টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!
শিরোনাম :
রোহিঙ্গাদের এনআইডি কেলেঙ্কারি : নির্বাচন কমিশনের পরিচালকের বিরুদ্ধে দুপুরে মামলা, বিকালে দুদক কর্মকর্তা বদলি সড়কের কাজ শেষ হতে না হতেই উঠে যাচ্ছে কার্পেটিং! আপনি বুদ্ধিমান কি না জেনে নিন ৫ লক্ষণে ৫৫ হাজার রোহিঙ্গা বাংলাদেশি ভোটার: নিবন্ধিত রোহিঙ্গাও ভোটার! ইসি পরিচালকসহ ১১ জন আসামি হ’ত্যার পর মায়ের মাংস খায় ছেলে ব্যাংকে লেনদেন এখন সাড়ে ৩টা পর্যন্ত আগামী ১৫ জুলাই পর্যন্ত লকডাউন বাড়ল মডেল মসজিদগুলোয় যোগ্য আলেম নিয়োগের পরামর্শ র্যাবের জালে ধরা পড়লেন টেকনাফ সাংবাদিক ফোরামের সদস্য ও ইয়াবা কারবারি বিপুল পরিমাণ টাকা ও ইয়াবা উদ্ধার রোহিঙ্গাদের তথ্য মিয়ানমারে পাচার করছে জাতিসংঘ: এইচআরডব্লিউ

লাশের স্তূপ দিনরাত চিতায় আগুন জ্বালিয়ে রেখেও শেষ করা যাচ্ছে না

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : শনিবার, ৬ জুন, ২০২০
  • ৫১৪ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

করোনা ভাইরাসের প্রকোপ দিন দিন বেড়েই চলেছে ভারতে। প্রতিদিন ১০ হাজারের বেশি মানুষ আক্রান্ত হচ্ছে এবং মৃত্যুর মিছিলে যুক্ত হয়েছে সাড়ে ৬ হাজারের বেশি মানুষ। এতে দিল্লিতে দিনরাত চিতায় আগুন জ্বালিয়ে রেখেও শেষ করা যাচ্ছে না লাশের স্তূপ। রাজ্যটিতে এ পর্যন্ত ৭০৮ জন মানুষের মৃত্যু হয়েছে।

প্রথতে শুধু বৈদ্যুতিক চুল্লিতে লাশ পোড়ানো হতো তবে  ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কায় কাঠের চুল্লিতে বন্ধ ছিল সৎকারের কাজ। তবে এখন লাশের স্তূপ জমে যাওয়ায় কাঠের এবং বৈদ্যুতিক চুল্লিতে ২৪ ঘণ্টা আগুন জ্বালিয়ে রেখেও লাশ শেষ করেতে পাছেন না শ্মশানকর্মীরা।

শহরের প্রাণকেন্দ্র লালকেল্লা সংলগ্ন এলাকাতেই যেহেতু অবস্থিত ভাইরাস প্রতিরোধক শ্মশান ঘাটটি, বিভিন্ন হাসপাতালের মর্গ থেকে সেখানেই সবচেয়ে বেশি সংখ্যক মৃতদেহ আসে। এমন পরিস্থিতিতে ২৪ ঘণ্টা শ্মশান খুলে রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন কর্তৃপক্ষ। গত সপ্তাহে কাঠের চিতাতেও করোনায় মৃতদের তোলার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। কিন্তু তাতেও সব দেহ সৎকার করা সম্ভব হচ্ছে না বলে জানা যাচ্ছে।

শ্মশান ম্যানেজমেন্ট কমিটির সদস্য সুমনকুমার গুপ্ত জানান, মৃতদেহ নিয়ে শ্মশানে ঢোকার মুখে মৃতের পরিবারের সকলকে জীবাণুমুক্তকরার প্রক্রিয়ার মধ্যে দিয়ে যেতে হয়। সামাজিক দূরত্ব মেনে শেষকৃত্য সম্পন্ন করতে অনেকটা সময়ও লেগে যায়। তার জন্য উদ্বেগ নিয়েই ঘণ্টার পর ঘণ্টা শ্মশানে অপেক্ষা করতে হয় তাঁদের। কিন্তু এ ছাড়া অন্য উপায় নেই বলে জানান তিনি।

শ্মশানে কর্মরত সঞ্জয় শর্মা নামের এক শ্মশানকর্মী জানান, এই সঙ্কটের সময়ও মৃতদেহগুলিকে যাতে সম্মানের সঙ্গে দাহ করা যায়, সেদিকে নজর রাখেন তাঁরা। তবে আগামী দিনে পরিস্থিতি আরও ভয়ঙ্কর হয়ে উঠতে পারে বলে আশঙ্কা তাঁর।

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT