টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!
শিরোনাম :

কক্সবাজার জেলায় জিএসসি ও পিএসসি পরীক্ষায় পাসের হার ৯৩.৬৩ ও ৮০.৮৬ %শতাংশ:টেকনাফ উপজেলার পাশের হার ৭৯.৬৪%

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : শুক্রবার, ২৮ ডিসেম্বর, ২০১২
  • ৩৩৭ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

এ এইচ সেলিম উল্লাহ, ককবাজার…
এবারের প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী (পিএসসি) পরীক্ষায় কক্সবাজার জেলায় মোট ২৮ হাজার ৬৫০ জন শিক্ষার্থী পাস করেছে। জেলায় মোট জিপিএ-৫ পেয়েছে ১ হাজার ৯৪৯ জন। পাসের হার ৯৩ দশমিক ৬৩ শতাংশ।
কক্সবাজার জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা যায়, কক্সবাজার জেলায় মোট ৩০ হাজার ৫৯৯ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নিয়েছে।এর মধ্যে ২৮ হাজার ৬৫০ জন পাস করে। তবে ইবতেদিয়া পরীক্ষার ফলাফলের কোনো তথ্য দিতে পারেনি কক্সবাজার জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস।
সমাপনী পরীক্ষার ফলাফল বিবরণীতে জানা গেছে, চকরিয়া উপজেলার ৮ হাজার ৪৮৫ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে অংশ নিয়েছে ৭ হাজার ৯৮৪ জন। এতে অনুপস্থিত ছিল ৫০১ জন। এর মধ্যে পাস করেছে ৭ হাজার ৬২৯ জন। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৪৯৭ জন। অকৃতকার্য হয়েছে ৩৫৫ জন। চকরিয়া উপজেলার পাসের হার ৯৫ দশমিক ৫৫ শতাংশ। কক্সবাজার সদর উপজেলার ৬ হাজার ৩৯৫ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে অংশ নিয়েছে ৫ হাজার ৭৮৯ জন। এতে অনুপস্থিত ছিল ৬০৬ জন। এর মধ্যে পাস করেছে ৫ হাজার ৬৯৫ জন। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৪৯৭ জন। অকৃতকার্য হয়েছে ৯৪ জন। কক্সবাজার সদর উপজেলার পাসের হার ৯৮ দশমিক ৩৮ শতাংশ। উখিয়া উপজেলার ৩ হাজার ৩৫৯ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে অংশ নিয়েছে ৩ হাজার ৭০ জন। এতে অনুপস্থিত ছিল ২৮৯ জন। এর মধ্যে পাস করেছে ২ হাজার ৮৮৭ জন। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৭৯ জন। অকৃতকার্য হয়েছে ১৮৩ জন। উখিয়া উপজেলার পাসের হার ৯৪ দশমিক ০৪ শতাংশ। টেকনাফ উপজেলার ২ হাজার ৭৫৪ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে অংশ নিয়েছে ২ হাজার ৩২৮ জন। এতে অনুপস্থিত ছিল ৪২৬ জন। এর মধ্যে পাস করেছে ২ হাজার ৮৯ জন। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৫৬ জন। অকৃতকার্য হয়েছে ২৩৯ জন। টেকনাফ উপজেলার পাশের হার ৮৯ দশমিক ৭৩ শতাংশ। রামু উপজেলার ৪ হাজার ৪৯১ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে অংশ নিয়েছে ৩ হাজার ৮০১ জন। এতে অনুপস্থিত ছিল ৬৯০ জন। এর মধ্যে পাস করেছে ৩ হাজার ৪২৬ জন। জিপিএ-৫ পেয়েছে ১১৯ জন। অকৃতকার্য হয়েছে ৩৭৫ জন। রামু উপজেলার পাসের হার ৯০ দশমিক ১৩ শতাংশ। পেকুয়া উপজেলার ২ হাজার ৪০৬ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে অংশ নিয়েছে ২ হাজার ৯২ জন। এতে অনুপস্থিত ছিল ৩১৪ জন। এর মধ্যে পাস করেছে ১ হাজার ৯০৭ জন। জিপিএ-৫ পেয়েছে ১০০ জন। অকৃতকার্য হয়েছে ১৮৫ জন। পেকুয়া উপজেলার পাসের হার ৯১ দশমিক ১৬ শতাংশ। কুতুবদিয়া উপজেলার ২ হাজার ১১৫ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে সবাই অংশ নিয়েছে। এর মধ্যে পাস করেছে ১ হাজার ৭১৯ জন। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৯৮ জন। অকৃতকার্য হয়েছে ৩৯৬ জন। কুতুবদিয়া উপজেলার পাসের হার ৮১ দশমিক ২৮ শতাংশ। মহেশখালী উপজেলার ৩ হাজার ৭০৭ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে অংশ নিয়েছে ৩ হাজার ৪২০ জন। এতে অনুপস্থিত ছিল ২৮৭ জন। এর মধ্যে পাস করেছে ৩ হাজার ২৯৮  জন। জিপিএ-৫ পেয়েছে ১৪৪ জন। অকৃতকার্য হয়েছে ১২২ জন। মহেশখালী উপজেলার পাসের হার ৯৬ দশমিক ৪৩ শতাংশ।
কক্সবাজার জেলায় জেএসসিতে জেলায় পাশের হার ৮০.৮৬ %
জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) পরীক্ষায় কক্সবাজার জেলার পাশের হার ৮০.৮৬ %। গতকাল বৃহস্পতিবার সারাদেশে একযোগে এ পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশিত হয়।
কক্সবাজার জেলা প্রশাসকের শিক্ষা শাখা থেকে প্রাপ্ত তথ্য মতে, জেএসসিতে কক্সবাজার জেলার মোট ১৪৮ টি প্রতিষ্ঠানের ১৬ হাজার ৫৮৬ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নেয়। এর মধ্যে পাশ করেছে ১৩ হাজার ৪১১ জন, ফেল করেছে ৩ হাজার ১৭৫ জন। তবে ওই শাখায় জেডিসির পরীক্ষার কোন বিবরণী দিতে পারেনি সংশ্লিষ্টতারা।

কক্সবাজার সদর উপজেলা :
কক্সবাজার সদর উপজেলার ২৯ টি প্রতিষ্ঠানের অধিনে মোট ৩ হাজার ৮৪৬ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নেয়। তার মধ্যে পাশ করে ৩ হাজার ৯৪ জন। ফেল করেছে ৭৫২ জন। পাশের হার ৭৯.৪৬%।
বিদ্যালয় কেন্দ্রিয় ফলাফল বিবরণী হল, সাহিত্যিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৮৬ জন। ফেল করেছে ৪১ জন। সৈকত বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৯৪ জন, ফেল করেছে ২১ জন। খুরুশকুল উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ১৭৬ জন, ফেল করেছে ৫৭ জন। আল বয়ানে পাশ করেছে ১২ জন, ফেল করেছে ৪ জন। মোহাম্মদ ইলিয়াস মিয়া চৌধুরী উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ১১১ জন। ফেল করেছে ৫৬ জন। পিএমখালী উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ১১১ জন, ফেল করেছে ৪৩ জন। বাহারছড়া জুনিয়ার উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ২১ জন, ফেল করেছে ২০ জন। খুরুশকুল আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৫৩ জন, ফেল করেছে ৪১ জন। বিমানবন্দর পাবলিক উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৫০ জন, ফেল করেছে ৪৭ জন। আবু কাসেম জুনিয়র উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ১২ জন, ফেল করেছে ১৮ জন। কক্সবাজার সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ২১২ জন, ফেল করেছে ২ জন। বর্ডার গার্ড পাবলিক উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ১৭ জন, ফেল করেছে ১ জন। ভারুয়াখালি উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ১১৩ জন, ফেল করেছে ৩১ জন। ঈদগাঁও জাহানারা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৫৯ জন, ফেল করেছে ১৮ জন। ঈদগাঁও আদর্শ শিক্ষা নিকেতনে পাশ করেছে ১৯৯ জন, ফেল করেছে ৩৪ জন। দ্বীপ শিখা বালিকা একাডেমীতে পাশ করেছে ৭ জন, ফেল করেছে ১৬ জন। খরুলিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ২৩৪ জন, ফেল করেছে ৫৬ জন। কক্সবাজার সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ২৩৯ জন, ফেল করেছে ১ জন। বায়তুশ শরফ জব্বরিয়া একাডেমীতে পাশ করেছে ৩৪১ জন, ফেল করেছে ২৯ জন। কক্সবাজার মডেল হাই স্কুলে পাশ করেছে ১৬২ জন, ফেল করেছে ১০ জন। কক্সবাজার পৌর প্রিপ্যারেটারি উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ১৭০ জন, ফেল করেছে ৬৬ জন। আমেনা খাতুন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৫৭ জন, ফেল করেছে ৩৩ জন। টিএমসি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৬৪ জন, ফেল করেছে ১৩ জন। গোমাতলী উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৫৪ জন, ফেল করেছে ৪ জন। ঈদগাঁও আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ১৫০ জন, ফেল করেছে ২৬ করেছে। চৌফলদন্ডী আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৭০ জন, ফেল করেছে ২৭ জন। পোকখালী উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৬৬ জন, ফেল করেছে ১৫ জন। নাপিতখালী সেকেন্ডারী উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ১১৬ জন, ফেল করেছে ২১ জন।  সাগর মনি জুনিয়ার স্কুলে পাশ করেছে ৩৬ জন, ফেল করেছে ১ জন।

চকরিয়া উপজেলা :
চকরিয়া উপজেলার মোট ৩৭ টি প্রতিষ্ঠানের অধিনে ৪ হাজার ৪০৮ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নেয়। এর মধ্যে পাশ করেছে ৩ হাজার ৬৯৮ জন। ফেল করেছে ৭১০ জন। চকরিয়া উপজেলার পাশের হার ৮৩.৮৯ %।
বিদ্যালয় কেন্দ্রিয় ফলাফল বিবরণী হল, চকরিয়া সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৮৬ জন, ফেল করেছে ১৯ জন। হারবাং ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ১০৮ জন, ফেল করেছে ৩১ জন।  ডুলহাজার উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ১২৪ জন, ফেল করেছে ২১ জন। কৈয়ারবিল উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ১১৬ জন, ফেল করেছে ৪২ জন। শাহওমরাবাদ উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৭৭ জন, ফেল করেছে ৪০ জন। মানিকপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৭৮ জন, ফেল করেছে ৩৬ জন। কাকরা সেন্ডেটারি উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ১১৭ জন, ফেল করেছে ২৯ জন। দীগরপানখালী উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৯৫ জন, ফেল করেছে ২৬ জন।  বিএমএস উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৬৯ জন, ফেল করেছে ৪৩ জন।  পূর্ব বড় ভেওলা জিএনএ মিশনারী উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৮০ জন, ফেল করেছে ১৭ জন।  বহদ্দারকাটা উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ১১৭ জন, ফেল করেছে ১৪ জন।  আল আজাহার উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৭৪ জন, ফেল করেছে ৭ জন।  চকরিয়া পৌর আদর্শ শিক্ষা নিকেতনে পাশ করেছে ৫৪ জন, ফেল করেছে ১৮ জন। চকরিয়া সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৬২ জন, ফেল করেছে ৬ জন।  ইলিশিয়া জামিলা বেগম উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৯৩ জন। ফেল করেছে ১১ জন। পহরচাদা উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ১২৯ জন। ফেল করেছে ১৯ জন। ভেওলা মানিকচর উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ১২০ জন, ফেল করেছে ২৯ জন। বরইতলী উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৯৭ জন, ফেল করেছে ৯ জন। পালাকাটা উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ১৩১ জন, ফেল করেছে ৪৫ জন। চকরিয়া কেন্দ্রিয় উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ২৩০ জন, ফেল করেছে ২৫ জন। কুনাখালী করিমিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৪০ জন, ফেল করেছে ১৮ জন।  শাকুয়া মনি উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৫২ জন, ফেল করেছে ৪ জন। চকরিয়া কোরক বিদ্যাপিঠে পাশ করেছে ২৯৪ জন, ফেল ৩ জন। রশিদ আহমদ চৌধুরী উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ১৮৫ জন, ফেল করেছে ৫৮ জন।  উত্তর বরইতলী উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৯৩ জন, ফেল করেছে ৫ জন। চকরিয়া প্রি-ক্যাডেট গ্রামার স্কুলে পাশ করেছে ৬৯ জন, ফেল করেছে ১ জন। চকরিয়া সেন্ট্রাল পাবলিক জুনিয়ার স্কুলে পাশ করেছে ৩৩ জন, ফেল করেছে ২ জন। কিশলয় আদর্শ শিক্ষা নিকেতনে পাশ করেছে ১৬৫জন, ফেল করেছে ১৯ জন। খুটাখালি উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৭১ জন, ফেল করেছে ৬ জন। মেমোরিয়াল খ্রিষ্টান উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৯৪ জন, ফেল করেছে ১ জন। ডুলহাজার জুনিয়ার বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ২৯ জন, ফেল করেছে ১০ জন। কিশলয় আদর্শ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ১০৮ জন, ফেল করেছে ৭ জন।  মালুমঘাট আইডিয়াল উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৬২ জন, ফেল করেছে ৬ জন।  ঢেমুশিয়া জিন্নাত আলী চৌধুরী উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৭৯ জন, ফেল করেছে ১৭ জন। বদরখালী কোলনীজেশন উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৭৪ জন, ফেল করেছে ২২ জন। দরবেশকাটা উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৬৫ জন, ফেল করেছে ১২ জন। আরকে নুরুল আমিন চৌধুরী উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৮৮ জন, ফেল করেছে ৩২ জন।

পেকুয়া উপজেলা :
পেকুয়া উপজেলার মোট ১০ টি প্রতিষ্ঠানের অধিনে ১ হাজার ২৪২ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নেয়। এর মধ্যে পাশ করেছে ৯৬৭ জন। ফেল করেছে ২৭৫ জন। পেকুয়া উপজেলার পাশের হার ৭৭.৮৬%।

বিদ্যালয় কেন্দ্রিয় ফলাফল বিবরণী হল, মেহেরনামা উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৫৮ জন, ফেল করেছে ২৩ জন।  শীলখালী উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ১৬২ জন, ফেল করেছে ৩৯ জন। টইট্যং উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৫২ জন, ফেল করেছে ২৮ জন। হোসনে আরা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৩৬ জন, ফেল করেছে ৪৫ জন।  পেকুয়া বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৭১ জন, ফেল করেছে ৪৯ জন। বারবাকিয়া আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ১০৩ জন, ফেল করেছে ৩৩ জন। পেকুয়া জেএমসি ইনষ্ট্রিটিউটে পাশ করেছে ২৬৭ জন, ফেল করেছে ৩২ জন। মাগনামা উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৭৫ জন, ফেল করেছে ১৮ জন।  রাজাখালী ফয়েজুন নেছা উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৬৭ জন, ফেল করেছে ১ জন।  রাজাখালী আয়ারআলী খান উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৭৬ জন, ফেল করেছে ৭ জন।

মহেশখালী উপজেলা :
মহেশখালী উপজেলার মোট ২১ টি প্রতিষ্ঠানের অধিনে ১ হাজার ৮০৭ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নেয়। এর মধ্যে পাশ করেছে ১ হাজার ৪৯২ জন। ফেল করেছে ৩১৫ জন। মহেশখালী উপজেলার পাশের হার ৮২.৫৭%।
বিদ্যালয় কেন্দ্রিয় ফলাফল বিবরণী হল, মহেশখালী আইল্যান্ড উচ্চ বিদ্যালয়ে  পাশ করেছে ১৪১ জন, ফেল ৪ জন।  কুতুবজোম আইডিয়াল উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৯১ জন, ফেল করেছে ৩৭ জন।  বড় মহেশখালী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৭৩ জন, ফেল করেছে ৭ জন।  মহেশখালী আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ২৩০ জন, ফেল করেছে ১৮ জন। মহেশখালী সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৬৫ জন, ফেল করেছে ১ জন। পানিরছড়া আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ে ৬৮ জন শিক্ষার্থীর সকলেই পাশ করেছে।  কুতুবজোম অপ-শোর উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৫৯ জন, ফেল করেছে ২১ জন। ছোট্ট মহেশখালী মডেল জুনিয়ার স্কুলে পাশ করেছে ১০ জন। ফেল করেছে ১৩ জন।  আবদুল মাবুদ চৌধুরী উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ২০ জন, ফেল করেছে ৮ জন। হোয়ানক বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ২৯ জন, ফেল করেছে ১২ জন। ইউনুচখালী নাসির উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৯৬ জন, ফেল করেছে ১৯ জন। হোয়ানক বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ১০৩ জন, ফেল করেছে ৩০ জন। কালামারছড়া উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ১০৯ জন, ফেল করেছে ৪৭ জন। শাপলাপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৬০ জন, ফেল করেছে ২৪ জন। উত্তর নলবিলা জেআর সেকেন্ডটারী উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৫৪ জন, ফেল করেছে ৭ জন। চনখোলাপাড়া জুনিয়ার স্কুলে পাশ করেছে ১৩ জন, ফেল করেছে ১ জন। হোয়ানক জুনিয়ার আদর্শ বিদ্যাপিঠে পাশ করেছে ৬ জন, ফেল করেছে ১৭ জন। জেএমঘাট মডেল জুনিয়ার উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ১৩ জন, ফেল করেছে ২ জন। মাতারবাড়ি উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ১৭১ জন, ফেল করেছে ২৯ জন। ধলঘাটা আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৪৮ জন, ফেল করেছে ১৬ জন। মাতারবাড়ি আদর্শ পাবলিক উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৩১ জন, ফেল করেছে ২ জন।

উখিয়া উপজেলা :
উখিয়া উপজেলার মোট ১৬ টি প্রতিষ্ঠানের অধিনে ১ হাজার ৮৫৮ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নেয়। এর মধ্যে পাশ করেছে ১ হাজার ৫৩২ জন। ফেল করেছে ৩২৬ জন। উখিয়া উপজেলার পাশের হার ৮২.৪৫%।
বিদ্যালয় কেন্দ্রিয় ফলাফল বিবরণী হল, সোনারপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ১২৫ জন, ফেল করেছে ৪১ জন। কুতুপালং উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৯৭ জন, ফেল করেছে ২০ জন, উখিয়া বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ২৮ জন, ফেল করেছে ২৭ জন। পালং আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ২২৯ জন। ফেল করেছে ৩৫ জন। উখিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ১৯৬ জন, ফেল করেছে ২৯ জন। জালিয়াপালং উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৩০ জন, ফেল করেছে ৭ জন।  আবুকাসেম নুর জাহান চৌধুরী উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ১১২ জন, ফেল করেছে ৭ জন।  ঘুমধুম উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৫২ জন, ফেল করেছে ১৯ জন,  বালুখালী কাসেমিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৮২ জন, ফেল করেছে ২৯ জন। পালংখালী উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ১১৪ জন। ফেল করেছে ২৮ জন। থাইংখালী উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৬৫ জন, ফেল করেছে ২৭ জন। মরিচ্যা পালং উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ১৫৭ জন, ফেল করেছে ৪১ জন। ভালুকিয়া পালং উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ১৪৮ জন, ফেল করেছে ৯ জন। রুমাপালং জুনিয়ার উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ১৪ জন, ফেল করেছে ৫ জন। মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৭৬ জন, ফেল করেছে ২ জন।  হিলটপ জুনিয়ার বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ৭ জন সকলেই পাশ করেছে।

রামু উপজেলা :
রামু উপজেলার মোট ১২টি প্রতিষ্ঠানের অধিনে ১ হাজার ৫০৭ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নেয়। এর মধ্যে পাশ করেছে ১ হাজার ১৬৩ জন। ফেল করেছে ৩৪৪ জন। রামু উপজেলার পাশের হার ৭৭.১৭%।
বিদ্যালয় কেন্দ্রিয় ফলাফল বিবরণী হল, রামু বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ১৭২ জন, ফেল করেছে ৫৫ জন। আল ফজল আম্বিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ১২৬ জন, ফেল করেছে ৩৩জন।  কাউঘোপ হাকিম রহিমা উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৭৬ জন, ফেল করেছে ৫ জন। ধেছুয়া পালং জুনিয়র উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ১১৬ জন, ফেল করেছে ৩৩ জন। মানসুর আলী সিকদার আইডিয়াল স্কুলে পাশ করেছে ৩৩ জন, ফেল করেছে ৭ জন। জোয়ারিয়ানালা এইচএম সাঁচি উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ১২৫ জন, ফেল করেছে ২৬ জন।  নাদেরুজ্জামান উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ১১২ জন, ফেল করেছে ১৬ জন। জোয়ারিয়ানালা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৬০ জন, ফেল করেছে ১৩ জন। রামু খিজারী আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ১৪৯ জন, ফেল করেছে ৬১ জন। দক্ষিণ মিঠাছড়ি উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৫১ জন, ফেল করেছে ৪৩ জন। আল ফুয়াদ একাডেমীতে পাশ করেছে ৮৮ জন, ফেল করেছে ১২ জন। জারাইলতালী উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৫৫ জন, ফেল করেছে ৪০ জন।

টেকনাফ উপজেলা :
টেকনাফ উপজেলার মোট ১৪ টি প্রতিষ্ঠানের অধিনে ১ হাজার ১০৫ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নেয়। এর মধ্যে পাশ করেছে ৮৮০ জন। ফেল করেছে ২২৫ জন। টেকনাফ উপজেলার পাশের হার ৭৯.৬৪%।
বিদ্যালয় কেন্দ্রিয় ফলাফল বিবরণী হল, টেকনাফ এজাহার বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৩৮ জন, ফেল করেছে ৭ জন। নয়াপাড়া আলহাজ্ব নবী হোসেন উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৩৫ জন, ফেল করেছে ৫ জন। শাহপরীরদ্বীপ বশির আহমদ উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৫৪ জন, ফেল করেছে ৬ জন। লম্বরী মালকাবানু উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৫৯ জন। ফেল করেছে ২৫ জন। হোয়াইক্যং আল আছিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৬৬ জন, ফেল করেছে ৬ জন। টেকনাফ পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ১২৯ জন। ফেল করেছে ১০০ জন। সাবরাং উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৭২ জন, ফেল করেছে ১৫ জন। সেন্টমার্টিন বিএন ইসলামিক উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ১৪ জন। ফেল করেছে ১৯ জন। মারিসবানিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ২০ জন। ফেল করেছে ৫ জন। হ্নীলা উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ১১৮ জন। ফেল করেছে ১১ জন। নয়াবাজার উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ১২৯ জন, ফেল করেছে ১০ জন। শামলাপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৫৫ জন, ফেল করেছে ৫ জন। হ্নীলা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৫৭ জন, ফেল করেছে ১০ জন। কাঞ্চনপাড়া জুনিয়ার উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৩৪ জন, ফেল করেছে ১ জন।

কুতুবদিয়া উপজেলা :
কুতুবদিয়া উপজেলার মোট ৯ টি প্রতিষ্ঠানের অধিনে ৮১৩ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নেয়। এর মধ্যে পাশ করেছে ৫৮৫ জন। ফেল করেছে ২২৮ জন। কুতুবদিয়া উপজেলার পাশের হার ৭১.৯৬%।
বিদ্যালয় কেন্দ্রিয় ফলাফল বিবরণী হল, কুতুবদিয়া আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ১৭৯ জন, ফেল করেছে ৩৬ জন। ধুরুং আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৭৩ জন, ফেল করেছে ৫৫ জন। কুতুবদিয়া সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৫২ জন, ফেল করেছে ৫ জন। কবি জসীম উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৮৬ জন। ফেল করেছে ৯ জন। আলী আকবর ডেইল উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৬০ জন, ফেল করেছে ২৬ জন। সতরউদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ২২ জন, ফেল করেছে ২৩ জন। উত্তরণ বিদ্যা নিকেতনে পাশ করেছে ১৮ জন, ফেল করেছে ২৩ জন। লেমশিখালী উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৬৫ জন, ফেল করেছে ৪ জন। কৈয়ালবিল আইডিয়াল উচ্চ বিদ্যালয়ে পাশ করেছে ৩০ জন, ফেল করেছে ৪৭ জন।

এ এইচ সেলিম উল্লাহ,
ককবাজার
০১৮১৭১২০৬০৬

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Comments are closed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT