টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!

জাদীমুরা আদম ঘাট দিয়ে আসছে রোহিঙ্গা ও মাদকঃ যাচ্ছে

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ১৮ জুন, ২০১৩
  • ১৬১ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

জসিম উদ্দিন টিপু, টেকনাফ।

টেকনাফের হ্নীলা রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ এলাকা জাদীমুরার আদম ঘাট দিয়ে অবৈধ ভাবে দেশে আসছে বর্মী নাগরিক ও মরণ নেশা ইয়াবা সহ বিদেশী মাদক দ্রব্য। এসব আদমঘাট দিয়ে নিয়মিত আসছে বর্মী নাগরিক, ইয়াবা, বিদেশী মদ, চোরাইকৃত গরু-ছাগল, চামড়া, অস্ত্র, এস্ক্রাপ সহ বিভিন্ন প্রকার মাদক। বিনিময়ে পাচার হচ্ছে জ্বালানী তেল, সার, মোটর সাইকেল, মেশিনারী পার্টস, সিমেন্ট, সুখি ভরি, ডিপো ইনজেকশন, মেডিসিন, এ্যালমুনিয়াম, কসমেটিকস, মোবাইল সেট, সিম, ইংরেজি দৈনিক পত্রিকার বান্ডিল সহ নানান ধরণের পণ্য। এসব জিনিস অনুপ্রবেশ ও পাচারে সরকার যেমনি টেক্্র পাচ্ছেনা। তেমনি রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ ও মাদক কিছুতেই থামছেনা। জানাগেছে, হ্নীলা ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ড জাদীমুরার ৪টি আদমঘাট চালু রয়েছে। এসব আদমঘাট নিয়ন্ত্রণে স্থানীয় কতিপয় প্রভাবশালী আঙ্গাআঙ্গি ভাবে জড়িত আছে। আদমঘাট নিয়ে বিভিন্ন সময় পত্রিকায় লেখালেখির পরও প্রশাসনিক পদক্ষেপ না হওয়ায় ঘাট নিয়ন্ত্রণে জড়িতরা দিন দিন আরো বেপরোয়া হয়ে উঠছে। এতে করে পুরো হ্নীলার মাদক ও আইনশৃংঙলা অবনমন কিছুতেই ঠেকানো যাচ্ছেনা। জানাযায়, দক্ষিণ জাদিমুরা প্রাইমারাী স্কুলের সোজা পুর্ব দিক দিয়ে জাদীমুরা টু বার্মার পেরাংপুর ঘাট বিনিময়ে জড়িত স্থানীয় সোনালীর পুত্র নুরুল কবির, গোলাল মিয়ার পুত্র আবুল বশর, মোশতাকের পুত্র জাফর ও  জামাই বার্মায়া সলিম, বাচা মিয়ার জামাই নুর হাশিম ও ইউনুছ, মোশতাকের জামাই নুর মোহাম্মদ, বার্মায়া মোহাম্মদ ছৈয়দ, রফিক, গড ফাদার আব্দুল আমিন, আব্দুল মোনাফের পুত্র ওসমান, বাচা মিয়ার পুত্র ছৈয়দ হোছাইন, মালয়েশিয়ার দালাল আব্দু ছালাম। জাদীমুরা ইউনুছের দোকানের সামনে দিয়ে সোজা পূর্ব দিক দিয়ে জাদীমুরা টু রাইম্যর ঘোনা ঘাট বিনিময়ে স্থানীয় মৃত বদি আলমের পুত্র আব্দুল আমিন, মৃত আবুল কাশেমের পুত্র তৈয়ব। জাইল্যার ঘাট টু মাংগালা নোয়াখাইল্যা শফিকের দোকানের সোজা পূর্ব দিক দিয়ে ছালেহ আহমদ নুনুর বসত ভিটা দিয়ে ঘাট বিনিময়ে জড়িত স্থানীয় শফিকুর রহমান নোয়াখালী, মৃত মীর আহমদের পুত্র হাফেজ আহমদ ও আয়ুব খাঁন, মুত আলী আহমদের পুত্র নুর মোহাম্মদ, মৃত নজু মিয়ার পুত্র আব্দুল মাবুদ ও আব্দু সালাম, মৃত আব্দুল মজিদের পুত্র ছালাহ আহমদ নুনু, বেলাল। উত্তর জাদীমুরা টু গউছবিল ঘাট বিনিময়ে জড়িত স্থানীয় মৃত আশকর আলীর পুত্র জালাল আহমদ, আবু শামার পুত্র কালু, আবু আহমদের পুত্র ফরিদ, ছৈয়দ নুরের পুত্র ইউসুফ, আলী আহমদের পুত্র মুহাম্মদ আলম, মমতাজ মিয়ার পুত্র শুক্কুর, জহির আহমদের পুত্র রফিক জড়িত আছেন বলে অনুসন্ধানে বেরিয়ে আসে। স্থানীয় এলাকাবাসীর সাথে কথা বলে জানাযায়, এসব আদম ঘাট দিয়ে দেশে অনুপ্রবেশকালে ঘাট নিয়ন্ত্রন কারীরা প্রতি জনের কাছ থেকে ১হাজার টাকা নিয়ে থাকে। আর এক্ষেত্রে মাথাগনা বিজিবিকে ২শ টাকা করে দিতে হয়। এঘাট পারাপারে বিজিবির কতিপয় দুর্নীতি পরায়ন সদস্য ওতপ্রোতভাবে জড়িত আছে। এদিকে মিয়ানমারের সাথে ঘাট বিনিময় হওয়াতে জেলেদের নৌকা অনেক সময় চুরি হওয়ার কথা স্থানীয়রা জানান। নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয় এক জনপ্রতিনিধি অভিযোগ করেন, এলাকার আইন শৃংঙলা উন্নতির স্বার্থে রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ, অপরাধ ও মাদক নিয়ন্ত্রণ করতে হলে এসব ঘাট একেবারে বন্ধ করতে হবে। এলাকার সচেতন মহল মনে করেন, দেশ ও দশের স্বার্থে আদমঘাট নিয়ন্ত্রণে জড়িতদের বরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে হবে। আদামঘাট নিয়ন্ত্রণে জড়িত ২/১ জনের সাথে তাদের সম্পৃক্ততার ব্যাপারে জানতে চাইলে তারা এ প্রতিবেদককে নিজেদের জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে বলেন কি করব কিছু একটা করতে তো হবে। ৪২ বিজিবির অধিনায়ক লে.কর্ণেল জাহিদ হাসান জানান, আদমঘাট নিয়ন্ত্রণে যারা জড়িত এবং যে সব বিজিবি সদস্য এই কাজে সহযোগীতা করে তাদের বিরুদ্ধে যথাযথ অভিযোগ ফেলে প্রমাণ সাপেক্ষ্যে শক্ত আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তবে তিনি  স্থানীয় জনসাধারণকে বিজিবির উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে ইনফর্মের মাধ্যমে সহযোগীতায় এগিয়ে আসার কথা বলেন। হ্নীলার সর্বস্তরের জনসাধারণ জরুরী ভিত্তিতে জাদীমুরার অবৈধ আদম ঘাট বন্ধের মাধ্যমে রোহিঙ্গা, মাদক অনুপ্রবেশ বন্ধ ও দেশীয় মালামাল পাচাররোধে দায়িত্বশীল কর্তৃপক্ষের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। ##########

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Comments are closed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT