টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!

‘পাখি’ ‘কিরনমালা’ স্কুল খাতার মলাঠে

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ৬ অক্টোবর, ২০১৫
  • ৫৭৯ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

সাইফুল ইসলাম, টেকনাফ = ভারতীয় টিভি সিরিয়ালের সেই পাখি ও কিরনমালার আগ্রাসনের জ্বরে আক্রান্ত ও আসক্ত আজ সমগ্র দেশের কিশোর- কিশোরী, উঠঠি তরুণ তরুণী থেকে শুরু করে বয়োবৃদ্ধরাও ।বিশেষ করে দেশের নারীসমাজ। ভারতীয় টিভি সিরিয়ালের পাখি ও কিরনমালার ড্রেসের জন্যে দেশের নারীসমাজের মধ্যে দিন দিন যে হারে চাহিদার মাত্রা বেড়ে চলছে তা রোধ করা এখন দায়। বিশেষ দিনে ও বিশেষ আয়োজনে তাদের এসব ড্রেসের প্রতি আগ্রহের মাত্রা যেন ছাড়িয়ে যায় অনান্য দিনে তুলনায়।আর বাবার কাছে মেয়ের আবদার, স্বামীর কাছে স্ত্রীর আবদারের ধরনটা যেন একটু ব্যতিক্রম হয়ে যায়, পাখি ও কিরনমালা ড্রেসের জন্য।যারা বিত্তশালী অভিভাবক বা স্বামী রয়েছেন তারা হয়তো বা অনিচ্ছা সত্তে¦ ও মেয়ে অথবা স্ত্রীর আবদার রক্ষার চেষ্টা করে কিন্তু যেসব অভিভাবক বা স্বামীরা বিত্তশালী নয় তাদের জীবনে ঘটে চলছে ভয়াবহ ঘটনা। যেমন পাখি ড্রেস না পেয়ে বাবার সাথে অভিমান করে মেয়ের আতœহত্যা করা বা করার চেষ্টা করা তেমনি ভাবে স্বামীর সাথে অভিমান করে স্ত্রীর আতœহত্যা করা বা স্বামীকে স্ত্রী এবং ¯ত্রীকে স্বামী ডির্ভোস দেয়ার প্রবনতা সমাজের স্তরে স্তরে বেশি বেশি পরিলক্ষিত হচ্ছে আজ।যখনি ভারতীয় টিভি সিরিয়ালের পাখি ও কিরনমালার প্রভাবে প্রভাবিত দেশের নারী তথা সমগ্র সমাজ ব্যবস্হা তখনি এক ধরনের অসাধু ব্যবসায়ীরা সুযোগ বুঝে অধিক মুনাফার আশায় স্কুল পড়–য়া শির্ক্ষাথীদের স্কুল খাতায় পাখি ও কিরনমালার ছবি সম্বলিত মলাঠ ব্যবহার করে ফায়দা হাসিলের চেষ্টা চালাচ্ছে। আর স্কুল পড়–য়া শির্ক্ষাথীরাও এখন বাবা অথবা ভাইদের কাছে আবদার করে বসে তাদের জন্য এসব মলাঠ লাগানো খাতার আনার।আবার অনেক শির্ক্ষাথী বাবা অথবা ভাইকে বলে যদি পাখি ও কিরনমালার মলাঠ সম্বলিত খাতা না আন তাহলে আমি স্কুলে যাব না বাড়ীর কাজও করবনা। তখন অগত্যা অভিভাবকদের এ ধরনের অযাচিত আবদার মানতে হচ্ছে।অথচ পূর্বে স্কুল খাতার মলাঠে থাকত বই,পুস্তক,কলম,শহীদ মিনার,স্মৃতিসৌধ ও বিভিন্ন জাতীয় ব্যক্তিবর্গের ছবি সম্বলিত । আর এখন ! হায়রে সংস্কৃতি ! সংস্কৃতি যখন একটি দেশ তথা একটি জাতির শিক্ষা ও সামাজিক ব্যবস্হার অন্তরায় হয়ে উঠে তখন এই সংস্কৃতির গ্রহনযোগ্যতা দেশ তথা জাতির কাছে থাকেনা। এই ধরনের সংস্কৃতি অপসংস্কৃতিতে পরিনত হয়ে একটি অগ্রসর জাতির শিক্ষা, কৃষ্টি-কালচার,সামাজিক ব্যবস্হার ব্যাপক ক্ষতির কারণ হয়ে উঠে। শিক্ষা একটি জাতির ক্রমবিকাশের অন্যতম মাধ্যম । যে জাতি যত বেশি শিক্ষা-দীক্ষায় এগিয়ে সেই জাতি ততই বেশি প্রতিষ্ঠিত বিশ্ব -সম্প্রদায়ে।একটি জাতির সংস্কৃতি,কৃষ্টি-কালচার ফুটে উঠে সে জাতির শিক্ষা-দীক্ষায় ও সামাজিক ব্যবস্হায়। দেশকে বাঁচাতে,দেশের সংস্কৃতিকে ঠিকিয়ে রাখতে,বিপদগামী নারীসমাজকে সঠিক পথে ফিরিয়ে আনতে, কোমলমতি শির্ক্ষাথীদের শিক্ষা ব্যবস্হাকে ভারতীয় টিভি সিরিয়ালের আগ্রাসন ও স্কুল খাতার মলাঠে পাখি এবং কিরনমালার ছবি সম্বলিত পোস্টারের ব্যবহার সমানভাবে র্বজনের উদ্যোগ গ্রহন ও বাস্তবায়ন এখন সময়ের দাবী ।পাশাপাশি রাষ্ট্রীয় ও সামাজিক র্পযায়েও এসব অপসংস্কৃতি রোধে রাষ্ট্রীয় এবং সামাজিক সচেতনতা সৃষ্টি করা।যে সংস্কৃতির মাধ্যমে রাষ্ট্রের পাশাপাশি সমাজ ব্যবস্হার ক্ষতিসাধন হয় সে সংস্কৃতিকে প্রশ্রয় না দিয়ে একযোগে প্রতিরোধ করা অথবা র্বজনের ঘোষণা দেয়া আজ একান্তই জরুরী।

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT