টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!
শিরোনাম :
মামুনুল হকের ব্যাপারে কোনো সিদ্ধান্ত নেয়নি হেফাজত দেশবাসীর কাছে দোয়া চেয়েছেন খালেদা জিয়া করোনার উপসর্গ দেখা দিলে ‘আইসোলেশনে’ থাকবেন যেভাবে ১২-১৩ এপ্রিল দূরপাল্লার বাস চলবে না : জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী টেকনাফে সরকারি নির্দেশনা অমান্য করে বিকাল ৫.০০ টার পর একাধিক দোকান ও শপিংমল খোলা রাখায় জরিমানা চেয়ারম্যান -মেম্বারদের চলতি মেয়াদ আরও তিন মাস বাড়ছে স্বাস্থ্যসেবা ব্যবস্থাপনায় ৬৪ জেলার দায়িত্বে ৬৪ সচিব মেয়ের বিয়ের যৌতুকের টাকা জোগাড় করতে না পেরে বাবার আত্মহত্যা মিয়ানমারে গুলিতে আরও ১০ জন নিহত যুক্তরাষ্ট্রে বিশেষ স্বীকৃতি পাচ্ছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

টেকনাফে পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র ছাড়াই ৮টি ইট ভাটা

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : রবিবার, ৩০ জুন, ২০১৩
  • ১২৫ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

DSC09505নুর হাকিম আনোয়ার , টেকনাফ:- পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র ছাড়াই সংরতি বনাঞ্চলের ভিতর স্থাপিত করা হয়েছে ৮টি ইটা ভাটা। যদিও উক্ত ইটভাটার সামনে জ্বালানীর মাত্র। সরেজমিন পরিদর্শন করে জানা যায়। বনাঞ্চলের প্রতারণা মাত্র সরেজমিন পরিদর্শন করে জানা যায়, বনাঞ্চলের কচি কচি কাট দিয়েই ইটভাটায় জ্বালানী হিসাবে ব্যবহার করছে। এ ৮টি ইটভাটা যেহেতু পাহাড়ের পাশে, সাহেতু পাহাড়ের কচি কচি বৃ নিবিচারে নিধন করে কৌশলে ইটভাটায় চলে আসছে পাহাড়ী কাট জ্বালানী হিসাবে ব্যবহার করার জন্য অসংখ্য শ্রমিক ও মাঝি নিয়োজিত রয়েছে। পাহাড়ের পাশে অবস্থানরত বিভিন্ন বাড়ীতে সংগ্রহিত ইটভাটার কাট মওজুদ করে রেখেছে। সন্ধ্য ঘনিয়ে আসার পর ইট ভাটায় জ্বলে পাহাড়ী কাট। পাহাড়ের ভিতর এবং পাশে ৮টি ইট ভাটা স্থাপন ও কাট ব্যবহার করার ফলে পরিবেশের প্রতি বিরুপ প্রভাব পড়েছে। পাহাড়ের কাট ব্যবহার এবং ফসলী জমির মাটি কেটে তৈরী করা হচ্ছে ইট। সংরতি বনাঞ্চলের ৩কিলোমিটারের মধ্যে ইট ভাটা স্থাপন ও কাট ব্যবহার সম্পূর্ণ রূপে নিষিদ্ধ হলেও এখানে তার কার্যকরী নেই। এ ব্যাপারে পরিবেশ অধিদপ্তর সংরতি বনাঞ্চালের পাশে ৮টি ইট ভাটার মালিককে ইতি মধ্যে নোটিশ প্রদান করেছে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানাগেছে। টেকনাফ উপজেলার হ্নীলা ও হোয়াইক্যং এ ২টি ইউনিয়নে ৮টি ইট ভাটা চলে আসছে যেহেতু এই ২টি ইউনিয়ন বনাঞ্চলের পেটের ভিতর। সেহেতু ইট ভাটায় বনাঞ্চলের কাট ব্যবহার কোন মতেই ঠেকানো যাচ্ছে না। হ্নীলা ও হোয়াইক্যং ইউনিয়নে বনাঞ্চলের পাশে এবং টেকনাফ কক্সবাজার মহা সড়কের পশ্চিম পাশে ৮টি ইট ভাটা গুলোর মধ্যে হ্নীলা মোচুনীতে এএমএইচ ব্রিক ফিল, সামান্য দেিণ লেদা, নয়াপাড়া ও জাদিমুরায় ৫টি ইট ভাটা স্থাপন করা হয়। একই ভাবে হোয়াইক্যং ইউনিয়নের দৈংগ্যাকাটা ও লম্বাগুনা বনাঞ্চলের ভিতর ইট ভাটা স্থাপন করা হয় এইচবি ব্রিক, ইবিসি ব্রিক ও জিয়াউর রহমান ব্রিক নামে আরও ৩টি ইট ভাটা। এই ৮টি ইট ভাটায় দিন রাত সমানে জ্বালানী কাট ব্যবহার করে ইট তৈরী করা হলেও এতে কেউ বাধা দিচ্ছে না। এ সব ইট ভাটার বিপরীতে পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র ও বৈধ লাইসেন্স নেই। যুগযুগ ধরে কেন এবং কিভাবে ইট ভাটা স্থাপিত হয়েছে তাহা সীমান্তের সচেতন মহলের মধ্যে নানা প্রশ্ন সৃষ্টি হয়েছে। প্রতিদিন বনাঞ্চলের হাজার হাজার মন কাট ইট ভাটায় জ্বালানী হিসাবে ব্যবহার করছে। যদিও উক্ত ইট ভাটার সামনে কয়লার স্থুপ রাখা হলেও তাহার সম্পূর্ণ লোক দেখানো প্রতারণা মাত্র। বনাঞ্চলের কাট নির্বিচারে নিধম এবং বনভূমি কর্তনের ফলে বর্ষার মৌসুমে পাহাড়ী মাটি গড়িয়ে নাফ নদীর ভরাট হয়ে যাচ্ছে। ফলে নাফ নদী প্রতি বছর নাব্যতা হারাচ্ছে। #####

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Comments are closed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT