টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!
শিরোনাম :
লেদা জাহাঙ্গীর সওদাগরের প্রতিবাদ ফোর্বসের প্রভাবশালী নারীর তালিকায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাহারছরা ইউনিয়নের উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে নৌকা প্রতীকের মাও. আজিজকে পুণরায় জয়যুক্ত করুন  …বদি আবরার হত্যায় ২০ আসামির মৃত্যুদণ্ড টেকনাফ পৌরসভা ও বাহারছরা ইউপি নির্বাচনে প্রতিদন্ধি প্রার্থীদের মাঝে প্রতীক বরাদ্দ সম্পন্ন সেন্টমার্টিনদ্বীপে আটকা পর্যটকরা ফিরছেন পল্লানপাড়ায় তথ্যআপার উঠান বৈঠক ফেসবুকের বিরুদ্ধে রোহিঙ্গাদের ১৫০ বিলিয়ন ডলারের মামলা ‘আল্লাহ ছাড় দেন, ছেড়ে দেন না’ স্বেচ্ছায় সেন্টমার্টিনদ্বীপে আটকা পর্যটকদের হোটেল ভাড়া অর্ধেক কমিয়ে মাইকিং

কক্সবাজারে ইমাম মুসলিম ইসলামিক সেন্টার আধুনিক শিক্ষার সঙ্গে অপূর্ব সমন্বয়

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : শুক্রবার, ২ অক্টোবর, ২০১৫
  • ৩৯৯ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

গোলাম আজম খান = শিক্ষায় পিছিয়ে পড়া জনপদ পর্যটন নগরী কক্সবাজারে জনগণের দীর্ঘদিনের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে প্রতিষ্টিত ইমাম মুসলিম (রহ.) ইসলামিক সেন্টার ধর্মীয় শিক্ষার পাশাপাশি আধুনিক শিক্ষা ও প্রযুক্তি শিক্ষার অপূর্ব সমন্বয় সাধনের মাধ্যমে এগিয়ে চলছে। সাগর সৈকতের সবোর্চ্চ বিদ্যাপিঠ কক্সবাজার সরকারী কলেজের পিছনে সু-উচ্চ ইসলামী ঐতিহ্যেও মিনারটি জানান দিচ্ছে দৃষ্টিনন্দন ইসলামিক সেন্টারের অস্তিত। এটিই কক্সবাজারে প্রথম ২০০০ সালে প্রতিষ্টিত এই অনন্য শিক্ষা প্রতিষ্টানটি পর্যটন জেলা কক্সবাজারের ইসলামী ও আধুনিক ঞান বিজ্ঞানের সমন্বয় সাধন করে কাটিয়ে দিয়েছে সু-দীর্ঘ দেড় যুগ। দেশ প্রেমিক সু-নাগরিক তৈরীতে প্রতিষ্টানটির এই শিক্ষা সেবায় কক্সবাজারের প্রায় ২৫ লাখ জনগোষ্টির মাঝে আশার সঞ্চার হয়েছে। সরেজমিন ঘুরে এসে জানা যায়, তথ্য প্রযুক্তির মাধ্যমে শিক্ষা সম্প্রাসরন, মান উন্নয়ন এবং যোগ্য সম্পদ গড়ে তোলার লক্ষ্যে কার্যকর উদ্যোগ গ্রহন করেছে সেন্টার কর্তৃপক্ষ। ইসলামী আধুনিক শিক্ষার সমন্বয়ে উচ্চশিক্ষা প্রদানের লক্ষ্যে চড়াই-উতরাই পেরিয়ে বর্তমানে এই সেন্টারে নুরানী একাডেমী,হেফজ বিভাগ, এবতেদায়ী শাখা, নি¤œ মাধ্যমিক, মাধ্যমিক ও আলিম কওমি মাদ্রাসার জালালাইন ও মেশকাত শরীফ সমমান ও বালক বালিকা ওমাইর ইয়াতীমখানায় ৭ শতাধিক ছাত্র-ছাত্রী অধ্যায়নরত আছে। সকল স্তরে ৫৩ জন শিক্ষক-শিক্ষিকা এবং ৩০ জন নিবেদিত প্রাণ কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়ে পরিচালিত হচ্ছে এই কুরআন-সুন্নাহর আলোকে আলোকিত নাগরিক তৈরীর ক্ষেত্রে এ প্রতিষ্টান প্রযুক্তির চরম উৎকর্ষের মাধ্যমে যুগের চ্যালেঞ মোকাবেলা করে এগিয়ে যাচ্ছে। ৫, একর আয়তনে ইমাম মুসলিম (রহ.) ইসলামিক সেন্টারে দৃষ্টি নান্দনিক ইমাম বোখারী (রহ.) জামে মসজিদ,ওমাইর এতিমখানাও তাহফীজুল কুরআন ইনিষ্টিাটিউট ভবন,ফাতেমাতুয যাহরা বালিকা মাদরাসা,ইউনুছিয়া নুরানী একাডেমী বিভাগ, আবু হুরায়রা রা. ইবতেদায়ী মাদরাসা, আল্লামা আবুল হাসান আলী নদভী রহ. নি¤œ মাধ্যমিক মাদরাসা, শাহ ওলিউল্লাহ রহ. উচ্চ মাধ্যমিক মাদরাসা, হিফজ বিভাগ, তা’হীলী (হাফিযুল কুরআনদেও জন্য বিশেষ বিভাগ) ওমাইর এতিম খানা,সাংস্কৃতিক কর্মকান্তের জন্য গঠিত ‘আন-নাদী আস-সাক্বাফী’ নামক সংঘ,কারিগরী প্রশিক্ষণ কেন্দ্রসহ আবাসিক হল রয়েছে। বর্তমানে প্রতিষ্টাতা পরিচালক হিসাবে দায়িত্ব পালন করছেন মাওলানা হাফেজ ছালাহুল ইসলাম।
শিক্ষায় পিছিয়ে পড়া পর্যটন নগরীর প্রায় ২৫ লাখ জনগোষ্টির দাবি ছিল দীর্ঘদিনের আন্তর্জাতিকমানের ইসলামী দ্বীনি প্রতিষ্টান স্থাপনের । স্বাধীনতার ১৭ বছর পর দেশী-বিদেশী সাহায্য সহযোগিতায় হাফেজ ছালাহুল ইসলাম ইমাম মুসলিম (রহ.) ইসলামিক সেন্টার প্রতিষ্ঠা করে দেশে ইসলামি জ্ঞান-বিজ্ঞানচর্চা বাতাবরণ তৈরিতে সহায়তা করেন।
হাফেজ ছালাহুল ইসলাম বলেন,মিথ্যা অপবাদ, হাজারো সীমাবদ্ধতা ও প্রতিকুলতা ডিঙ্গিয়ে মান সম্পন্ন আধুনিক শিক্ষার সাথে ঞানগত দ্বীনী শিক্ষা বিস্তারের অঙ্গিকার নিয়ে কক্সবাজারবাসীর প্রিয় প্রতিষ্টান ইমাম মুসলিম(রহ.) ইসলামিক সেন্টার গৌরবের পথচলা অব্যাহত রেখেছে। তিনি আরো জানান, ওহীভিত্তিক ঞান-বিঙ্গান ও কুরআন সুন্নাহ নি:সৃত অনুকরনীয় আদর্শেও যোগ্য নাগরিক তৈলীতে আমার নেতৃত্বে প্রায় শতাধিক শিক্ষক-শিক্ষিকা সেন্টারে সু-শিক্ষা দিয়ে যাচ্ছে। এছাড়া তথ্য-প্রযুক্তির সর্বোচ্চ ব্যবহারে এই প্রতিষ্টানটি ধারণ করেছে এক আধুনিক রূপ।
এ বিষয়ে সেন্টারে পরিচালনা পর্ষদের উপদেষ্টা ও কক্সবাজার জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি এডভোকেট এ,কে আহমদ হোসাইন বলেন, প্রতিষ্টানটি লক্ষ্য-উদ্দেশ্য বাস্তবায়নে ইসলামী শিক্ষা এবং প্রযুক্তির সঙ্গে তাল মিলিয়ে আধুনিক শিক্ষার সমন্বয় সাধন করা হয়েছে। এছাড়া সেলাইয়ের মতো কারিগরি প্রশিক্ষনের মাধ্যমে ছাত্রীদের যুগ-চাহিদার উপযোগী হিসাবে গড়ে তোলা হচ্ছে।
সেন্টারের ব্যাপারে জানতে চাইলে স্থানীয় ঝিলংজা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান গিয়াস উদ্দিন জিকু জানান, ঝিলংজার দক্ষিণ মুহুরী পাড়ায় দেড় দশক আগে স্থাপিত জেলার অন্যতম দ্বীনি এই শিক্ষা প্রতিষ্টানটি অসহায় ও হতদরিদ্র ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে গুনগতমান সম্পন্ন সুযোগযোগী শিক্ষা সেবা দিয়ে যাচ্ছে। প্রতিবছর প্রাথমিক ও মাধ্যমিক পরীক্ষার পাশাপাশি কু-কারিকুলামের সেন্টারের মেধাবী ছাত্রছাত্রীদের পারফরম্যান্স ছিল চোখে পড়ার মতো। এ মাদরাসার অবকাঠামো, ভবিষ্যত পরিকল্পনা দেখে আমার মনে হয়েছে এ মাদরাসা আধুনিক দ্বীনি প্রতিষ্ঠান হিসাবে মুসলিম জাতির জন্য একটি মডেলে পরিণত হবে।
অত্র মাদরাসার উপদেষ্টা পরিষদের সভাপতি চট্রগামের জামেয়া দারুল মা’আরিফ আল ইসলামিয়ার প্রতিষ্টা পরিচালক বলেছেন লেখাপড়ার জন্য আধুনিক সকল সুযোগ-সুবিধা সমৃদ্ধ মাদ্রাসার নিরিবিলি প্রাকৃতিক মনোরম পরিবেশ সহজেই যে কাউকে আকৃষ্ট করবে। আর এরকম পর্যাপ্ত সুযোগ-সুবিধা পেলে মাদ্রাসায় অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীরাও আর কোন ক্ষেত্রে পিছিয়ে থাকবে না। বরং ধর্মীয় শিক্ষার সাথে আধুনিক বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি শিক্ষায় সুশিক্ষিত হয়ে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে পারবে। অন্যদের সাথে প্রতিযোগিতা করে কর্মক্ষেত্রে নিজেদের মেধা ও মননশীলতার স্বাক্ষর রাখতে পারবে। আর বর্তমান তথ্য ও প্রযুক্তির এ যুগে অন্যদের সাথে প্রতিযোগিতায় টিকে থাকতে হলে এবং দক্ষ আলেম হয়ে ইসলামের শাশ্বত শান্তির বাণী সকলের নিকট পৌঁছে দিতে হলে মাদ্রাসায় ধর্মীয় শিক্ষার সাথে আধুনিক বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি শিক্ষার সমম্বয় অপরিহার্য হয়ে পড়েছে। যার কোন বিকল্প নেই।

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT