টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!

শাহপরীরদ্বীপ আবারও সেই ভয়াবহ পরিস্থিতির মুখোমুখি হতে যাচ্ছে

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : সোমবার, ১৫ এপ্রিল, ২০১৩
  • ১৪৬ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

ddddddddমমতাজুল ইসলাম মনু টেকনাফ :
মাঝর পাড়া,দক্ষিণ পাড়া ও পশ্চিম পাড়ার বিশাল অংশ সাগরে বিলীন হয়ে গেছে। তিনটি মসজিদ,পঁচিশটির মত বসত বাড়ী,গরু,ছাগল,অগণিত হাঁস,মুরগী,গাছ,সাজানো বাগানসহ হাজারো স্বপ্ন হারিয়ে গেছে চিরদিনের জন্য। এখানকার গৃহহারা মানুষ গুলো আজো দিনাতিপাত করছে খোলা আকাশের নীচে। সবকিছু হারিয়ে ভিক্ষার ঝুলি হাতে নিয়ে ঘুরছে অনেকেই। সাগরের জোয়ারের পানি ও ঢেউয়ের আঘাতে টেকনাফ-শাহপরীরদ্বীপ কার্পেটিং সড়ক বিধ্বস্থ হয়ে যানবাহন চলাচল বন্ধ এবং সরাসরি সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে আেেজা। বিচ্ছিন্ন সড়ক দিয়ে নৌকা ও সাঁকো নিয়ে যাওয়া-আসা করছে এখানকার ত্রিশ সহা¯্রাধিক মানুষ। বেড়িবাঁধ বিধ্বস্ত হওয়ায় প্লাবিত জমিতে চলতি লবণ মৌসুমে শাহপরীরদ্বীপের প্রায় ৫ শত একর জমিতে লবণ চাষ ও গেল শীত মৌসূমে তরমুজ,মরিচ,খিরা,বাঙ্গি,শশা,পেলং,পানের বরজসহ মৌসূমী তরি-তরকারী ও শাক-সবজির চাষাবাদ করতে পারেননি চাষীরা। এখানে এক একর জমিতে প্রতি মৌসুমে ৮শ মণ লবণ উৎপাদন হত। প্রতি মৌসুমে ১৬ লাখ মণ লবণ উৎপাদনের লক্ষমাত্রা ঠিক করা হত। উৎপাদিত লবণের বাজার দাম ছিল প্রায় ৫০ কোটি টাকা। এতে চাষী, ব্যবসায়ী, শ্রমিক ও পরিবহন খাতে প্রায় ১২ হাজার লোক নিয়জিত থাকত। এ বাঁধ সংস্কার না হওয়ায় লবণের সাথে সংশিষ্ট ১২ হাজার লোক বেকার হয়ে পড়েছে। ফলে ক্ষতি হয়েছে কৃষকদের কোটি কোটি টাকা। পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় টেকনাফ শাহপরীরদ্বীপ থেকে বিচ্ছিন্নের ফলে সরকারের নজরদারী হ্্রাস পাওয়ায় প্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্য বেড়ে গেছে। রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ,মালয়েশিয়ায় মানব পাচার,ছিনতাই,আদম অপহরণ,মাদক ব্যবসা,মাদকাসক্তি থেকে শুরু করে অসামাজিক কার্যকলাপ বৃদ্ধি পেয়ে আইন-শৃংখলার মারাত্মক অবণতি ঘটেছে। অদ্যাবধি প্রতিদিন বঙ্গোপসাগরের পানি লোকালয়ে ঢুকছে অব্যাহতভাবে। গত বর্ষায় বঙ্গোপসাগরে ঢেউয়ের আঘাতে শাহপরীরদ্বীপ পশ্চিম দিকের বেড়িবাঁধের ৬৮ নং ফোল্ডার লন্ডভন্ড হয়ে যাওয়ায় মাঝর পাড়া,দক্ষিণ পাড়া ও পশ্চিম পাড়ার লোকালয়ের উল্লেখযোগ্য জনবসতি অংশ সাগরের করাল গ্রাসে চলে গেছে। গতবছর বর্ষা মৌসুমে শাহপরীরদ্বীপের পশ্চিম দিকের বেড়িবাঁধ সাগরের পানি লোকালয়ে ঢোকায় মাঝর পাড়া,পশ্চিম পাড়া ও দক্ষিণ পাড়ার অর্ধশতাধিক পবিবার এখনো খোলা আকাশের নিচে দিনাতিপাত করছে। বর্ষা ও জোয়ারের আঘাতে বেড়িবাঁধ ভেঙ্গে যাওয়া ও ভাঙ্গা বেড়িবাঁধের সংস্কার কাজ অদ্যাবধি শুরু না হওয়ায় লোকালয়ে প্রায় অর্ধবছরেরও বেশী সময় ধরে দ্বীপাঞ্চলের মানুষগুলোকে দিন কাটাতে হয়েছে মানবেতর ও চরম দুর্ভোগে। বেড়ি বাঁধ বিধ্বস্থ হওয়ার পর থেকে শাহপরীরদ্বীপের সচেতন বাসিন্দাগণ বিধ্বস্থ বেড়িবাঁধ পূনঃনির্মাণের দাবীতে সভা-সমাবেশ, মানববন্ধন, স্বারকলিপি পেশ, আবেদন, সংবাদ সম্মেলন করেও সরকারের উচ্চ মহলের দৃষ্টি আকর্ষণ করার চেষ্টা চালিয়েছেন। শাহপরীরদ্বীপের মানুষের এহেন চলমান দুর্যোগ ও দুর্ভোগে কিছু পরিদর্শন ও দুঃখ প্রকাশ করা ছাড়া এগিয়ে আসতে দেখা যায়নি কোন প্রশাসন ও জন প্রতিনিধিদের। শুক্রবারে সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে,শাহপরীরদ্বীপের বিধ্বস্থ বেড়ীবাঁধের পূনঃ নির্মাণ হয়নি। দীর্ঘ ৮ মাসেও জোড়া লাগেনি টেকনাফ-শাহপরীরদ্বীপ সড়কের। এখানে একটি মাটিও ফেলা হয়নি। অবশ্য স্থানীয় সংসদ সদস্য আবদুর রহমান বদির উদ্যোগে বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়া খালের বাঁধ জোড়া দেয়ার কাজ চলছে বর্তমানে। যা শাহপরীরদ্বীপের বিশাল লোকালয় রক্ষার জন্য যথেষ্ট নয় বলে মনে করছেন স্থানীয় সচেতন মহল। এ ব্যাপারে স্থানীয় আওয়ামীলীগের সেক্রেটারী মনিরুল্লাহ জানান,টেকনাফ-শাহপরীরদ্বীপ সড়ক রক্ষার নামে খালের বাঁধ সংস্কার করে শাহপরীরদ্বীপের সব গ্রাম পানিতে ডুবে ফেলার ষড়যন্ত্র করছে একটি স্বার্থন্বেসী মহল। তিনি সংস্কার কাজে অনিয়ম ও দুর্নীতিরও অভিযোগ করেন। আর কয়েক মাস পরেই শুরু হবে বর্ষা। গত বর্ষায় সাগরের ভয়াবহ ভাঙ্গনে শতাধিক বসতবাড়ী, বাস্তুভিটা, মসজিদ-মক্তব সাগরের করাল গ্রাসের মুখে পড়েছিল। বর্ষা শুরু হওয়ার আগে সে বিধ্বস্থ বেড়িবাঁধ পূণঃ নির্মাণ করা না হলে আবারও সেই ভয়াবহ পরিস্থিতির মুখোমুখি হতে যাচ্ছে শাহপরীরদ্বীপের ৩০ হাজার বাসিন্দা !

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Comments are closed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT