টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!

টেকনাফ জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের কার্যক্রম নেই

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : সোমবার, ৫ অক্টোবর, ২০১৫
  • ১২১ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

আবুল কালাম আজাদ, টেকনাফ = সীমান্ত উপজেলা টেকনাফে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের কার্যক্রম জিম্মিয়ে পড়েছে। অফিসের কোন কার্যক্রম নেই। নেই কোন কর্মকর্তা কর্মচারী দীর্ঘ দিন যাবৎ। কালের সাক্ষী হিসেবে দাঁড়িয়ে রয়েছে অফিস কার্যলয়। পরিদর্শনে দেখা যায়, অফিস প্রধানের কার্যলয়টি তালা বদ্ধ। তালায় মরিচা ধরেছে। ২/১জন চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারীদের দেখা মিলল। তারা বলেছে যে, দীর্ঘ ৬/৭ বছর যাবৎ অফিসারের পদ শূণ্য। অতিরিক্ত দায়িত্ব দিয়ে অফিস চলেছে। বর্তমানে উখিয়া উপজেলার জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলী ইকবাল হোসেন অতিরিক্ত দায়িত্ব পালন করছেন। যে সমস্ত বরাদ্দ পাওয়া যায় তার টেন্ডার দেওয়া হয় জেলা প্রকৌশল অফিস থেকে। টিকাদারগণ জেলা অফিস থেকে টেন্ডার নিয়ে কাজ করে। জেলা অফিসে দেখা শুনা করে। উপজেলা অফিসের সাথে তাদের কোন সম্পর্ক নেই। ইদানিং পিডিবি-থ্রী এর আওতায় টেকনাফ উপজেলার প্রাথমিক শিক্ষা প্রতিষ্টানে ১২/১৩টি ওয়াশ ব্লকের কাজ চলেছে। প্রতিটি ওয়াশ ব্লকের বিপরীতে ৮/৯ লাখ টাকা বরাদ্দ প্রদান করেছে। এ সমস্ত ওয়াশ ব্লক টিকাদারগণ সিডিউল উপেক্ষা করে নি¤œ মানের নির্মাণ সামগ্রী দিয়ে কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন দেখার কেউ নেই। অপরদিকে বর্তমান মাস স্যানেটশন মাস। এ মাসে জেলার প্রতিটি উপজেলায় স্যানেটেশন মাস হিসেবে বিভিন্ন কার্যক্রম চলেছে। অথচ টেকনাফে এর কোন কার্যক্রমের কোন ইংগিত নেই। এ ছাড়া গেল ঘূর্ণিঝড় কোমেনের আঘাতে টেকনাফ উপজেলায় ৬টি ইউনিয়নে নলকূপ, পাতকুয়া, গভীর অগভীর নলকূপের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। অথচ মাঠ পর্যায়ে এ গুলো পরিদর্শনে উপজেলা ও জেলা পর্যায়ের জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের কেহ আসেনি। প্রতিটি উপজেলায় স্যানেটেশনের শতভাগ কার্যক্রম সম্পন্ন হয়েছে। অথচ টেকনাফে এখনো পর্যন্ত ৭৫ভাগ সম্পন্ন হয়নি বলে দাবি এলাকাবাসীর। কেননা এখনো অনেক ইউনিয়নের বাসিন্দারা খোলা আকাশের নিচে মলমূত্র ত্যাগ করছেন। খোলা পায়খানা ব্যবহার করছেন। স্বল্প মূল্যের প্রতিটি ইউনিয়নে স্যানেটারি ল্যাকট্রিন বিতরণে অনেক অনিয়মের অভিযোগ রয়েছে এ অফিসের। এ কথায় বলতে গেলে টেকনাফ উপজেলা জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের কার্যক্রম জিম্মিয়ে পড়েছে। চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারী ও মেকানিক দিয়ে চলেছে অফিসের কার্যক্রম। এরা অফিসের কাজ কর্ম ফেলে রেখে তাজ খেলে ও ঘুমিয়ে দিন কাটছেন। এ ব্যাপারে চলতি দায়িত্বে কর্মরত উখিয়া উপজেলার জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলীর সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করে সংযোগ না পাওয়া তার বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।###

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT