টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!
শিরোনাম :

সাংবাদিকতা শিখে সংবাদ প্রকাশের অনুরোধ

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : বুধবার, ৮ আগস্ট, ২০১২
  • ২৫৯ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

বুধবার দৈনিক রূপসীগ্রামে প্রকাশিত ‘স্থানীয় সংবাদপত্রকে ঘিরে দুর্বৃত্তায়ন বাড়ছে উদ্বেগজনকভাবে- কক্সবাজারের সংবাদপত্র জগত’র নিয়ন্ত্রণ চলে যাচ্ছে অপেশাদারদের হাতে’ শিরোনামে প্রকাশিত সংবাদটির একাংশের জোর প্রতিবাদ ও আপত্তি জানিয়েছেন দৈনিক কক্সবাজারবাণী প্রকাশক ও বহুল প্রচারিত জাতীয় দৈনিক আমাদের সময় গ্রুপের আঞ্চলিক প্রধান ফরিদুল মোস্তফা খান। কক্সবাজারবাণীর নিজস্ব প্যাডে পাঠানো এক বিবৃতিতে দীর্ঘদিন ধরে এই জনপদের মাটি ও মানুষের কল্যাণে সাংবাদিকতায় নিয়োজিত তরুন এই পেশাদার সাংবাদিক প্রকাশিত উক্ত সংবাদটির একাংশে উদ্দেশ্যমূলক ভাবে নিজ সম্পাদিত দৈনিক কক্সবাজারবাণীর নাম অনিয়মিত পত্রিকার তালিকায় দেখে হতবাক ব্যক্ত করে বলেছেন, প্রকাশিত উক্ত সংবাদটিই প্রমান করে, এটি নিশ্চয় অপেশাদার কোন সাংবাদিক পরিবেশিত সাংবাদিকতার নামে নোংরা তথ্য সন্ত্রাস। যা প্রকৃত সংবাদপত্র ও সাংবাদিকতার নীতিমালা লঙ্ঘন করে শুধু বিদ্বেষ প্রসূত ও ষড়যন্ত্রমূলকভাবে ছাপানো হয়েছে। তাই কক্সবাজারবাণী প্রকাশক ফরিদুল মোস্তফা খান এব্যাপারে কাউকে বিভ্রান্ত না হওয়ার অনুরোধের পাশাপাশি রূপসীগ্রাম পত্রিকার কথিত বিশেষ প্রতিবেদককে আগে সংবাদপত্র ও সাংবাদিকতার প্রয়োজনীয় জ্ঞান এবং শিক্ষা গ্রহণের তাগিদ দিয়ে বলেছেন, ছোট এই জেলায় কোনটি নিয়মিত আর কোনটি অনিয়মিত পত্রিকা এবং কে পেশাদার সাংবাদিক আর কে অপেশাদার সাংবাদিক তার সঠিক জ্ঞান ও ধারণা না রেখে সংবাদটি পরিবেশন করাটা শুধু ভুল নয়, এটি দৈনিক পত্রিকার ছাপাখানা-প্রকাশনা, ডিক্লারেশন ও রেজিস্ট্রেশন আইন ১৯৭৩ সনের সুনির্দিষ্ট লঙ্ঘনও বটে। এতে নিয়মিত প্রকাশিত দৈনিক কক্সবাজারবাণীকে অনিয়মিত বলে শতভাগ পেশাদারীত্বের জনপ্রিয় একটি দৈনিক পত্রিকার মানহানির অপচেষ্টা চালানো ছাড়াও কক্সবাজারের সংবাদপত্র জগতে প্রান্তিক সাংবাদিকতার অভিজ্ঞতায় প্রকাশক হওয়া পেশাদার সাংবাদিকের প্রকৃত তথ্য গোপন রাখা হয়েছে। কারণ কক্সবাজারের মত ছোট শহরে দৈনিক পত্রিকার ডিক্লারেশন নেয়ার জন্য জীবনে কোনদিন সাংবাদিকতা না করেও সাংবাদিকতার বাস্তব অভিজ্ঞতাপত্র জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের নিকট ভূয়া অভিজ্ঞতা সনদ জমা দেয়ার উদ্বেগজনক প্রবণতার এই কক্সবাজার থেকে প্রকাশিত দৈনিক কক্সবাজারবাণীর প্রকাশক একজন পেশাদার প্রকৃত সাংবাদিক। তাই পত্রিকার প্রকাশক হিসেবে সাংবাদিকতার বাস্তব অভিজ্ঞতা ছাড়াও শতভাগ নিজেকে পেশাদার সাংবাদিকতার বাস্তবতা তুলে ধরে অপেশাদার সংবাদপত্রের বিরুদ্ধে সবসময় সোচ্চার তরুন সাংবাদিক ফরিদুল মোস্তফা খান আরো বলেছেন, সংবাদপত্র জগত যখন দিন দিন মারুয়ারীদের দখলেই চলে যাচ্ছে, ঠিক তখন কক্সবাজারবাণী-ই এই অঞ্চলের পাঠকদের কাছে একটি পেশাদারীত্বের দৈনিক পত্রিকা তুলে দিয়ে স্বল্প সময়ে ব্যাপক জনপ্রিয়তা লাভ করছে। এই পত্রিকায় কর্মরত প্রধান সম্পাদক আতাহার ইকবাল কক্সবাজার প্রেস ক্লাবের সাবেক সভাপতি এবং এই অঞ্চলের একজন প্রবীণ পেশাদার সাংবাদিক। শুধু কক্সবাজার কেন, সারা বাংলাদেশে কয়েকজন পেশাদার সাংবাদিকের নাম তালিকাভুক্ত করলেও কক্সবাজারবাণীর প্রধান সম্পাদক আতাহার ইকবাল এবং প্রকাশক ফরিদুল মোস্তফা খানকে পেশাদার সাংবাদিক হিসেবে যারা অস্বীকার কিংবা এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করবেন নিশ্চয় তারা অসাংবাদিক-কুসাংবাদিক ছাড়া কিছুই হবে না। কারণ কক্সবাজারবাণী প্রকাশক ফরিদুল মোস্তফা খান শুধু কক্সবাজারবাণীর প্রকাশক নন, তিনি বর্তমানেও বাংলাদেশের সংবাদপত্র ও সাংবাদিকতার নতুন ধারার প্রবর্তক নাঈমুল ইসলাম খান সম্পাদিত দৈনিক আমাদের সময় গ্রুপের আমাদের অর্থনীতিসহ প্রায় অর্ধডজন জনপ্রিয় জাতীয় প্রকাশনায় সাংবাদিক হিসেবে জেলা প্রতিনিধি থেকে পদোন্নতি পেয়ে আঞ্চলিক প্রধানের দায়িত্ব পালন করছেন। এছাড়া দীর্ঘ ১০ বছরেরও বেশি সাংবাদিকতার অভিজ্ঞতা সম্পন্ন কক্সবাজারবাণী প্রকাশক একসময় বাংলাদেশ বেতার, কক্সবাজার কেন্দ্রের সংবাদদাতা, জাতীয় দৈনিক খবরপত্র, দেশবাংলা ও সাপ্তাহিক খবরের অন্তরালে, ইংরেজি দৈনিক নিউজ টুডে পত্রিকার জেলা সংবাদদাতায় কৃতিত্বের সহিত সাংবাদিকতা ছাড়াও এই অঞ্চল থেকে প্রকাশিত দৈনিক বাঁকখালী ও সৈকত পত্রিকার সিনিয়র রিপোর্টার হিসেবে কর্মরত থাকার পরও রূপসীগ্রাম পত্রিকায় পেশাদার সম্পাদকদের তালিকায় নিজের নাম না দেখে বিস্ময় প্রকাশ করে বলেছেন, সাংবাদিকতার নামে কোন অসৎ উদ্দেশ্যে অপেশাদারীত্বের এই প্রতিবেদন প্রকাশ না করলে নিশ্চয় সেখানে দৈনিক আজকের কক্সবাজার বার্তার সম্পাদক ছৈয়দ হোছন ও কক্সবাজার প্রেস ক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুর রহমানের নামও উল্লেখ থাকত। কারণ এই দুইজন সাংবাদিক এই অঞ্চলের শুধু পেশাদার সাংবাদিক নন, তারা অনেক সাংবাদিক তৈরির কারিগরও বটে। তৎমধ্যে ছৈয়দ হোছন জীবনের প্রায় অর্ধেকটা সময় টেকনাফের প্রান্তিক সাংবাদিকতা এবং সেখানকার প্রেস ক্লাবের সভাপতি ছিলেন। অতএব, রূপসীগ্রামের উদ্দেশ্য মূলক এই মিথ্যা সংবাদের জোর আপত্তি জানিয়ে কক্সবাজারবাণী সম্পাদক এ ব্যাপারে জেলাবাসীকে সতর্ক থাকার অনুরোধ জানিয়ে হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেছেন, ভবিষ্যতে এ ধরনের মিথ্যা সংবাদ পরিবেশন করলে আইনগত ব্যবস্থার পাশাপাশি কে আসল আর নকল সংবাদিক তা প্রমান করেই ছাড়া হবে।

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT