টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!
শিরোনাম :

পেকুয়ায় ইউনিসেফের ব্রাক সি ফর ডি’র কার্যক্রমে দূর্নীতির অভিযোগ

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ৯ জুলাই, ২০১৩
  • ১১৯ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

শহিদুল ইসলাম হিরু,পেকুয়া::: জাতি সংঘের শিশু তহবিল (ইউনিসেফ) এর অর্থায়নে ও এনজিও ব্র্যাকের কমিউনিকেশন ফর ডেভালপমেন্ট সি ফর ডি’র কার্যক্রমে বড় ধরণের দূনীতির গুরুতর অভিযোগ পাওয়া গেছে। জানা গেছে, এ প্রকল্পের মধ্যে রয়েছে সামাজিক আচার-আচারন পরিবর্তন, শিশুদের অধিকার সুনিশ্চিত, বাল্য বিবাহ রোধে গণ-সচেতনতা সৃষ্টি, জাতীয় শিশু নিবন্ধন দিবস উপলে বরাদ্দ থেকে পেকুয়া জাতিসংঘ শিশু তহবিল ইউনিসেফ এর অর্থসহয়তায় এ কার্যক্রম পেকুয়ায় প্রকল্প সংশ্লিষ্টরা আশ্রয় নিয়েছে ব্যাপক অনিয়ম ও দূনীতিতে। জন্ম নিবন্ধন লিপিবদ্ধ করণ এর র‌্যালি ও নাম মাত্র কিছু কার্যক্রম ছাড়া বাকী প্রকল্পের সমস্ত অর্থ প্রকল্প সংশ্লিষ্ট উপজেলার কো-অর্ডিনেটর ও ইউনিয়নের সুপারভাইজারেরা মিলে ইউনিসেফের লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেই। সূত্রে জানা যায়, গত বছরের অক্টোবরের ৮ তারিখ বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রি শেখ হাসিনার প্রচেষ্টায় জাতিসংঘ শিশু তহবিল ইউনিসেফের অর্থায়নে ব্রাক এর সহযোগিতায় ব্রাক সি ফর ডি’র নাম করনে পেকুয়া উপজেলার ৭ ইউনিয়নে শিশুদের নিয়ে কাজ করার জন্য এ প্রকল্প চালু করে। এ প্রকল্পের উপজেলা কো-অর্ডিনেটর হিসাবে একজন ও প্রত্যক ইউনিয়নে ৩ জন করে সুপারভাইজার নিয়োগ দিয়ে কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে। কিন্তু পেকুয়া এ প্রকল্প খাতা প্রত্রে গত অক্টোবরের ৮ তারিখ কার্যক্রম দেখালেও আনুষ্টানিক কাজ শুরু করে চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে। আরো জানা যায়, প্রতি ইউনিয়নে ৩ জন সুপারভাইজারের মাধ্যমে ট্রি-ষ্টল বৈঠক,উঠান বৈঠক, শিশুদের মৌলিক আচরণ, বাল্য বিবাহ রোধে সচেতনতা, জন্ম নিয়ন্ত্রনে গৃহবধুদের সচেতনা সৃষ্টি, এ.এন.সি প্রোগ্রাম সম্পর্কে সচেতনতা সৃষ্টি, ফটোচেসনসহ বিভিন্ন প্রকল্পে জন্য সাধারণ শিশু ও জনগনের জন্য ভাতা হিসাবে ইউনিসেফ উপজেলা কো-অর্ডিনেটর এর মাধ্যমে প্রতি সুপারভাইজারকে প্রতিদিন ২০০ টাকা, ডাব্লিউ ডি সি’র মাসিক বৈঠক পরিচালনার জন্য প্রতি ওয়ার্ডে ৪ হাজার ৬শ টাকা, শিশুদের প্রতি কুইচ প্রতিযোগিতার জন্য ২ হাজার ৫শ টাকা, প্রতি ত্রি-মাসিক বৈঠক এর জন্য ২ হাজার ৪শ টাকা, বৈঠকে ফটোশসেন করার জন্য ২শ ৫০ টাকা ও সর্ব শেষ গত ৩ দিন পূর্বে অনুষ্টিত শিশু জন্ম নিবন্ধন লিপিবদ্ধ করণ, র‌্যালি ও আনুষ্টানিক ব্যায় নির্বাহের জন্য প্রতি ইউনিয়নে ২৭ হাজার টাকা করে বরাদ্ব দেয় জাতি সংঘের শিশু তহবিল (ইউনিসেফ)। আর এতে রয়েছে চরম অনিয়ম ও দূনীতি। উপজেলা কো-অর্ডিনেটর ও কিছু সুপারভাইজার মিলে বেশির ভাগ অর্থ হাতিয়ে নিয়েছে। ৭ ইউনিয়নে সরজমিনে গিয়ে সাধারন মানুষের সাথে কথা বলে জানা গেছে, প্রতি ইউনিয়নে তিনজন করে সুপার ভাইজার থাকলেও অনেক ওয়ার্ডে তাদের কোনদিন চোখে পড়েনি। কিছু কিছু ওয়ার্ডে ডাব্লিউ ডি সি’র মাসিক বৈঠক অনুষ্টিত হলেও অনেক ওয়ার্ডে ৪/৫ জন নিয়ে বৈঠক করে বাকী টাকা মিলে মিশে মেরে দেয়। সবচেয় বড় অনিয়ম ও দূনীতির অভিযোগ উঠেছে জন্ম নিবন্ধন লিপিবদ্ধ করণ এর জন্য প্রতি ইউনিয়নে বরাদ্বকৃত টাকা থেকে। কমিউনিকেশন ফর ডেভালপমেন্ট সি ফর ডি’র কার্যক্রমে জড়িত নাম না বলার শর্তে এক সুপারভাইজার বলেন, প্রতি ইউনিয়নে বরাদ্বকৃত ২৭ হাজার টাকা থেকে প্রথমে ১০ হাজার টাকা করে প্রথমে নিয়ে নেয় উপজেলা কো-অর্ডিনেটর মোঃ হুমাইন। বাকী টাকা প্রতি ইউনিয়নে র‌্যালি ও মিটিং দেখিয়ে নয়-ছয় করে সুপারভাইজারেরা হাতিয়ে নেয়। আর ত্রি-মাসিক বৈঠক কখন হয়েছে তা জানা নেয়। ঠিক এভাবে বিভিন্ন প্রকল্প দেখিয়ে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে উপজেলা কো-অর্ডিনেটর। তাতে ভাবমূর্তি ুন্ন হচ্ছে বর্তমান সরকারের। দূনীতি ও অনিয়মের বিষয়ে জানতে চাইলে পেকুয়া উপজেলা কো-অর্ডিনেটর মোঃ হুমাইন জানান, আমার প্রকল্পে কোন দূনীতি হয়নি। আমি একজন কিভাবে ৭ ইউনিয়নে পর্যবেন করব। হয়তা অনেক সুপারভাইজার আমার অগোছরে মাঠে না গিয়ে ভাতা নিয়ে নেই। পরবর্তীতে আমি এ বিষয়ে ল্য রাখব।

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Comments are closed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT