হটলাইন

01787-652629

E-mail: teknafnews@gmail.com

সর্বশেষ সংবাদ

টেকনাফপ্রচ্ছদ

উখিয়া-টেকনাফে মিয়ানমারের সিম ব্যবহার করে ইন্টারনেট চালাচ্ছে রোহিঙ্গারা : ২১০টি সিম উদ্ধার

নুরুল হোসাইন,টেকনাফ:
কক্সবাজারের টেকনাফ স্থলবন্দর দিয়ে পাচারকালে মিয়ানমারের ২১০টি সিমসহ তিনজন রোহিঙ্গা নাগরিককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।
গ্রেপ্তার তিনজন হলেন- ট্রলারের মাঝি (চালক)মিয়ানমার মংডু এলাকার নুরুল আলমের ছেলে নুর হাসান(২৪), টেকনাফের নয়াপাড়া মোচনী রোহিঙ্গা শরণাথী শিবিরের মোহাম্মদ হোসনের ছেলে মো. সলিম (২৬) ও উখিয়ার জামতলী রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরের মোহাম্মদ শরীফের ছেলে মো. রবি আলম (১৯)। গতকাল মঙ্গলবার বিকেল পৌনে ছয়টার দিকে টেকনাফ স্থলবন্দরের প্রধান ফটকের নিরাপত্তার দায়িত্বে নিয়োজিত আনসার বাহিনীর সদস্যদের সহযোগিতায় পুলিশ তাদেরকে গ্রেপ্তার করা হয়।
পুলিশ ও স্থানীয় সুত্র মতে, টেকনাফ স্থলবন্দরে মিয়ানমারে থেকে আসা ট্রলারে রোহিঙ্গা নাগরিকদের ব্যবহারের জন্য সিম গুলো আনা হয়েছিল। তারই সূত্র, ধরে মঙ্গলবার মিয়ানমার ট্রলার মাঝিসহ তিনজন রোহিঙ্গা নাগরিকেরা সিম বের হওয়ার পথে বন্দরের নিরাপত্তা কমীরা আটক করে।পরে থানা পুলিশের খবর দিলে উপপরিদশক(এসআই)সাব্বির আহমদের নেতৃত্বে এক দল পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে ওই তিনজনকে আটক করেন। এসময় তাদের কাছে তল্লাশি চালিয়ে ২১০টি মিয়ানমারেরর এমপিটি নামে সিমগুলো উদ্ধার করা হয়।
গত ৫ আগস্ট মহাসমাবেশ করে রোহিঙ্গারা। সেই সমাবেশে রোহিঙ্গাদের হাতে মোবাইল দেখা যায়। এরপর থেকে নড়েচড়ে বসে সরকার। ইনসেটে মিয়ানমারের এমপিটি সিম। মিয়ানমারের সিমে ইন্টারনেট চালাচ্ছে রোহিঙ্গারা ।
রোহিঙ্গা ক্যাম্পে মোবাইল নেটওয়ার্ক বন্ধ রাখা হলেও মিয়ানমারের সিম ব্যবহার করে ইন্টারনেট চালাচ্ছে রোহিঙ্গারা। এদিকে থ্রিজি-ফোরজি সেবা বন্ধ থাকায় তথ্য আদান প্রদানে উখিয়া-টেকনাফবাসী পড়েছে বিপাকে। শুধু তাই নয়, বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি অফিসেও দেখা দিয়েছে ভোগান্তি।
রোহিঙ্গা ক্যাম্পে কর্মরত এনজিও কর্মী মো: আলী বলেন ,টেকনাফে ১৫ টি ক্যাম্পে অন্তত ২০ টি মোবাইল টাওয়ারের সুবিধা নিয়ে নিরবিচ্ছিন্ন ভয়েস কলে কথা বলতো রোহিঙ্গারা। এখন থ্রিজি-ফোরজি সুবিধা সংকীর্ণ করায় মিয়ানমারের এমপিটি কোম্পানির সিম দিয়ে ইন্টারনেট সুবিধা ভোগ করছে তারা। ক্যাম্পগুলোতে মিয়ানমারের এমপিটি সিম চোরাইপথে এনে বাজারজাত করছে রোহিঙ্গারাই। আশ্রিত রোহিঙ্গারা এতসব সুবিধা ভোগ করলেও স্থানীয় লোকজনকে পোহাতে হচ্ছে চরম ভোগান্তি ও বিড়ম্বনা।
হৃীলা কমিউনিটি পুলিশিংয়ের সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম বলেন,ইন্টারনেট সুবিধা দূরে থাকে, মোবাইলে আগের মতো কথাও বলা যাচ্ছে না। নেটওয়ার্ক সমস্যার সঙ্গে কল ড্রপের বিড়ম্বনাও বেড়েছে।
হোয়াইক্যং কমিউনিটি পুলিশিংয়ের সভাপতি হারুন রশিদ সিকদার বলেন,গত কয়েক দিন ধরে আমার এলাকায় কোনো ধরনের থ্রিজি-ফোরজি নেটওয়ার্ক নেই। এ কারণে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য-উপাত্ত থেকে বঞ্চিত হওয়ার পাশাপাশি নানা দুর্ভোগে পড়েছেন স্থানীয়রা। ১ সেপ্টেম্বর থেকে উখিয়া-টেকনাফ উপজেলায় সব ধরনের মোবাইল সিমসহ নতুন সংযোগ প্রদানও বন্ধ রয়েছে। রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলো থেকে সব কোম্পানির মোবাইল টাওয়ার দ্রুত অপসারণ করে রোহিঙ্গাদের মোবাইল ব্যবহারে কঠোর হতে মত দেন তিনি।
টেকনাফ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি প্রদীপ কুমার দাশ জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সন্ধ্যায় টেকনাফ স্থল বন্দরের সামনে অভিযান চালিয়ে ২১০ টি মিয়ানমারের সিম কার্ডসহ ৩ রোহিঙ্গা যুবককে গ্রেপ্তার করা হয়। তিনি আরো বলেন স্বীকার উক্তিতে তারা দীর্ঘদিন ধরে চোরাই পথে কাজ করে যাচ্ছে। তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।
তিনি আরো বলেন, টেকনাফ ও উখিয়া উপজেলায় রোহিঙ্গা শরণাথী শিবিরে নানান ধরনের অপরাধ কর্মকান্ড রোধে বাংলাদেশ সরকার সংশ্লিষ্ট এলাকার মুঠোফোনে নের্টওয়াক থ্রি-জি ও ফোর জি বন্ধ করার পাশপাশি নেটওয়াকও কমিয়ে দেওয়া হয়েছে।তবে রোহিঙ্গারা নিজেদের মাঝে যোগাযোগ সক্রিয় রাখতে মিয়ানমারের সিম এনে এখানে ব্যবহার করে যাচ্ছেন বলে অভিযোগ ছিল।

Leave a Response

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.