টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!
শিরোনাম :
শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা সবচেয়ে বড় ভুল : ডা. জাফরুল্লাহ মাদক কারবারি, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের তালিকাভুক্ত সাংবাদিক আব্দুর রহমানের উদ্দেশ্যে কিছু কথা! ভারী বৃষ্টির সতর্কতা, ভূমিধসের শঙ্কা মোট জনসংখ্যার চেয়েও ১ কোটি বেশি জন্ম নিবন্ধন! বাড়তি নিবন্ধনকারীরা কারা?  বাহারছড়া শামলাপুর নয়াপাড়া গ্রামের “হাইসাওয়া” প্রকল্পের মাধ্যমে সচেতনতামূলক লিফলেট বিতরণ ও বার্তা প্রদান প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া ঘর উদ্বোধন উপলক্ষে টেকনাফে ইউএনও’র প্রেস ব্রিফ্রিং টেকনাফের ফাহাদ অস্ট্রেলিয়ায় গ্র্যাজুয়েট ডিগ্রী সম্পন্ন করেছে নিখোঁজের ৮ দিন পর বাসায় ফিরলেন ত্ব-হা মিয়ানমারে পিডিএফ-সেনাবাহিনী ব্যাপক সংঘর্ষ ২শ’ বাড়ি সম্পূর্ণ ধ্বংস বিল গেটসের মেয়ের জামাই কে এই মুসলিম তরুণ নাসের

বিভিন্নস্থানে কোরবানীর পশুর মৃত্যু

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : বুধবার, ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৫
  • ১৫২ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

টেকনাফ নিউজ ডেস্ক:::2015_09_22_21_06_39_odhypGaSeJlKvKyJbjUAT2UrBSDmId_originalমাত্র দু’দিন পরেই ঈদুল আজহ। জমেছে রাজধানীর কোরবানির পশুর হাটগুলো। জমজমাট হাটগুলোতে মাঝে মধ্যে হানা দিচ্ছে বৃষ্টি। এই বৃষ্টি কিছুটা স্বস্তি দিলেও বিপদে পড়েছেন গরু ব্যবসায়ীরা। নানা কারণে গত কয়েকদিনে অন্তত অর্ধশত পশুর মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। এর মধ্যে স্টেরয়েড জাতীয় হরমোন খাওয়ানো পশুই বেশি। এ জাতীয় পশুর জন্য ঠাণ্ডা ও অতি ঊষ্ণ আবহাওয়া অনুকূল নয়।

তবে ব্যাপারীদের কপাল পুড়লেও কপাল খুলেছে অসাধু কসাইদের। এমন কসাইয়ের আনাগোনা এখন সব গরুর হাটে। অসুস্থ পশু চিহ্নিত করে শকুনের মতো আশপাশে ঘুরাফেরা করছে তারা। পশু মারা গেলে বা মরার উপক্রম হলেওই ছুরি হাতে ছুটে আসে। অসহায় ব্যাপারীকে কিছু টাকা ধরিয়ে দিয়ে ওই গরুর মাংস নিয়ে কসাই।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, গত কয়েক দিনের বৃষ্টিতে দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে আসা অনেক পশু অসুস্থ হয়ে পড়েছে। এর মধ্যে বেশ কিছু পশু মারাও গেছে। পশুর এই মৃত্যুকে কেন্দ্র করে ঢাকার ২২টি হাটে কসাইদের একটি সিন্ডিকেট কাজ করছে। হাটে কোনো পশু মারা গেলেই অল্প দামে সে পশু বিক্রি করতে বাধ্য হচ্ছে পশু মালিকরা।

তবে কসাইদের এমন সিন্ডিকেটের খবর অস্বীকার করেছেন বাংলাদেশ মাংস ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি রবিউল হক। তিনি বলেন, ‘সবাই চায় দু’পয়সা আয় করতে। কোরবানি হাটে ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসায়ীরা একেবারেই যে মূল্য পাচ্ছে না এটা ঠিক নয়।’

গরু ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে ট্রাক ও নৌকা যোগে আনা নেয়ার পথে অধিকাংশ পশু আঘাতপ্রাপ্ত হয়। তাছাড়া গত কয়েক দিনের টানা বৃষ্টিতে ভিজে অসুস্থ হয়ে পড়েছে অনেক পশু। অধিক মোটাতাজা শরীর নিয়ে পশুগুলো সহজে এই ঠাণ্ডা-গরম সহ্য করতে পারছে না। হাটে পর্যাপ্ত ডাক্তার না পাওয়ায় পশুকে সঠিক চিকিৎসাও দেয়া যাচ্ছে না।

সরেজমিন দেখা গেছে, রাজধানীর কোরবানির পশুর হাটগুলো আনুষ্ঠানিক বেচাবিক্রি শুরুর প্রথম দিন গত ১৯ সেপ্টেম্বর সকালে জেলা প্রশাসকের কার্যালয় থেকে ইজারা দেয়া মেরুল বাড্ডার আফতাব নগরের কোরবানি হাটে অন্তত ৫ লাখ টাকা মূল্যের একটি গরু মারা গেছে। গরুটির বিষয়ে জানতে চাইলে মালিক হেদায়েত উল্যাহ জানান, তার পশুটি ট্রাকে করে আনার সময় আঘাত পেয়েছে। এ কারণে মারা গেছে।

তিনি জানান, মারা যাওয়ার আগেই কসাইদের মাধ্যমে পশুটি তিনি জবাই করে ফেলেন। কিন্তু কসাইরা তার ৫ লাখ টাকা মূল্যে পশুর দাম দিয়েছে মাত্র ২৫ হাজার টাকা।

তবে বেশ কয়েকজন ব্যবসায়ীর সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, মৃত্যুর আগে গরুটির পেট ফুলে গেছে। অতিরিক্ত ওষুধ খাওয়ানোর কারণেই এটির মৃত্যু হয়। এ জাতীয় পশু হঠাৎ গরম এবং হঠাৎ ঠাণ্ডা সহ্য করতে পারে না। এ কারণেই মারা যায়।

একই দিন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের অস্থায়ী কোরবানি পশুর হাট কমলাপুরের ব্রাদার্স ইউনিয়নের খেলার মাঠের হাটে এক লাখ টাকা মূল্যের দুটি পশু মারা গেছে। লাল রঙের ওই দুটি পশুর মধ্যে একটি ট্রেনে কাটা পড়ে মারা গেলেও অন্যটি অতিরিক্ত হরমোনে বেড়ে ওঠা বলে জানিয়েছে হাট ইজারায় জড়িতরা। এ হাটটির ইজারাদার সহিদ উদ্দিন আহমেদ সেলিম বাংলামেইলকে বলেন, ‘বহু ধরনের পশু হাটে ওঠে। অসুস্থ পশু চিহ্নিত করার দায়িত্ব আইন শৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনীর।’

রাজধানীর হাটগুলো ঘুরে দেখা গেছে, দুই সিটি করপোরেশন ও পশু সম্পদ অধিদপ্ত থেকে পশু চিকিৎসক দেয়া হলেও তাদের কোনো সন্ধান পান না ব্যবসায়ীরা। তবে ডাক্তারা বলছেন, অসুস্থ পশুগুলোর মধ্যে অধিকাংশ পশুই স্টেরয়েড জাতীয় হরমোনে মোটাতাজা করা। এ জাতীয় পশুতে কোনো ওষুধ ধরে না।

এ বিষয়ে আফতাব নগর হাটে দায়িত্ব পালনরত পশু চিকিৎসক মোরশেদ আলম বাংলামেইলকে বলেন, ‘স্বাভাবিক ও বৈধভাবে বেড়ে ওঠা পশুকে যে কোনো ওষুধ দিলে কাজে আসে। অসুস্থ পশু সুস্থ হয়ে ওঠে। কিন্তু অতিরিক্ত হরমোন খাওয়ানো পশু অসুস্থ হলে মারা যাবেই। তাদের কোনো ওষুধ কাজে আসবে না।’

এ দিকে গতকাল সোমবার উত্তর শাহজাহানপুর খিলগাঁও রেলগেট বাজার সংলগ্ন মৈত্রীসংঘের মাঠও একটি পশু মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। ইজারাদার জাকির হোসেন বাংলামেইলকে বলেন, ‘পশুটি হাটে আনার আগে ট্রাকের মধ্যেই মারা গেলে হাটের মধ্যে পশুটিকে ফেলে রেখে ট্রাকচালক পালিয়ে যায়। পরে সিটি করপোরেশনের লোকদেরকে খবর দিলে পরিচ্ছন্নকর্মীরা পশুটি সরিয়ে নেয়।’

তবে এই সুযোগকে কাজে লাগাতে ওঁৎ পেতে রয়েছে কসাইরা। তারা আগ থেকেই অসুস্থ পশু চিহ্নিত করে। পশুটি মারা যাবে নিশ্চিত হলে গরুর মালিকই তাদের ডেকে এনে প্রথমে জবাই করেন। এরপর চলে কসাই ও পশু ব্যবসায়ীর মধ্যে দর কষাকষি। ৫ লাখ টাকার গরুর সর্বোচ্চ ৩০ থেকে ৪০ হাজার টাকা দর দেন কসাইরা।

উল্লেখ্য, এ বছর ঢাকার দুই সিটি করপোরেশ (উত্তর ও দক্ষিণ) ও জেলা প্রশাসকের পক্ষ থেকে সর্বমোট ২২টি কোরবানি পশুর হাট ইজারা দেয়া হয়েছে। এর মধ্যে দক্ষিণ সিটির ১০টি ও উত্তরের ৬টি। বাকি ছয়টি দেয়া হয়েছে ঢাকা জেলা প্রশাসকের কার্যালয় থেকে। প্রতিবছর যানজট ও রাজধানীবাসীর ভোগান্তির কথা চিন্তা করে ঈদের তিন দিন আগ থেকে  রাজধানীতে পশুর হাট বসানোর অনুমতি দিয়ে থাকে সিটি করপোরেশন। কিন্তু এবছরও একই সিদ্ধান্ত দেয়া হলেও ঈদের এক সপ্তাহ আগ থেকেই পশু বিক্রির অনুমতি দিয়েছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ- ডিএমপি। এতে নগরবাসীর ভোগান্তি বেড়েছে।

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT