টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!

স্ত্রী কখন তার স্বামী থেকে তালাক গ্রহন করতে পারবে

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : বুধবার, ৫ জুলাই, ২০১৭
  • ৬১০ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

 

ডাঃ হাফেজ মাওলানা মোঃ সাইফুল্লাহ মানসুর = স্বামী স্ত্রীর সুদৃঢ় বন্ধনের উপর নির্ভর করে একটি পরিবারের উন্ততি ও সম্মৃদ্ধি। কিন্তু এই বন্ধন অনেক সময় বিভিন্ন কারনে অতৃপ্তির কারণ হয়ে দাড়ায়। তখনই স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে বিচ্ছেদ বা তালাকের মত ঘটনা ঘটে। ইসলাম তালাককে সর্বনিম্ন ভাল কাজ বলে স্বিকৃত দিয়েছে। যতক্ষন পর্যন্ত যে কোন উপায়ে এই বন্ধন টিকিয়ে রাখা যায় তার উপরই উৎসাহ প্রদান করে ইসলাম। স্বামী কর্তৃক তালাক প্রদান সম্পর্কে আমরা মুটামুটি অনেকেই জানি কিন্তু স্ত্রী কখন তার স্বামী থেকে তালাক নিতে পারবে আজকের আলোচনা মূলত সেটাই।

যখন স্ত্রী তার স্বামীকে তালাক নিতে পারবেঃ

যদি স্বামী ও স্ত্রীর মধ্যে মতানৈক্য চরম পর্যায়ে পৌছে যায় কোনভাবেই এর সমাধান করা না যায় এবং স্ত্রী যদি স্বামীর প্রতি সন্তুষ্ট না থাকে ও তার জৈবিক ও বৈষয়িক হক আদায় না করে এবং তারা যদি আশংকা করেআল্লাহ নির্ধারিত সীমারেখা রক্ষা করে চলতে পারবে না তবে এরূপ অবস্থায় উভয়ের পরিবার ঘরোয়াভাবেই কিছু মিমাংশা করে তার স্বামীকে কিছু (যা তাকে প্রদান করা হয়েছে মহর বা অন্যান্য দ্রব্য তার থেকে কিছু) প্রদান করে তালাক গ্রহণকরতে পারবে। এরুপ দেওয়া ও নেওয়ার মধ্যে কোন পাপ নেই। এরুপ তালাক কে খোলা তালাক বলে। অর্থাৎ কিছু বিনিময়ের মাধ্যমে তালাক গ্রহন করা। তবে স্বামী যদি ইতিপূর্বে যে পরিমাণ সম্পদ তার ঐ স্ত্রীকে দিয়েছিল তারচেয়ে বেশী পরিমাণ অর্থ-সম্পদ বিনিময় হিসেবে নিতে চাই তা বৈধ হবে না। মহান আল্লাহ বলেন

بِهِ افْتَدَتْ فِيمَا  عَلَيْهِمَا جُنَاحَ  فَلَا اللَّهِ  حُدُودَ يُقِيمَا  أَلَّا خِفْتُمْ فَإِنْ  অর্থঃ যদি তোমরা আশংকা করো, তারা উভয়ে আল্লাহ নির্ধারিত সীমার মধ্যে অবস্থান করতে পারবে না , তাহলে স্ত্রীর কিছু বিনিময় দিয়ে তার স্বামী থেকে বিচ্ছেদলাভ করায় কোন ক্ষতি নেই ৷বাকারা-২২৯ এটাও মনে রাখার বিষয় যে, স্ত্রী যদি বিনা কারণে তার স্বামীর নিকট ‘খোলা’ তালাক প্রার্থনা করে তাহলে সে অত্যন্ত পাপী হবে। কখনও কখনও এমন হয় যে, মহিলারা কোন যথাযথ কারণ ছাড়াইবিয়ে ভেঙ্গে দিতে চায় এবং তালাকের জন্য বলতে থাকে। এ ব্যাপারে ইব্ন জারীর (রহঃ) শাওবান (রাঃ) থেকে বর্ণনা করেন যে, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন ঃ‘যে স্ত্রী বিনা কারণে তার স্বামীর নিকট তালাক প্রার্থনা করে তারজন্য জান্নাতের সুগন্ধিও হারাম। (তাবারী ৫/৫৬৯, তিরমিযী ৪/৩৬৭) ইমাম তিরমিযী (রহঃ) হাদীসটিকে হাসান বলেছেন। আয়াতটি অবতীর্ণ হওয়ার কারণ এই যে, মুয়াত্তা ইমাম মালিকে রয়েছে ঃ ‘হাবীবা বিন্ত সাহল আনসারিয়া’ (রাঃ) সাবিত ইব্ন কায়েস ইব্ন শামাসের (রাঃ) স্ত্রী ছিলেন। একদা রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ফাজরের সালাতের জন্য অন্ধকার থাকতেই বের হন। দরজার উপর হাবীবা বিন্ত সাহলকে (রাঃ) দাঁড়িয়ে থাকতে দেখে জিজ্ঞেস করেন, ‘কেতুমি’? তিনি বলেন ঃ ‘আমি সাহলের কন্যা হাবীবা’। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন ঃ ‘খবর কি’? তিনি বলেন ঃ ‘আমি সাবিত ইব্ন কায়েসের (রাঃ) স্ত্রী রূপে থাকতে পারিনা।’ এ কথা শুনে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহিওয়া সাল্লাম নীরব হয়ে যান। অতঃপর তার স্বামী সাবিত ইব্ন কায়েস (রাঃ) আগমন করলে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তাকে বলেন ঃ ‘হাবীবা বিন্ত সাহল (রাঃ) কিছু বলেছে।’ হাবীবা (রাঃ) বলেন ঃ ‘হে আল্লাহর রাসূলসাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম! তিনি আমাকে যা কিছু দিয়েছেন তা সবই আমার নিকট বিদ্যমান রয়েছে এবং আমি ফিরিয়ে দিতে প্রস্তুত রয়েছি।’ তখন রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সাবিতকে (রাঃ) বললেন, ঐগুলি গ্রহণ কর।’ সাবিত ইব্ন কায়েস (রাঃ) তখন সেগুলি গ্রহণ করেন এবং হাবীবা (রাঃ) মুক্ত হয়ে যান।’ (মুয়াত্তা মালিক ২/৫৬৪, আহমাদ ৬/৪৩৩, আবূ দাঊদ ২/৬৬৭ এবং নাসাঈ ৬/১৬৯) অন্য একটি বর্ণনায় রয়েছে যে, সাবিতের (রাঃ) স্ত্রী হাবীবা (রাঃ) একথাও বলেছিলেন, ‘হে আল্লাহর রাসূল! আমি তাকে চরিত্র ও ধর্মভীরুতার ব্যাদোষারোপ করছিনা, কিন্তু আমি তাকে ইসলামের মধ্যে কুফরী করাকে (হাবীবার প্রতি সাবিতের দায়িত্ব পালন না করা) অপছন্দ করি।’ তখন রাসূল সাল্লাল্লাহুআলাইহি ওয়া সাল্লাম তাকে বললেন ঃ তুমি কি তোমাকে দেয়া তার বাগান তাকে ফেরত দিবে? মহিলাটি বলল ঃ হ্যাঁ। রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সাবিতকে (রাঃ) বললেন ঃ বাগানটি ফেরত নাও এবং তালাক দাও। (ফাতহুলবারী ৯/৩০৬, নাসাঈ ৬/১৬৯) এর থেকে প্রমান হয় স্ত্রী তার স্বামীকে তালাক দিতে পারবে তবে চরম পর্যায়ে ছোট খাটো কোন বিষয়ের উপর নয়। কোন ভাবেই তালাক  খেলনা হিসেবে নেওয়া যাবে না তাহলে অত্যন্ত গুনাহগার হতে হবে।

লেখকঃ

সভাপতিঃ ইসলাম প্রচার পরিষদ, খুলনা জেলা

পরিচালকঃ খুলনা কম্পিউটার ট্রেনিং এন্ড ডিজাইন হাউজ

চেয়ারম্যানঃ খুলনা হোমিও চিকিৎসা কেন্দ্র

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT