টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!

হরতালে সারাদেশে গাড়ি ভাংচুর, বিক্ষিপ্ত সংঘর্ষ, আটক দেড়শ, আহত শতাধিক

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ৪ ডিসেম্বর, ২০১২
  • ৩০৭ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় গ্রেপ্তার শীর্ষ নেতাদের মুক্তি ও সভা-সমাবেশ করতে না দেয়ার দাবিতে ঢাকা হরতালের সমর্থনে দেশের বিভিন্ন স্থানে মিছিল করেছে জামাত-শিবিরকর্মীরা। এ সময় বেশকিছু গাড়িতে ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ করেন তারা। পুলিশ জামাত-শিবিরকর্মীদের সঙ্গে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও ইট পাটকেল নিক্ষেপ হয়। বিএনপি এ হরতালে নৈতিক সমর্থন দেয়। পুলিশের সঙ্গে জামাত-শিবিরকর্মীদের বিক্ষিপ্ত সংঘর্ষ হয়েছে। এখন পর্যন্ত ১৪৬ জনকে আটক করেছে পুলিশ। বিভিন্ন জেলা থেকে আমাদের সংবাদদাতা জানিয়েছেন, রাজশাহী: মঙ্গলবার সকালে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন বিনোদপুর এলাকায় জামায়াতে ইসলামী ও তার সহযোগী সংগঠন ইসলামী ছাত্রশিবিরের নেতাকর্মীরা সড়কে টায়ার জ্বালিয়ে অবরোধ সৃষ্টি করে। এ সময় পুলিশের সঙ্গে তাদের কয়েক দফা ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া হয়। এ সময় আহত হয় অন্তত পাঁচ জন। মতিহার থানার ওসি সানাউল হক বলেন, সকালে পুলিশ ক্যাম্পাসের নিরাপত্তার জন্য নিয়োজিত ছিল। হঠাৎ বিনোদপুর এলাকায় জামায়াত-শিবিরের নেতা-কর্মীরা হরতালের সমর্থনে ঝটিকা মিছিল বের করে। মিছিলে বাধা দিলে তারা পুলিশকে লক্ষ্য করে ঢিল নিক্ষেপ করে। এক পর্যায় বেশ কয়েকটি হাত বোমার বিস্ফোরণ ঘটায় তারা। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছোড়া হয় জানিয়ে ওসি বলেন, সেখান থেকে তিন জনকে আটক করা হয়েছে। এর আগে সোমবার রাতে নগরীর কাটাখালি এলাকায় জামায়াত-শিবিরের নেতা-কর্মীরা মিছিল বের করলে সেখান থেকে ছয় জনকে আটক করে পুলিশ। এদিন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে কোনো ক্লাস, পরীক্ষা হয়নি। হরতাল ঘিরে রাজশাহী নগরীতে ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়েছে পুলিশ। গুরুত্বপূর্ণ সব পয়েন্টে বিপুল সংখ্যক পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে বলে মহানগর পুলিশ কমিশনার এস এম মনির-উজ জামান জানান। ঠাকুরগাঁও: ঠাকুরগাঁওয়ে ঢিলেঢালা হরতাল পালিত হয়েছে। মঙ্গলবার সকাল থেকে সকল প্রকার ভারী যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকলেও রিক্সাসহ হালকা যান চলাচল স্বাভাবিক ছিল। দোকানপাট ও অফিস আদালত খোলা ছিল। ঠাকুরগাঁও পঞ্চগড় মহাসড়কে বেলা ১১টা পর্যন্ত বিআরটিসি বাস চলাচল করে। সকাল সাড়ে ১১টায় ওই সড়কের তেলিপাড়া নামক স্থানে শিবির কর্মীরা একটি বিআরটিসি বাস ও দু�টি ট্রাকে চোরাগুপ্তা হামলা চালিয়ে ভাংচুর করে। পিকেটারদের হামলায় মহিলাসহ ৪ যাত্রী আহত হন। তাদের ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ঢিলেঢালা হরতাল চলাকালে জামায়াত-শিবিরের নেতাকর্মীদের কোথাও পিকেটিং করতে দেখা দেখা যায়নি। তবে শহরের মোড়ে মোড়ে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন ছিল। পটুয়াখালী: দেশ ব্যাপী জামায়েতের ডাকা আহুত হরতালে পটুয়াখালীতে মঙ্গলবার ঢিলেঢালা ভাবে হরতাল পালিত হচ্ছে। সকাল থেকে পটুয়াখালী শহরের দোকান ও বিভিন্ন ব্যাবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকলেও বেলা বাড়ার সাথে দোকানপাট খুলতে শুরু করে। ঢাকা-বরিশালসহ পটুয়াখালীর সাথে দূরপাল্লার সব ধরনের বাস চলাচল বন্ধ থাকে। তবে জেলার অভ্যান্তরীণ রুটে গাড়ি চলাচল করলেও যাত্রীদের উপস্থিতি ছিল কম। সকালে বরিশাল পটুয়াখালী মহাসড়কে হরতাল সমর্থকরা কয়েকটি গাড়ি ভাংচুর করে বলে জানা গেছে। এ সময় রাস্তায় আগুন জ্বালিয়ে পিকেটিং করে তারা। যদিও ঢাকা থেকে পটুয়াখালী উদ্যেশ্যে ছেড়ে আসা সবগুলি যাত্রীবাহী লঞ্চ পটুয়াখালীতে এসে পৌছে যথা নিয়মে। অফিস আদালতে উপস্থিতি ছিল স্বাভাবিক। জেলার দুমকী ও মির্জাগঞ্জে কোথাও হরতাল পালনের খবর পাওয়া যায় নি। এ দিকে বেলা ১১ টায় পটুয়াখালী সরকারী কলেজে হরতাল বিরোধী মিছিল-সমাবেশ করে ছাত্রলীগ। কক্সবাজার: জামায়াতের ডাকা হরতাল চলাকালে কক্সবাজারে পুলিশ জেলা সদর ও বিভিন্ন উপজেলা শহর থেকে জামায়াত নেতা ডাক্তার শাহ আলমসহ ১৬ জনকে আটক করেছে পুলিশ। সকালে কক্সবাজার শহরের পাওয়ার হাউজ এলাকায় পিকেটাররা বেশ কয়েকটি গাড়ী ভাংচুর করে। অনন্ত ১০ টি পরিবহন ভাংচুর ছাড়াও শহরের বিভিন্ন স্থানে টায়ারে অগ্নিসংযোগ ও ভাংচুর চালিয়ে আতংক সৃষ্টি করে। দুপুরে শহরে ফজল মার্কেট এলাকায় পরপর ৩ টি ককটেল বিষ্ফোরণ ঘটে। সকালে কলেজের সামনে পুলিশের একটি ভাড়া করা চান্দের গাড়ীতে পিকেটাররা হামলা চালায়। তবে এ ঘটনায় কেউ আহত হয়নি। দুপুরে শহরে আওয়ামীলীগের উদ্যোগে হরতাল বিরোধী মিছিল করে। পরে জেলা প্রশাসকের কার্যালযের সামনে জামায়াত-শিবিরের হরতালের নামে নৈরাজ্য সৃষ্টির প্রতিবাদে মানববন্ধন করে আওয়ামীলীগ। সকালে হরতালের সমর্থনে শহর ও বিভিন্ন স্থানে জামায়াত শিবির ঝটিকা মিছিল করে। কক্সবাজারে দুরপাল্লার যানবাহন না চললেও রিক্সা-টমটম চলাচল স্বাভাবিক ছিল। শিক্ষা প্রতিষ্টান বন্ধ থাকলেও অফিস আদালতে উপস্থিতি ছিল কম। বগুড়া: জামাতের ডাকা হরতাল চলাকালে বগুড়ায় ৩টি যানবাহন ভাংচুর ও একটি ট্রাকে অগ্নি সংযোগের ঘটনা ঘটেছে। এ সময় পুলিশ বিভিন্ন এলাকাথেকে ১২ জন জামাত-শিবির কর্মীকে আটক করেছে। হরতাল চলাকালে কিছু রিক্সা, সিএনজি অটোরিক্সা, টেম্পু চলাচল করতে দেখা গেছে। মহাসড়কের কিছু ট্রাক চলাচল করতে দেখা গেলেও দূর পাল্লার যাত্রীবাহী কোচসহ আন্তজেলা বাস চলাচল করতে দেখা যায়নি। মার্কেট গুলি বন্ধ ছিল। হরতালের কারণে মঙ্গলবারের মাধ্যমিক পর্যায়ের বার্ষিক পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে। শহরের জিরো পয়েন্ট সাতমাথাসহ গুরুত্বপূর্ণ এলাকায় জামাত-শিবির কর্মীরা পিকেটিং করতে না পারলেও শহরতলী ও বিভিন্ন উপজেলায় মহাসড়কে ঝটিকা পিকেটিং করেছে। পিকেটিংএ জামাত-শিবিরের জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের শীর্ষ নেতাদের দেখা না গেলেও শিবির কর্মীরা সক্রিয় ছিল। বগুড়া সদর থানার পুলিশ পরিদর্শক জানান, সকাল ১০ টায় শহরতলীর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির সামনে বগুড়া রংপুর মহাসড়কে একটি ট্রাকে জামাত-শিবির কর্মীরা আগুন লাগিয়ে দেয়। এ সময় তারা বিদ্যুতের পোল ফেলে ও টায়ার জ্বালিয়ে রাস্তায় গাড়ী চলাচলের প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে গেলে হরতালকারীরা পালিয়ে যায়। এ সময় ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা গিয়ে আগুন নিভিয়ে ফেলে। ওই ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে মালগ্রাম মধ্যপাড়ার দুলাল হোসেনের পুত্র আব্দুর রহিম (১৮), মালগ্রাম উত্তর পাড়ার ছানোয়ার হোসেনের পুত্র আতিয়ার রহমান(২২) ও একই এলাকার হেলাল শেখের পুত্র মনির হোসেন (১৯) কে আটক করা হয়। শাজাহানপুরানার পুলিশ পরিদর্শক জানান, পিকেটিংএর সময় ফুলতোলা এলাকা থেকে আনোয়ার হোসেন (৬০) ও মারুফ (১৮) এবং গোহাইল এলাকার কাবাষট্রি থেকে ইদ্রিছ আলী (৪৫), মামুনুর রশিদ (১৯), মোস্তফা কামাল (১৮) ও আল আমিন (১৮) কে আটক করা হয়েছে। শাজাহানপুর উপজেলা গোহাইল ইউনিয়নের কাবাষট্রির এলাকায় বগুড়া নাটোর রোডে জামাত-শিবির কর্মীরা অবরোধ করলে যুবলীগ কর্মীরা সেখানে বাধার সৃষ্টি করে। এসময় জামাত-শিবিরের হামলায় গোহাইল ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি শ্যামল ও শাজাহানপুর উপজেলা যুবলীগ সদস্য আলী ইমাম আহত হয়। এসময় ওই এলাকা থেকে ৪ জন জামাত শিবির কর্মীকে ধরে পুলিশে সোপর্দ করা হয়। শিবগঞ্জ থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) জানান, বগুড়া রংপুর মহাসড়কের চকপাড়া নামক স্থানে জামাত-শিবির কর্মীরা রাস্তায় টায়ার জ্বালিয়ে অবরোধের চেষ্টা করে। এসময় পুলিশের ধাওয়ার মুখে তারা পালিয়ে যায়। ঘটনাস্থল থেকে ইছাহাক (৩০) নামের এক জামাত কর্মীকে আটক করা হয়। শেরপুর থানার পুলিশ পরিদর্শক জানায়, সকাল সাড়ে ৭টায় ঢাকা- বগুড়া মহাসড়কের শেরপুরের গাড়ীদহ এলাকায় গাছ ফেলিয়ে মহাসড়ক অবরোধ করে জামাত-শিবির নেতারা। এসময় পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) ঘটনাস্থলে গেলে তার প্রতি ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে, এতে পুলিশের গাড়ী ক্ষতিগ্রস্থ হয়। ঘটনার সময় ঢাকা থেকে বগুড়া গামী একটি ট্রাকও ভাংচুর করা হয়। পরে পুলিশ তাদের লাঠিচার্জ করে ছত্রভঙ্গ করে দেয়। ঘটনাস্থল থেকে গাড়ীদহ ইউনিয়ন জামাতের কর্ম পরিষদ সদস্য তবিবর রহমান (৪৫) কে গ্রেফতার করা হয়। সকাল ৮টায় শেরুয়া বটতলা এলাকায় জামাত-শিবির কর্মীরা আরো দুটি ট্রাক ভাংচুর করে। দুপচাঁচিয়া থানার পুলিশ পরিদর্শক জানান, ভোরে জামাত দুপচাঁচিয়ায় হরতালের সর্মনে মিছিল বের করলে পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে পালিয়ে যায়। এসময় টিএনও অফিস বাসষ্ট্যান্ড থেকে আব্দুল জলিল(৪০) নামের এক জামাত কর্মীকে আটক করা হয়। গাজীপুর: গাজীপুরে মঙ্গলবারের হরতালে ভোর থেকেই জেলার বিভিন্ন স্থানে জামাত ও শিবিরের নেতা কর্মীরা পিকেটিং ও বিক্ষোভ মিছিল করেছে। এ সময় আওয়ামীলীগ নেতা কর্মীদের হামলায় ছাত্রশিবিরের তিন কর্মী গুরুতর আহত হয়। আহতরা হলো মামুন (১৮), আব্দুল্লাহ (২২) , জামাল (২১)ও কাইয়ুম (২০)। পিকেটিংয়ের সময় একটি যাত্রীবাহী বাসে আগুন ও বেশ কয়েকটি গাড়ি ভাংচুর করা হয়। এ সময় এক শিবির কর্মীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তার নাম মাফিজুর রহমান (২৩) । জানা গেছে, দেশব্যাপী জামায়াতে ইসলামীর ডাকা হরতালে গাজীপুরের টঙ্গী , বোর্ড বাজার ,চৌরাস্তা , তিনসড়ক ,নাওজোর , কোনাবাড়ি , পোড়াবাড়িসহ জেলার বিভিন্ন স্থানে পিকেটিং করেছে জামাত ও শিবিরের নেতা কর্মীরা। এ সময় তারা গাজীপুরের হোসেন মার্কেট এলাকায় সু-প্রভাত পরিবহনের একটি যাত্রীবাহী বসে আগুন দেয়। পরে জয়দেবপুর শাহরের তিনসড়ক এলাকায় বিআরটিসির একটি দুইতলা বাস , একটি ট্রাক ও কয়েকটি লেগুনা ভাংচুর করেছে। বেলা ১১ টার দিকে বোর্ড বাজার এলাকায় পিকেটাররা হরতালের সমর্থনে মিছিল করে। এ সময় তারা ৬/৭ টি গাড়ী ভাংচুর করে। এছাড়া ঢাকা-টাঙ্গাইল ও ঢাকা ময়মনসিংহ মহাসড়কের বিভিন্ন স্থানে বিক্ষোভ , পিকেটিং ও গাড়ি ভাংচুরের সংবাদ পাওয়া গেছে। গাজীপুরের চৌরাস্তা এলাকায় পিকেটিংয়ের সময় স্থানীয় আওয়ামীলীগ ও ছাত্রলীগের নেতা কর্মীরা রড ও দেশীয় অস্ত্র নিয়ে হামলা চালায়। এতে শিবিরের ৪ কর্মী গুরুতর আহত হয়। আহতদের স্থানীয় ক্লিনিকে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। এদিকে সকালের দিকে কিছু সংখ্যক যানবাহন রাস্তায় চলাচল করলে মহাসড়ক গুলোতে কোন দুরপাল্লার যানবাহন চলাচল করেনি। বেলা বাড়ার সাথে সাথে বাস চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। সড়ক মহাসড়ক গুলোতে স্বল্পমাত্রায় লেগুনা , অটোরিক্সা , সিএনপি , টেম্পু চলাচল করতে দেখা গেছে। মার্কেট শপিংমল গুলোতে অধিকাংশ দোকানপাট বন্ধ ছিল। অফিস আদলাত খোলা থাকলেও উপস্থিতির সংখ্যা ছিল কম। শহারের গুরুত্বপূর্ন এলাকাগুলোতে বিপুল সংখ্যাক র‌্যাব, পুলিশ ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য মোতায়ন রয়েছে। গোপালগঞ্জ: যুদ্ধাপরাধের মামলায় অভিযুক্ত শীর্ষ নেতাদের মুক্তিসহ বিভিন্ন দাবীতে মঙ্গলবার সারা দেশে ডাকা জামায়াতের সকাল-সন্ধ্যা হরতাল গোপালগঞ্জ জেলায় পালিত হয়ে নি। হরতালের সমর্থনে কোথাও কোন মিছিল, মিটিং, পিকেটিং করতে দেখা যায়নি। সরকারী-বেসরকারী অফিস ছিল খোলা। প্রতিদিনের মত যথারীতি লেনদেন চলেছে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি ছিলো স্বাভাবিক। তবে গোপালগঞ্জ থেকে মহাসড়ক দিয়ে ঢাকাসহ অন্যান্য জেলায় দুরপাল্লার কোন বাস চলাচল করেনি। জেলার আভ্যন্তরীণ রুটে যান চলাচল ছিল স্বাভাবিক। মৌলভীবাজার : মৌলভীবাজারে জামায়াতের ডাকা হরতাল সফল করতে জামায়াত-শিবিরের নেতা-কর্মীরা আজ সকাল ৯টায় বিচ্ছিন্ন ভাবে শহরের চৌমুহনা পয়েন্ট, ভৈরববাজার, তালতলা পয়েন্ট, শমসেরনগর সড়কের শাহ মোস্তফা কলেজ সম্মুখে ও জগন্নাথপুর পয়েন্টে পিকেটিং করেন। এসময় পুলিশের সাথে ধাওয়া-পাল্টা শুরু হয় এবং টায়ার জ্বালানো হয়। মৌলভীবাজার শিবিরের শহর সভাপতি মোঃ আজিম উদ্দিন জানান,জেলার বড়লেখা উপজেলা থেকে আজ বেলা ৯টায় পিকেটিং থেকে উপজেলা সেক্রেটারী রুহুল আমীন সুমনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। পিকেটিং এর সময় ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ায় জুড়ি উপজেলা সেক্রেটারী শাহাবুদ্দিন সহ ৫ কর্মী আহত হয়েছেন। হাটাহাজারী: যুদ্ধাপরাধে অভিযুক্ত জামাতের শীর্ষ নেতাদের মুক্তির দাবীতে বায়তুল মোকারমের উত্তর গেইটে পূর্ব ঘোষিত সমাবেশ ও কর্মসূচি পালনে পুলিশের বাধা প্রতিবাদে ডাকা পূর্ণ দিবস হরতালে কোন প্রভাব পড়েনি উত্তর চট্টগ্রামের হাটহাজারীতে। বলতে গেলে নিরুতাপ হরতাল পালিত হয়েছে। হাটহাজারী উপজেলা জামাত-শিবিরের কোন নেতাকর্মীদের হরতাল সমর্থনে কোন প্রকার মিটিং-মিশিল ও পিকেটিং করতে দেখা যায়নি। তবে আইন শৃখলা বাহিনীর সদস্যরা উপজেলা সর্বস্থরে তাদের নিয়মিত টহল অব্যাহত ছিল। হাটহাজরী পৌরসভা ও উপজেলার ১৪ ইউনিয়নের জামাত-শিবিরের কোন নেতাকর্মীদের মাঠে দেখা যায়নি। চট্টগ্রাম-খাগড়াছড়ি-রাঙ্গামাটি সড়কে যান চলাচল ছিল স্বাভাবিক। তবে দূর পালার ভারী যান চলাচলের সংখ্যা কম ছিল। স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি ছিল বেশ। তবে স্কুল-কলেজের কোন প্রকার পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়নি। উপজেলার প্রায় সবকটি ব্যাংক-বীমা, ইন্সুরেন্স অফিস, কো-অপারেটিভ, বেসরকারী ও স্বয়িত্বশাসিত অফিস গুলোর কার্যক্রমও স্বাভাবিক থাকলেও তেমন বেশি গ্রাহক সমাগম চোখে পড়েনি। উপজেলার হাট-বাজার, শপিং মল ও দোকান-পাট ক্রেতা সমাগমও কম ছিল। সরকারী অফিস গুলোতে কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের অফিসে আসতে কোন প্রকার বেগ পেতে হয়নি বলে জানা গেছে। এই ব্যাপারে হাটহাজারী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ এ.কে.এম লিয়াকত আলী এই প্রতিবেদককে জানান, জামাত-শিবিরের ডাকা হরতালে হাটহাজারীতে কোন প্রভাব পড়েনি। তাছাড়া এ দলের কোন নেতা কর্মীদের হরতালের পক্ষে কোন কার্যক্রম আমার চোখে পড়েনি। তবে সকালে চারিয়া বুড়িপুকুর পাড় এলাকায় কিছু সংখ্যক জামাত-শিবিরের নেতাকর্মীদের হরতাল সমর্থনে মিশিল ও চট্টগ্রাম-খাগড়াছড়ি সহাসড়কে পিকেটিং করতে চাইলে পুলিশ তাদেরকে ধাওয়া করলে তারা পালিয়ে যায়। পাবনা ঃ জেলার ঈশ্বরদী উপজেলার ছলিমপুর ইউনিয়নের মিরকামারী চাঁদআলী মোড়ে জামাত কর্মীদের সাথে পুলিশের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। স্থানীয়রা জানায়, হরতালের সমর্থনে লাঠিসোটা ও দেশীয় ধরালো অস্ত্র নিয়ে জামাত কর্মীরা মিছিল বের করে। এসময় পুলিশ বাধা দিলে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার সময় ঈশ্বরদী সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) রাশেদুল হক, হৃদয়ে মাটি ও মানুষ কৃষক সমবায় সমিতির সাবেক সাধারন সম্পাদক ও জাতীয় কৃষক আব্দুল জলিল ওরফে লিচু কিতাব মন্ডল, আওয়ামীলীগকর্মী আমজাদ ইটপাটকেলের আঘাতে কমবেশী আহত হন। পরে আওয়ামী লীগ ও যুবলীগ কর্মিরা হরতাল বিরোধী একটি মোটর সাইকেল মিছিল বের করে এবং মিছিলকারীরা ছলিমপুর ইউনিয়ন জামাত অফিসে আগুন ধরিয়ে দেয় ও ভাংচুর করে। তবে তেমন ক্ষয়ক্সতি হয়নি বলে জানা গেছে। কুড়িগ্রাম : হরতালের পক্ষে নেতা-কর্মীদের মিছিল-মিটিং-সমাবেশ ও পিকেটিং ছাড়াই কুড়িগ্রামে ঢিলেঢালা ও শান্তিপূর্ণভাবে জামায়াত-শিবিরের ডাকা মঙ্গলবারের সকাল-সন্ধ্যা হরতাল পালিত হয়েছে। হরতালে পিকেটিং করার প্রস্তুতিকালে ও নাশকতা সৃষ্টি করার অভিযোগে সোমবার দুপুরে ও গভীর রাতে উলিপুর থেকে উপজেলা জামায়াতের আমীর আব্দুল আজিজ সহ ৫ জামায়াত-শিবির নেতা-কর্মীকে আটক করেছে পুলিশ। বাকী আটককৃতরা হচ্ছে, উপজেলা প্রচার ও সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল কাদের, জামায়াত সদস্য শহিদুল ইসলাম, মিনহাজুল ইসলাম ও শিবির কর্মী আব্দুস সালামকে আটক করেছে পুলিশ। এছাড়াও সকাল ৮টার দিকে কুড়িগ্রাম-ভুরুঙ্গামারী সড়কের পাটেশ্বরী বাজার এলাকায় জামায়াত-শিবির নেতা-কর্মীরা রাস্তার মাঝে গাছের গুড়ি ফেলে ও টায়ারে আগুন জালিয়ে দিয়ে যান চলাচল বন্ধ করে দেয়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গেলে নেতা-কর্মীরা পালিয়ে যায়। পরে পুলিশ গাছের গুড়িগুলো জব্দ করে থানায় নিয়ে আসে। এদিকে হরতাল চলাকালে শহরের সড়কগুলোতে রিক্সা, ব্যাটারী চালিত অটো রিক্সা, মটর সাইকেল, সাইকেল, অভ্যন্তরীণ রুটের যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক থাকলেও দূর পাল্লার কোন যানবাহন কুড়িগ্রাম ছেড়ে যায়নি। অফিস-আদালত, ব্যাংক-বীমা, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলা থাকলেও উপস্থিতি তুলনামূলকভাবে কম ছিল। শহরের সাগর সুপার মার্কেট, কুড়িগ্রাম সুপার মার্কেট, এরআরপ্লাজা মার্কেট, নছর উদ্দিন মার্কেট, জেলা পরিষদ মার্কেট, সরদার গার্ডেন সিটি, ধরলা সুপার মার্কেট এর ব্যবসা প্রতিষ্ঠান সকাল ১১টা পর্যন্ত বন্ধ ছিল। বেলা বাড়ার সাথে সাথেই সবকিছু স্বাভাবিক হয়ে এসেছে। অপরদিকে মঙ্গলবার সকাল থেকেই পুলিশ চামরাগোলাস্থ জেলা জামায়াতের কার্যালয় অবরুদ্ধ করে রাখে। আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনী জামায়াত-শিবিরের কোন নেতা-কর্মীকে রাস্তায় নামতে দেয়নি। তবে অনাকাঙ্খিত ঘটনা এড়াতে ভোর রাত থেকেই শহরের মোড়ে মোড়ে ও স্পর্শকাতর স্থানগুলোতে বিপুল পরিমান দাঙ্গা পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। কুড়িগ্রাম সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ময়নুল হক পাটেশ্বরী বাজারের সড়ক অবরোধ ও উলিপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনোয়ার হোসেন পৃথক পৃথক ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন- এছাড়া কোথাও আর কোন অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি। পাবনা ঃ ঢাকা-পাবনা মহাসড়কের পুষ্পপাড়া নতুনপাড়া এলাকায় আজ সকাল ৯টার দিকে মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করছে হরতাল সমর্থনকারী জামায়াত-শিবির নেতাকর্মীরা। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বিক্ষোভকারীরা সড়কের মাঝখানে টায়ার জ্বালিয়ে অবরোধ করলে অটোরিকসা, লেগুনা সহ লোকাল যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এসময় পিকেটাররা একটি সিএনজি চালিত লেগুনা যানবাহন ভাংচুর করে। স্থানীয়রা জানান, পুষ্পপাড়া-নতুনপাড়া এলাকায় জামায়াত-শিবিরের নেতাকর্মিরা ঢাকা-পাবনা মহাসড়কে অবস্থান নিলে সেখানে অবস্থানরত পুলিশের সাথে তাদের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। সকাল সাড়ে ১০টায় এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত মহাসড়কের পূর্ব অংশে জামায়াত-শিবিরের নেতাকর্মীরা ও পশ্চিম অংশে পুলিশ-র‌্যাব অবস্থান করছিল। এদিকে, সকাল আটটার দিকে শহরের বিআরটিসি ডিপো এলাকা থেকে হরতাল সমর্থনে জামায়াত-শিবিরের নেতাকর্মীরা মিছিল বের করে। মিছিলটি বাংলা ক্লিনিকের কাছে পৌঁছালে বিপরীত দিক থেকে আসা র‌্যাবের একটি টহল দল মিছিলকারীদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। সকাল থেকেই পাবনা শহরের সকল দোকানপাট বন্ধ রয়েছে। পুরাতন বাসষ্ট্যান্ড ও কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল থেকে দূরপাল্লার কোন যানবাহন চলাচল করেনি। শহরের গুরুত্বপূর্ণ স্থানসমূহে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। র‌্যাবের টহল দল শহরের বিভিন্ন স্থানে টহল দিচ্ছে। এদিকে জেলার ৬ উপজেলার বিভিন্ন স্থানে পৃথক অভিযান চালিয়ে জামায়াত-শিবিরের ২৫ নেতাকর্মীকে আটক করেছে পুলিশ। হরতালে নাশকতার আশঙ্কায় সোমবার মধ্যরাত থেকে মঙ্গলবার সকাল সাতটা পর্যন্ত অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়। সংশ্লিষ্ট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তারা জানান, সদর উপজেলায় ৯ জন, আটঘরিয়ায় ৪ জন, চাটমোহরে ১ জন, ঈশ্বরদীতে ৪ জন, সাঁথিয়ায় ৫ জন ও সুজানগরে ২ জনকে আটক করে পুলিশ। আটককৃতরা স্থানীয় জামায়াত-শিবিরের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মী বলে পুলিশ জানায়। ভোলা: জামায়াতে ইসলামী কর্তৃক আহুত সারা দেশ ব্যাপী হরতাল আহবান করলেও ভোলা জেলার কোথায়ও হরতাল পালিত হয়নি। যোগাযোগ ব্যাবস্থা বাস, অফিস আদালত, স্কুল ও মাদ্রাসার পরীক্ষা স্বাভাবিক ছিল। অনাকাংখিত ঘটনা এড়াতে পুলিশ পুর্ব প্রস্তুতি নিয়েছে বলে প্রশাসন জানিয়েছেন। পুলিশের টহল অব্যাহত রয়েছে। ময়মনসিংহ: শহর ও উপজেলা পর্যায়ে জামায়াত-শিবিরের নেতাকর্মীদের বাড়িতে ব্যাপক অভিযান চালায় পুলিশ। সোমবার রাতে কোতোয়ালী থানার পুলিশ শহরের কেওয়াটখালী এলাকায় অভিযান চালিয়ে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত সহকারি রেজিস্ট্রার নুরুল ইসলাম খানকে তার বাসা থেকে গ্রেফতার করে। এছাড়া নান্দাইল থানা পুলিশ জামায়াতের কর্মী মাওলানা খলিলুল্লাহ ও জসীমউদ্দিনকে তাদের বাড়ি থেকে গ্রেফতার করেছে। চট্টগ্রাম:বন্দরনগরী চট্টগ্রামে জামায়াতে ইসলামীর ডাকা হরতালে পিকেটাররা কয়েকটি যান ভাংচুর করেছে। হরতালে নৈরাজ্য সৃষ্টির চেষ্টাকালে নগরীর বিভিন্ন এলাকা থেকে মঙ্গলবার বেলা এগারটা পর্যন্ত পাঁচ শিবিরকর্মীকে আটক করেছে পুলিশ। সকাল থেকেই শিবিরকর্মীরা নগরীর চাক্তাই নতুন ব্রিজ, চকবাজার, নাসিরাবাদ হাউজিং, মাঝিরঘাট, বন্দর এলাকায় মিছিল করার চেষ্টা করে। এ সময় পুলিশ তাদের ধাওয়া করে। কোতয়ালী জোনের সহকারী কমিশনার আবদুল মান্নান জানান, সকালে নতুন ব্রিজ এলাকায় শিবিরকর্মীরা দুটি অটোরিকশা ভাংচুর করে। এসময় এক শিবিরকর্মীকে আটক করা হয়েছে। এছাড়া হরতাল সমর্থকরা আরো কয়েকটি স্থানে যানবাহন ভাংচুর করে। খুলশী থানার ওসির গাড়ি লক্ষ্য করে ইট নিক্ষেপ করা হয়। নগরীর পাঁচলাইশ জোনের সহকারী কমিশনার মনজুর মোরশেদ জানান, সকাল সাড়ে দশটার দিকে নাসিরাবাদ হাউজিং এলাকায় মিছিলের চেষ্টা করলে পুলিশ তাদের ধাওয়া দেয়। পালিয়ে যাবার সময় দুই শিবিরকর্মীকে আটক করা হয়েছে। নগরীর মাঝিরঘাটে সকাল সাড়ে দশটার দিকে হরতালের সমর্থনে মিছিল করার চেষ্টাকালে দুই শিবিরকর্মীকে আটক করা হয় বলে জানান ডবলমুরিং জোনের সহকারী কমিশনার আরেফিন জুয়েল। এছাড়া সকালে চট্টগ্রাম বন্দর সংলগ্ন রাস্তায় টায়ার জ্বালিয়ে বিক্ষোভের চেষ্টা করে শিবিরকর্মীরা। পরে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। জামায়াতে ইসলামীর ডাকা হরতালে সকালে নগরীতে রিকশা, সিএনজি অটোরিকশা ছাড়া ভারি যানবাহন চলতে দেখা যায়নি। বেলা বাড়ার সাথে সাথে যানবাহনের সংখ্যা বাড়তে থাকে। নগরী থেকে দূরপাল্লার কোনো বাস ছেড়ে যায়নি। তবে ট্রেন ছেড়ে গেছে। সকালে যানবাহন না থাকায় অফিসমুখী লোকজনকে দুর্ভোগে পড়তে হয়। ব্যাংক-বীমাসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান খোলা থাকলেও লোকজনের উপস্থিতি অন্যান্যদিনের তুলনায় কম রয়েছে। চট্টগ্রাম বন্দরেও পণ্য ওঠানো-নামানোর কাজ স্বাভাবিক রয়েছে বলে জানা গেছে। সিলেট:সারা দেশে সকাল-সন্ধ্যা হরতালের শুরুতে সিলেটের দক্ষিণ সুরমায় ব্যাপক ভাংচুর করেছে জামায়াতে ইসলামী ও তাদের সহযোগী সংগঠন ইসলামী ছাত্র শিবিরের কর্মীরা।সকাল সাড়ে ৬টার দিকে সিলেট রেলওয়ে স্টেশন, হুমায়ুন রশিদ স্কয়ার ও চন্ডিপুল এলাকাতেও জামায়াত কর্মীদের সঙ্গে পুলিশের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে রাবার বুলেট ও কাঁদানে গ্যাসের শেল ছোড়ে পুলিশ। এ সময় রাবার বুলেটের আঘাতে ছয় শিবিরকর্মী আহত হন। চারজনকে আটক করে পুলিশ। পুলিশ ও প্রত্যক্ষ্যদর্শীরা জানান, সকাল সাড়ে ৬টার দিকে দক্ষিণ সুরমায় ৩০-৪০ জন পিকেটার লাঠিসোটা নিয়ে হঠাৎ সড়কে অন্তত ১২টি গাড়ি ভাংচুর করে। এ সময় পুলিশ এগিয়ে এলে হরতালকারীরা পুলিশকে ধাওয়া করে। পরে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে টায়ার জ্বালিয়ে অবস্থান নেয় জামায়াত-শিবির কর্মীরা। পুলিশ রাবার বুলেট ও কাঁদানে গ্যাস ছুড়লে পুলিশের একটি মোটরসাইকেলে আগুন দিয়ে হরতালকারীরা ওই এলাকা ত্যাগ করে। এদিকে সকাল সাড়ে ৯টার দিকে দক্ষিণ সুরমার লালাবাজারে ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক অবরোধ করে জামায়াত-শিবির কর্মীরা। সেখানে ৩/৪ টি গাড়ি ভাংচুর করে তারা পালিয়ে যায়। সিলেট মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার আব্দুল্লাহ আল আজাদ বলেন, দক্ষিণ সুরমায় বিক্ষিপ্ত ঘটনাছাড়া নগরীর পরিস্থিতি মোটামুটি শান্তিপূর্ণ। সব জায়গায় পুলিশ সতর্ক রয়েছে। যে কোনো ধরনের নাশকতা এড়াতে বিভিন্ন পয়েন্টে বিপুল সংখ্যক পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে বলে জানান তিনি। এছাড়া নগরীতে র‌্যাবের টহলও জোরদার করা হয়েছে। গাইবান্ধা: জামায়াতে ইসলামীর ডাকে মঙ্গলবার গাইবান্ধায় সকাল-সন্ধ্যা হরতাল ঢিলে ঢালা ভাবে পালিত হয়েছে। হরতাল চলাকালে দোকানপাট আংশিক বন্ধ থাকলেও বাস টার্মিনাল থেকে দুরপাল্লার যানবাহন চলাচল করেনি। তবে ট্রেন চলাচল ছিল স্বাভাবিক। রিক্সাভ্যান, মোটর সাইকেল, অটোবাইক, টাটা ম্যাজিক গাড়ি যথারীতি চলাচল করলেও তার সংখ্যা ছিল কম। তবে শহর আওয়ামী লীগ এবং অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসির দাবী ও হরতালের প্রতিবাদে শহরের প্রধান প্রধান সড়কে হরতাল বিরোধী মিছিল করে। এছাড়া অন্যান্য উপজেলাগুলোতেও হরতাল বিরোধী মিছিল অনুষ্ঠিত হয়। সুন্দরগঞ্জ উপজেলায় বামনডাঙ্গার পার্শ্ববর্তী হাসানপুর রেল স্টেশনে হরতাল সমর্থিত জামায়াত-শিবির কর্মীরা শান্তাহারগামী লোকাল ট্রেনটি সকাল সাড়ে ৮টায় অবরোধ করে। পুলিশ গিয়ে লাঠিচার্জ ও ৪ রাউন্ড টিআর সেল নিক্ষেপ করে অবরোধকারীদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এ সময় হরতাল সমর্থকরাও পুলিশের প্রতি ইট পাটকেল নিক্ষেপ করলে উভয়পক্ষে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। আধা ঘণ্টা পর অবরোধ মুক্ত হয়ে যথারীতি ট্রেনটি স্টেশন ছেড়ে গন্তব্যের দিকে রওনা দেয়। গাইবান্ধা-সুন্দরগঞ্জ-রংপুর সড়কের মাঠেরহাটে জামায়াত-শিবির কর্মীরা সড়ক অবরোধ করে এবং যানবাহনে ভাংচুর চালায়। এ সময় ওই পথে চলাচলকারী শ্রীপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কামরুজ্জামান হুদাকে পিকেটাররা বেধড়ক মারপিট করে এবং তার টাকা-পয়সা ও মোবাইল ছিনতাই করে নেয়। আহত আওয়ামী লীগ নেতাকে গুরুতর আহত অবস্থায় রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে। এ সময় বিক্ষুব্ধ জনতা ২ জন শিবির কর্মী একই উপজেলার ধুবনী গ্রামের শাহ জসিজলের ছেলে শাহ কামরুজ্জামান (২৫) ও কালিতলা গ্রামের আবুল হোসেনের ছেলে হাবিব উল্লাহ (২৪) কে আটক করে পুলিশে সোপর্দ্দ করে। এদিকে পলাশবাড়ি উপজেলার মহেশপুরে রংপুর-বগুড়া মহাসড়কে জামায়াত-শিবির কর্মীরা বেরিকেড দিয়ে সড়কে একাধিকবার অবরোধের চেষ্টা চালায়। পুলিশ একাধিকবার লাঠিচার্জ করে অবরোধ মুক্ত করে। এ সময় তাদের সাথে উভয়পক্ষে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। উল্লেখ্য, জেলা শহর আওয়ামী লীগের ডাকে আহুত হরতাল বিরোধী মিছিলে আ�লীগ নেতা আবু বকর সিদ্দিক, ফরহাদ আব্দুল্যাহ হারুন বাবলু, ছদরুল কবির আঙ্গুর, পিয়ারুল ইসলাম, আব্দুর আব্দুর রশিদ, সাইফুল আলম সাকা, আনোয়ারুল আজিম ছামরুজ, মোশাররফ হোসেন দুলাল, খায়রুল ইসলাম, চঞ্চল সাহা, ইব্রাহিম খলিল, আব্দুল লতিফ, শহিদুল ইসলাম, আব্দুস সামাদ রোকন, মাহমুদুল হক শাহজাদা প্রমুখ এর নেতৃত্বে বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী অংশ নেন। মৌলভীবাজার: মৌলভীবাজারে জামায়াতের ডাকা হরতাল সফল করতে জামায়াত-শিবিরের নেতা-কর্মীরা আজ সকাল ৯টায় বিচ্ছিন্ন ভাবে শহরের চৌমুহনা পয়েন্ট, ভৈরববাজার, তালতলা পয়েন্ট, শমসেরনগর সড়কের শাহ মোস্তফা কলেজ সম্মুখে ও জগন্নাথপুর পয়েন্টে পিকেটিং করেন। এসময় পুলিশের সাথে ধাওয়া-পাল্টা শুরু হয় এবং টায়ার জ্বালানো হয়। মৌলভীবাজার শিবিরের শহর সভাপতি মোঃ আজিম উদ্দিন জানান,জেলার বড়লেখা উপজেলা থেকে আজ বেলা ৯টায় পিকেটিং থেকে উপজেলা সেক্রেটারী রুহুল আমীন সুমনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। পিকেটিং এর সময় ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ায় জুড়ি উপজেলা সেক্রেটারী শাহাবুদ্দিন সহ ৫ কর্মী আহত হয়েছেন। এদিকে, বার্ষিক পরীক্ষায় ছাত্র ছাত্রীদের স্বতস্ফুর্ত উপস্থিতি থাকা সত্বেও জামাত শিবিরের ডাকা হরতালের কারণে মৌলভীবাজার জেলার ৭টি উপজেলার বেশিরভাগ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে বার্ষিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়নি। তবে শ্রীমঙ্গল উপজেলা শহরের বাইরের কয়েকটি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে বার্ষিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে বলে জেলা শিক্ষা অফিসার মো. আব্দুল মজিদ জানিয়েছেন। মঙ্গলবার মৌলভীবাজার সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়, আলী আমজদ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, পৌরসভা আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় সহ শ্রীমঙ্গল সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, ভিক্টোরিয়া, বার্ডস, সেন্ট মারথার্স সহ বিভিন্ন বিদ্যালয়ে পূর্ব থেকে বার্ষিক পরীক্ষার নির্ধারিত তারিখ থাকা সত্বেও জামায়াত-শিবিরের ডাকা হরতালের কারণ দেখিয়ে পরীক্ষা নেয়নি স্কুল কর্তৃপক্ষ। এদিকে জামায়াত-শিবিরের ডাকা হরতালের কোন প্রভাব পরেনি মৌলভীবাজারে। তবুও সরকারী-বেসরকারী বিদ্যাপীঠে হরতাল পালন করায় উদ্যেগ প্রকাশ করেন শিক্ষার্থীদের অভিবাবকরা। অন্যদিকে শ্রীমঙ্গল শহরের বর্ডার গার্ড উচ্চ বিদ্যালয়সহ শহরতলীর সকল বিদ্যালয়ে বার্ষিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে বলে জানা গেছে। মৌলভীবাজার সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বিজয় কুমার দাশ জানান, আজকে নির্ধারিত পরীক্ষা রুটিন মোতাবেক সবশেষে অনুষ্ঠিত হবে। হিলি: দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দরে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর ডাকা হরতালের প্রভাব পড়েনি। অন্যান্য দিনের ন্যয় বন্দর দিয়ে যথারীতি আমদানিকৃত পন্যবাহী ভারতীয় ট্রাক বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে। পানামা পোর্ট অভ্যন্তরে লোড আনলোড ছিল স্বাভাবিক। বন্দরে অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। সীমান্তেও রয়েছে বিজিবির কড়া নজরদারি। তবে দুর পাল্লার বাস- ট্রাক চলাচল বন্ধ রয়েছে। পাসপোর্টধারী যাত্রী পারাপার রয়েছে স্বাভাবিক। লক্ষ্মীপুর: দেশ ব্যাপী সকাল-সন্ধ্যা জামাত-শিবিরের ডাকা হরতাল কর্মসূচী লক্ষ্মীপুরে ঢিলে ঢালা ভাবে পালিত হয়। কোথাও কোন অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি। তবে পুলিশ বিভিন্ন স্থান থেকে শিবিরের ৫ কর্মীকে আটক করে। মঙ্গলবার ভোরে হরতালের সমর্থনে জামাত-শিবির লক্ষ্মীপুর শহরের বিভিন্ন স্থানে বিক্ষোভ মিছিল করে। এসময় বিক্ষোভকারীরা রাস্তার উপর গাছের গুড়িঁ ফেলে ব্যারিকেট সৃষ্টি করে এবং বিভিন্ন স্থানে টায়ার জ্বালিয়ে দেয়। পরে পুলিশ বিক্ষোভকারীদের ধাওয়া করলে তারা পালিয়ে যায়। এদিকে জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি শেখ জামাল রিপন ও সাধারন সম্পাদক মনিরুজ্জামান পাটোয়ারীর নেতৃত্বে পৃথকভাবে হরতালের বিরুদ্ধে শহরে হোন্ডা মিছিল বের করে এবং শিবির কর্মীদের ধাওয়া করে। ছাত্রলীগ শহরের আলীয়া মাদ্রাসা, উত্তর তেমুহনী, দক্ষিন তেমুহনী, মিয়া রাস্তার মাথায় শিবিরের দেওয়া ব্যারিকেট সড়িয়ে যানচলাচলের ব্যবস্থা করে দেয়। এসময় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শিবিরের তিন কর্মীকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে। হরতালে দোকানপাট খোলা থাকলেও জেলা থেকে দূরপাল্লার কোন যানবাহন ছেঁড়ে যায়নি। স্বাভাবিক নিয়মে অফিস আদালতের কার্যক্রম চলে। নীলফামারী : স্বাধীনতা সংগ্রামের বিজয়ের মাসে জামায়াত শিবিরের ডাকা দেশব্যাপী সকাল সন্ধ্যা হরতাল নীলফামারী বাসী প্রত্যাখান করেছে। ফলে জেলা জুড়ে মঙ্গলবার নীলফামারীতে হরতাল হয়নি। তবে হরতালের সমর্থনে অরাজকতা সৃষ্টির অভিযোগে পুলিশের হাতে গ্রেফতার হয় জামায়াত ও শিবিরের দুই নেতা। পুলিশ জানায় হরতালে পক্ষে অবস্থান নিয়ে সকালে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান জোড় করে বন্ধ করে দেয়ার চেষ্টা কালে ডোমার উপজেলা বাজার থেকে উপজেলা জামায়াতের সহকারি সেক্রেটারী ডোমার পৌরসভার ১ নম্বর ওয়াডের কাউন্সিলর আব্দুল হক(৪০) এবং জলঢাকা উপজেলার পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ে বার্ষিক পরীক্ষা চলাচালিন বাধা দেয়ার চেষ্টার সময় শিবির নেতা ফরহাদ হোসেন(২৪) কে পুলিশ গ্রেফতার করে। তাদের বিকালে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়। মধ্যরাত থেকে পুলিশের কঠোর অবস্থানের কারণে কোথাও হরতালের সমর্থনে মিছিল সমাবেশ বা পিকেটিং করতে পারেনি জামায়াত শিবির। স্বাধীনতার বিজয় মাসে জামায়াতের হরতাল কে প্রত্যাখান করে সকল ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খোলা রাখে ব্যবসায়ীরা। এ ছাড়া অফিস আদালত,ব্যাংক বীমা যথারিতি কাজকর্ম ও লেনদেন হয়।স্কুলগুলো বার্ষিক পরীক্ষা শহরের স্কুলগুলোতে স্থগিত করা হলেও গ্রামের ও উপজেলার স্কুলগুলোর পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। দুর পাল্লার কোন যানবাহন চলাচল না করলেও অভ্যান্তরীণ রুটে যানবাহনগুলো চলেছে। এ ছাড়া রিক্সা মটরসাইকেল,ইচিবাইক চলাচল করেছে। সকাল থেকে নীলফামারী থেকে রাজশাহী ও খুলনাগামী আন্তনগর ও মেইল ট্রেন গুলো যথাসময় চলাচল করে। অন্যদিকে সৈয়দুপরে হরতালের নামে নৈরাজ্য সৃষ্টির প্রতিবাদ এবং জামায়াত শিবির নিষিদ্ধের দাবীতে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করে আওয়ামীলীগ। আখতার হোসেন বাদল, এজাজুল হক বাচ্চু, শাহাজাদা সরকার, আজমল হোসেন, মিজানুর রহমান লিটন প্রমূখ বক্তব্য রাখেন সমাবেশে। মিরসরাইয়: চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ে সকাল থেকে দিনভর জামায়াত-শিবিরের নেতা-কর্মীরা বেশ কয়েকবার চেষ্টা করেও রাস্তায় অবস্থান নিতে পারেনি। ছাত্রলীগ-পুলিশ একযোগে তাদের প্রতিহত করে। দুপুরে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের সোনাপাহাড় এলাকায় টায়ার জ্বালিয়ে যানবাহন চলাচলে প্রতিবন্ধকতার চেষ্টা করে। এসময় পুলিশ তাদেরকে ছত্রভঙ্গ করে শিবিরের ৫ নেতা-কর্মীকে আটক করে। আটককৃতরা হলেন মাইন উদ্দিন, আলাউদ্দিন, আরাফাত রহমান, কামরুল হাসান ও মাহমুদ হাসান। মঙ্গলবার দিবাগত রাতে উপজেলার করেরহাট এলাকা থেকে আরিফ হোসেন নামে এক শিবির কর্মীকে বাড়ি থেকে গ্রেফতার করে মিরসরাই থানা পুলিশ। জানা গেছে, সারাদেশে জামায়াতের ডাকা হরতালে মঙ্গলবার সকাল থেকে দিনভর হরতাল সমর্থিরা দলবদ্ধভাবে মিরসরাই উপজেলার বারইয়াহাট পৌরসভা, করেরহাট ও কমলদহ এলাকায় পিকেটিং এর চেষ্টা চালায়। এ সময় পুলিশ ও সরকারদল সমর্থিত সংগঠন ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীদের বাধার মুখে মহাসড়ক ও কোন স্থানে অবস্থান নিতে পারেনি তারা। তবে উপজেলা ছাত্রলীগ উপজেলা বিভিন্ন এলাকায় পিকআপ ভ্যানে করে মিছিল ও সমাবেশ করছে। বারইয়াহাট পৌরসভা এলাকায় হরতালের প্রতিবাদে সকালে মিছিল ও বিকাল ৪টায় সমাবেশ করেছে উপজেলা ছাত্রলীগ। মিরসরাই থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইফতেখার হাসান জানান, হরতাল চলাকালে কোন পিকেটার রাস্তা বা কোনস্থানে অবস্থান নিতে পারেনি। কোন প্রকার সংঘর্ষের ঘটনাও ঘটেনি। আটককৃতদের প্রসঙ্গে ওসি জানান, মহাসড়কে জামায়াত-শিবিরের কর্মীরা যানবাহন চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টির চেষ্টা করেছে তাই তাদেরকে আটক করা হয়েছে। শেরপুর: শেরপুরের জামায়াতের ডাকা মঙ্গলবারের হরতাল পালিত হয়নি। হরতালের সমর্থনে জামায়াতের কোনপ্রকার পিকেটিং না থাকলেও শহরের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে ব্যাপক পুলিশ মোতায়েন ছিল। এদিকে, হরতালকে কেন্দ্র জেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে পুলিশ জামায়াত ও বিএনপি�র ১০ নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার করেছে। গ্রেপ্তারকৃতদের মধ্যে উল্লেখযোগ্যরা হলো-জেলা শ্রমিক দলের আহ্বায়ক শওকত হোসেন (৪২), শেরপুর সদর উপজেলা বিএনপি নেতা আব্দুল হামিদ (৫২), জামায়াত নেতা শ্রীবরদীর আব্দুল হারিস বাচ্চু (৪৮), রাজু আহমেদ (২৩), নালিতাবাড়ীর শাহজামাল (৫৮), শহরের সজবরখিলা এলাকার জোবায়ের হোসেন (৪০)। গ্রেপ্তারকৃতদের বিকেলে বিচারিক হাকিমের আদালতে সোপর্দ করা হলে আদালত তাদের জেলা কারাগারে প্রেরণ করে। পুলিশ সুপার মোঃ আনিসুর রহমান বিএনপি ও জামায়াতের ১০ নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তারের সত্যতা স্বীকার করে বলেন, নাশকতা মূলক কাজের পরিকল্পনা করার অভিযোগে সন্ত্রাস বিরোধী আইনে তাদের বিাংদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT