) মোঃ ইলিয়াছ কেন্দ্র সচিব, উপজেলা প্রকল্প কর্মকর্তা (পজীপ) মংক্যউমং ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা, ঝিমংখালী সরকারী প্রাইমারী স্কুলের প্রধান শিক্ষক মোঃ জাকারিয়া হল সুপার, রঙ্গীখালী সরকারী প্রাইমারী স্কুলের প্রধান শিক্ষক জসিম উদ্দিন সহকারী হল সুপার। এতে ১২টি স্কুলের ২০৩ জন ছাত্র ৩০৪ জন ছাত্রী এবং ৪টি মাদ্রাসার ৯১ জন ছাত্র ১১৬ জন ছাত্রী মোট ১৬টি প্রতিষ্ঠানের ৭১৪ জন পরিক্ষায় অংশ গ্রহণ করবে।
২নং নয়াবাজার সরকারী প্রাইমারী স্কুল কেন্দ্রে প্রধান শিক্ষক মোঃ রিদুয়ান কেন্দ্র সচিব, উপজেলা পল্লী উন্নয়ন অফিসার মৃণাল কান্তি দাশ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা, কেরুনতলী সরকারী প্রাইমারী স্কুলের প্রধান শিক্ষক (চদা) সিরাজুল হক হল সুপার, উঞ্চিপ্রাং সরকারী প্রাইমারী স্কুলের প্রধান শিক্ষক নুরুল ইসলাম (চদা) সহকারী হল সুপার। এতে ৭টি স্কুলের ৯১ জন ছাত্র ১৪১ জন ছাত্রী এবং ৩টি মাদ্রাসার ৭৯ জন ছাত্র ১৩১ জন ছাত্রী মোট ১০টি প্রতিষ্টানের ৪৪২ জন পরিক্ষায় অংশ গ্রহণ করবে।
৩নং হ্নীলা শাহ মজিদিয়া সিনিয়র মাদ্রাসা কেন্দ্রে মাদ্রাসার সহকারী অধ্যক্ষ মাওঃ নুরুল বশর ছিদ্দিকী কেন্দ্র সচিব, টেকনাফ উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক মোঃ ইমরানুল হক ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা, উলুচামরী সরকারী প্রাইমারী স্কুলের প্রধান শিক্ষক হোছাইন আহমদ হল সুপার, রোজারঘুনা সরকারী প্রাইমারী স্কুলের প্রধান শিক্ষক (চদা) ফয়েজ আরা বেগম সহকারী হল সুপার। এতে ১১টি মাদ্রাসার ২০৯ জন ছাত্র ২৮৬ জন ছাত্রী মোট ৪৯৫ জন পরিক্ষায় অংশ গ্রহণ করবে।
৪নং হ্নীলা আদর্শ সরকারী প্রাইমারী স্কুল কেন্দ্রে লেদা সরকারী প্রাইমারী স্কুলের প্রধান শিক্ষক নুর আহমদ কেন্দ্র সচিব, উপজেলা মহিলা বিষয়ক অফিসার সওকত হোসেন ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা, কাটাখালী সরকারী প্রাইমারী স্কুলের প্রধান শিক্ষক কুতুব উদ্দিন হল সুপার, নয়াপাড়া সরকারী প্রাইমারী স্কুলের প্রধান শিক্ষক (চদা) মোঃ জসিম উদ্দিন সহকারী হল সুপার। এতে ১৭টি স্কুলের ২৮১ জন ছাত্র ৩২২ জন ছাত্রী মোট ৬০৩ জন পরিক্ষায় অংশ গ্রহণ করবে।
৫নং লেঙ্গুরবিল সরকারী প্রাইমারী স্কুল কেন্দ্রে প্রধান শিক্ষক শাহাদত আলী কেন্দ্র সচিব, উপজেলা সমাজসেবা অফিসার মোঃ সিরাজ উদ্দিন ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা, শাহপরীরদ্বীপ উত্তরপাড়া সরকারী প্রাইমারী স্কুলের প্রধান শিক্ষক শশাংক মোহন পাল হল সুপার, বড় হাবিরপাড়া সরকারী প্রাইমারী স্কুলের প্রধান শিক্ষক (চদা) নীলা সরকার সহকারী হল সুপার। এতে ৫টি স্কুলের ১২৭ জন ছাত্র ১২৩ জন ছাত্রী এবং ২টি মাদ্রাসার ২৫ জন ছাত্র ৩৭ জন ছাত্রী মোট ৭টি প্রতিষ্টানের ৩১২ জন পরিক্ষায় অংশ গ্রহণ করবে।
৬নং হামিদিয়া সরকারী প্রাইমারী স্কুল কেন্দ্রে প্রধান শিক্ষক নুর হোসেন কেন্দ্র সচিব, একাডেমিক সুপারভাইজার মোঃ নুরুল আবসার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা, বার্মিজ সরকারী প্রাইমারী স্কুলের প্রধান শিক্ষক (চদা) মোহাম্মদ হাবিব উল্লাহ হল সুপার, চৌধুরীপাড়া হাজী ইসলাম-শাহজাহান সরকারী প্রাইমারী স্কুলের প্রধান শিক্ষক (চদা) আবদুল আলীম সহকারী হল সুপার। এতে ৫টি স্কুলের ৭৭ জন ছাত্র ৭২ জন ছাত্রী এবং ৩টি মাদ্রাসার ১৬ জন ছাত্র ১০১ জন ছাত্রী মোট ৮টি প্রতিষ্ঠানের ২৬৬ জন পরিক্ষায় অংশ গ্রহণ করবে।
৭নং সাবরাং সরকারী প্রাইমারী স্কুল কেন্দ্রে প্রধান শিক্ষক আনিস উল্লাহ কেন্দ্র সচিব, ইউআরসির ইন্সট্রাক্টর মোঃ ইলিয়াছ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা, হাবিরছড়া সরকারী প্রাইমারী স্কুলের প্রধান শিক্ষক মমতাজ আহমদ হল সুপার, বিজিবি-পাবলিক সরকারী প্রাইমারী স্কুলের প্রধান শিক্ষক (চদা) বিন্দু লাল চাকমা সহকারী হল সুপার। এতে ১৩টি স্কুলের ২৬৮ জন ছাত্র ২৮২ জন ছাত্রী এবং ২টি মাদ্রাসার ২৮ জন ছাত্র ৪৭ জন ছাত্রী মোট ১৫টি প্রতিষ্ঠানের ৬২৫ জন পরিক্ষায় অংশ গ্রহণ করবে।
৮নং শাহপরীরদ্বীপ সরকারী প্রাইমারী স্কুল কেন্দ্রে প্রধান শিক্ষক কলিমুল্লাহ কেন্দ্র সচিব, সহকারী শিক্ষা অফিসার আশীষ বোস ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা, রাজারছড়া সরকারী প্রাইমারী স্কুলের প্রধান শিক্ষক মানিক মিয়া হল সুপার, চান্দলীপাড়া সরকারী প্রাইমারী স্কুলের প্রধান শিক্ষক (চদা) জাকের হোসেন সহকারী হল সুপার। এতে ৬টি স্কুলের ১৪৪ জন ছাত্র ১০৪ জন ছাত্রী মোট ২২৭ জন পরিক্ষায় অংশ গ্রহণ করবে।
৯নং শামলাপুর সরকারী প্রাইমারী স্কুল কেন্দ্রে প্রধান শিক্ষক মোহাম্মদ উল্লাহ কেন্দ্র সচিব, পরিবার পরিকল্পনা অফিসার শ্রæতি পুর্ণ চাকমা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা, দৈংগাকাটা সরকারী প্রাইমারী স্কুলের প্রধান শিক্ষক (চদা) বিমল বড়–য়া হল সুপার, লাতুরীখোলা সরকারী প্রাইমারী স্কুলের প্রধান শিক্ষক ইয়াকুব আলী সহকারী হল সুপার। এতে ৫টি স্কুলের ৮৮ জন ছাত্র ১০৪ জন ছাত্রী এবং ৫টি মাদ্রাসার ১৭০ জন ছাত্র ২২৭ জন ছাত্রী মোট ১০টি প্রতিষ্ঠানের ৫৮৯ জন পরিক্ষায় অংশ গ্রহণ করবে।
১০নং বড়ডেইল সরকারী প্রাইমারী স্কুল কেন্দ্রে প্রধান শিক্ষক মোজাম্মেল হোছাইন কেন্দ্র সচিব, উপসহকারী প্রকৌশলী (জনস্বাস্থ্য) সনজিৎ কুমার মিত্র ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা, জব্বারিয়া শাহীন-শরীফ সরকারী প্রাইমারী স্কুলের প্রধান শিক্ষক (চদা) জাহেদুল ইসলাম হল সুপার, হরিখোলা সরকারী প্রাইমারী স্কুলের প্রধান শিক্ষক (চদা) আবদুল মোত্তালিব সহকারী হল সুপার। এতে ৮টি স্কুলের ৯০ জন ছাত্র ১২৫ জন ছাত্রী এবং ৩টি মাদ্রাসার ৪৯ জন ছাত্র ৫৯ জন ছাত্রী মোট ১১টি প্রতিষ্ঠানের ৩২৩ জন পরিক্ষায় অংশ গ্রহণ করবে।
১১নং জিনজিরা (সেন্টমার্টিনদ্বীপ) সরকারী প্রাইমারী স্কুল কেন্দ্রে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মোঃ রফিক কেন্দ্র সচিব, একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্পের সমন্বয়কারী মোঃ ছানাউল্লাহ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা, শাহপরীরদ্বীপ মাঝেরপাড়া সরকারী প্রাইমারী স্কুলের প্রধান শিক্ষক (চদা) মোঃ শরীফ হল সুপার, জাদীমুরা সরকারী প্রাইমারী স্কুলের প্রধান শিক্ষক (চদা) শাকের আহমদ সহকারী হল সুপার। এতে ৩টি স্কুলের ৬৬ জন ছাত্র ৪৩ জন ছাত্রী মোট ১০৯ জন পরিক্ষায় অংশ গ্রহণ করবে।
১২নং টেকনাফ মডেল সরকারী প্রাইমারী স্কুল কেন্দ্রে প্রধান শিক্ষক এইচএম কামাল কেন্দ্র সচিব, উপজেলা প্রাণীসম্পদ অফিসার ডাঃ মোঃ শওকত আলী ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা, হ্নীলা বার্মিজ সরকারী প্রাইমারী স্কুলের প্রধান শিক্ষক শামসুদ্দিন হল সুপার, আলীআকবরপাড়া সরকারী প্রাইমারী স্কুলের প্রধান শিক্ষক আমান উল্লাহ সহকারী হল সুপার। এতে ১৮টি স্কুলের ৩৪৩ জন ছাত্র ৩৫৯ জন ছাত্রী এবং ৬টি মাদ্রাসার ৭৭ জন ছাত্র ৯৯ জন ছাত্রী ২৪টি মোট প্রতিষ্টানের ৮৭৮ জন পরিক্ষায় অংশ গ্রহণ করবে।
উল্লেখ্য, ২০১২ সনে মোট পরিক্ষার্থীর সংখ্যা ছিল ৩ হাজার ৮১৬ জন, ২০১৩ সনে ছিল ৩ হাজার ৭১২ জন, ২০১৪ সালে ছিল ৪ হাজার ৫৯৩ জন এবং ২০১৫ সালে ৫ হাজার ৬৭৭ জন, ২০১৬ সালে ৫ হাজার ৩৩৮ জন, ২০১৭ সনে মোট পরিক্ষার্থীর সংখ্যা ছিল ৫ হাজার ৬৩১ জন, ২০১৮ সনে মোট পরিক্ষার্থীর সংখ্যা ছিল ৫ হাজার ৫৮৮ জন। ##


সর্বশেষ সংবাদ