টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!
শিরোনাম :
নাসার মতো প্রতিষ্ঠান হচ্ছে বাংলাদেশে! প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া ঘর পাচ্ছেন ৬৯ হাজার ৯০৪ ভূমিহীন-গৃহহীন পরিবার দেশে ফেরাতে মাত্র ৪২ হাজার রোহিঙ্গাকে শনাক্ত করল মিয়ানমার টেকনাফ উপজেলা যুবদলকে অবাঞ্চিত ঘোষণা করে বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর উপস্থিতিতে ইয়াবাসহ ৫৩৫ কোটি টাকার মাদকদ্রব্য ধ্বংস চাকমারকুল ক্যাম্প থেকে অবৈধ অস্ত্র রামদা ও মিয়ানমারের রেজিস্ট্রেশন কার্ডসহ ৬ রোহিঙ্গা গ্রেপ্তার বৃষ্টি নামবে, বাড়বে শীত চীনের উহানে আবার ‘রহস্যময় রোগে মৃত্যুঃ ভয়াবহ আতঙ্ক ওয়াজ মাহফিলে উসকানিমূলক বক্তব্যর বিষয়ে ভাবছে পুলিশ ঈদগাঁওতে মা-মেয়ে দুই জনকে কুপিয়ে হত্যা

টেকনাফ স্থল বন্দর থেকে ১০ কোটি টাকা মূল্যের পণ্যসহ পালিয়ে যাওয়া জাহাজ ২টি ফিরে এসেছে

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : সোমবার, ২ জুলাই, ২০১২
  • ২৮৪ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

হাফেজ মুহাম্মদ কাশেম, টেকনাফ…….সীমান্ত বাণিজ্যের আওতায় মিয়ানমার থেকে আমদানীকৃত ও ইনপোর্ট জেনারেল ম্যানিফেস্টু(আইজিএম) দাখিলকৃত ১০ কোটি টাকা মূল্যের পণ্যসহ পালিয়ে যাওয়া জাহাজ ২টি ফিরে এসেছে। গতকাল ১ জুলাই টেকনাফ স্থল বন্দর এর মহা-ব্যবস্থাপক মো: আব্দুল মোহাইমেন পালিয়ে যাওয়া জাহাজ ২টি ফিরে আসার তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান- জাহাজ ২টি ফিরে আসার পরপরই প্রয়োজনীয় আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করে জাহাজের মালামাল দ্রুত খালাস করার ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। এদিকে পণ্যবাহী জাহাজ ২টি ফিরে আসায় টেকনাফ সীমান্তের ব্যবসায়ী মহলে প্রাণ চাঞ্চল্য দেখা দিয়েছে। উল্লেখ্য, ১২ জুন পণ্য বোঝাই জাহাজ দু’টি টেকনাফ স্থল বন্দর থেকে পালিয়ে গিয়েছিল। এবং সেদিনই টেকনাফ সিএন্ডএফ এজেন্ট এজন্য বন্দর কত্তৃপক্ষকে দায়ী এবং ক্ষতিপূরণ দাবী করে লিখিত অভিযোগ তুলে বিভিন্ন দপ্তরে পত্র প্রেরণ করেছিল। ১৪ জুন ইউনাইটেড ল্যান্ড পোর্ট টেকনাফ লি: এর মহা-ব্যবস্থাপক আব্দুল মোহাইমেন স্মারক নং ইউএলপিটিএল/সিএন্ডএফ/টেক/কক্স/২০১২/০৩ মূলে জবাব দিয়েছেন। এতে ১০টি প্যারা বা দফাওয়ারী যুক্তিপ্রমাণে সিএন্ডএফ এজেন্ট কত্তৃক উত্থাপিত অভিযোগসমূহ খন্ডন করে সত্য নয় এবং ক্ষতিপূরণের দাবী ভিত্তিহীন ও অমূলক বলে দাবী করেছিলেন। উক্ত চিঠির পর গতকাল ১৭ জুন টেকনাফ সিএন্ডএফ এজেন্ট এসোসিয়েশন চট্রগ্রাম কাস্টম্স ও ভ্যাট কমিশনার বরাবরে আরও একটি চিঠি প্রেরণ করে। এতে বলা হয়- কাস্টম্স এক্সাসাইজ ও ভ্যাট কমিশণারেট চট্রগ্রাম এর স্থায়ী আদেশ নং-০২/২০০৩ তারিখ ০৬/১১/২০০৩ এর ধারা ১.১.১ অনুযায়ী ইউনাইটেড ল্যান্ড পোর্ট টেকনাফ লি: নামীয় প্রতিষ্ঠান পোর্ট অপারেটর হিসাবে বিওটি  চুক্তির ভিত্তিতে আমদানী ও রপ্তানী পণ্য গ্রহণ এবং ডেলিভারী দেওয়ার জন্য দায়িত্ব প্রাপ্ত। কিন্তু পোর্ট অপারেটর ১০ ও ১১ জুন নিজেদের ইচ্ছায় বন্দরের প্রধান ফটক তালাবদ্ধ করে বন্দরের যাবতীয় কার্যক্রম বন্দ রেখেছিল। মেসার্স নুর খালেদা এন্টারপ্রাইজের মালিক মো: ইছমাইল, মেসার্স আল-মদীনা ষ্টোরের মালিক নাজমা আক্তার, মেসার্স মীম এন্টারপ্রাইজের মালিক আব্দুচ্ছালাম, মেসার্স মা  এন্টারপ্রাইজের মালিক আব্দুর রশিদ ও মেসার্স আফাইতা এন্টারপ্রাইজের মালিক মোজাফ্ফর আহমদ এই ৫ জন আমদানীকারক সীমান্ত বাণিজ্যের আওতায় মিয়ানমার থেকে ২টি জাহাজ যোগে নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য আমদানী করে। পণ্যের মধ্যে ছিল- মাসকলাই, পেলং, সীমের বিচি, শুটকি, আচার, তেতুল বিচি ইত্যাদি। ########

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT