টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!
শিরোনাম :
করোনার উপসর্গ দেখা দিলে ‘আইসোলেশনে’ থাকবেন যেভাবে ১২-১৩ এপ্রিল দূরপাল্লার বাস চলবে না : জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী টেকনাফে সরকারি নির্দেশনা অমান্য করে বিকাল ৫.০০ টার পর একাধিক দোকান ও শপিংমল খোলা রাখায় জরিমানা চেয়ারম্যান -মেম্বারদের চলতি মেয়াদ আরও তিন মাস বাড়ছে স্বাস্থ্যসেবা ব্যবস্থাপনায় ৬৪ জেলার দায়িত্বে ৬৪ সচিব মেয়ের বিয়ের যৌতুকের টাকা জোগাড় করতে না পেরে বাবার আত্মহত্যা মিয়ানমারে গুলিতে আরও ১০ জন নিহত যুক্তরাষ্ট্রে বিশেষ স্বীকৃতি পাচ্ছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অপহরণ করে মুক্তিপণ, র‌্যাবের ৪ সদস্য পুলিশের হাতে গ্রেফতার ১৪ এপ্রিল থেকে সারা দেশে সর্বাত্মক লকডাউন

কক্সবাজার জেলায় ৩য় অর্থনৈতিক শুমারী শেষ পর্যায়ে

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : শুক্রবার, ২৬ এপ্রিল, ২০১৩
  • ১০৮ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

মোঃ রেজাউল করিম:

কক্সবাজারে ৩য় অর্থনৈতিক শুমারী ’১৩ এর কার্যক্রম শেষ পর্যায়ে। বাংলাদেশ সরকারের পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর ব্যবস্থাপনায় জেলা ব্যাপী মাঠ পর্যায়ে ১৫ এপ্রিল থেকে এর তথ্য সংগ্রহ কার্যক্রম শুরু হয়। এ লক্ষ্যে বিভিন্ন উপজেলায় প্রশিক্ষণের আয়োজন করা হয় ৩দিন ব্যাপী। ২৬ ও ২৭ এপ্রিল সংগ্রীহিত তথ্যলিপি স্ব স্ব উপজেলা পরিসংখ্যান অফিসে জমাকরণের কথা রয়েছে।
কক্সবাজার সদর উপজেলা পরিসংখ্যান অফিস সূত্র জানায়, অর্থনৈতিক কর্মকান্ডপূর্ণ প্রতিষ্ঠান, অকৃষি খাতের সরকারী,বেসরকারী, স্বায়ত্বসাশিত, আধা স্বায়ত্বসাশিত অর্থনৈতিক প্রতিষ্ঠান সমূহ তথ্য সংগ্রহ ও গণনার আওতায় আনা হয়েছে। মাঠ পর্যায়ে সচিব ও উপ-সচিবের তদারকীতে শুমারী কাজ চলে ১০ দিন ব্যাপী। গ্রামাঞ্চলের বেকার যুবক-যুবতীকে এর গণনা কাজে নিযুক্ত করা হয়েছে। অর্থনৈতিক কর্মকান্ডের ধরণ ও কিভাবে তা সম্পাদিত হয়-তা সংগ্রহের আওতায় আসছে। এতে ২৭টি ক্যাটাগরিতে সর্বমোট ৩৫ ধরণের তথ্য লিপিবদ্ধ করা হচ্ছে।
সদর উপজেলা পরিসংখ্যান কর্মকর্তা মোঃ মুমেন খাঁন জানান, উপজেলায় একজন শুমারী সমন্বয়কারীর নেতৃত্বে জোন ভিত্তিক ৪ জন জোনাল কর্মকর্তা, ৩৫ জন সুপারভাইজার এবং ১৪৬ জন তথ্য সংগ্রহকারী বা গণনাকারী শুমারী কার্যক্রমে নিয়োজিত রয়েছেন। অর্থনৈতিক শুমারীকে সফল করতে নিয়োজিত গণনাকারী, তদারককারী, জোনাল অফিসার ও উপজেলা শুমারী সমন্বয়কারীদের হাতে-কলমে প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে। এদেরকে গাইড করার জন্য জেলা পর্যায়ে রয়েছেন একজন জেলা শুমারী সমন্বয়কারী। তথ্য সংগ্রহের সুবিধার্থে ইউনিট ভিত্তিক এ শুমারী অনুষ্টি হয়।
বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো কর্তৃক নির্ধারিত শুমারী ফর্দে যে সব তথ্য চাওয়া হচ্ছে তার মধ্যে মহল্লার নাম, ইউনিটের নাম ও ঠিকানা, ইউনিট প্রধান, ইউনিটের প্রকার, এর প্রধান অর্থনৈতিক কর্মকান্ডের প্রকার, অর্থনৈতিক কর্মকান্ডের বিস্তারিত বিবরণ ও শিল্প কোড, ইউনিটের প্রধান প্রধান উৎপাদিত দ্রবাদি, মেরামত/বিক্র/সেবা প্রদান কারী ইউনিটের কাজের বিবরণ, ইউনিটের আইনগত মালিকানা, ইউনিটে প্রবাসী বাংলাদেশীদের বিনিয়োগ অবস্থা, ইউনিটটি নিবন্ধিত কিনা, কোন সালে আরম্ভ হয়েছে, ইউনিটের বিক্রয় পদ্ধতি, হিসাব ব্যবস্থাপনা, বেতন বা মজুরী, বর্তমান স্থায়ী মূলধন, নিয়োজিত জনবলের প্রকার ও সংখ্যা, উৎপাদনে যন্ত্রের ব্যবহার, দ্রব্যের বাজারজাতকরণ, জ্বালানী ব্যবহার, কম্পিউটার প্রযুক্তি ব্যবহার, অগ্নি নির্বাপণ ব্যবস্থা, নিরাপদ ও স্বাস্থ্যসম্মত বর্জ অপসারণ ব্যবস্থা, শৌচাগারের ব্যবস্থা, টিআইএন আছে কিনা, প্রতিষ্ঠানটির মূল্য সংজোযন কর নিবন্ধিত কিনা, কোন সালে মূসক বা ভ্যাট নিবন্ধিত করা হয়েছে ইত্যাদি।

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Comments are closed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT