টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!

শিক্ষামন্ত্রীর সামনেই হাতাহাতি: ছাত্রলীগ-পুলিশ সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ ৬, আহত ৫০

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : বুধবার, ৩ জুলাই, ২০১৩
  • ১৪৫ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

 adsdsaবাংলামেইল২৪ডটকম :সিলেট: বিয়ানীবাজারে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপ ও পুলিশের সঙ্গে পৃথক সংঘর্ষে ৬ ছাত্রলীগ কর্মী গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। এ ছাড়া পুলিশসহ ছাত্রলীগের উভয় গ্রুপের আহত হয়েছেন অন্তত ৫০ জন।    মঙ্গলবার বেলা ১১টা থেকে বিকেল ৩টা পর্যন্ত এসব সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।    শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদের উপস্থিতিতে রণক্ষেত্রে পরিণত হয় বিয়ানীবাজার পৌরশহর।    সংঘর্ষ চলাকালে পুলিশ ২০ রাউন্ড ফাকা গুলি, রাবার বুলেট ও টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে। গুলিবিদ্ধ ছাত্রলীগ কর্মীদের সিলেট ওসমানী হাসপাতালসহ বিভিন্ন ক্লিনিকে পাঠানো হয়েছে।    এ ছাড়া ঘটনাস্থল থেকে ছাত্রলীগের পাবেল গ্রুপের ৭ নেতাকর্মীকে পুলিশ আটক করেছে।    প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সকালে বিয়ানীবাজার সরকারি কলেজে একাদশ ও ডিগ্রি প্রথমবর্ষের ওরিয়েন্টেশন ক্লাস ছিল। একই সঙ্গে কলেজের সার্বিক উন্নয়নের জন্য শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদকে সংবর্ধনা দেয়া হয়।    অনুষ্ঠান চলাকালে ছাত্রলীগের জামাল ও প্রপার গ্রুপের মধ্যে হাতাহাতি হয়। এ অবস্থায় শিক্ষামন্ত্রী তার বক্তব্যে ছাত্র নামধারী বিশৃঙ্খলাকারিদের বিরুদ্ধে কঠোর হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন। এমনকি আগামী এক মাসের মধ্যে বিশৃঙ্খলাকারিদের সনাক্ত করে ব্যবস্থা নিতে বলেন শিক্ষামন্ত্রী।    পরে শিক্ষামন্ত্রীর বক্তব্য শেষ হলে কলেজ ক্যাম্পাসে ছাত্রলীগ, ছাত্রদল, তালামীযে ইসলামীয়া ও ছাত্র জমিয়ত পৃথকভাবে মিছিল বের করে।    দুপুরে ছাত্রলীগের প্রপার গ্রুপ মিছিল নিয়ে দক্ষিণ বাজারের দিকে ঔদ্ধত্ত হওয়ার চেষ্টা করলে ছাত্রলীগের জামাল গ্রুপের সঙ্গে সংঘর্ষ বাধে। এ সময় পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে কয়েক রাউন্ড রাবার বুলেট ও টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে।    এতে জামাল গ্রুপের কলিম, রায়হান, নজমুল, কামরুল, দীপ্ত ও আলীম এবং প্রপার গ্রুপের দিলু, পারভেজ, তারেকসহ অনেকে আহত হন।    এ ঘটনার পরেই ছাত্রলীগের পাবেল গ্রুপ কলেজ রোড পয়েন্টে আসে। এসময় পুলিশ মিছিলে বাধা দিলে সংঘর্ষ শুরু হয়। পুলিশ নেতাতর্মীদের ওপর রাবার বুলেট ও টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে।    পুলিশ এ সময় সেখান থেকে পাবেল গ্রুপের সাত নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার করে। এসব সংঘর্ষ চলাকালে উপজেলা পরিষদ অডিটরিয়ামে আওয়ামী লীগের কর্মিসভায় উপস্থিত ছিলেন শিক্ষামন্ত্রী।    এ নিয়ে পৌর শহরে উত্তেজনা বিরাজ করছে। অনাকাঙ্খিক্ষত পরিস্থিতি এড়াতে শহরের গুরুত্বপূর্ণ স্থানে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।    এ ঘটনায় ছাত্রলীগের দু’গ্রুপ পৃথকভাবে থানায় মামলা দায়ের করার প্রস্তুতি নিচ্ছে।    বিয়ানীবাজার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (তদন্ত) মো. দেলওয়ার হোসেন বলেন, ছাত্রলীগের অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্বের কারণে দু’গ্রুপে সংঘর্ষ বাধলে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে রাবার বুলেট ও টিয়ারশেষ নিক্ষেপ করে।    ওসি দেলওয়ার বলেন, ‘পাবেল গ্রুপকে মিছিল অন্যদিকে দেয়ার কথা বললে তারা পুলিশের সঙ্গে ধস্তা-ধস্তি শুরু করে। এ ঘটনায় সাত জনকে আটক করা হয়েছে। পরিস্থিতি পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে।

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Comments are closed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT