টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!

৭ নং বিপদ সংকেত চলাকালে টেকনাফে ব্রীজের ছাদ ঢালাই

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : বুধবার, ১৫ মে, ২০১৩
  • ১৪৫ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

হাফেজ মুহাম্মদ কাশেম,টেকনাফ :
৭ নং বিপদ সংকেত চলাকালে টেকনাফে একটি ব্রীজের ঢালাই কাজ চলছে। দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রানালয়ের অর্থায়নে প্রায় ২০ লক্ষ টাকা ব্যয়ে টেকনাফ সদর ইউনিয়নের হাতিয়ার ঘোনা রাস্তায় এ ব্রীজ নির্মিত হচ্ছে। ১৫ মে ৭ নং বিপদ সংকেত ঘোষিত হওয়ার পর টিকাদার তড়িগড়ি করে প্রকৌশলীর উপস্থিতি ছাড়াই ব্রীজের ঢালায় কাজ করায় এলাকায় মানুষের মধ্যে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। উল্লেখ্য সংরক্ষিত বনাঞ্চল থেকে অবৈধভাবে নিম্মমানের পাথর আহরণ করে ব্রীজ নির্মাণ করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। টেকনাফ উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিসার (পিআইও) মোঃ জহিরুল ইসলাম অভিযোগের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। জানা যায়- দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক সহায়তায় টেকনাফ সদর ইউনিয়নের হাতিয়ারঘোনা কবরস্থানের দক্ষিণ পার্শ্বে পূর্ব দিকে করাচীপাড়ার মাথায় ৩৩ ফুট বিশিষ্ট ব্রীজ নির্মাণ করার উদ্যোগ নিয়ে দরপত্র আহবান করে। ব্রীজের প্রাক্কলিত ব্যয়-বরাদ্দ ছিল ২১ লাখ ৭০ হাজার ৭৬৪ টাকা । ৫ পার্সেন্ট কমে উক্ত ব্রীজ নির্মানের কাজটি পেয়েছে মেসার্স বিসমিল্লাহ এন্টারপ্রাইজ । চুক্তিমূল্য ছিল ২০ লাখ ৬২ হাজার ২২৫ টাকা । ২১ জানুয়ারী কার্যাদেশ দিয়ে ২১ মার্চ কাজ শেষ করার কথা ছিল । কিন্তু এখনও কাজ শেষ হয়নি। ৬ এপ্রিল অতি দরিদ্রদের জন্য কর্মসংস্থান কর্মসূচী ২য় পর্যায়” প্রকল্পের টেকনাফ সদর ইউনিয়নের প্রকল্প সমূহের উদ্ধোধন করতে গিয়ে উক্ত ব্রীজও পরিদর্শন করা হয়। তৎকালীন ইউএনও (ভারপ্রাপ্ত)আব্দুল্লাহ আল মামুন, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) মোঃ জহিরুল ইসলাম, উপজেলা সমাজসেবা অফিসার ও সদর ইউনিয়নের তদারকি কর্মকর্তা মোঃ আবদুল মান্নান , সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নুরুল আলম এবং মিডিয়াকর্মীগণ এ সময় উপস্থিত ছিলেন । পরিদর্শনকালে দেখা যায়- ঠিকাদার এবং প্রকৌশলীর উপস্থিতি ছাড়াই ব্রীজের কাজ চলছে। এ সময় ব্রীজ নির্মাণ কাজে ব্যবহৃত ও সংগৃহিত পাথর একজন মিডিয়াকর্মী দাঁতে ভেঙ্গে উপস্থিত কর্মকর্তাদের দেখান। এপ্রসঙ্গে জানতে চাইলে টেকনাফ সদর ইউনিয়নের ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ নুরুল আলম জানান- নিম্মমানের পাথর ব্যবহার করে ব্রীজ নির্মান করায় কাজ কিছুদিন বন্ধ রাখা হয়েছিল। স্থানীয় বাসিন্দাগণ জানান- ব্রীজটি যোগাযোগের ক্ষেত্রে অত্যন্ত জরুরী গুরুত্বপূর্ন অবদান রাখবে। কিন্তু ঠিকাদার নিকটস্থ সংরক্ষিত বনাঞ্চল থেকে অবৈধভাবে পাথর এনে এবং নিম্মমানের পাথর মিশিয়ে কাজ করছে। ফলে গুরুত্বপূর্ন এই ব্রীজটির স্থায়ীত্ব নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। এব্যাপারে জানতে চাইলে টেকনাফ উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) মোঃ জহিরুল ইসলাম পাহাড় থেকে আহরণকৃত পাথর পাথরগুলো সরিয়ে ফেলতে নির্দেশ দেয়া হয়েছিল। তাছাড়া তিনি ব্রীজের ঢালায় কাজ করার সত্যতা স¦ীকার করেছেন। দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের মহাপরিচালক ও প্রকল্প পরিচালকের নির্দেশনা ছিলÑ ব্রীজের যাবতীয় এবং সংযোগ সড়কের কাজ স¤পন্ন করে ১০মে’র মধ্যে পুর্ণাঙ্গ প্রাক্কলণ ছবিসহ মন্ত্রণালয়ে পাঠানো। ====

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Comments are closed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT