টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!

টেকনাফে নিহত সিএনজি চালকের দাফন সম্পন্ন:মামলা দায়ের শীর্ষক সংবাদের ব্যাখ্যা ও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : সোমবার, ১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৬
  • ১৪৯ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

সংবাদ বিজ্ঞপ্তি **

গত ১১ও১২সেপ্টেম্বর স্থানীয় এবং জাতীয় অনলাইন-প্রিন্ট মিডিয়ায় প্রকাশিত“টেকনাফে ছিনতাইকারীদের হাতে নিহত সিএনজি চালকের দাফন সম্পন্ন:মামলা দায়ের”শীর্ষক সংবাদটি আমার দৃষ্টিগোচর হয়েছে। আমাকে উক্ত নৃশংস হত্যাকান্ডে জড়ানোর কারণ ব্যাখ্যা করে নিরীহ মানুষ মিথ্যা মামলার হয়রানি থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের আন্তরিক সহায়তা কামনা করছি। বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যম সুত্রে জানতে পারি গত ৯সেপ্টেম্বর রাত ৯টারদিকে টেকনাফ হতে যাত্রী নিয়ে পুরান পল্লান পাড়ার ছৈয়দ হোছন প্রকাশ লেড়–র পুত্র সিএনজি চালক জাফর আলম হ্নীলা ষ্টেশনের উদ্দেশ্যে রওয়ানা করে। রাতে আতœীয়-স্বজন খোঁজ-খবর না পেয়ে সকালে খুঁজতে বের হয়। গত ১০ সেপ্টেম্বর সকালে হ্নীলা রঙ্গিখালী লবণের মাঠে ঐসিএনজি চালকের মৃতদেহ পায়। এরপর উখিয়ার একটি গ্যারেজে ছিনতাই করা সিএনজিসহ উখিয়া থানা পুলিশ পেশাদার খুনী হ্নীলা উলুচামরী লামারপাড়ার আবুল মঞ্জুরের পুত্র ডাকাত রাসেল (২৫),টেকনাফ সদরের লম্বরীর ছৈয়দ আহমদের পুত্র আব্দুল মালেক (১৮) ও গুরা মিয়ার পুত্র আয়াতুল্লাহ (১৮)কে আটক করে। পরে সিএনজি চালক হত্যায় জড়িত থাকার সংবাদ পেয়ে টেকনাফ থানার একদল পুলিশ আটককৃতদের টেকনাফ থানায় নিয়ে এসে ৫৪ধারায় জবানবন্দি গ্রহণ করে। ডাকাত রাসেলের জবানবন্দি ও স্থানীয় একটি বিশেষ মহলের প্ররোচনায় আমাকে প্রধান আসামী করে একটি মামলা দায়েরের পর ধৃতদের আদালতে প্রেরণ করে।
উক্ত ডাকাত রাসেল আমার বিরুদ্ধে এসব মিথ্যা জবানবন্দি দেওয়ার কারণ হচ্ছে ২০১৪সালের ২৩সেপ্টেম্বর রাত সাড়ে ৮টারদিকে টেকনাফের হ্নীলা চৌধুরী পাড়া রাস্তার মাথায় যানবাহন থামিয়ে অস্ত্রের ভীতি প্রদর্শন করে সড়ক ডাকাতির সময় আমি জনসাধারণের সহায়তায় সংবাদের ছবিতে থাকা অস্ত্রসহ রঙ্গিখালী লামার পাড়ার আবুল মঞ্জুরের পুত্র আবু রাসেল প্রকাশ ডাকাইত্যা রাসেলকে আটক করি। এসময় তার অপর ২সহযোগী দিলদার আহমদের পুত্র সালমান আজিজ ও আবুল কালামের পুত্র মিজানুর রহমান পালিয়ে যায়। ডাকাত রাসেলকে অস্ত্রসহ আটক করে হ্নীলা দরগাহ ষ্টেশনে নিয়ে আসতে তৎকালীন স্থানীয় মোঃ নুর,নুরুল আমিন,জসিম উদ্দিন,ইউনুছ আহত হয়। তখন টেকনাফ থানা পুলিশকে খবর দিলে টেকনাফ থানার তৎকালীন এসআই দেবাশীষ ও এএসআই গোবিন্দ কুমার শর্মা সর্ঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে উপস্থিত হয়ে অস্ত্রসহ ডাকাত রাসেলকে থানায় নিয়ে যায়। এই রাসেলের নেতৃত্বে শক্তিশালী একটি চক্র মানুষের বসত-বাড়িসহ সড়ক ডাকাতি করে আইন-শৃংখলা পরিস্থিতির চরম অবনতি ঘটায়।
তাকে অস্ত্রসহ আটকে সহায়তা করার কারণে ডাকাত রাসেলের বোন এবং হ্নীলা পশ্চিম পানখালীর রাফিয়া আক্তার বাদী হয়ে প্রধান আসামী আমিসহ ৩৫জনকে বিবাদী করে হয়রানিমূলক মামলা দায়ের করে। সর্বশেষ নিরীহ সিএনজি চালককে নির্মমভাবে খুন করে। ধরা পড়ার পর কোন উপায় না দেখে জন্মের শত্র“কে ঘায়েল করার জন্য মিথ্যা জবানবন্দির আশ্রয় নিয়েছে। আমি বিষয়টি পুন:তদন্ত স্বাপেক্ষ মিথ্যা মামলা হতে সাধারণ মানুষের হয়রানিরোধ এবং নিরীহ সিএনজি চালকের প্রকৃত খুনীদের সুবিচার নিশ্চিত করার জন্য মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তাসহ উর্ধ্বতন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের আন্তরিক সহায়তা কামনা করছি।

নিবেদক:
নুরুল আমিন
পিতা:মৃত আবুল হোছন
সাং-উলুৃচামরী কোনারপাড়া,হ্নীলা,টেকনাফ।

fil pic
############

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT