টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!

হায়রে টেকনাফ পল্লী বিদুৎ

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : বুধবার, ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০১২
  • ১৬৭ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

হাফেজ মুহাম্মদ কাশেম… পল্লী বিদ্যুতের সেবা নিয়ে গ্রাহক সাধারণ ক্ষুদ্ধ হয়ে উঠছে। সউদি আরব প্রবাসী একজন গ্রাহক গত ১০ মাস ধরে চেষ্টা তদবির করেও কোন সমাধান পাননি বলে গুরুতর অভিযোগ পাওয়া গেছে। অথচ উক্ত গ্রাহক থেকে নগদ টাকাও নেয়া হয়েছে। জানা যায়- টেকনাফ সদর ইউনিয়নের উত্তর লেঙ্গুরবিল গ্রামের হাজী অলি আহমদের পুত্র সউদি আরব প্রবাসী আলহাজ্ব মাওঃ আব্দুল জলিল ্আরমান টেকনাফ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির আওতায় একজন গ্রাহক। তিনি নিয়মিত বিদ্যুৎ বিল পরিশোধ করে আসছেন। তাঁর নামে কোন বকেয়া বিদ্যুৎ বিল নেই। নিজস্ব জমির উপর নির্মিত সেমিপাকা বসত বাড়ির উপর দিয়েই তাঁর অনুপস্থিতিতে টানানো হয়েছে পল্লী বিদ্যুতের বিতরণী লাইন। গতবছর শেষের দিকে তিনি সউদি আরব থেকে দেশে এসে এই বিদ্যুৎ লাইনের জন্য বাড়ি নির্মাণ করতে পারেননি। এব্যাপারে গতবছর ডিসেম্বর মাসে টেকনাফ পল্লী বিদ্যুৎ অফিসে গিয়ে বিষয়টি অবহিত করা হয়। বিদ্যুৎ কর্মীদের পরামর্শ মতে অল্প দিনের মধ্যে খুঁটি সরানোর আশ্বাসের প্রেক্ষিতে ১৩ ডিসেম্বর ২০১১ রসিদ নং-৩০৭৫৩৪ মূলে সমীক্ষা ফি বাবদ দাবী মতে নগদ টাকা প্রদান করেন। এরপর অতিবাহিত হয়ে গিয়েছে দীর্ঘ ১০ মাস। খুঁটি সরানো তো দূরের কথা, এখনও সমীক্ষাই করা হয়নি। টাকা নিয়ে হলেও পল্লী বিদ্যুৎ গ্রাহকদের দ্রুত সেবা দিয়ে থাকে বলে দাবী ও প্রচার করে থাকে । কিন্তু প্রবাসী গ্রাহক দীর্ঘ ১০ মাসেও সামান্যতম সেবার মুখ দেখেননি। প্রবাসী মাওঃ আব্দুল জলিলের পরিবারিক সূত্র জানান- টিনের ছালার অতি নিকট দিয়েই লাইন টানা হয়েছে। সম্প্রতি বজ্রপাতের সময় শর্ট লেগে বাড়ির ফ্রিজ, আইপিএস সহ মূল্যবান সামগ্রী নষ্ট হয়ে গিয়েছে। বিষয়টি ও পল্লী বিদ্যুৎ অফিসকে অবহিত করা হয়েছে। তা সত্বেও তারা কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করেননি। এব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে টেকনাফ পল্লী বিদ্যুৎ অফিসের ডিজিএম জানান-আবেদনকারীর আবেদন গুরুত্ব সহকারে বিবেচনা করে প্রয়োজনীয় নথিপত্র দ্রুততার সহিত কক্সবাজার পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির প্রধান কার্যলয়ে পাঠানো হয়েছিল। উক্ত নথিপত্র ১৮ ডিসেম্বর ২০১১ ডকেট নং-৯৬৪ মূলে গৃহীত হয়েছে। তিনি আরও জানান- খুঁটি সরানোর এখতিয়ার বা ক্ষমতা টেকনাফ অফিসের নেই। বিষয়টি দেখাশোনা বা তদারক করে গ্রাহকদের সেবা দান করেন কক্সবাজার হেড অফিসের কামাল নামের একজন কর্মকর্তা। তাঁর মোবাইল নং-০১৭১৬৮২০৯০। টেকনাফ ডিজিএম এর পরামর্শ মতে তাঁর মোবাইল ফোনে বহুবার যোগাযোগ করা হয়েছে। তিনি ফোন রিসিভ করেই জবাব দেন-ভাই, আগামীকাল আসব। এভাবে দিন, সপ্তাহ, পক্ষ, মাস কেটে যাচ্ছে। আগামীকাল আর ফুরাচ্ছেনা।###

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT