টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!

সাংবাদিক খেতাবী ’র আজব রিপোর্ট…

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : বুধবার, ১৪ নভেম্বর, ২০১২
  • ৩১০ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

 রমজান উদ্দিন পটল :পত্রিকায় চরনের গরু হরন শীর্ষক একটি সংবাদ প্রকাশ হল। সংবাদটি পাঠক পাঠ করে দরিদ্র কৃষকের লোকসানের কথা ভেবে আন্তরিকভাবে সন্ধান করা শুরু করে। কিন্তু কোথাও সংবাদে বর্ণিত গরু খোজে পায়না। দেশের কোন প্রান্তেই এ গরু খোজে পাওয়া অসম্ভব। কেননা লেজ-বিহীন গরু প্রবাদে আছে, বাস্তবে নেই।

সংবাদটি টক অব দ্য দুনিয়া-। বর্তমানকালের সংবাদপত্রের জগতে ফটোকপি সাংবাদিকতা চর্চার এযুগে এমন সংবাদ ভুরি ভুরি প্রকাশ পায়।

গাঁয়ের এক দরিদ্র চাষী তার গৃহ পালিত ২টি বলদ নিে য় পাহড়ী সমতল জমিতে ভোর হতে নাঙ্গল টানে । ঠিক ভর-দুপুরে হালের গরু ক্লান্ত। শুধু গরু নয়-চাষাও টাইট। এর পর চাষী হালের গরুকে চরনে দিয়ে নিজে কিছুক্ষণ বিশ্রাম নিয়ে দিনভর জমির মাঠি কাঠার কাজ সারেন। দিনের শেষে সুর্যস্থ যাচ্ছে। কাজের দাফে গরুর কথা মালুম নেই। এ মুহুর্তে মনে পড়ায় পাহাড়ী ঝুপঝাড়ের পাশে চরনে দেয়া গরু নিতে গিয়ে দুষ্ট গরুটি নেই। বেছারা অনেক খোজাখোজি করে ফেলনা। পরদিনও অনেক সন্ধান করে গরুটি না পেয়ে পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশের সিদ্ধান্ত নেয়। দরিদ্র চাষী ছোট বেলায় প্রাইমারীতে লেখাপড়া করেন বিধায় কিছুটা মেধা তার রয়েছে। তাই নিজের গরুটি পাওয়ার কঠিন অভিলাষে নিজেই একটি গরুর রচনা লিখে সংবাদকর্মীর হতে দিল পত্রিকায় পাবলিশ করতে। সংবাদটি প্রকাশ করতে রীতিমত পয়সা-কড়ি দিতে হলো। মহাজোটের ক্ষমতার প্রভাব মহা-দান্ধার শিকার চাষীকে মোঠা-টাকা দিতে হয়। সংবাদটি লাল করে প্রকাশ করবে। যত পত্রিকা আছে তত পত্রিকায় প্রকাশ হবে। সাংবাদিকদের আলাদা আলাদা জোট আছে। এই সংবাদকর্মী মহাজোটের। তাই জোটের যত সদস্য আছে তত সদস্যের নামে কড়ি আদায় করে পকেট ভরল। অত:পর রচনা আকারে লেখা হরণ হওয়া গরুর সংবাদ কম্পিউটারের দোকানে ডাউনলোড করে হুবহু পাঠাল স্ব স্ব পত্রিকায়। কিন্তু রচনায় মাত্র একটি বাক্য ভুল থাকায় সকলে উল্টো পথে ছুটছে। হরণ হওয়া গরুটি বছর খানেক পুর্বে ধান ক্ষেতে চুরি করায় ধানের মালিক রামদা দিয়ে অমানবিক কুপিয়ে লেজ কেটে দেয়। তখন হতে গরুটির লেজ না থাকায়  রচনায় লেজ কাটা ভুলে লেজ নেই উল্লেখ করেন। গ্রামের চাষী  খারাপ মানসিকতার কারণে হয়ত এ ভুল করেছে। ফটো কপির অভ্যাসী সংবাদ সংগ্রহকারী ধারাবাহিকভাবে এ রচনাটিও ডাউনলোড করে পত্রিকা ঠিকায় মেইল করে। হেড অফিসে এসব সংবাদকর্মীরা যথারীতি প্রশাংসিত। বাহবা পায় প্রতিদিন। দৈনন্দিন নিউজ বাদ নেই। ভুরি ভুরি নিউজ পাঠায় । একারণে খাবিল খেতাব পায় অনেক আগে। কৃত্রিম মেধাবী পরিচিত হওয়ায় এসব ফটোকপি মার্কা সংবাদকর্মীদের প্রেরিত লেখা ইদানিং এডিট ছাড়াই প্রকাশ পায়। এদের উপদ্রব অনেক বেশি। লেজ বিহীন গরুর প্রকাশিত সংবাাদে পাঠক অভাক ! অতএব ¯্রষ্টা সৃষ্টিতে লেজ বিহীন গরু হয়ত আছে। তাই দুনিয়া জুড়ে এ গরুটি সন্ধান করছে পাঠক। সংবাদকর্মীরা নতুনের ¯্রষ্টা। এমন বিশ্বাস জাতি বুকে নিয়ে নিশ্চয় হরণ হওয়া গরুটি যুগ যুগ ধরে খোজবে।

সংবাদ পত্রে দীর্ঘদিন জড়িত থাকায়  লেখার ফাকে আমি এ মুহুর্তে মিস করছি কক্সবাজারের সাংবাদিকতার মহা-ব্যাক্তি প্রবিণ সাংবাদিক প্রিতুষ পাল পিন্টুকে। যুগের শুরুতে জেলার বহুল প্রচারিত দৈনিক আজকের দেশবিদেশ পত্রিকার নিউজ এডিটর হিসেবে দায়িত্বে ছিলেন তিনি। তখন কম্পিউটার ই-মেইলসহ আধুনিক সুযেগ সুবিধা না থাকায় কাগজে লিখে মফস্বলের দৈনন্দিন সংবাদ প্রেরণ করা হত। প্রতিদিন ভোরে উঠে পত্রিকায় চোখ রাখতাম প্রেরিত সংবাদ ছাপা হয়েছে কিনা। কিন্তু মাঝে মাঝে সংবাদ ছাপা হয়নি দেখে বিষণ খারাপ লাগত। এমন কিছু মুহুর্ত গেছে – যে সময়ে হতে নেওয়া পত্রিকায় সংবাদ না দেখে ছিড়ে ডাষ্টবিনে ছুড়ে ফেলতাম। তখন হয়ত কতৃপক্ষ তা শুনলে বিহীত করতেন। টি এন্ডটি লাইনে নিউজ এডিটরের সাথে আলাপ হলেও সংবাদ কেন ছাপা হয়নি তা জানার সাহস হতনা। পুর্বে থেকে অবগত- সংবাদ ছাপানেরা তদবির সংবাদের বস্তু নিস্ততায় সন্দেহ তৈরী হয়। এছাড়া বাক্যে শব্দে ভুলের কারণে লেখা ছাপা অপ থাকে। প্রথম প্রথম নিউজ ছাপা না হলে তদবির করতাম। কিন্তু ধারাবাহিক বখুনি দেয়াতে খোব বিরক্তবোধ করতাম। জানতে না চাইলেও অফিসে গেলে জবাবদিহিতার মুখোমুখি করতেন নাছোর বান্দা। একটি মাত্র ভুলের কারণে জবাবদিহিতার বিষয়টি মাথায় লাগত। তার মুখোমুখি করে ড্রয়ারে ফাইল বন্দি রিপোর্ট বের করে পাঠ করাতেন এবং ভুল দেখিয়ে দিয়ে নিজের মাধ্যমে সংশোধন করতেন। এটি একজন সংবাদকর্মীর জন্য বিশাল পাওয়া। সংবাদপত্র জগতে এগিয়ে যাওয়ার মহৎ সহায়তা ও বস্তু-নিষ্ট সাংবাদিকতার অন্যতম প্রশিক্ষণ।

কিন্তু কপি সাংবাদিকতার এ সময়ে জেলার পত্রিকায় মফস্বলে কর্মরত মহা সাংবাদিক খেতাবী ও হাই সাংবাদিক দাবিদার ফটোকপি সংবাদকর্মীদের রাজনৈতিক লেজুরবৃত্তি, বানিজ্যকতৎপরতা, মহাজোট করে জামার পকেট ভারি, চোরাচালানসহ অবৈধ কর্মকান্ডে সহায়তায় অনেকে বাহবা দিলেও বস্তুত এসবের কারণে সংবাদপত্র ও সাংবাদিকতা কলোষিত হচ্ছে।

সাংবাদিকরা জাতির দর্পন। সাংবাদিকতা একটি মহান পেশা। কোন রাজনৈতিক দলের সাথে যুক্ত অবহেলার শিকার ক্যডার, চোরাকারবারীদেও দালাল, রোমিও, অবৈধ ব্যবসায়ী, ও টাউট বেকার শ্রেণীর যুবকেরা সমাজিক ও প্রশাসনিক চাপে ফেরারী মানসিকতায় জেগে জেগে এমপি মন্ত্রি হওয়ার সপ্ন করে। মাঝে মধ্যে ওবামার মতো দিত্বীয় বার আমেরিকার প্রেসিডেন্ড নির্বাচিত হয়। এগুলো শুধু স্বপ্ন। বাস্তবতা হল- অপরাধের দায়ে এদরকে সমাজের কাছে প্রতিনিয় ছোট হতে হয়, পলিশের দাবড়ানি খেতে হয়। এত মান হানি অপরাধ কাজে ক্ষতির বিষয়টি ওরা ভাল বুঝে। বাস্তবে এশ্রেণীর অনেকে অবৈধ ব্যবসা নিয়ন্ত্রণ, দাপট-প্রভাব বিস্তার, প্রশাসনিক সুবিধা, চাঁদাবাজির মত কু-মতলব নিয়ে সাংবাদিকতা পেশায় যুক্ত হওয়ার বদস্বপ্ন পুর্ণ করে সহযে। স্থানীয় পত্রিকার কার্ড নিয়ে নিয়ে গলায় ঝুলিয়ে সারাক্ষণ নিজেকে জাহির করে অর্থ পাগল হয়ে ঘুরে। এসব মহা সাংবাদিকদের জন্য নিচের বাক্যটি মহা-সম্মানের উপাদি দেওয়া বাস্তবদাবী জেলার প্রকৃত সাংবাদিকদের। দিনভর চাঁদাবাজি আর দ্বন্ধাবাজি- সন্ধার পর ফটোকপি। চলবে….

লেখক

রমজান উদ্দিন পটল

সাংবাদিক ও মানবধিকারকর্মী

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

৯ responses to “সাংবাদিক খেতাবী ’র আজব রিপোর্ট…”

  1. islam says:

    jamon songbat kamre tamon cow ar malik, so be careful , arkom songbat karme tiky

  2. xyz says:

    Thankyou very much.
    A nice News…………………
    Vai Songbadik ekebare sotto kotata likesen. Ami Moheshkhali Upazilla Porishode Computer-er Dukan kori, Protidin Sondha hole ami deki ekta News niye ekebare 7/8 jon ek sate ase abong sudu nijer namta bodle O file-er nam change kore potrika office-e patiye dey. Ei rokom Proman ami Prochor dite parvo.

  3. টেকনাফ বাসী says:

    পটল সাহেব,এলাকায় আপনাকে তো বড় দালাল হিসাবে সবাই চিনে,যা আপনি লিখেছেন তাতো সবই আপনার নিজের চরিএ,নিজের বিষয়ে কিছু না লিখে সবই অন্যর উপর চাপিয়ে দিলন!!!!!!!! এ যাবত চাদা নিতে গিয়ে আপনি ধোলাই কয়বার খাইছেন মনে আছে? যারা আপনারে চিনে না তারা মনে করছে আপনে মহান কেউ!!! সাধু কলা খাই না !!!!!!!1

  4. সাংবাদিক পটল ভাই ধন্যবাদ
    আপনি সঠিক সময়ে বাস্তব টি লিখেছেন-আপনার চমৎকার এ লেখাটি সংবাদকর্মী নামধারী চাঁদাবাজ
    ক্রিমিনালদের আসল চিত্র প্রকাশ।আসল সত্য কথা লিখেছেন , এই লেখাতে তাদের গা জলবে।
    মুনসী-কেরানী দিয়ে -ফক্সি সংবাদ লেখিয়ে কপি-পেস্ট করে তো… ! হা হা..হা !!
    এ ধরনের বড় সাংবাদিক গিটু লাগিয়ে টাকা খায়। নিজেদের অবৈধ কাজের অপরাধ সেব করতে সাংবাদিক পরিচয় দেয়। ওরা সংবাদ পত্র জগতের অবর্জনা। ওদের সাথে সন্ত্রাসী জগতের কানেকশন আছে, ওরা দালালি করে হামলা হুমকি ঘটায়। ২০ টাকা ৫০ টাকায় উল্টা পাল্টা কথা লিখে ছি !

  5. Mohammed Harun ur rashid says:

    Hallo, All of Reporter, why blame and wrote any comments which effects of all reporter but did he think? Did he out from the blame which wrote reporter Potol? So we need sense of hummer. If we have this than we could not wrote any promatic article which effect every one.
    Thanks

  6. সাংবাদিক খেতাবি র আজব িিরপোট বেষ্ট রিপোট।
    পটো কপি পেস্ট করে সংবাদ ছাপিয়ে এসব সাংবাদিক নামধারীরা ছুলা কলা খেতে খেতে জিহ্বা লম্বা হয়ে গেছে। পাঠক সচেতন মহল দাবী করতেছে যে, ওরাতো আসল গরু-পশু । কলার বাকল খাইতে ওরা
    পাপল হয়ে গেছে।

  7. rajib says:

    সাংবাদিক পটল ভাই, আপনাকে অনেক ধন্যবাদ। লেখাটি হুবহু আপনার মত হলুদ সাংবাদিকেরর জন্য উপযুক্ত হয়েছে। দূঃখের ব্যাপার হচ্ছে, আগে নিজে ঠিক না হয়ে এমন লেখা প্রকাশ করা ঠিক হয়নি। এখানে “টেকনাফবাসী’ নামে ভাইটি ভাল কমেন্ট করেছেন। আপনি একদম সত্য কথাটি লিখেছেন। পটল সাহেব আসলে একজন ভদ্রবেশী হলুদ সাংবাদিক। সে হোয়াইক্যং এএসআই মাহফুজের দালাল। ইয়াবাসহ যত রকম মাদক ও কূকর্ম আছে সবই পটলের ইশারায় ছেড়ে দেয়। আর পটল মোটা অংকের টাকা নিয়ে পকেট ভারী করে। এরকম অনেক কাহানী আপনার নামে রচনা আছে। এছাড়া তোমার ভাই তাহের নঈমও কম না।

  8. পটল,ভাল আছেন নিশ্চয়। ভালো থাকুন এটিই আমাদের কামনা। ‘সাংবাদিক খেতাবীর আজব রিপোর্ট ’ পড়ে দেখেছি। খুব একটা খারাপ লাগেনি। তবে যে কথা গুলো বলতে বা বুঝাতে চেয়েছেন তা না বললেও পারতেন। অন্য দশ সাংবাদিকের নামের আগে সাংবাদিক বিশেষণটি আপনাকেই বেশ ভাল মানচ্ছে ইদানীং। সেইটাতো ভালো ছিল। অন্য জনকে নিয়ে এতসব লেখার কী দরকার ছিল। ফলে আপনি সহ পুরো পরিবারের স্বরূপটিই উম্মোচিত। হি,হি,..।

Leave a Reply to Kadir Hossain Cancel reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT