টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!

টেকনাফে ১ ব্যক্তিকে অপহরনের ঘটনায় ২পক্ষের সংঘর্ষ

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : বুধবার, ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৩
  • ১১৮ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

শামসুল আলম শারেক,টেকনাফ…Teknaf Pic-E-26-02-13টেকনাফের হ্নীলায় ১ ইয়াবা বহনকারীকে অপহরনের সূত্রধরে ২পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় ১যুবককে কূপিয়ে জখম করার ঘটনায় সংঘবদ্ধ হামলায় ২টি বসত-বাড়ি ও দোকান-পাট ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে। আহতদের বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নেওয়া হলেও এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে।
খোঁজ নিয়ে জানাযায়- টেকনাফ উপজেলার হ্নীলা ইউনিয়নের পানখালী গ্রামের শমসু আলমের পুত্র মিজানুর রহমান (১৯)কে ইয়াবার চালান বহনের নামে আতœসাৎ করার অভিযোগে স্থানীয় আব্দু সোবহান মাষ্টারের পুত্র শাহাবুদ্দিন ৪দিন আগে অপহরন করে নিয়ে যায়। এ ঘটনায় মিজানের মা রাবেয়া বাদী হয়ে শাহাব উদ্দিন ও মোহাম্মদ সোহেলকে আসামী করে টেকনাফ থানায় অপহরণের একটি অভিযোগ দায়ের করেন। পরে অপহরণকৃত মিজানকে মুক্তিপণের মাধ্যমে এলাকাবাসী উদ্ধার করে। এরই সুত্রপাত ধরে ২৬ ফেব্র“য়ারী সন্ধ্যা ৬টায় দু’পক্ষের মধ্যে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে সংঘর্ষের সূত্রপাত হয়। সাহাব উদ্দিন গং ও ফায়সাল আমিন জয় গং ঘটনা চলাকালীন পশ্চিম সিকদার পাড়া এলাকার ছৈয়দ আহমদের পুত্র মোঃ শাহীন(২৩) উভয়ের ঝগড়া থামাতে গিয়ে এক পর্যায়ে সাহাব উদ্দিনের কিরিচের কূপের আঘাতে আহত হয়ে মটিতে লুটে পড়ে। এ খবর শাহীনের আত্মীয় স্বজনের মাঝে পৌছলে আলী আহমদ মেম্বার, দিলদার আহমদ মেম্বার, ও ছৈয়দ আহমদের ছৈয়তুর নেতৃত্বে  ২ শতাধিক সশস্ত্র বাহিনী ফায়সাল আমিন জয়ের বসত বাড়ীতে গিয়ে দরজা জানাল ভেঙ্গে বেডরুম ও তার আত্মীয় স্বজন বেলালের মুদির দোকান, বসতবাড়ীর মধ্যে ফায়সাল আমীন জয়, জামাল, বেলাল, মাষ্টার ইসমাঈল, ইলিয়াছ শাহের দোকান, গাড়ীর মধ্যে সি.এন.জি কক্সবাজার-ক-১১-১৭৯৮ সহ ঐসব ঘরের আসবাব পত্র। এই ঘটনায় আড়াই ভরি স্বর্ঘ, নগদ ২ লক্ষ ২৪ হাজার টাকা, ১৬ ইঞ্চি রেনবো ল্যাপটপ, রেড় কালার পালসার মোটর সাইকেল ঢাকা মেট্টো ১৮-৯৭৪৪ লুটপাট হয়েছে। এছাড়া উক্ত সংঘর্ষে ফায়সাল আমিন জয় (৩১), মমতাজ বেগম (৬৫), জেসমিন আক্তার (২২), ফায়সাল আমিনের ৮ মাস বয়সী মেয়ে শিশু দীঘি, তাঁর বোন কাইফা আরফ (১৭), উখিয়া ডিগ্রী কলেজের ছাত্রী রোমেনা আক্তার (১৮), জামাল হোছাইন (২৮), জালাল উদ্দিন (৩৩), মোহাম্মদ আবছার (৩০), রহমত উল্লাহ (৩৫), এমরান (২১) সহ উভয় পক্ষের  মোট ১২ জন আহত হয়েছে। টেকনাফ থানার এ এস আই দেলোয়ার ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়েও হামলাকারীদের ঠেকাতে পারেনি বলে অভিযোগ উঠেছে।
অভিযুক্তদের পক্ষে রশিদ আহমদ জানান-ফায়সাল আমিনের অভিযোগের মধ্যে মোটর সাইকেল ও ল্যাপটপ লুটপাটের অভিযোগ ভিত্তিহীন। তবে শাহীনকে হামলার ঘটনায় লোকজন ক্ষুদ্ধ হয়ে বসত-বাড়ি ও দোকান-পাটে সামান্য হামলার ঘটনা ঘটেছে। এই সন্ত্রাসী হামলা ও ভাংচুরের ঘটনায় এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। #

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Comments are closed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT