টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!

টেকনাফ সীমান্তে গত এক বছরে বিজিবি ২৪ কোটি টাকার চোরাচালানী মালামাল আটক

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : রবিবার, ৭ জুলাই, ২০১৩
  • ১২৩ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

নুর হাকিম আনোয়ার, টেকনাফ *** বাংলাদেশের সর্ব দণি ও পূর্বাঞ্চলীয় সীমান্তের প্রায় ৫৩ কিলোমিটার সীমান্ত এলাকা অরতি হয়ে পড়েছে। এ দীর্ঘ সীমান্তের অঘোশিত চিহ্নিত চোরাইপয়েন্ট দিয়ে বানের স্রোতের ন্যায় ইয়াবা ও মাদকদ্রব্য প্রবেশ করেছে। তার পাশাপাশী মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশ ঝাঁকে ঝাঁকে আসছে রোহিঙ্গা নাগরিক। উদ্দেশ্য টেকনাফের সমূদ্র পথ দিয়ে মালয়েশিয়ায়। বিজিবি সিজার তালিকা অনুযায়ী অন্তমূখীর চেয়ে বহিরমূখী চোরাইপণ্যের সংখ্যা বেশী। তাই টেকনাফ সীমান্তে চোরাচালান তৎপরতা বৃদ্ধির কারণে টেকনাফ স্থল বন্দরে রাজস্ব আয়ের বিরাট ধরনের ধস নেমেছে। ২০১২-২০১৩ গেল অর্থ বছরে ২০ কোটি টাকার রাজস্ব ঘাটতি রয়েছে। টেকনাফ স্থল বন্দরে রাজস্ব আদায়কারী প্রতিষ্টান গুল্ক বিভাগ (কাস্টম্স) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। মহাজোট সরকার মতায় আসার পর গত চার বছরে টেকনাফ স্থল বন্দরে রাজস্ব আয়ের আশার আলো দেখাতে পারেনী। বৈধ ব্যবসায়ীরা হাতগুটিয়ে বসে আসে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে কতিপয় ব্যবসায়ী এবং সংশ্লিষ্টরা জানান- ইয়াবা ব্যবসার কারনে টেকনাফ বন্দরটি ক্রমান্নয়ে মৃত হয়ে যাচ্ছে। এছাড়া টেকনাফ সীমান্তের ৯টি চোরাইপয়েন্ট দিয়ে ইয়াবা সহ বিভিন্ন চোরাইপণ্য বিজিবি অগোচরে প্রবেশ করার ফলে স্থল বন্দরের উপর প্রভাব পড়ছে এবং একারনে রাজস্ব আয়ের মারাতœকধরনের ধস নেমেছে। যেসব চোরাইপয়েন্ট দিয়ে চোরাইপন্য ও আদম প্রবেশ করে তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য পয়েন্ট হচ্ছে, হোয়াইক্যং, উনচিপ্রাং, হ্নীলা, ওয়াবরাং, লেদা, জাদিমুড়া, বরইতলী, নাইথংপাড়া, জালিয়া পাড়া, আড়াই নং স্লুগেইট নাজির পাড়া, সাবরাং নয়াপাড়া, শাহপরীরদ্বীপ, জালিয়া পাড়া, মিস্ত্রিপাড়া ও ঘোলার পাড়া। এদিকে টেকনাফ ৪২ বর্ডার গার্ড ব্যাটলিয়ন (বিজিবি) প্রদত্ত প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানা যায় ১ জুলাই ২০১২ হতে ৩০ জুন ২০১৩ পর্যন্ত সীমান্ত ফাঁড়ির বিজিবির জোয়ানেরা দায়িত্ব পালন কালে সীমান্তের স্থল ও জলপথে চোরাচালান বিরুধী অভিযান পরিচালনা করে গত এক বছরে ৩,৩১৬ জন মিয়ানমার নাগরিককে অবৈধভাবে বাংলাদেশে প্রবেশ করার সময় আটক করতে সম হয়। তার মধ্যে ৩,৩০৬ জনকে প্রয়োজনীয় মানবিক সহায়তা প্রদান পূর্বক মিয়ানমারে ফৈরৎ এবং ১০ জনকে পুলিশের নিকট হস্তান্তর করেন। চোরাইপণ্যের মধ্যে উক্ত বছরে ২৩ কোটি ৭৮ লাখ ৬৮০ টাকার মূল্যের মালামাল (ইয়াবা ও মাদকদ্রব্য) আটক করে। মোট মামলার সংখ্যা ১৩৫ টি, ধৃত আসামী ২৩৫ জন, পলাতক আসামী ২১২ জন। আটক মালামালের মধ্যে উল্ল্যেযোগ্য ইয়াবা ট্যাবলেট, মদ (বোতল, ফেন্সিডিল,,খোলা মদ, গাজা, পপি, এলজি, দেশীয় তৈরী হাতিয়ার) শর্ট গান, কার্তুজ শর্টগানের কার্তুজের খালি খোসা, দেশীয় কাটা বন্দুক, দেশীয় কাটা বন্দুকের তাজা কার্তুজ, থান কাপড়, পলিথিন ব্যাগ, সিগারেট, কারেন্ট জাল, বিভিন্ন প্রকারের মালামাল, ফাটল কাঠ, কাঠের নৌকা, জারিকেন, বিভিন্ন প্রকার ঔষধ, আলু, ময়দা, ডিজেল, ভোজ্যতৈল, পিয়াজ, রসুন, ইউরিয়ার সার, মোবাইল, গেঞ্জি, পানির ফিল্টার, চিনি, কোমল পানীয় ও প্লাষ্টিক সেন্ডেল। এছাড়া এর পাশাপাশি মালয়েশিয়াগামী ১৭৩ জনকে আটক করেছে। এর মধ্যে দালাল ৮ জন, পলাতক ৯১ জন, ট্রলার ২টি। মামলার সংখ্যা ২৩টি। এ ছাড়াও কোষ্টগার্ড পুলিশ বিভিন্ন অভিযান পরিচালনা করে বিপুল পরিমান ইয়াবা আটক করে থাকে। এর সঠিক সংখ্যা সংশ্লিষ্ট দপ্তরে যোগাযোগ করে ও তার সঠিক তথ্য পাওয়া যায়নি। টেকনাফ কোষ্টগার্ড সদর দপ্তরের ফোনে ০১৮১১৪১৩৯১৭ যোগাযোগ করলে বলেন এ তথ্য চট্টগ্রাম থেকে নিতে হবে। আমাদের দ্বারা সম্ভব নয়। টেকনাফ স্থল বন্দরের জেনারেল ম্যানেজার মাকছুদুর রহমান বলেন- চোরাচালান দেশের অর্থ ব্যবস্থাকে ভেঙ্গে দেয় এবং স্থল বন্দরকে গতিশীল রাখতে হলে, চোরাচালান প্রতিরোধ সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে। টেকনাফ ৪২ বর্ডার গার্ড ব্যাটলিয়নের অধিনায়ক মোঃ জাহেদ হাসান জানান, বিজিবি ২০০৮ সালের ১১ মার্চ আগমন করার পর বিজিবি দায়িত্ব পালন এবং চোরাচালান প্রতিরোধে গৌরবোজ্জুল ভূমিকা রেখেছে। এ ব্যাপারে সীমান্ত এলাকার জনপ্রতিনিধি এবং সচেতন মহলকে এগিয়ে আসতে হবে। ###

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Comments are closed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT