টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!
শিরোনাম :
মামুনুল হকের ব্যাপারে কোনো সিদ্ধান্ত নেয়নি হেফাজত দেশবাসীর কাছে দোয়া চেয়েছেন খালেদা জিয়া করোনার উপসর্গ দেখা দিলে ‘আইসোলেশনে’ থাকবেন যেভাবে ১২-১৩ এপ্রিল দূরপাল্লার বাস চলবে না : জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী টেকনাফে সরকারি নির্দেশনা অমান্য করে বিকাল ৫.০০ টার পর একাধিক দোকান ও শপিংমল খোলা রাখায় জরিমানা চেয়ারম্যান -মেম্বারদের চলতি মেয়াদ আরও তিন মাস বাড়ছে স্বাস্থ্যসেবা ব্যবস্থাপনায় ৬৪ জেলার দায়িত্বে ৬৪ সচিব মেয়ের বিয়ের যৌতুকের টাকা জোগাড় করতে না পেরে বাবার আত্মহত্যা মিয়ানমারে গুলিতে আরও ১০ জন নিহত যুক্তরাষ্ট্রে বিশেষ স্বীকৃতি পাচ্ছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

টেকনাফ উপকূলের পৌনে ৩ লাখ মানুষ আতংকে

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : রবিবার, ২ জুন, ২০১৩
  • ১৩০ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

মমতাজুল ইসলাম মনু টেকনাফ : …Mamtaz Pic Teknaf 02-06-2013
আর ক’টা দিন অপেক্ষা করলে টেকনাফ উপকূলের বেড়িবাঁধের কোন অস্তিত্বই হয়তো খুঁজে পাওয়া যাবেনা। শাহপরীরদ্বীপের বেড়িবাঁধের চিহ্ন আজ আর চোখে পড়েনা। পানির সাথে যুদ্ধ করতে করতে একটা মৌসুম শেষ হতে না হতে আরেকটা মৌসুম এসে হাজির নতুন যুদ্ধের দামামা বাজিয়ে। শাহপরীরদ্বীপের মানুষ বিষম ক্লান্ত আজ। বুঝে উঠতে পারছেনা আরও একটি যুদ্ধ মোকাবেলা করবে কিভাবে? ভেঙ্গে যাওয়া বেড়িবাঁধ মেরামতে এনজিও,জনপ্রতিনিধি,প্রশাসন থেকে শুরু করে সব দরজায় গিয়েও শূন্য হাতে ফিরেছে ক্ষতিগ্রস্থ শাহপরীর দ্বীপের আপামর জনতা। ফিরেও তাকায়নি কোন হৃদয়বান ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান। কথাগুলো বলছিলেন শাহপরীরদ্বীপের কোণা পাড়ার ষাট বছর বয়সী মোহাম্মদ কাশিম। শুকনো মৌসুমে বেড়িবাঁধের মেরামতের কাজ কেন হয়নি এমন প্রশ্নের উত্তরে মোহাম্মদ কাশিম আরো বলেন-নেতাদের ঠেলাঠেলীর কারণে শাহপরীরদ্বীপের মত একটি সম্ভাবনাময় পর্যটন স্পট আজ মানচিত্র থেকে মুছে যেতে চলেছে। শাহপরীর দ্বীপের পাশাপাশি নতুন করে সাবরাং’র বেড়িবাঁধ ভেঙ্গে যাওয়ায় শত শত পরিবার,ফসলি জমি,চিংড়ি ঘের চরম হুমকির মুখে পড়েছে। উপড়ে গেছে শত শত ঝাউগাছ। পরিবেশ বিপর্যয়ের আশংকা দেখা দিয়েছে। ফসলি জমিতে জমেছে সাগরের বালি। সাবরাং’র বিশাল এলাকা এখন সাগরে বিলীন হয়ে গিয়েছে। মহা আতংকে দিন কাটাচ্ছে এখানকার গ্রামের হাজার হাজার মানুষ। অপরদিকে যে দ্বীপের বেড়িবাঁধকে একান্নব্বই চুরান্নব্বই পর্যন্ত টলাতে পারেনি সেই সেন্টমার্টিন দ্বীপের চতুর্দিকের বেড়িবাঁধ তথা পাথর বান্ধব বেড়িবাঁধে যে ভয়াবহ ভাঙ্গন ধরেছে এ বিষয়ে পারদর্শীরা মনে করছেন পর্যটকদের স্বপ্নের শহর সেন্টমার্টিন নামক এ দ্বীপটি মানচিত্র থেকে মুছে যাওয়া এখন সময়ের ব্যাপার মাত্র। এছাড়াও হ্নীলা,টেকনাফ,হোয়াইক্যং এলাকার বেড়িবাঁধেও ভাঙ্গন ধরেছে চরম ভাবে। বর্ষা মৌসুমে অতি বৃষ্টি,পুর্ণিমা ও আমাবস্যার জোয়ারের পানি ও সাগরের ঢেউয়ের সামনে যেন দাঁড়াতেই পারছেনা উপকূলের বেড়িবাঁধ। জানা যায়- অর্ধশত বছর আগে তৈরী করা এ বেড়িবাঁধ জরাজীর্ণ হয়ে যাওয়ায় সমুদ্রের ঢেউয়ের তোড়ে উপকূলের মানুষকে জান-মাল সর্বস্ব হারাতে হয়। জলবায়ু পরিবর্তনের সাথে সাথে টেকসই বেড়িবাঁধ নির্মাণ না হওয়ায় অর্ধশত বছর আগে নির্মিত বেড়িবাঁধ রক্ষা করতে পারছেনা টেকনাফ উপকূলীয় এলাকার লক্ষাধিক মানুষ ও তাদের ভিটে-মাটি এবং সম্পদ। চলতি বর্ষা মৌসুমে শাহপরীর দ্বীপের পরে নতুন করে সেন্টমার্টিন,সাবরাং,হ্নীলা,টেকনাফ,বাহারছড়া ও হোয়াইক্যং তথা টেকনাফ উপকূলের বেড়িবাঁধ জুড়ে ভাঙ্গন ধরায় এতদাঞ্চলের প্রায় পৌনে ৩ লাখ মানুষের মধ্যে শুরু হয়েছে নতুন অজানা আতংক । অনেকে রাতের ঘুম হারাম করেছে প্রাকৃতিক দুর্যোগ জলোচ্ছ্বাসে সর্বস্ব হারানোর ভয়ে। কক্সবাজার পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্রে জানা যায়-কক্সবাজারের উপকূলীয় এলাকায় সমুদ্রের জলোচ্ছ্বাস থেকে রক্ষা করতে ৫৯৫ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ রয়েছে যা ২২ ফোল্ডারে বিভক্ত। এ বেড়িবাঁধ ৬০ দশকের দিকে তখনকার সময়ের জলবায়ূর উপর নির্ভর করে নির্মাণ করা হয়। তখনকার ডিজাইন করা ৬-৭ ফুট উঁচু কক্সবাজারের উপকূলীয় এ বেড়িবাঁধ এখন প্রায় ৫২ বছরে পা দিয়েছে। বিশ্বব্যাপী জলবায়ূ পরিবর্তনের সাথে সাথে বাংলাদেশের উপকূলীয় অঞ্চলে তার প্রভাব পড়েছে ভয়াবহ ভাবে। তাপমাত্রা বৃদ্ধি পেয়ে সমুদ্রের জলোচ্ছ্বাস হলে এ বেড়িবাঁধ রক্ষা করতে পারছেনা সাগরের পানি। সরকার মান্দাতা আমলের জরাজীর্ণ বিধ্বস্ত বেড়িবাঁধ মেরামতে মাঝে মধ্যে বাজেট প্রনয়ণ ও তা বাস্তবায়ন করলেও টেকসই বেড়িবাঁধ না হওয়ায় প্রতিবছর বর্ষা মৌসুমে জরাজীর্ণ ও পুরনো এ বেড়িবাঁধের কারণে এখানকার মানুষের প্রাণ ও সম্পদ কোনভাবে রক্ষা হচ্ছেনা। টেকনাফ উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ শফিক মিয়া টেকসই ও বর্তমান জলবায়ু পরিবর্তনের সাথে সামঞ্জস্যতা রেখে নতুন করে বেড়িবাঁধ নির্মাণ ও এর উচ্চতা বাড়িয়ে বেড়িবাঁধ নির্মাণ করার উপর গুরুত্বারোপ করেন।  ====

মমতাজুল ইসলাম মনু
টেকনাফ
মোবাইল নং-০১৮৪৩৭২৫৩৪৩

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Comments are closed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT