টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!

যেতে হবে সমঝোতার পথে

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : বুধবার, ৮ মে, ২০১৩
  • ১৪৩ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

1367948877.স্টালিন সরকার : হেফাজত বনাম সরকার এখন সবচেয়ে আলোচিত ইস্যু। গভীর রাতে মতিঝিলে অবস্থান নেয়া লাখ লাখ হেফাজত কর্মীর ওপর বিজিবি-র‌্যাব-পুলিশের যৌথ অভিযানের খবর মিডিয়ায় দেশ-বিদেশের তাবৎ খবরকে ছাপিয়ে গেছে। দেশের সবগুলো মিডিয়ায় এ খবর শিরোনাম হচ্ছে। বিশ্বের প্রভাবশালী মিডিয়াগুলোর খবরে বিরাট জায়গা দখল করে নিয়েছে শাপলা চত্বরের ঘটনা। ব্লগ, ফেসবুক, টুইটার, ওয়েব সাইট, ইমেইল, অনলাইন মিডিয়া, টেলিভিশনের টকশোর আলোচনার প্রধান বিষয়বস্তু এখন হেফাজত এবং মতিঝিলের বর্বরতা। মত প্রকাশ বিতর্কের পাশাপাশি সামনে কি হয় সে আশঙ্কা থেকে উদ্বেগ উৎকণ্ঠা প্রকাশ করছে মানুষ। একজন রাষ্ট্রবিজ্ঞানী ও একজন সমাজবিজ্ঞানী মনে করেন সংলাপের মাধ্যমে সংকটের সুরাহা করা উচিত। তাদের মতে হেফাজত ইস্যুতে হামলা-মামলা, জুলুম-নির্যাতন, সংঘাত-সংঘর্ষ, দমন-পীড়নের পথ পরিহার করে সরকারকে সমঝোতার পথে হাঁটতে হবে।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ৩ মে সংবাদ সম্মেলন করে বলেছেন, হেফাজতের ১৩ দফার অনেকগুলো দাবি মেনে নেয়া হয়েছে। কিছু প্রক্রিয়াধীনও রয়েছে। অনেক দাবি অযৌক্তিক হলেও মুসলমান হিসেবে অনেক দাবির সঙ্গে একমত। আগে হেফাজতের নেতার সঙ্গে আলোচনার জন্য প্রধানমন্ত্রী একজন মন্ত্রীকেও পাঠিয়েছিলেন। তাহলে হেফাজত ইস্যুতে হঠাৎ সরকার কঠোর হলো কেন? কেনই বা গভীর রাতে ভয়ঙ্কর এ ঘটনার মাধ্যমে গোটা দেশে যুদ্ধাবস্থার সৃষ্টি করা হলো? অনেকেই বলছেন, ক্ষমতাসীন দলের ভিতরে থেকে রাজনীতির নামে ‘পলিটিক্স’ করছেন অতি প্রগতিবাদী ব্যক্তি। কিছু বুদ্ধিজীবী, সুশীল সমাজ, সাংস্কৃতিক নেতা ধর্মনিরপেক্ষতা গেল গেল বলে পরিস্থিতিকে উস্কে দিচ্ছেন। একজন প্রবীণ আইনজীবীর ‘সরকার এখনই হেফাজতকে মতিঝিল থেকে সরিয়ে দিচ্ছে না কেন?’ বক্তব্য দেয়ার কয়েক ঘন্টার পর যৌথ অভিযান শুরু হয়। বিশ্ব মিডিয়ায় ব্যাপক সমালোচিত হচ্ছে সরকার। বেকায়দায় পড়ে যাওয়া বর্তমান সরকারকে ‘শুভবুদ্ধি’ দিয়ে পরিস্থিতি থেকে উত্তরণের পথ দেখাতে পারছে না কেউ। পরিস্থিতির সব দায় সরকারের ওপর যাচ্ছে।
টেকনাফ থেকে তেঁতুলিয়া সবখানেই হেফাজত ইস্যু নিয়ে আলোচনা সমালোচনা বিতর্ক হচ্ছে। হাটে-মাঠে-ঘাটে সবখানে মানুষের মধ্যে এক আলোচনা কি হবে সামনে। পরিস্থিতি কোন দিকে মোড় নিচ্ছে? ভয়, অনিশ্চয়তাও ক্রমান্বয়ে মানুষকে গ্রাস করছে। সভার ট্রাজেডির পর গার্মেন্টস শিল্পের ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। গার্মেন্টসে কর্মরত প্রায় অর্ধ কোটি শ্রমিকের জীবন-জীবিকা এখন হুমকির মুখে। বিদেশী বায়ারদের কাছে সরকারকে এনিয়ে জবাবদিহি করতে হচ্ছে। এ ছাড়াও শাহবাগমঞ্চ, হলমার্ক, ডেসটিনি, শেয়ারবাজার, মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচার, পদ্মা সেতু ইস্যু সরকারকে মোকাবিলা করতে হচ্ছে। তত্ত্বাবধায়ক ইস্যু নিয়ে বিরোধী দলের আন্দোলন চলছে। গভীর রাতে আলেমদের ওপর যৌথ অভিযানে ২/৩ হাজার মানুষের মৃত্যুর গুজব নিয়ে বিতর্ক হচ্ছে। বাংলা ভিতনের ফ্রন্ট লাইন আলোচনায় দ্যা নিউ এজ পত্রিকার সম্পাদক নুরুল কবির বর্তমান অবস্থা থেকে উত্তরণের জন্য সরকারের প্রতি আহবান জানিয়েছেন। মতিঝিলের ট্রাজেডি (হাজার হাজার মৃত্যুর গুজব) নিয়ে মন্তব্য করতে গিয়ে তিনি বলেন, মৃত্যু নিয়ে এ গুজবের যথেষ্ট কারণ রয়েছে। এক. অপারেশনের সময় বেছে নেয়া হয়েছে শেষ রাতে। ওই সময় সব পত্রিকা ছাপা হয়ে যায়। আবার ঘটনার খবর প্রচার করায় দুটি টেলিভিশনের সম্প্রচার বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। এ ঘটনার কারণে মানুষ অসংখ্য মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে বলে কথাবার্তা বলছে। রাতের আঁধারে হেফাজত কর্মীদের ওপর অভিযানের প্রতিবাদে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ১৮ দলীয় জোট দুই দিনের হরতাল কর্মসূচি দিয়েছে। হেফাজতে ইসলাম গতকাল দোয়া দিবস পালন করেছে। অথচ সংগঠনের মহাসচিব জুনায়েদ বাবুনগরীকে গ্রেফতার করে ৯ দিনের রিমা-, ৪০ হেফাজত কর্মীকে ২ দিনের রিমা-, সংগঠনের আমির আল্লামা আহমদ শফীর বিরুদ্ধে আদালতে রীট এবং হেফাজত কর্মীদের ওপর দমন-পীড়নের প্রতিবাদে ১২ মে হরতাল কর্মসূচি দেয়া হয়েছে। এসব ধারাবাহিক আন্দোলন কর্মসূচি পরিস্থিতিকে আরো সংঘাতময় করে তুলবে। হেফাজতে ইসলামের কর্মসূচি ঘিরে সরকারি বাহিনীর সঙ্গে সংগঠনটির নেতাকর্মীদের সংঘর্ষ এবং বহু প্রাণহানির পরিপ্রেক্ষিতে সংঘাত বন্ধের আহবান জানিয়েছেন জাতিসংঘ মহাসচিব বান কি মুন। গতকাল এক বিবৃতিতে তিনি এই আহ্বান জানানো হলো। বিবৃতিতে মহাসচিব বাংলাদেশের সব পক্ষকেই সংঘাত থেকে বিরত হওয়ার আহবান জানান। তিনি সবাইকে আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হওয়ার এবং শান্তিপূর্ণ উপায়ে নিজেদের মত প্রকাশ করার আহবান জানান। পাশাপাশি তিনি রাজনৈতিক এবং ধর্মীয় নেতাদের ‘গঠনমূলক সংলাপ’র মাধ্যমে সমস্যার সমাধান এবং উত্তেজনা প্রশমনে পরস্পরকে সহযোগিতা করারও আহবান জানান।
কওমী মাদ্রাসা কেন্দ্রিক গড়ে উঠা অরাজনৈতিক সংগঠন হেফাজতে ইসলামকে প্রথম থেকেই শহুরে বুদ্ধিজীবী, সাংস্কৃতিক নেতা, সুশীল সমাজ, তথাকথিত প্রগতিশীল ব্যক্তি, মানবাধিকার রক্ষার ব্যাপারী এনজিওগুলো তুচ্ছ তাচ্ছিল্য করেছে। সমাজের পিছিয়ে পড়া আলেম সমাজকে তুচ্ছতাচ্ছিল্য করেছে। এমনকি অনেকেই মানুষের দান-খয়রাতে পরিচালিত হওয়ায় কওমী মাদ্রাসার শিক্ষক-ছাত্রদের ফকির-মিসকিনের সঙ্গে তুলনা করেছে। সরকারের ভিতরে একটি অংশও তথাকথিত প্রগতিশীল এবং বামপন্থীদের সঙ্গে সুর মেলালেও দূরদর্শী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা হেফাজতের অবস্থা এবং ধর্মীয় আবেগ বুঝতে পেরেছিলেন। তাই তিনি মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদকে আলোচনার জন্য পাঠিয়ে দেন আল্লামা আহমদ শফীর কাছে। ব্লগারদের কঠোর বিচারসহ ১৩ দফা দাবিতে হেফাজত আন্দোলন করলেও সরকার থেকে জানিয়ে দেয়া হয় বর্তমান সরকার ইসলাম বিদ্বেষীদের প্রশ্রয় দেবে না। হেফাজতের ১৩ দফা দাবির অনেকগুলো মেনে নেয়া হয়েছে। কয়েকটি দাবি নিয়ে বিচার বিশ্লেষণ চলছে। তারপরও হেফাজতের বিরুদ্ধে সরকারকে কিছু ইসলাম বিদ্বেষী বুদ্ধিজীবী উস্কে দিতে থাকে। হেফাজত কর্মসুচি অব্যাহত রেখে জানিয়ে দেয় তাদের এ কর্মসূচি অরাজনৈতিক। কাউকে ক্ষমতা থেকে সরানো বা কাউকে ক্ষমতায় বসানোর জন্য এ আন্দোলন নয়। প্রধানমন্ত্রীর প্রতি শ্রদ্ধা প্রদর্শন করে তাকে আলেম-ওলামাদের দাবি মেনে নেয়ার আহবান জানান। এ সময় সরকারের একটি অংশ হেফাজতে ইসলামকে ‘সাইজ’ করতে নানামুখী কৌশলের আশ্রয় নেয়। বিভিন্ন ইসলামী সংগঠনকে হেফাজতে ইসলামের বিপক্ষে মাঠে নামানো হয়। সরকারের কয়েকজন মন্ত্রী ও নেতা হেফাজতের সাংগঠনিক অবস্থাকে তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য করে এদের পিছনে বিএনপি-জামায়াত কাজ করছে প্রচার করে পরিস্থিতিকে এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। টেলিভিশনের টক-শোর মাধ্যমে গড়িয়ে উঠা ২/৪ জন হঠাৎ বুদ্ধিজীবী হেফাজতকে তুচ্ছতাচ্ছিল্য করে টিভি পর্দা গরম করেন। তারা সরকারকে উস্কে দেন হেফাজতের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণের। কিন্তু কিছু বুদ্ধিজীবী চলমান বাস্তবতা অবলোকন করে টিভির টকশোতে যান এবং চলমান সংকট, মানুষের দুরবস্থা, সমাজে অস্থিরতা, সমাজ ব্যবস্থায় বিশৃংখলা, আগামী দিনের রাজনীতি ও গণতন্ত্র নিয়ে উদ্বেগ উৎকণ্ঠা প্রকাশ করেন। তারা সরকারকে সুপরামর্শ দেন। সংকটের অসংখ্য ফ্রন্ট খুলেছে সরকার। এতোগুলো বিষষেয়র মধ্যে নতুন করে হেফাজত ইস্যু ওপেনের আগেই অঙ্কুরেই সুরাহার পরামর্শ দেন সরকারকে। কিন্তু ইসলাম বিদ্বেষী কিছু বুদ্ধিজীবী, আইনজীবী, সমাজের উপর তলার সুবিধাভোগী ব্যক্তি, সরকারের থাকা বামপন্থী হেফাজত ইস্যুতে সরকারকে কঠোর হতে প্রভাবিত করে। কওমী মাদ্রাসা কেন্দ্রীক হেফাজতকে ‘ফুতকারে’ উড়িয়ে দেয়ার জন্য সরকারকে পরামর্শ দেন। যার পরিণতি বর্তমানের অবস্থা। গত কয়েকদিনে দেশের বিদেশে হেফাজত নিয়ে বেশি আলোচনা-সমালোচনা-বিতর্ক হচ্ছে। মতিঝিলের শাপলা চত্বরে বিজিবি-র‌্যাব-পুলিশের যৌথ অভিযানের পর অনেক ইসলামী সংগঠন ও রাজনৈতিক দল হেফাজতের পাশে দাঁড়িয়েছে। তারা আন্দোলনের কর্মসূচিও গ্রহণ করেছে। প্রখ্যাত সাংবাদিক মাহফুজ উল্লাহ হেফাজতের অবস্থা নিয়ে কথা বলতে গিয়ে ইন্ডিপেন্ডেন্ট টেলিভিশনের টকশোতে বলেছেন, গ্রাম বাংলায় কওমী মাদ্রাসা কেন্দ্রিক গড়ে ওঠা হেফাজতকে শহরের সুবিধাভোগীরা মনে করতাম পশ্চাতমুখী। তারা কিছুই জানেন না। কিন্তু সংগঠনটির নেতাদের কথাবার্তা, টেবিলটকে মনে হয় তারা অনেক কিছুই জানেন। তাদের এখন পশ্চাৎমুখী ভাবা ঠিক হবে না। তাদের চাহিদা, দাবী দাওয়া-চাওয়া পাওয়া নিয়েও ভাবতে হবে।
হেফাজত কোনো রাজনৈতিক সংগঠন নয়। ক্ষমতাও তাদের টার্গেট নয়। ১৩ দফা দাবিতে তারা যে আন্দোলন করছে সরকার সেগুলোর কিছু দাবি বাস্তবায়নও করেছে বলে সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ৩ মে গণভবনে সংবাদ সম্মেলনে হেফাজতের ১৩ দলা দাবির প্রতিটি বিষয় নিয়ে কথা বলেছেন তিনি। তিনি সরকারের অবস্থানও তুলে ধরেছেন। কিন্তু সরকারি দলের কয়েকজন সদস্য ও কয়েকজন মন্ত্রীর ‘অতিকথন’ পরিস্থিতিকে জটিল করে তুলছে। তাদের এই ‘অতিকথন’ বন্ধ করতে হবে। আলেমদের সঙ্গে সংলাপের পরিবেশ সৃষ্টি করতে এটা অপরিহার্য। গণতন্ত্রের জন্য যেমন প্রয়োজন বিরোধী দলের সঙ্গে তত্ত্বাবধায়ক ইস্যু নিয়ে আলোচনায় বসা। গাবের (খালেদা জিয়া) পানি আর ডাবের (শেখ হাসিনা) পানি এক সঙ্গে মিশতে পারে না। খালেদা জিয়ার মতো নেত্রীর সঙ্গে শেখ হাসিনার তুলনা চলে না। তাদের মধ্যে সংলাপও হতে পারে না। মন্ত্রীদের এধরনের দায়িত্বহীন কথাবার্তা সংকটকে দীর্ঘ থেকে দীর্ঘতর করছে। গতকালও আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য দফতরবিহীন মন্ত্রী সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত বলেছেন, ষড়যন্ত্র করে নির্বাচিত সরকারকে ফেলে দেয়া যাবে না। একটি নির্বাচিত সরকারকে কয়েকটা মিছিল নিয়ে এলেই পতন ঘটানো যায় না। ক্ষমতা হস্তান্তর হবে নির্বাচনের মাধ্যমেই। বেগম খালেদা জিয়ার ৪৮ ঘণ্টার আল্টিমেটাম আর হেফাজতের অবস্থানের মাধ্যমে তারা সরকারের পতন ঘটাতে চেয়েছিল। এতে সরকার বাধ্য হয়েছে তার প্রশাসনিক ব্যবস্থা নিতে। তাই বিরোধী দল সরকার পতন ঘটাতে পারেনি। এভাবে নির্বাচিত সরকারের পতন ঘটানো যায় না। এই সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত রেলের কালো বিড়াল তাড়ানোর ঘোষণা দিয়ে মন্ত্রী হয়ে নিজেই কালো বিড়াল হয়ে পড়েন। মধ্যরাতের অর্থ কেলেঙ্কারীর কারণে সরকারের ইমেজে চুনকালি পড়েছে। আওয়ামী লীগের অধিকাংশ নেতাকর্মী সাবেক এই বামপন্থী নেতার কালো বিড়াল কাহিনীতে বিব্রত। অনৈতিকতার মাধ্যমে অর্থ আয় করতে গিয়ে হাতেনাতে ধরা খাওয়া এই মানুষটি প্রতিদিন জাতিকে জ্ঞানগর্ভ ছবক দিচ্ছেন। আওয়ামী লীগের উপদেষ্টাম-লীর সদস্য তোফায়েল আহমেদ বলেন, খালেদা জিয়া পরিকল্পিতভাবে ৪ মে সমাবেশ ডেকে ৪৮ ঘণ্টার আলটিমেটাম দিয়েছেন। তার উদ্দেশ্য ছিল ৬ মে জামায়াত ও বিএনপিকে মাঠে নামিয়ে ঢাকাকে তছনছ করে সরকার ও গণতন্ত্রকে হত্যা করা। হেফাজতে ইসলাম ৫মে খালেদা জিয়ার নির্দেশে সারা শহরে হামলা, ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ ও লুটপাট করেছে। কিন্তু শেখ হাসিনার নেতৃত্বে তারা পরাজিত হয়েছে। বন ও পরিবেশ মন্ত্রী বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়াকে ফুলনদেবী হিসেবে অভিহিত করেছেন। দেশের বর্তমান অবস্থা নিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি সমাজবিজ্ঞানী প্রফেসর ড. আনোয়ারউল্লাহ চৌধুরীর মতে এখনই জাতীয় ঐক্য ও সংলাপের দিশা জাগাতে না পারলে বিভক্তি আরও ভয়াবহ হবে। সেটাকে নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব নাও হতে পারে। প্রচলিত নেতৃত্ব রাষ্ট্রনায়োকিত মনোভাব দেখাতে না পারায় সমাজে ঐক্যের স্থলে বিভেদ বৃদ্ধি পেয়েছে। সামাজিক চিন্তায় জাতীয়তাবাদী, বামপন্থী ও ইসলামপন্থীদের অবস্থান বিদ্যমান। গণতান্ত্রিক সংস্কৃতির প্রধান কর্তব্য হলো সকল সামাজিক শক্তি ও চিন্তাকে ওয়ার্কিং রিলেশন্সের মধ্যে এনে শান্তিপূর্ণ সহাবস্থানের ভিত্তিতে কাজ করার সুযোগ সৃষ্টি করতে হবে। গণতান্ত্রিক সুশাসন বা গভর্নেন্সের প্রধান শর্তই হলো রাজনৈতিক সোসাইটি এবং সিভিল সোসাইটির মধ্যে ঐক্য। কিন্তু সিভিল সোসাইটি বিভক্ত হলে পলিটিক্যাল বা রাজনৈতিক সমাজও বিভক্ত হয়। তখন ঐক্য এবং সংলাপের জায়গাটি ছোট হয়ে আসে। বাংলাদেশে সমাজ ও সংস্কৃতির বিভক্তি রাজনীতিকেও বিভক্ত করেছে। এটা থেকে বের হয়ে আসতে হবে। রাষ্ট্রবিজ্ঞানী অধ্যাপক ড. নুরুল আমিন ব্যাপারী বলেন, দমন-পীড়ন, মামলা হামলা করে আন্দোলন ঠেকানো যায় না। সরকারকে যেতে হবে সমঝোতার পথে। তত্ত্বাবধায়ক ইস্যুতে বিরোধী দলের সঙ্গে সংলাপের মাধ্যমে সরকারকে যেমন সমঝোতায় আসতে হবে; তেমনি হেফাজতের সঙ্গেও অর্থপূর্ণ আলোচনার মাধ্যমে সংকটের সমাধান করতে হবে। সরকারের আরো অনেক সমস্যা রয়েছে। সেগুলো সমাধানের প্রয়োজনেই সরকারকে আগে হেফাজত ইস্যুর সুরাহা করা জরুরী।

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Comments are closed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT