টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!

রাজধানীর ফার্মগেটে নিবেদিকা হোস্টেলে ছাত্রীদের আন্দোলন দমাতে মধ্যরাতে ভাড়াটে গুণ্ডা

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ২ জুলাই, ২০১৩
  • ১৬৭ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

 

 

 

 

 

nebidita-bg20130701203402ডেস্ক নিউজ :-রাজধানীর ফার্মগেটে নিবেদিকা হোস্টেলে ছাত্রীদের  আন্দোলন দমাতে মধ্যরাতে ভাড়াটে গুণ্ডা মঙ্গলবার রাত সোয়া ১টার দিকে রাজধানীর ফার্মগেটের মোস্তফা রোডের নিবেদিকা হোস্টেলে আন্দোলনরত ছাত্রীদের দমাতে ২০-২৫ জন ভাড়াটে গুণ্ডা ছাত্রী হোস্টেলে ঢুকে তাদের নানা হুমকি-ধমকি দেয়।

ছাত্রীদের দাবি, হোস্টেলের ভাড়া, খাবারের মান এবং আরও অন্যান্য কিছু দাবিতে সন্ধ্যা থেকে যখন তারা আন্দোলন করছিল তখন হোস্টেলের মালিক আলহাজ্জ মোস্তাফিজুর রহমান তাদের আন্দোলন দমাতে ভাড়াটে গুণ্ডা পাঠান। সে সময়ে সেখানে এলাকার এক প্রভাবশালী ব্যক্তি এবং শেরেবাংলানগর থানার তিন জন পুলিশ থাকলেও গুণ্ডাদের দেখে তারা চলে যান।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক হোস্টেলের এক মেয়ে জানান, সোমবার সন্ধ্যা ৬ টা থেকে বিভিন্ন দাবি-দাওয়া নিয়ে হোস্টেলের মালিকের সাথে বসতে চাইলে মালিক বিভিন্ন টালবাহানা করে তাদের সাথে দেখা করতে আসে নি।

হোস্টেলের মেয়ে মনিকা বাংলানিউজকে জানান, ভাড়াটে গুণ্ডারা পিছনের গেট দিয়ে আসার পর আমরা তেজগাঁও থানায় ফোন দেই। সেখান থেকে আমাদের জানানো হয় মোস্তফা রোড তাদের থানার মধ্যে পড়ে না। পরবর্তীতে শেরেবাংলা থানা থেকে ৩ জন পুলিশ আসলেও তারা গুণ্ডাদের দেখে সামনের দরজার বাইরে অবস্থান নেয়।

তখন ভয়ে মেয়েরা নিজ নিজ ঘরে ফিরে গেলেও বাংলানিউজ ও ইন্ডিপেনডেন্ট টিভির সাংবাদিকদের দেখে বাইরে বের হয়ে তাদের আন্দোলন শুরু করে।

শেরেবাংলা থানার ইন্সপেক্টর (তদন্ত) মারুফ আহমেদ জানান, রাতে হোস্টেলে ঢুকে গুণ্ডাদের হুমকির ব্যাপারে শেরেবাংলা থানা পুলিশ অবগত নয় এবং সে সময় ছাত্রী হোস্টেলে শেরেবাংলা থানার কোন পুলিশ ছিল না। যদি এরকম কোন ঘটনা ঘটে থাকে তাদের আইনের আওতায় আনা হবে।

ছাত্রীরা মালিকের সাথে দেখা করতে চাইলে ইন্সপেক্টর মারুফ রাত ৩ টার সময় তেজগাঁও ও শেরেবাংলা থানা পুলিশের ২ টি দলকে পাঠায় তবে শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত ভোর সাড়ে ৫ টায় পুলিশ জানায় তার মনিপুরী পারার বাসায়। সে গেট খুলছে না।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ছাত্রী বলেন, পুলিশ তাদের হয়ে কাজ করছে। পুলিশের ইচ্ছা থাকলে দরজা ভেঙ্গেও তাকে নিয়ে আসতে পারে, তবে নানা অজুহাতে পুলিশ তাকে আমাদের মুখাপেক্ষী করছে না।

এদিকে বাইরে থেকে সুন্দর একটি সাইনবোর্ডে ‘ভর্তি চলছে, নিবেদিকা (ভিআইপি) ছাত্রী হোস্টেল’ লিখা থাকলেও ভেতরে গিয়ে দেখা গেল পুরো বিপরীত চিত্র।

হোস্টেলের মেয়েদের অনুরোধে হোস্টেলের রান্না ঘরে গিয়ে মঙ্গলবার সকালের জন্য বানানো রুটি আর সবজি দেখা গেল। আর সবজিতে হাতছিল কয়েকটি তেলাপোকা। কয়েক বছর ধরে ফিল্টার পরিষ্কার না করায় পানির ফিল্টারে কালো ময়লা জমে গেছে, বাথরুমেরও করুণ দশা। সব মিলিয়ে অস্বাস্থ্যকর বসবাসের অনুপযোগী পরিবেশে থাকছে নিবেদিকা হোস্টেলের মেয়েরা।

এছাড়াও তাদের ঘরের অনেক জায়গায় ফাটল ধরে গেছে এবং বৃষ্টিতে ফাটল দিয়ে পানি পড়ে।

নাম প্রকাশ না করার অনুরোধে এক ছাত্রী দেয়ালে পিঠ ঠেকে যাওয়াতেই এই আন্দোলন করছে বলে জানায়।

বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি কোচিং করতে আসা এক মেয়ে জানায়, সবাই ৪ হাজার ৬০ টাকা দিলেও আমরা ঢাকায় নতুন এসেছি বলে আমাদের ৬ হাজার টাকা দিতে হয়।

এদিকে হোস্টেলের মালিক মোঃ মোস্তাফিজুর রহমানের সাথে যোগাযোগ করতে চাইলে প্রথম কয়েকবার ফোন না ধরলেও পড়ে তা বন্ধ পাওয়া যায়।

হোস্টেলে অনেক দিন নিম্নমানের বাসি খাবার, খাবারে কিট পতঙ্গ, দেয়ালের ফাটল, অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ নিয়ে অনেকদিন ধরেই মালিক মোস্তাফিজের সাথে বসতে চাচ্ছিল তারা। কিন্তু মালিক বিভিন্ন অজুহাতে তাদের সাথে দেখা করতো না। সর্বশেষ মালিক কর্তৃক স্বাক্ষরিত একটি নোটিশে লেখা ছিল হিন্দু, মুসলিম, খ্রিস্টান, রোজাদার, বেরোজাদার সবাইকে ৫০০ টাকা দিতে হবে ইফতারের জন্য। সেই নোটিশ দেখে মেয়েরা সোমবার সন্ধ্যা থেকে আন্দোলন শুরু করে।

সংবাদটি বাংলানিউজ টোয়ান্টিফোর ডটকম থেকে  সংগৃহিত

 

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Comments are closed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT