টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!

টেকনাফস্থ হ্নীলার রোহিঙ্গা ক্যাম্পের এক রোহিঙ্গা নারী ইয়াবার চালান নিয়ে গন্তব্যে যাওয়ার পথে…

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : বুধবার, ৮ মে, ২০১৩
  • ১৩১ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

Teknaf Pic-(A)-07-05-13শামসুল আলম শারেক,টেকনাফ।  টেকনাফস্থ হ্নীলার রোহিঙ্গা ক্যাম্পের এক রোহিঙ্গা নারী ইয়াবার চালান নিয়ে গন্তব্যে যাওয়ার পথে ছিনতাইকারীর খপ্পরে পড়ে চালান খোয়া যাওয়ার ঘটনায় উক্ত চরনদার মহিলাকে অপহরন করে পাহাড়ে নিয়ে শারীরিক নির্যাতন চালিয়েছে মালিক পক্ষ। বর্তমানে শরণার্থী ক্যাম্পে মুসলিম এইড কাতরাচ্ছে উক্ত চরনদার মহিলা। তবে একটি মহল দাবী করছে এই ছলনাময়ী মহিলা নানা কৌশলে ৫/৬জনের চালান আতœসাৎ করেছে তাই তার এই পরিণতি।
নির্যাতনের শিকার মহিলা জানান-গত সপ্তাহে টেকনাফ উপজেলার হ্নীলা ইউনিয়নের আলীখালী গ্রামের রবিউল আলম, জয়নাল, ডাটা সেলিম, ইসহাক, জজ মোহাম্মদসহ ৮/৯জন মিলে ২মে মদিনা খাতুনকে অপহরন করে আলীখালী পাহাড়ে নিয়ে যায়। এর পুত্র টাকার বিনিময়ে লেদা অনিবন্ধিত রোহিঙ্গা ক্যাম্পের সি-ব্লকের ৩২৮নং শেডের ছৈয়দ করিমের স্ত্রী মদিনা খাতুনকে ১হাজার চাম্পা, ৫শ আর-৭ইয়াবার একটি চালান নিয়ে কক্সবাজারের উদ্দেশ্যে পাঠায়। বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করে উক্ত চরনদার মহিলা মরিচ্যা বাজারের উত্তর পার্শ্বে গাড়িতে উঠার জন্য অপেক্ষাকালে একটি ছিনতাইকারী চক্র তল্লাশী চালিয়ে ইয়াবার চালানটি ছিনিয়ে নেয়।এরপর বাড়িতে এলে ইয়াবার মালিক তাকে ব্যাপক শারীরিক নির্যাতন চালানো হয়।এমন কি নবজাতককে পর্যন্ত নিয়মিত মায়ের দূগ্ধ আহার থেকে বঞ্চিত করে। ইয়াবা ব্যবসায়ীদের এ খবর চারদিকে ছড়িয়ে পড়লে নিরুপায় হয়ে ৫মে সন্ধ্যায় ছেড়ে দিয়ে কাউকে কিছু না বলার হুমকি দেয়।এই খবর পেয়ে শরণার্থী ক্যাম্পের উক্ত মহিলার সাথে স্বাক্ষাত করলে সে ইয়াবার চালান বহনে বাধ্য করা এবং অমানুষিক নির্যাতনসহ নানা বিষয়ে অশ্র“সিক্ত নয়নে বর্ণনা দেন। এমন কি উক্ত মহিলাকে পালাক্রমে ধর্ষনের মতো জঘন্য অভিযোগ পর্যন্ত লোকমুখে শুনা যাচ্ছে। নির্যাতিত মহিলা বর্তমানে শরণার্থী ক্যাম্পের মুসলিম এইড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।
এই ব্যাপারে অভিযুক্ত রবিউলের সাথে যোগাযোগ করা হলে বলেন-এসব মালের মালিক আমি নই। প্রতিবেশী ১জনের। উক্ত মেয়ে এইভাবে চালান পৌঁছে দেওয়ার কথা বলে ৫/৬জন থেকে ইয়াবার চালান লোপাট করেছে। যা স্থানীয় বিচারে প্রমাণিত হয়েছে। তবে উক্ত মহিলাকে কোন ধরনের মারধর করা হয়নি।
স্থানীয় সচেতন মহল এই অমানবিক নির্যাতন এবং ইয়াবা বহনে বাধ্যকারীদের বিরুদ্ধে আইনগত পদক্ষেপ গ্রহনে সক্রিয় হওয়ার জন্য মানবাধিকার সংগঠন সমুহের দ্রুত হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। ##

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Comments are closed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT