টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!

টেকনাফে স্কুল ছাত্রীর আত্মহত্যা

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : রবিবার, ১৯ মে, ২০১৩
  • ১৮২ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

হাফেজ মুহাম্মদ কাশেম,টেকনাফ=Teknaf Pic-18-05-13প্রেমিক কতৃক প্রতারণার শিকার হয়ে অপমানে আতœহত্যাকারী টেকনাফের হ্নীলা হাই স্কুলের ৯ম শ্রেনীর  মেধাবী ছাত্রী তসলিমা আক্তারের দাফন গতকাল ১৯ মে সম্পন্ন হয়েছে। তার আগে তসলিমার ময়না তদন্ত হয়। হ্নীলা হাই স্কুলের প্রধান  শিক্ষক এবং স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি সিরাজুল  ইসলাম সিকদার ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন। ১৯ মে রাত পৌণে ১০ টায় এব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে টেকনাফ মডেল থানার ওসি (তদন্ত) দিদারুল ফেরদৌস জানান- এঘটনায় এখনও মামলা হয়নি । মজার ব্যাপার হচ্ছে, জঘন্যতম এই ঘটনার নায়ক উক্ত স্কুলেরই কমিটির প্রভাবশালী এক সদস্যের পুত্র । প্রেমের ফাঁদে ফেলে বিয়ের প্রলোভন দিয়ে লম্পট প্রেমিক অপহরণ করে ২দিন রাখার পর যৌন নির্যাতন করে তাড়িয়ে দেয়। বাড়িতে এসে  অপমানে বিষপান করে আতœহত্যার চেষ্টা করে। পরে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ঐ কিশোরী মারা যায়। এই মর্মান্তিক ঘটনায় স্কুলের সহকর্মী,শিক্ষক-শিক্ষিকা ও অভিভাবকমহল ক্ষুদ্ধ হয়ে জঘন্য এ ঘটনার মূলনায়কদের শাস্তির দাবী জানালেও উক্ত স্কুল পরিচালনা কমিটির সদস্য পুত্রের অপকর্ম ধামা-চাপা দিতে প্রভাবশালীদের ছত্র-ছায়ায় মোটাংকের মিশন নিয়ে মাঠে নেমেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এর ফলে নিহত স্কুল ছাত্রীর পরিবার সুবিচার থেকে বঞ্চিত হওয়ার আশংকা প্রকাশ করেছেন স্থানীয় সচেতন মহল। বিষপানে আতœহত্যাকারী ছাত্রীর স্বজনেরা জানায়- গত ৮ মে টেকনাফ উপজেলার হ্নীলা ইউনিয়নের উত্তর ফুলের ডেইল এলাকার মৃত নুরুল ইসলামের মেয়ে ও হ্নীলা হাইস্কুলের নবম শ্রেণীর মেধাবী ছাত্রী তসলিমা আক্তার (১৪) কে হ্নীলা মৌলভী বাজারস্থ রোজারঘোনা এলাকার বাসিন্দা ও হ্নীলা হাইস্কুল পরিচালনা কমিটির সদস্য এনামুল হকের পুত্র ইমরানুল হক সর্ঙ্গীয় লোকজন নিয়ে স্কুলে প্রাইভেট পড়তে এলে অপহরণ করে নিয়ে যায়। অপহৃত স্কুল ছাত্রীকে ২ দিন নিজের কাছে রেখে যৌন লালসা চরিতার্থ করার পর তাড়িয়ে দেয়। বাড়ি এসে মায়ের কাছে তাকে অপহরণ ও যৌন নির্যাতনের বর্ণনা দিয়ে এই মুর্হুতে তার বিয়ে না হলে বিষ খেয়ে আতœহত্যার কথা জানায়। মা কোন প্রকারে মেয়েকে শান্তনা দেওয়ার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হন। মায়ের অগোচরে তসলিমা আক্তার  আতœহত্যা করতে বিষপান করে ছটফট করলে স্বজনরা তাকে মুমূর্ষু অবস্থায় উদ্ধার করে টেকনাফ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স-কক্সবাজার সদর হাসপাতাল  হয়ে চমেক হাসপাতালে নিলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত ১৭মে সকাল সাড়ে ৯টার দিকে চমেকের মেডিসিন বিভাগের ১৬নং ওয়ার্ডে ২৫নং কেবিনে তার মৃত্যু হয়। ##

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Comments are closed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT