টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!

১০০ মুফতির বিবৃতি : সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ইসলামবিদ্বেষী ও ধর্মদ্রোহীদের প্রত্যাখ্যান করুন

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : বুধবার, ২৯ মে, ২০১৩
  • ১২৬ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

প্রেসবিজ্ঞপ্তি:  দেশের ১০০ জন বিশিষ্ট ইসলামি আইনগবেষক মুফতি এক যুক্ত বিবৃতিতে শাহজালালের পূণ্যভূমি সিলেট, শাহমখদুমের রাজশাহী, খান জাহান আলীর খুলনা, অলি-আউলিয়া বরিশাল ও গাজীপুরের আসন্ন সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মহান আল্লাহ তা’য়ালার ওপর যাদের আস্থা নেই, প্রিয়নবী সা. এর শানে যারা বেয়াদবী করে, তাদের পক্ষে অবস্থান নিয়ে যারা নবীপ্রেমিক তাওহীদি জনতার ওপর চালিয়ে মানুষ হত্যা করে সেসব ইসলামবিদ্বেষী ও ধর্মদ্রোহী, নাস্তিক্যবাদী গোষ্ঠীকে ব্যালটের মাধ্যমে প্রত্যাখ্যান করার জন্য সংশ্লিষ্ট সিটি এলাকার জনগণের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। বিবৃতিতে মুফতিগণ বলেন, যে গোষ্ঠী প্রকাশ্যে শাহবাগী নাস্তিকদের পক্ষে অবস্থান নিয়ে আমাদের প্রিয়নবী সা. এর অবমাননাকারীদের আশ্রয়-প্রশয় দিয়েছে। বিগত ৫ মে শাপলা চত্বরে রাতের অন্ধকারে আলিম-হাফেজ-মুফতি-মুহাদ্দেস ও নবীপ্রেমিক জনগণের বুকে গুলি চালিয়ে শহীদ করেছে, হাজার হাজার মানুষকে পঙ্গু করে দিয়েছে, তাদের পক্ষে কোনো নবীপ্রেমিক সমর্থন দিতে পারে না। ইসলামি শরীয়তের দৃষ্টিতে তারা নাস্তিকদের সহযোগী। এদের ভোট নির্বাচিত করার প্রকারান্তরে ইসলামের শত্র“দের সহায়তার শামিল।
অতএব, আসন্ন সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মহান আল্লাহ তা’য়ালা এবং বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মদ সা. এর শান বুলন্দ রাখা এবং পবিত্র কুরআনের মর্যাদা অক্ষুণœ রাখার লক্ষ্যে যেসব প্রার্থী নির্বাচিত হবার পর নাস্তিক-মুরতাদদের প্রতিহত করার প্রকাশ্যে ঘোষণা দেবে না তাদের পক্ষে আপনার মূল্যবান প্রদান করবেন না।
বিবৃতিতে মুফতিগণ আরও বলেন, যারা নির্বাচন এলে ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের ধর্মীয় অনুভূতিকে পুঁজি করে পাক্কা ধার্মিক সেজে দ্বীনের সেবক বনে যায়, মসজিদ-মাদরাসার অতিভক্ত সেজে বসেন। আসন্ন সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনসহ প্রতিটি গুরুত্বপূর্ণ নির্বাচনে তাদেরকে প্রত্যাখ্যান করুন। নির্বাচনের বৈতরণী পার হতে পারলেই এসব ধর্মব্যবসায়ী ক্ষমতার দাপটে আল্লাহ, রাসূল সা. ও ইসলামের শত্র“দের পক্ষে প্রকাশ্য অবস্থান নিতে দ্বিধা করে না। এরাই ধর্মবিদ্বেষী নাস্তিকদের লালন পালন করে, নবীপ্রেমিক জনতার বুকে গুলি চালাবার নির্দেশ দেয়। মুসলমানদের রক্তে কেনা পবিত্র এ মাতৃভূমিকে ধর্মপ্রাণ মুমিন-মুসলমানের রক্তে রঞ্জিত করে। সংবিধান থেকে ‘ধর্মের কালো ছায়া’ মুছে ফেলার হুঙ্কার দেয়। পর্দা-হিজাব, দাড়ি-টুপিসহ ইসলামের বিধান ও প্রতীকসমূহের অবমাননায় উস্কানি দেয়। দলীয় ক্যাডার দিয়ে পুলিশ পাহারায় কুরআন পোড়ায় এবং ভাড়াটে মিডিয়ার সুবাদে কুরআনপ্রেমিকদের ঘাড়ে দোষ চাপিয়ে জনগণকে বিভ্রান্ত করে ফায়দা লুটে।
এরাই আবার খোলস পাল্টে, নতুন পোষাকে ভোটারদের দ্বারে দ্বারে হাজির হবে, নিজেদেরকে ধার্মিক পরিচয় দেবে। তাদেরকে ব্যালটের মাধ্যমে প্রত্যাখ্যান করুন। ইসলামবান্ধব ও ধর্মপ্রাণ ব্যক্তিদের নির্বাচিত করে নাস্তিক-মুরতাদদের সমুচিত জবাব দেবার জন্যে দেশের সর্বস্তরের নবীপ্রেমিক জনতার প্রতি মুফতিয়ানে কেরাম আহ্বান জানান।
বিবৃতিদারা হলেন, মুফতি আজিজুল হক, মুফতি সাইফুল ইসলাম, মুফতি আবদুল মজিদ, মুফতি শোয়াইব, মুফতি মাসুমুর রহমান ফাহিম, মুফতি বেলালুদ্দিন, মুফতি জুনাইদুল ইসলাম, মুফতি শওকত আমিন, মুফতি মাহমুদুল হাসান, মুফতি মুহাম্মদ যাকারিয়া, মুফতি নাঈমুল ইসলাম, মুফতি ইশতিয়াক মাহবুব, মুফতি আবু তাহের মাসরুর, মুফতি আবদুর রহিম মুবারক, মুফতি মিজানুর রহমান, মুফতি তাসলিম হায়দার, মুফতি মুজিবুর রহমানসহ একশ’ জন ইসলামি আইনগবেষক।

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Comments are closed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT