টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!

টেকনাফে মা ইলিশ সংরক্ষণে ৪টি পয়েন্টে মোবাইল কোর্ট

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ১৩ অক্টোবর, ২০১৬
  • ১৬৯ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

হাফেজ মুহাম্মদ কাশেম, টেকনাফ … প্রধান প্রজনন মৌসুমে মা ইলিশ সংরক্ষণ কর্মসুচীর আওতায় প্রথম দিন সীমান্ত উপজেলা টেকনাফে ৪টি পয়েন্টে অভিযান ও মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হয়েছে। অভিযান ও মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করেন টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী ম্যাজিস্টেট ও সহকারী কমিশণার (ভুমি) মোমেনা আক্তার। পয়েন্টগুলো হচ্ছে কেকেপাড়া মাছ ঘাট, টেকনাফ উপরের বাজার মাছ ঘাট, সী-বীচ মাছ ঘাট, টেকনাফ ফরেস্ট অফিস মাছ ঘাট। টেকনাফ সিনিয়র উপজেলা মৎস্য অফিসার সুজাত কুমার চৌধুরী, বাংলাদেশ কোস্টগার্ড বাহিনী টেকনাফ স্টেশনের মোঃ আক্তার ও মৎস্য দপ্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারীগণ এতে অংশ নেন।
টেকনাফ সিনিয়র উপজেলা মৎস্য অফিসার সুজাত কুমার চৌধুরী জানান প্রধান প্রজনন মৌসুমে মা ইলিশ সংরক্ষণ কর্মসুচীর আওতায় ১০ অক্টোবর টেকনাফ উপজেলার বাস স্টেশন থেকে শামলাপুর পর্যন্ত এবং শামলাপুর হতে সাবরাং নোয়াপাড়া পর্যন্ত ১১ অক্টোবর টেকনাফ স্টেশন থেকে হোয়াইক্যং পর্যন্ত মাইকিং, লিফলেট বিতরণ ও ব্যানার টাঙ্গানো হয়েছে। যথাসময়ে ব্যাপরভাবে প্রচারণার ফলে জেলেদের মাঝে সচেতনতা বৃদ্ধি পেয়েছে। তাঁদের সহযোগিতাও পাওয়া যাচ্ছে। এই অভিযান, মোবাইল কোর্ট পরিচালনা ও সচেতনতামুলক সভা অব্যাহত থাকবে। আগামী ২ নভেম্বর কর্মসুচী সমাপ্ত হবে।
উল্লেখ্য, আশ্বিন মাসের প্রথম চাঁদের পূর্ণিমার দিন এবং এর আগে চার ও পরের ১৭ দিনসহ মোট ২২ দিন ইলিশ ধরা বন্ধ থাকবে। ২ অক্টোবর এ নিষেধাজ্ঞা জারি করে সরকার। নিষেধাজ্ঞায় বলা হয়, এই ২২ দিন ইলিশ আহরণ, বিতরণ, বিপণন, কেনাবেচা, পরিবহন, মজুদ, বিনিময়সহ সব ধরনের কার্যক্রম স্থগিত থাকবে। এমনকি এসময় দেশের বিভিন্ন স্থানে মাছের আড়ত, হাটবাজার ও বিপণি বিতানগুলোতে অভিযান চালানো হবে। নিষেধাজ্ঞার আলোকে এবার মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয় দেশের ২৭টি জেলায় ইলিশ ধরার কার্যক্রম বন্ধ ঘোষণা করে। মা ইলিশ সংরক্ষণ অভিযানের অংশ হিসেবে চাঁদপুর, লক্ষ¥ীপুর, নোয়াখালী, ফেনী, চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, বরিশাল, ভোলা, পটুয়াখালী, বরগুনা, পিরোজপুর, ঝালকাঠি, বাগেরহাট, শরীয়তপুর, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, ঢাকা, মাদারীপুর, ফরিদপুর, রাজবাড়ী, জামালপুর, নারায়ণগঞ্জ, নরসিংদী, মানিকগঞ্জ, মুন্সীগঞ্জ, খুলনা, কুষ্টিয়া ও রাজশাহী জেলার সব নদ-নদীতে ইলিশ ধরা বন্ধ থাকবে। এ ২২ দিন ইলিশ নিধন বন্ধ রাখতে প্রশাসন, পুলিশ, কোস্টগার্ড ও নৌবাহিনীর সহায়তা নেবে মৎস্য অধিদপ্তর। এ সময় তালিকাভুক্ত জেলেরা ২০ কেজি করে চাল পাবেন।
বছরের এ সময়কে মাছের প্রজনন মৌসুম ধরা হয়। আগে প্রজনন মৌসুমে ১১ দিন ইলিশ ধরা নিষিদ্ধ ছিল। গত বছর ১১ দিন থেকে বাড়িয়ে ১৫ দিন করা হয়। চলতি বছর করা হলো ২২ দিন। এর কারণ হিসেবে মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা জানান নিষেধাজ্ঞার সময় পার হওয়ার পরও মা ইলিশ সমুদ্রে ফিরে যাওয়ার সময় ধরা পড়ে। এজন্য গত বছর ইলিশ ধরা নিষিদ্ধের সময় ১১ দিন থেকে বাড়িয়ে ১৫ দিন করা হয়। এরপরও মা ইলিশ ধরা পড়ায় এবার ২২ দিন করা হয়েছে। ##

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT