টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!

টেকনাফে আড়তে কাঁচাকলা পাকাতে বিষাক্ত ক্যামিকেল ব্যবহার

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ৭ আগস্ট, ২০১২
  • ২০৫ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

নুরুল হাকিম আনোয়ার ..টেকনাফে রমজানে ব্যবসায়িক সুবিধা নিতে কলাতে বিষাক্ত ক্যামিকেল ব্যবহার করছে অসাধু ব্যবসায়ীরা । এসব কলা ব্যবসায়ীরা রোজাদার ও সাধারণ মানুষকে পুষ্টি কর ফল বলে বিক্রি করলেও মানুষ কলা সঙ্গে খাচ্ছে বিষ। টেকনাফ উপজেলার সব কলার আড়তে এ বিষ মেশানো হচ্ছে বলে জানা গেছে । ফলে বিষ মেশানো কলা যারা খাচ্ছে তাদের জটিল রোগ হবে বলে আশংকা করছে সচেতন মহল । গতকাল ৫ আগষ্ট টেকনাফ পৌরসভার অলিয়াবাদ সী-বীচ রোডে রাস্তার দু-পার্শে থাকা কলা সওদাগর সুলতান আহাম্মদ সওদাগর,রশিদ সওদাগর,বশির সওদাগর,অহিউল¬াহ সওদাগর,ফয়েজ উল¬াহ সওদাগরের দোকান সহ বিভিন্ন ইউনিয়নের কলার দোকানে সরজমিনে পরির্দশন গিয়ে দেখা যায় কলাতে বিষ মিশানোর অসংখ্য দৃশ্য। এসব ব্যবসাযীরা উত্তরবঙ্গ ও বিভিন্ন জেলা থেকে ট্রাকে করে টেকনাফে নিয়ে আসছে। বিষ দিয়ে পাকানো কলা পাইকারী হারে টেকনাফের প্রত্যন্ত অঞলে পোঁছে দোকানদারকে পোঁছে দিচ্ছে। রমজানে কলার চাহিদা থাকায় এসব কলাতে বিষাক্ত পানি মিশিয়ে তড়িৎ পাকাচ্ছে বলে জানাগেছে । টেকনাফ অসাধু এক শ্রেনীর কলা ব্যবসায়ী অতিরিক্ত মোনাফার জন্য কলাতে বিষ মিশিয়ে এ ব্যবসা করে যাচ্ছে । ব্যবসায়ীরা কলার আড়তের সামনে শতাধিক কলা রাখলেও পর্দার আড়ালে থাকে বাকী সমস্ত কলা ও বিষ মেশানো ড্রাম। যে সমস্ত ক্রেতাদের জরুরী ভিত্তিতে পাঁকা কলার প্রয়োজন হয় তাদেরকে বিষ মেশানো ড্রাম ভর্তি পানিতে ডুবিয়ে এ কলা বিক্রি করা হয়। বিষাক্ত এ পানিতে কলা ভিজিয়ে নিলে অল্প সময়ে লাল হয়ে যায় কলার রং। এতে কম সময়ের মধ্যে রোজাদার সাধারণ ক্রেতাদের এ কলা বিক্রি করা যায়। প্রতিদিন কলা ব্যবসায়ীরা এভাবে হাজার হাজার কলাতে বিষ মিশেয়ে কলা বিক্রি করে যাচ্ছে । আর এসব কলা খাচ্ছে মানুষ । কয়েকজন রোজাদার জানায়,কলাতে বিষাক্ত পানি মেশানো হয় তা আগে জানলে কোনদিনও কলা খেতাম না । এ সব বিষ প্রকাশ্যে প্রতিদিন দিনের বেলায় মেশানো হলে ও সংশি¬ষ্টদের কোন খবরদারি নেই। অভিজ্ঞ মহল মনে করছেন বিষ মিশানো কলা পেটে গেলে ক্যন্সারসহ লিভার ,কিডনী ও পাকস্থলীর সমস্যা দেখা দিতে পারে। বিশেষ করে শিশু ও গর্ভবতী মায়েদের জন্য এসব কলা মারাত্বক ক্ষতিকর । সংশি¬ষ্ট সূত্র জানায় বিএসটিআই হচ্ছে খাদ্যের মান পরীক্ষা করার একমাত্র সরকারি প্রতিষ্ঠান । অর্ডিন্যন্স ১৯৮৫ অনুযায়ী বিএসটিআই বাজারে সব পন্য দেখভাল করবে। কিন্তু সীমান্ত শহর টেকনাফে কোন ধরণের তদারকি না থাকার ফলে ইচ্ছামতো বিক্রি হয় নানা পন্য। কাচাঁ কলাকে পাঁকা করতে বিশেষ কারবাইড ব্যবহার করছে। কিন্তু এ সব দেখার কেউ নেই ।

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT