টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!

টেকনাফের হোয়াইক্যংএ রামুর ঘটনা নিয়ে চরম উত্তেজনাঃ নিহত ১/ আহত ২৫

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : রবিবার, ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০১২
  • ১৩৫ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

হুমায়ুন রশিদ,মুহাম্মদ ছলাহ্ উদ্দিন, এটিএন ফয়সাল,টেকনাফ।
কক্সবাজার জেলার রামুতে মুসলিম ধর্মকে অবমাননা করে ফেইসবুকে পবিত্র কোরান ও ইসলাম বিদ্বেষী ছবি পোস্ট করাকে কেন্দ্র করে ছড়িয়ে পড়া ক্ষোভ জেলার আনাচে-কানাচে ছড়িয়ে পড়ছে। হোয়াইক্যং ইউনিয়নের ক্ষুদ্ধ জনতা বড়–য়া পাড়া হামলা চালিয়ে ১০বসত-বাড়িতে অগ্নি সংযোগ করেছে। পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে শতাধিক রাউন্ড ফাঁকাগুলি বর্ষণ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। উক্ত গোলাগুলির ঘটনায় চেয়ারম্যান,পুলিশও সাংবাদিকসহ ২১জন আহত হয়েছে এবং ১বৃদ্ধা বাকরুদ্ধ হয়ে মারা গেছে। ক্ষুদ্ধ জনসাধারন প্রধান সড়কে ব্যারিকেড দেয়। স্থানীয় চেয়ারম্যান পরিস্থিতি শান্ত করার জন্য জোর প্রচারনা চালায়। পরে এমপি আব্দুর রহমান বদি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।
সুত্রে জানাযায়- ৩০সেপ্টেম্বর সন্ধ্যা ৭টার দিকে টেকনাফ উপজেলার হোয়াইক্যং ইউনিয়নের লম্বাবিল এলাকার একদল মানুষ হোয়াইক্যং ষ্টেশনে গিয়ে সেখানকার কতিপয় লোকজনের সাথে কথা বলে মুসলিমদের অবমাননার বিরুদ্ধে শ্লোগান দিয়ে হোয়াইক্যং জুয়ারিয়াখোলা মন্দিরের দিকে এগিয়ে গেলে বড়–য়া গোত্রের লোকজন পালিয়ে যায়। এসময় তাদের ৮/১০জন আহত হয়। পরে খবর পেয়ে পুলিশ ক্ষুদ্ধ জনতাকে শান্ত করার জন্য শতাধিক রাউন্ড ফাঁকাগুলি বর্ষণ করলে স্থানীয় চেয়ারম্যান নুর আহমদ আনোয়ারী ,৪পুলিশ সদস্য আইসি-বখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী,নায়ক-জয়ন্ত বড়–য়া,কনস্টেবল-তুষার,আব্দুর রব, সাংবাদিক রমজান উদ্দিন পটল,আমতলীর আবুল কাশেমের পুত্র মোঃ জাহেদ(১৮),লম্বাবিল এলাকার মিয়া হোছনের পুত্র মোঃ জালাল আহমদ(২৬),আলমের শিশুপুত্র পুতিয়া(৮), আব্দুল হাকিমের পুত্র মোস্তাক, নুরুল ইসলামের পুত্র হাসান আলী, নুরুল আলমের পুত্র মোঃ হোছন ও জসিম নামের যুবকসহ উভয় পক্ষের ২১জন আহত হয়। এছাড়া ভূতি শর্মা(৭৫)নামে বৃদ্ধা অগ্নিকান্ডে বাকরুদ্ধ হয়ে মারা যায়। পটল জানান-একটি কুচক্রিমহল পূর্ব শত্র“তার জেরধরে সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে সুযোগ বুঝে আমার উপর সাম্প্রদায়িক উস্কানির সুযোগে হামলা চালায়। পরে ক্ষুদ্ধ জনতা বড়–য়া পাড়ার নির্মল বড়–য়া, সাধন মল্লিক,যতিন্দ্র,হালু, অমল বড়–য়া, নুনু বড়–য়াসহ ৮/১০টি বসত-বাড়ি জ্বালিয়ে দেয়। এতে ৩টি বাড়ি পুড়ে ছাঁই হয়ে যায়। স্থানীয় চেয়ারম্যান নুর আহমদ আনোয়ারী মাইকিং করে ক্ষুদ্ধ জনতাকে শান্ত হওয়ার আহবান জানায়। ক্ষুদ্ধ লোকজন শান্ত হলেও প্রায় ১ঘন্টা যাবত প্রধান সড়ক অবরোধ করে রাখে।এরপর আহতদের বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নেওয়া হয়।এরপর স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ বিপূল সংখ্যক বিজিবি-পুলিশ এসে পরিস্থিতি শান্ত করে এবং সড়কের ব্যারিকেড তুলে নেয়। স্থানীয় পুলিশ ফাঁড়ির আইসি হামলায় আহত হওয়ার সত্যতা স্বীকার করেন। তবে পেশাগত দায়িত্ব পালন কালে পরিকল্পিতভাবে রমজান উদ্দিন পটলের উপর হামলার ঘটনায় টেকনাফে কর্মরত সাংবাদিকেরা চরম ক্ষোভ প্রকাশ করে চিহ্নিত সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার করে অতি সত্বর কঠোর শাস্থি দাবী করেন। এ খবর পেয়ে স্থানীয় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব আব্দুর রহমান বদি,পুলিশ সুপার সেলিম মুহাম্মদ জাহাঙ্গীর, এ এসপি সার্কেল,টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা,থানার অফিসার ইনচার্জ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। #######

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT