টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!
শিরোনাম :
মামুনুল হকের ব্যাপারে কোনো সিদ্ধান্ত নেয়নি হেফাজত দেশবাসীর কাছে দোয়া চেয়েছেন খালেদা জিয়া করোনার উপসর্গ দেখা দিলে ‘আইসোলেশনে’ থাকবেন যেভাবে ১২-১৩ এপ্রিল দূরপাল্লার বাস চলবে না : জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী টেকনাফে সরকারি নির্দেশনা অমান্য করে বিকাল ৫.০০ টার পর একাধিক দোকান ও শপিংমল খোলা রাখায় জরিমানা চেয়ারম্যান -মেম্বারদের চলতি মেয়াদ আরও তিন মাস বাড়ছে স্বাস্থ্যসেবা ব্যবস্থাপনায় ৬৪ জেলার দায়িত্বে ৬৪ সচিব মেয়ের বিয়ের যৌতুকের টাকা জোগাড় করতে না পেরে বাবার আত্মহত্যা মিয়ানমারে গুলিতে আরও ১০ জন নিহত যুক্তরাষ্ট্রে বিশেষ স্বীকৃতি পাচ্ছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

বাংলাদেশ-ভারত বাণিজ্য বাড়াবে মুক্তবাণিজ্য চুক্তি

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ১৮ ডিসেম্বর, ২০১২
  • ১৬৬ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে মুক্তবাণিজ্য চুক্তি হলে দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্য অনেক বাড়বে পাবে বলে মনে করে বিশ্ব ব্যাংক।

ঋণদাতা সংস্খাটির ‘আনলকিং বাংলাদেশ-ইন্ডিয়া ট্রেড’ শিরোনামের একি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মুক্তবাণিজ্য চুক্তি দুই দেশের জন্যই লাভজনক হবে। এর ফলে ভারতের বিশাল বাজার ধরতে পারবে বাংলাদেশ; অন্যদিকে ভারত সহজেই তার উত্তর-পূবাঞ্চলীয় রাজ্যগুলোয় পৌঁছতে পারবে।

বিশ্ব ব্যাংকের প্রধান অর্থনীতিবিদ সঞ্জয় কাঠুরিয়ার তৈরি এ প্রতিবেদনে বলা হয়, “দুই দেশের মধ্যে মুক্তবাণিজ্য চুক্তি ভারতে বাংলাদেশের রপ্তানি বাড়াবে ১৮২ শতাংশ এবং বাংলাদেশে ভারতের রপ্তানি বাড়াবে ১২৬ শতাংশ। তবে দুই দেশের মধ্যে যোগাযোগ ব্যবস্থা উন্নত হলে এটি যথাক্রমে ৩০০ শতাংশ ও ১৭২ শতাংশে দাঁড়াবে।

তবে প্রতিবেদনে বলা হয়, এই চুক্তির পুরো সুবিধা পেতে হলে দুই দেশকে বাণিজ্য আরো উদার করা, শুল্ক কমানো, অশুল্ক বাধাগুলো কমানো ও দূর করা এবং সীমান্ত ও দেশের ভেতরে বাণিজ্য সুবিধা বাড়াতে হবে।

২০১১-১২ অর্থবছরে দুই দেশের মধ্যে ৪৩০ কোটি ডলারের বাণিজ্য হয়েছে। এর মধ্যে ভারত বাংলাদেশে রপ্তানি করেছে ৩৫০ কোটি ডলারের পণ্য। বাংলাদেশ রপ্তানি করেছে ৬০ কোটি ডলারের পণ্য।

দুই দেশের মধ্যে বাণিজ্যে ভারসাম্য আনতে বাংলাদেশ থেকে থেকে আরো পণ্য আমদানি করতে ভারতকে আহ্বান করছে বাংলাদেশ।

কিন্তু এ ক্ষেত্রে আমলাতান্ত্রিক জটিলতা বাধার সৃষ্টি করছে বলে অভিযোগ নয়া দিল্লিতে বাংলাদেশের হাইকমিশনার তারিক এ করিমের।

সোমবার করিম জানান, স্থলবন্দরগুলো দিয়ে পণ্য ঢোকা, ব্যাংকিং ও মান পরীক্ষার ক্ষেত্রে কঠিন বাধার কারণে বাংলাদেশ থেকে ভারতে রপ্তানি বাড়ানো যাচ্ছে না।

২০০৪ সাল থেকে মুক্ত বাজার বাণিজ্য চুক্তি নিয়ে আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছিল দুই দেশ। কিন্তু তিন বছর আগে আলোচনা থেমে যাওয়ার পর ভারতকে আবার এ নিয়ে আলোচনা শুরু করতে অনিচ্ছুক মনে হচ্ছে।

এর মধ্যে দুই দেশের রপ্তানিকারকরাই বিভিন্ন প্রতিকূলকতার সম্মুখীন হচ্ছেন বলে অভিযোগ করছেন।

বিশ্ব ব্যাংকের প্রতিবেদনে বলা হয় দুই দেশের মধ্যে বাণিজ্যে ভারসাম্যহীনতা বিনিয়োগ বাড়ানোর মাধ্যমে কিছুটা সমাধান করা যেতে পারে।

“ভারতীয় কোম্পানিগুলো প্রতিবেশী দেশটিতে বিনিয়োগ করলে তা শুধু চাকরিই সৃষ্টি করবে না, তা পণ্যের উৎপাদনও বাড়াবে যা পরে ভারতেই আবার রপ্তানি করা যাবে।”

বাংলাদেশের বাণিজ্যমন্ত্রী জিএম কাদের সম্প্রতি কলকাতা সফরে এসে বাংলাদেশে বিপুল পরিমাণে ভারতীয় বিনিয়োগ করার আহ্বান জানিয়েছেন।

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Comments are closed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT