টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!

রাত পৌনে ২টায় জোয়ার, জলোচ্ছ্বাস ভয়ংকর হতে পারে

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ১৬ মে, ২০১৩
  • ১৫৩ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

বঙ্গোপসাগরে পূর্ণ জোয়ারের সময় বুধবার গভীর রাত থেকে ভোর পর্যন্ত কক্সবাজার উপকুলীয় এলাকায় প্রায় ৮ থেকে ১০ ফুট উচ্চতার জলোচ্ছাসের আশংকা সৃষ্টি হয়েছে।

আর এ সময়ের মধ্যেই ঘূর্ণিঝড়টি কক্সবাজার উপকূলে আঘাত হানার সম্ভাবনা আছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় আবহাওয়া অফিসের কর্মকর্তারা।

কক্সবাজার জেলা আবহাওয়া অফিসের সহকারী আবহাওয়াবিদ একেএম নাজমুল হক বাংলানিউজকে জানান, বুধবার রাত ১টা ৪৮ মিনিটে বঙ্গোপসাগরে পূর্ণ জোয়ার সৃষ্টি হবে। সকাল ৮টা ৮ মিনিটে জোয়ার শেষ হয়ে ভাটা হবে।

আর বুধবার রাত ১০টার পর বঙ্গোপসাগরে সৃষ্টি হওয়া ঘূর্ণিঝড় মহাসেন’র বর্ধিতাংশ আঘাত হানতে পারে। ভোরে আঘাত হানতে পারে ঘূর্ণিঝড়ের মূল ও সক্রিয় অংশ।

সহকারী আবহাওয়াবিদ একেএম নাজমুল হক বাংলানিউজকে বলেন, ‘ঘূর্ণিঝড় আঘাত আনুক কিংবা দুর্বল হয়ে যাক, পূর্ণ জোয়ারের সময় ৫ থেকে ৭ ফুট উচ্চতার জলোচ্ছ্বাস সৃষ্টি হবে। এতে উপকূলীয় এলাকা প্লাবিত হবার সম্ভাবনা আছে।’

তিনি জানান, বুধবার বঙ্গোপসাগরে স্বাভাবিক জোয়ারের সময় পানির উচ্চতা ছিল ২ দশমিক ৮৩ ফুট। জলোচ্ছ্বাসের সময় পানির উচ্চতা বেড়ে সর্বনিম্ন প্রায় ৮ ফুট এবং সর্বোচ্চ ১০ ফুট হতে পারে।

তবে জোয়ারের সর্বোচ্চ উচ্চতা স্বাভাবিকের চেয়ে সাত ফুটের বেশি হবার সম্ভাবনা নেই বলে জানিয়েছেন দুর্যোগ বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক একেএম ওয়াহিদুজ্জামান।

তিনি বাংলানিউজকে বলেন, ‘স্বাভাবিক জোয়ারের চেয়ে ৪ থেকে ৭ ফুট পর্যন্ত উচ্চতা বেশি হতে পারে। তবে সাত ফুট না হওয়ারও সম্ভাবনা আছে। এটা ঘূর্ণিঝড়, সাইক্লোন না। প্রশাসন মানুষকে ভুল বার্তা দিচ্ছে। ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে প্রচুর বৃষ্টিপাত হবে।’

উল্লেখ্য কক্সবাজার আবহাওয়া অফিসের সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী ঘূর্ণিঝড় মহাসেন এখনও কক্সবাজার থেকে ৬৯৫ কিলোমিটার দূরে অবস্থান করছে। আর কক্সবাজারে এখনও সাত নম্বর বিপদ সংকেত বহাল রেখেছে আবহাওয়া অফিস।

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Comments are closed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT