টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!

টেকনাফ পুরান পল্লান পাড়া ও নাইট্যং পাড়া সংরক্ষিত বনভূমি অবৈধভাবে ভূমিদস্যুর দখলে

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ১৮ ডিসেম্বর, ২০১২
  • ১৩৯ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

নুর হাকিম,টেকনাফ …
টেকনাফ পুরান পল্লান পাড়া ও নাইট্যং পাড়া সংরক্ষিত বনভূমি অবৈধ অনুপ্রবেশকারী রোহিঙ্গা ভূমিদস্যুর দখলে চলে যাচ্ছে। ফলে বিশাল সরকারী বনভূমি বনবিভাগের হাতছাড়া হয়ে যাচ্ছে। স্থানীয় শাসকদলের কতিপয় ভূমিদস্যু পুরান পল্লান পাড়া ও নাইট্যং পাড়া সংলগ্ন টেকনাফ বনবিটের সংরক্ষিত বনভূমি বেচাকেনার বানিজ্যে নেমেছে। এক সময় এ সংরক্ষিত বনঞ্চলে হাতির পাল দেখা যেতো। বর্তমানে তাহা প্রায় বিলুপ্তির পথে। এই দু’টি পাড়ার বনঞ্চল আজ প্রায় রোহিঙ্গাদের দখলে। যখন যে সরকার ক্ষমতায় আসে তখন বেঁধে নেমে পাহাড় বেচাকেনা ও দখল করতে। ২০০৭ সালে ২০হেক্টর বনভূমি সামাজিক বনায়নের অধীনে রক্ষানাবেক্ষনের জন্য দিয়েছিল। যেখানে প্রায় ১০হাজার বিভিন্ন প্রজাতির চারা রোপন করে বনভূমির শ্রীবর্ধন সৃষ্টি করেন। পরবর্তীতে সরকার পরিবর্তন হওয়ার পর স্থানীয় শাসকদলের নেতাকর্মীরা বনভূমির ওপর চলে দখল প্রতিযোগিতা ও বানিজ্য। একদিকে সরকারী বনভূমি যেমন রোহিঙ্গাদের কাছে চলে যাচ্ছে। তেমন ভাবে ২০ হেক্টর সামাজিক বনায়ন ও রক্ষা যাচ্ছে না। এখানে ১০/১২ জন ভূমিদস্যু রয়েছে। তাদের নিয়ন্ত্রন চলছে এ বনায়ন । ফলে প্রতিকড়া বনভূমি বেচাকেনা চলছে। ১০থেকে ১৫ হাজার টাকা । উক্ত সংরক্ষিত বনাঞলের ভিতর পাকা ভবন নির্মাণ চলছে সমানতালে টেকনাফ উপজেলা প্রশাসন ও বনবিভাগের চোখের সামনে এই দূশ্য চলছে। বনের এক শ্রেণীর দুনীর্তিবাজ বনপ্রহরী ও কর্মচারীর নিয়ন্ত্রণে বনভূমি বেচাকেনা ও দখলও বে দখল প্রতিযোগিতা চলার কারণে মনে হয়। এ বনাঞ্চলে কোন অভিভাক নেই। পাহাড় বেচাকেনা চলছে। তখন মহাধুম দামে। টেকনাফ পৌর এলাকার ব্যক্তি মালিকাধীন জায়গা জমির দাম দিন দিন বৃদ্ধি পাওয়ার ফলে এবং রোহিঙ্গারা চড়া মূল্যে জমি ক্রয় করার প্রেক্ষিতে জায়গা জমির কমে যাচ্ছে। ফলে অনেকই সরকারী বনভূমিতে আশ্রয় নিচ্ছে। এছাড়া খাতায় বনভূমি ও বিরোধ পূর্ণ জায়গা জমি ছড়া মূল্যে বিক্রি করে সরকারী সংরক্ষিত বনভূমিতে গিয়ে আশ্রয় নিচ্ছে। এ ছাড়া  পাহাড় কাটা,পাথর উত্তোলন, বৃক্ষনিধন, ইট ভাঙ্গা ও বনভূমি দখল বেদখল প্রতিযোগিতা চলছে সমানতালে।পুরাতন পল্লান পাড়া, নাইট্যং পাড়া, বরইতলী, কেরুনতলী ও জাহালিয়া পাড়া সংলগ্ন টেকনাফ রোহিঙ্গা অধীন বিস্তীর্ণ বনাঞ্চল বনবিভাগে হাত ছাড়া হয়ে যাচ্ছে। এমন আশাংখা করছেন সীমান্তের সচেতন মহল।

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Comments are closed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT