টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!

পাঁচ বছরে ১০ হাজার কোটি টাকা পাচার

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ৬ অক্টোবর, ২০১৫
  • ১২০ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে
টেকনাফ নিউজ…

২০০৯ সাল থেকে পাঁচ বছরে প্রায় ১০ হাজার কোটি টাকা পাচারের (মানি লন্ডারিং) অভিযোগে ২৫৪টি মামলা করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। রাজনীতিক, ব্যবসায়ী, আমলা ও অন্যান্য পেশার প্রায় তিন হাজার আসামির বিরুদ্ধে করা ওইসব মামলার মধ্যে ১১২টির চার্জশিট আদালতে পেশ করা হয়েছে। পাঁচ বছরে আসামিদের সাজা নিশ্চিত করে চারটি মামলার রায় দিয়েছেন আদালত। বাকি মামলাগুলোর মধ্যে কিছু বিচারাধীন। বেশির ভাগ মামলার তদন্ত চলছে। আগামী ১১ ও ১৩ অক্টোবর মানি লন্ডারিংয়ের ওপর এশিয়া প্যাসিফিক গ্রুপের নেতৃত্বে আন্তর্জাতিক বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক উপলক্ষে মানি লন্ডারিং মামলার ওই হিসাব চূড়ান্ত করেছে দুদক। রাজধানীর সেগুনবাগিচায় দুদকের প্রধান কার্যালয়ে অনুষ্ঠেয় দুই দিনের ওই বৈঠকে মানি লন্ডারিং-সংক্রান্ত দুদকের সার্বিক কার্যক্রম তুলে ধরা হবে।

দুদকের মানি লন্ডারিং ডেস্ক থেকে জানা যায়, ২০০৯ থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত
পাঁচ বছরে মানি লন্ডারিং-সংক্রান্ত ২৮৫টি অভিযোগ অনুসন্ধান করা হয়। অভিযোগ যথার্থ না হওয়ায় নিষ্পত্তি করা হয় ২৯টি। এর মধ্যে মোট নয় হাজার ৯৯৫ কোটি ৪৫ লাখ ২৯ হাজার ৭১১ টাকা আত্মসাতের অভিযোগে ২৫৪টি মামলা করা হয়। তদন্ত শেষে আদালতে ১১২টি মামলার চার্জশিট পেশ করা হয়। দুর্নীতির প্রমাণ না পাওয়ায় চূড়ান্ত প্রতিবেদনের মাধ্যমে নথিভুক্ত করা হয় ২৬টি অভিযোগ। পাঁচ বছরে উল্লেখযোগ্য চারটি মামলার রায়ে শতভাগ আসামির সাজা হয়।
সূত্র জানায়, গত পাঁচ বছরে দুদক মানি লন্ডারিংয়ের বাইরে ঘুষ-দুর্নীতি, ক্ষমতার অপব্যবহার, অর্থ আত্মসাৎ, অবৈধ সম্পদ অর্জন, প্রতারণা ও জালিয়াতির অভিযোগে তিন হাজার ১৫০টি মামলা করেছে। ওই সব মামলায় মোট পাঁচ হাজার ৪১২ কোটি ৫০ লাখ টাকার দুর্নীতির অভিযোগ আনা হয়েছে।
মানি লন্ডারিং ডেস্কের সিনিয়র কর্মকর্তা উপপরিচালক মো. ফানাফিল্যাহ্ সমকালকে বলেন, পাচার হওয়া টাকার মধ্যে ২১ কোটি ৫৫ হাজার ৩৯৪ টাকা সিঙ্গাপুর থেকে ফেরত আনা হয়েছে। দুদকের এই অর্জন মানি লন্ডারিং অপরাধ প্রতিরোধের ক্ষেত্রে এক মাইলফলক। এ পর্যন্ত পৃথিবীর কোনো দেশ পাচার হওয়া টাকা ফেরত আনতে সক্ষম হয়নি। আদালতের রায় অনুযায়ী, সিঙ্গাপুরে পাচার হওয়া আরও ২০ কোটি ৪১ লাখ ২৫ হাজার ৬১৩ টাকা ফেরত আনার বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন।
জানা গেছে, এ পর্যন্ত দুদকের চারটি মানি লন্ডারিং মামলার রায় হয়েছে। এর মধ্যে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার ছোট ছেলে মরহুম আরাফাত রহমান কোকো ও সাবেক নৌপরিবহনমন্ত্রী মরহুম আকবর হোসেনের ছেলে ইসমাইল হোসেন সায়মনের বিরুদ্ধে অর্থ পাচার মামলার রায় হয়েছে। এ মামলায় উভয় আসামির ছয় বছর সশ্রম কারাদণ্ড দেন আদালত। কোকোর মৃত্যু হওয়ায় তিনি আইন অনুযায়ী এই সাজার আওতার বাইরে থাকবেন। রায়ে ৩৮ কোটি ৮৩ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। কারাদণ্ড ও জরিমানা পলাতক আসামি ইসমাইল হোসেন সায়মনের ক্ষেত্রে বহাল রয়েছে। এ মামলায়ই সিঙ্গাপুরে পাচার হওয়া ২১ কোটি ৫৫ হাজার ৩৯৪ টাকা ফেরত আনা হয়েছে।
বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বড় ছেলে তারেক রহমান ও তার ঘনিষ্ঠ বন্ধু বিতর্কিত ব্যবসায়ী গিয়াসউদ্দিন আল মামুনের বিরুদ্ধে অর্থ পাচারের আরেকটি মামলায় রায় হয়েছে। রায় অনুযায়ী সিঙ্গাপুরে পাচার ২০ কোটি ৪১ লাখ ২৫ হাজার ৬১৩ টাকা ফেরত আনার বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন। এর মধ্যে তারেক পলাতক আছেন। গিয়াসউদ্দিন আল মামুন জেলে আছেন। আদালত উভয়কে সাত বছর করে কারাদণ্ড ও ৪০ কোটি টাকা জরিমানা করেছেন।
হুন্ডির মাধ্যমে ২১ লাখ ৮০ হাজার টাকা পাচারের অভিযোগে ভারতীয় নাগরিক তারিক আবদুল জব্বার প্যাটেলের মামলায় রায় হয়েছে। হাতেনাতে ধরা পড়া ওই টাকা সরকারি কোষাগারে জমা করা হয়েছে। প্যাটেল বর্তমানে জেলে আছেন। রায়ে তার ১০ বছরের জেল হয়েছে। যুক্তরাজ্যে অবস্থান করে বাংলাদেশি নাগরিক মো. ফারুক হজ করিয়ে দেওয়ার নামে সেখানকার নাগরিকদের কাছ থেকে দুই কোটি টাকা আত্মসাৎ করেছিলেন। এ মামলায় তার ১০ বছরের সাজা হয়। তিনি বর্তমানে জেলে আছেন।
এ ছাড়া হলমার্ক কেলেঙ্কারি, ডেসটিনির প্রতারণা-জালিয়াতি, বিসমিল্লাহ গ্রুপের দুর্নীতি ও এমএলএম কোম্পানি ইউনিপে-টু ইউর বিরুদ্ধে মানি লন্ডারিং মামলাগুলো বিচারাধীন।
দুদক সূত্রে জানা যায়, বিদেশে অর্থ পাচারের তথ্য জানতে ও পাচার হওয়া টাকা ফেরত আনার লক্ষ্যে এ পর্যন্ত যুক্তরাজ্য, হংকং, অস্ট্রিয়া, মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর, কানাডা ও থাইল্যান্ড সরকারের কাছে ৩৫টি মিউচুয়াল লিগ্যাল অ্যাসিস্ট্যান্স রিকোয়েস্ট (এমএলএআর) পাঠানো হয়েছে।

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT