টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!

টেকনাফের ২ হাজার একর লবণ চাষ উপযোগী জমিগুলো পানিতে ডুবে আছে

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : বুধবার, ১২ ডিসেম্বর, ২০১২
  • ১২১ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

টেকনাফের লবণ চাষ উপযোগী জমিগুলো অধিকাংশ পানিতে ডুবে আছে। এ কারণে চলতি মৌসুমে ২ হাজার একর জমিতে লবণ চাষ অনিশ্চয়তার পাশাপাশি চাষীরা কোটি কোটি টাকার ক্ষতির সম্মুখিন হচ্ছেন। তাই জরুরি ভিত্তিতে ভাঙা বাঁধ মেরামতের জন্য জেলা উন্নয়ন কমিটির সভায় বিষয়টি তুলে ধরা হবে তিনি জানান। এ অনিশ্চিয়তা থেকে বেরিয়ে আসতে ভাঙ্গা বেড়ীবাঁধ নির্মাণ করে লবণ চাষের উপযোগী করার জন্য জরুরী পদক্ষেপ গ্রহণে টেকনাফে ভাঙ্গা বাঁধ নির্মাণের দাবীতে সংবাদ সম্মেলন করে স্থানীয় লবণ চাষীরা স্থানীয় সাংসদ আলহাজ্ব আব্দুর রহমান বদির সু-দৃষ্টি কামনা করছেন।  চলতি মৌসুমে দেশের সর্ব দক্ষিণ সীমানা বৃহত্তর শাহপরীরদ্বীপের ২ হাজার একর জমিতে লবণ চাষের প্রক্রিয়া শুরু করা অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। শাহপরীরদ্বীপ বেড়িবাঁধের দীর্ঘ অংশ ভেঙ্গে গিয়ে সাগরের পানি ঢুকে লবণ চাষ উপযোগী জমি সাগরের সাথে একাকার হয়ে যাওয়ায় এ আশংকা দেখা দিয়েছে। বর্তমানে পানিতে ডুবে আছে এক একর লবণ চাষের জমি। এখানে প্রতি মৌসুমে ৮শ মণ লবণ উৎপাদন হয়। এ এলাকায় প্রতি মৌসুমে ১৬ লাখ মন লবণ উৎপাদন করা হয়। উৎপাদিত লবণের বাজার দামে মূল্য প্রায় ৫০ কোটি টাকা। এতে চাষী, ব্যবসায়ী, শ্রমিক ও পরিবহন খাতে প্রায় ১২ হাজার লোক নিয়োজিত থাকেন। এ বাঁধ সংস্কার করা না হলে লবণের সাথে সংশ্লিষ্ট ১২ হাজার লোক বেকার হয়ে পড়বে। তাছাড়া এ অবস্থা বিরাজমান থাকলে দেশে লবণ ঘাটতি দেখা দিতে পারে বলে আশংকা করছেন অনেকে। গত ৪ মাস আগে প্রাকৃতিক দূর্যোগের কারণে বঙ্গোপসাগরের করাল গ্রাসে শাহপরীরদ্বীপ রক্ষাবাঁধ ভেঙ্গে জোয়ারের পানি লোকালয়ে ঢুকে পড়ে। যার ফলে জোয়ারে পানি তলিয়ে থাকে হাজার হাজার একর লবণ চাষের জমি। চলতি ডিসেম্বর মাসে উপজেলার অন্যান্য জমিতে লবণ চাষের প্রক্রিয়া শুরু হলেও বৃহত্তর শাহপরীরদ্বীপে লবণ চাষের কোন প্রক্রিয়া শুরু করতে পারেনি চাষীরা। বঙ্গোপসাগরের পশ্চিমে বেড়িবাঁধ উম্মুক্ত থাকায় জোয়ারের পানি লবণ মাঠে আনাগোনা করছে প্রতিনিয়ত। টেকনাফ উপকূলের নাফ নদী ও বঙ্গোপসাগরের তীরে বেড়িবাঁধের ভাঙ্গন মেরামত না হওয়ায় জোয়ার-ভাটায় প্লাবিত হওয়ায় ২ হাজার একর জমিতে লবণ উৎপাদন অনিশ্চিত। চলতি মৌসুমে আরো অধিকাংশ জমিতে লবণ চাষ অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। উপজেলার উপকুলীয় এলাকার অধিকাংশ বেড়িবাঁধ মেরামত না হওয়ায় আসন্ন লবণ মৌসুমেও চাষাবাদ নিয়ে শঙ্কায় রয়েছেন চাষিরা। যতদিন পর্যন্ত বেড়িবাঁধ নির্মাণ হবেনা ততদিন পর্যন্ত লবণ চাষ করা সম্ভব নয় বলে উল্লেখ করেন তিনি। টেকনাফের লবণ চাষী আবদুল গফুর শরীফ জানান, শাহপরীর দ¦ীপের ভাঙা বেড়িবাঁধ দিয়ে জোয়ারের পানি ঢুকে পড়ায় চিংড়ি চাষও অনিশ্চয়তার পাশাপাশি চলতি লবণ মৌসুমেও চাষাবাদ করতে না পারায় আমারা কোটি টাকার ক্ষতির সম্মুখিন হবো। টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সামসুল ইসলাম জানান, বেড়িবাঁধ ভাঙ্গনের ফলে প্রতিনিয়ত জোয়ারের পানি ঢোকাই দেশের অন্যতম লবণ উৎপাদনকারী

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Comments are closed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT