টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!

বিয়ের ঘটকালীর আড়ালে বহুমূখী বাণিজ্যে

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : শুক্রবার, ৫ জুলাই, ২০১৩
  • ১৯৭ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

আতিকুর রহমান মানিক, ঈদগাঁও :-বিয়ের ঘটকালীর আড়ালে বহুমূখী বাণিজ্যে জড়িয়ে পড়েছে বৃহত্তর ঈদগাঁও এলাকার ঘটক সম্প্রদায়। পাত্র-পাত্রী উভয় পরে সাথে কথা-বার্তা, দেন-দরবার, দেনা-পাওনা ইত্যাদি বিষয়ে মিড়িয়াম্যান হিসেবে কাজ করার পাশাপাশি বিয়ে সম্পর্কিত বিয়ের আগের ও পরের আনুসাঙ্গিক কেনা-কাটার েেত্র উভয় পকে বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করে নিদ্দির্ষ্ট দোকানে/ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে যেতে বাধ্য করে টু পাইস কামিয়ে নিচ্ছেন ঘটকরা। বৃহত্তর ঈদগাঁও এলাকার জালালাবাদ, ইসলামাবাদ, পোকখালী, চৌফলদন্ডী, ইসলামপুর ও ঈদগাঁও সহ অপরাপর ইউনিয়ন সমূহে রয়েছে সরকার অনুমোদিত আলাদা কাজী ও কাজী অফিস। বিশাল জনগোষ্ঠী অধ্যুষিত বৃহত্তর ঈদগাঁও এলাকার প্রতিটি জনপদে রয়েছে পেশাদার ঘটক সম্প্রদায়। ছেলে মেয়েদের বিয়ের ব্যাপারে এদের উপর অনেকাংশে নির্ভরশীল অভিভাবকরা। আর কোন ঘরে কোন উপযুক্ত পাত্র-পাত্রী আছে সে খবর ঘটকদের নখদর্পনে। অনেক সময় অভিভাবকরা না বললেও পাত্র-পাত্রীর খবর অপর পকে জানিয়ে প্রস্তাব নিয়ে যায় ঘটকরা। বিয়ে সংগঠিত করার জন্য অনেক সময় সত্য-মিথ্যা তথ্য দিয়ে তিলকে তাল বানিয়ে অপর পরে সামনে উপস্থাপন করে এই ঘটকরা। বিশেষ করে উভয় পরে দূর্বল ও নেতিবাচক দিক গুলো গোপন করে কোন রকমে জোড়া তালি দিয়ে  সত্য-মিথ্যা বলে বিয়ে সংগঠিত করে দিয়ে উভয় প থেকে ঘটকরা মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নেয়।  কাজী অফিসের কর্মচারী ও কাজীদের সাথে রয়েছে এদের দহরম-মহরম সম্পর্ক। কোন রকমে তিলকে তাল বানিয়ে সত্য-মিথ্যা তথ্য দিয়ে উভয় পকে ম্যানেজ করে একটা বিয়ের প্রথমিক প্রস্তুতি ও কথা-বার্তা নিশ্চিত করে দিতে পারলেই পরবর্তীতে স্বর্ণ ক্রয়, কাপড় ও কসমেটিক্স ক্রয়, ডেকোরেশন ভাড়া করা, মেজবানের গরু ক্রয়, বাবুর্চি কন্টাক্ট, কমিউনিটি সেন্টার ভাড়া করা, গাড়ী ভাড়া করা ইত্যাদি ব্যাপারে ঘটকের পছন্দের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে কলা কৌশলে উভয় পকে নিয়ে যায়। আর স্বর্ণের দোকান, কাপড়ের দোকান, কসমেটিক্সের দোকান, ডেকোরেশন সার্ভিস, চাউলের দোকান এমনকি গরু ব্যবসায়ীদের সাথেও আগে থেকেই আঁতাত করে রাখে ঘটকরা। ঘটক নিদের্শিত এসব দোকান থেকে কেনাকাটা করলেই দোকানীরা ঘটকের জন্য নিদ্দিষ্ট কমিশন রেখে দেয়। তেমনি করে বিয়ে সংক্রান্ত কেনাকাটার েেত্র মোটা অংকের কমিশন হাতিয়ে নিচ্ছে ঘটক সম্প্রদায়। এছাড়া, বিয়ে সংগঠিত করে দেয়ার ব্যাপারেও পাত্র-পাত্রী উভয় প থেকে বিভিন্ন অজুহাত দেখিয়ে মোটা অংকের ফিস নিয়ে নেয়। এভাবে ঘটকালী মোটা অংকের উপার্জনের মাধ্যম হয়ে দাড়িয়েছে। ইসলামাবাদ সিকদারপাড়া এলাকার পেশাদার ঘটক হামিদ উল্লাহ জানান, একটা বিয়ে ঘটিয়ে দিতে অনেক পরিশ্রম করতে হয়। সে তুলনায় আমাদের তেমন একটা লাভ হয়না। আর কাপড়ের দোকান ও স্বর্ণের দোকানিরা আগে থেকেই বলে রাখে কাষ্টমার নিয়ে যাওয়ার জন্য। কাষ্টমার গেলে দোকানিরা আমাদেরকে কিছু বকসিস দেয় মাত্র। ঈদগাঁও বাজারের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জনৈক কাপড় ব্যবসায়ী বলেন, বর্তমান প্রতিযোগিতা মূলক বাজারে কাষ্টমার টানতে একটু কৌশল অবলম্বন করতে হয়। একটা বিয়ের পার্টি এনে দিতে পারলে ঘটককে নিদির্ষ্ট অংকের বকসিস দিয়ে দিই।

 

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Comments are closed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT