টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!

বাবা আমি এখন এতিম !

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : শুক্রবার, ১৬ অক্টোবর, ২০১৫
  • ১৬৪ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

সাইফুল ইসলাম…
পৃথিবীতে এতিম নামক শব্দটির সাথে বেশ শুনা-জানা হলেও এই শব্দটির সারমর্ম আগে বুঝিনি বা বুঝার বিন্দুমমাত্র আগ্রহ জন্মেনি কখনো অথবা কোনদিনও। যখনি পৃথিবীর সকল মায়াজাল ত্যাগ বা চিন্ন করে প্রিয় বাবা অজানা গন্তব্যে হারিয়ে গেল চিরদিনের জন্যে তখন থেকে বুঝতে শুরু করলাম এতিম কি, এতিম শব্দটির সারমর্ম। জীবনে চলার পথে, পথিমধ্যে যে নি:স্বার্থ এই আতœাকে হারাব তা ক্ষুদ্র মস্তিকে কখনো রেখাপাত করেনি কায়িক সময়ের জন্যে। যে বিষয়াটা নিয়ে ভাবিনি কখনো বা কোনদিনও, সে বিষয়টা আজ বাস্তব সত্যে পরিনত হয়ে গুরতরুভাবে আঘাত হানল পৃথিবীর মোহজলে আবদ্ধ থাকা অবেচেতন এই মনকে। হায়রে দুনিয়া একি হল! বুঝতে পারিনি এমনও হয় মানব জীবনে। মেনে নিতে হয় এই চিরসত্যকে। এত কিছুর পরও নাকি মানুষ বেঁচে থাকে বা বেঁচে থাকার চেষ্টা করে প্রকৃতির নিয়ম রক্ষার্থে। যখন প্রাইমারী স্কুলের গন্ডি পার করিনি আমি তখনি একদিন বাবার কাছে বিদেশ থেকে চিটি আসে। বাবা তখন চিঠির খামটি খুলে চিঠিটি পড়তে পড়তে কাঁদতে থাকে। বাবাকে বললাম কাঁদছ কেন বাবা? বাবা বলল তোমাদের ছাড়া কিভাবে বাঁচব ? IMG_134719215028387

জিজ্ঞাসা করলাম কেন বাবা? বাবা আবার কাঁদো কাঁদো গলায় বলল আমার জন্য ভিসা পাঠিয়েছে তোমার জেঠা। কিছু বুঝার আগে আমি বললাম তাহলে তো ভালোই হয়। কারণ তখন আমাদের পরিবারের আর্থিক অবস্হা তেমন ভালো ছিল না। সে থেকে শুরু হল প্রিয় বাবার প্রবাস যাত্রা । প্রবাসে একে একে কেঁটে গেল বাবার পঁচিশটি বছর। তবে মাঝেমধ্যে আসত ক্ষনিকের জন্য। যাবার বেলায় বলত তোমাদের এভাবে রেখে আর বিদেশ যেতে ইচ্ছে করছেনা। পরক্ষণে বলত যেতে হবে ,না হয় তোমরা কিভাবে মানুষের মত মানুষ হবে। যখন এসএসসি পরীক্ষা সন্নিকটে তখন বাবা চিঠি দিয়ে লেখাপড়ার খবর নিত এবং বলত ভালো রেজাল্ট করতে হবে ও ভালো রেজাল্ট করলে ভালো কিছু উপহার দিব। যখন এসএসসিতে আমার  প্রথম বিভাগ পাওয়ার খবর শুনে বাবা যে কি পরিমান খুশি হয়েছিল তা বলা বাহূল্য। এভাবে এইচএসসিতে আমার প্রথম বিভাগ,ডিগ্রী দ্বিতীয় বিভাগের খবর পেয়ে বাবা চিঠি পাঠিয়ে তার আনন্দের কথা জানাত কলমের ভাষায়। বলত আমি খুবই খুশি এবং সুখি কারণ আমার কষ্ট বৃথা যায়নি। আর চিঠিতে লিখত যদি পাঁখি হতাম তাহলে উড়ে এসে একবার দেখে যেতাম তোমাদের। আমার বড় ভাইও আমার আগে ডিগ্রী শেষ করেছিল। তবে আমার প্রতি বাবার আদরের মাত্রা যেন ছিল একটু বেশি । আমরা তিন ভাই দুই বোন । তৎমধ্যে ভাইদের মধ্যে আমি ছোট । সে কারণে হয়তো আমার প্রতি বাবার খেয়াল থাকত বেশি। বাবা প্রবাস জীবন শেষ করে যখন দেশে আসেন তখন বাবা আমাদেও ও পাড়া মহল্লার সকলকে বলে বেড়াত আজ আমি সফল ও স্বার্থক কারণ আমার ছেলে মেয়েরা মানুষের মত মানুষ হয়েছে। আর যখন জীবনের প্রথম চাকুরীতে যাওয়ার জন্য বাড়ী হতে বের হওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছিলাম বাবা তখন আমাকে পুত বলে [বাবা আমাকে আদর করে পুত বলে ডাকত] দাড় করিয়ে বলল তোমার পকেটে কত টাকা আছে । আমি বললাম বাবা একশত টাকা আছে। বাবা বলল এই একশত টাকা তোমার জন্য একশ কোটি টাকা বুঝেছ । কখনো অন্যের পকেটের দিকে খেয়াল দিবানা । আমার আদেশ বা উপদেশটা তোমাদের সকল ভাইবোনদের জন্য একইরকম। বাবার এমন আদেশ বা উপদেশ এখন আর শুনিনা কারণ এখন আমি ও আমার ভাই বোনেরা সবই এতিম হ। বাবা এখন আমাদের সবাই এতিম বলে ডাকে। বাবা তোমার মত বন্ধুকে আজ খুব বেশি মনে পড়ছে । কেউ ‘পুত’ বলে ডাকেনা আর। বাবা ফিরে আস । তোমার সাথে আর রাগ ও অভিমান করবনা। জানি তুমি আর ফিরে আসবে না কখনো এই ধরণীতে তবুই অপেক্ষায় রইব অনন্তকাল…….

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT