টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!
শিরোনাম :
শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা সবচেয়ে বড় ভুল : ডা. জাফরুল্লাহ মাদক কারবারি, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের তালিকাভুক্ত সাংবাদিক আব্দুর রহমানের উদ্দেশ্যে কিছু কথা! ভারী বৃষ্টির সতর্কতা, ভূমিধসের শঙ্কা মোট জনসংখ্যার চেয়েও ১ কোটি বেশি জন্ম নিবন্ধন! বাড়তি নিবন্ধনকারীরা কারা?  বাহারছড়া শামলাপুর নয়াপাড়া গ্রামের “হাইসাওয়া” প্রকল্পের মাধ্যমে সচেতনতামূলক লিফলেট বিতরণ ও বার্তা প্রদান প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া ঘর উদ্বোধন উপলক্ষে টেকনাফে ইউএনও’র প্রেস ব্রিফ্রিং টেকনাফের ফাহাদ অস্ট্রেলিয়ায় গ্র্যাজুয়েট ডিগ্রী সম্পন্ন করেছে নিখোঁজের ৮ দিন পর বাসায় ফিরলেন ত্ব-হা মিয়ানমারে পিডিএফ-সেনাবাহিনী ব্যাপক সংঘর্ষ ২শ’ বাড়ি সম্পূর্ণ ধ্বংস বিল গেটসের মেয়ের জামাই কে এই মুসলিম তরুণ নাসের

ঈদগাঁও সাংগঠনিক উপজেলা বিএনপির সম্মেলন ও কাউন্সিলে কাজল

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : সোমবার, ১২ অক্টোবর, ২০১৫
  • ১৯৭ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

বার্তা পরিবেশক= বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও কক্সবাজার সদর-রামু আসনের সাবেক সংসদ সদস্য লুৎফুর রহমান কাজল বলেছেন, গণতন্ত্র থাকলে নির্বাচনের মাধ্যমে ক্ষমতার পরিবর্তন হয়। আর গণতন্ত্র না থাকলে রক্তের মাধ্যমে সরকারের পতন হয়। তবে এমন পরিস্থিতি আমরা চাই না।
তিনি মনে করেন, ‘আমাদের হয়তো আরও সাড়ে তিন বছর নির্বাচনের জন্য অপেক্ষা করতে হবে। নির্বাচন হলেই আমরা নিরংকুশ ভাবে ফিরে আসবো। কিন্তু আওয়ামী লীগের বিদায় হলে তারা আর কখনোই ফিরে আসতে পারবে না।’
তিনি সোমবার বিকালে ঈদগাঁও স্টেশনে এক কমিউনিটি সেন্টারে ঈদগাঁও সাংগঠনিক উপজেলা বিএনপির সম্মেলন ও কাউন্সিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব মন্তব্য করেন।
তিনি বলেন, অনেকেই বলেন বিএনপি বেকায়দায় আছে। আসলে এখন সবচেয়ে বেকায়দায় আছে আওয়ামী লীগ। তারা মগঢালে উঠে বসে আছে। এখন নামতেও পারছে না, আবার থাকতেও পারছে না!
সাবেক এই সাংসদ দাবি করেন, যারা আওয়ামী লীগ করেন তাদের ৫০ ভাগেরই কোন কাজ নেই। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় না আসলে এসকল নেতা-কর্মীরা দুর্ভিক্ষ হয়ে মারা যেতেন।
তাঁর মতে, বিএনপি রাজনীতি করে জনগণের জন্য। শহীদ জিয়া ক্ষমতায় আসার পর গণতন্ত্র এসেছিল, এসেছিল সংবাদপত্রের স্বাধীনতা।
তিনি তাঁর বক্তব্যে ঈদগাঁও সাংগঠনিক উপজেলা বিএনপির ৫ জন উপদেষ্টার নাম ঘোষণা করেন। এই উপদেষ্টারা হলেন ঈদগাঁও সাংগঠনিক উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি এম মমতাজুল ইসলাম, অধ্যাপক আবু তাহের, সাবেক আহবায়ক এডভোকেট শাহাব উদ্দিন, ফরিদুল আলম ও জালালাবাদের মমতাজ আহমদ মেম্বার।
লুৎফুর রহমান কাজল কাউন্সিলরদের মতামতের ভিত্তিতে নতুন কমিটি নেতা নির্বাচনের জন্য এই ৫ উপদেষ্টার উপর দায়িত্ব দেন।
এই সম্মেলন ও কাউন্সিল উদ্বোধন করেন জেলা বিএনপির সভাপতি ও জাতীয় সংসদের সাবেক হুইপ শাহজাহান চৌধুরী।
শাহজাহান চৌধুরী তাঁর বক্তব্যে বলেন, বর্তমান সরকার এমন ফ্যাসিবাদী হয়ে গেছে যে গণতন্ত্রের লেবাস পর্যন্ত তারা রাখেনি। গণতন্ত্র ও উন্নয়ন তারা কবর দিয়ে দিয়েছে।
তাঁর মতে, দেশে এখন ইয়াজুজ-মাজুজের ক্ষমতা চলছে। তারা তো রক্তচোষা, তারা যা পাবে তাই খাবে।
শাহজাহান চৌধুরী মনে করেন, দেশে এখন কোন মানুষ মারা গেলে সেখানেও বিএনপির নাম জড়ানো হয়। ‘বিকাশ’ এমপিরা এখন জনগণের কথা চিন্তা করে না। তারা কেবল খাওয়ার তালে আছে।
বর্তমান সরকার নির্বাচন দিয়ে তাদের উন্নয়ন ও ভালোবাসার পরীক্ষা নিতে পারেন বলেও মন্তব্য করেন। তাঁর মতে, ১০০ বছর পরে নির্বাচন হলেও বিএনপিই ক্ষমতায় আসবে।
ঈদগাঁও সাংগঠনিক উপজেলা বিএনপির আহবায়ক শহিদুর রহমান শহিদের সভাপতিত্বে অনুষ্টিত এই সম্মেলন সঞ্চালনা ও বক্তব্য রাখেন সদস্য সচিব শওকত আলম এবং তিন যুগ্ম আহবায়ক মনজুর আলম, মোহাম্মদ শফি ও সেলিম মাহমুদ।
এছাড়াও সম্মেলনে বিশেষ অতিথি হয়ে উপস্থিত ছিলেন কক্সবাজার পৌর বিএনপির সভাপতি রফিকুল হুদা চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক রাশেদ মোহাম্মদ আলী, জেলা বিএনপির দপ্তর সম্পাদক ইউসুফ বদরী, সদর উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি এম মমতাজুল ইসলাম, বিএনপি নেতা অধ্যাপক আবু তাহের, রামু উপজেলা বিএনপির সভাপতি এসএম ফেরদৌস, সাধারণ সম্পাদক গোলাম মওলা, সদর উপজেলা বিএনপির আহবায়ক আবদুল মাবুদ ও সদস্য সচিব গিয়াস উদ্দিন জিকু চেয়ারম্যান, সদর উপজেলা শাখার সিনিয়র সহ-সভাপতি মুজিবুল হক মিয়াজী। এছাড়াও আন্তর্জাতিক সংগঠন ডেমোক্রেসী ইন্টারন্যাশনালের আঞ্চলিক কর্মসূচি কর্মকর্তা সদরুল আমিনও বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।
আরও বক্তব্য রাখেন ঈদগাঁও সাংগঠনিক মহিলা দলের আহবায়ক পারভিন আকতার, ঈদগাঁও ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি আবদুস সালাম, ইসলামাবাদ ইউনিয়ন সভাপতি সানা উল্লাহ, জালালাবাদ ইউনিয়ন সভাপতি বজল আহমদ, পোকখালী ইউনিয়ন সভাপতি আকতার কামাল প্রমূখ।
ঈদগাঁও সাংগঠনিক উপজেলা বিএনপির সদস্য সচিব শওকত আলম জানান, এবারের সম্মেলন ও কাউন্সিলে ঈদগাঁও সাংগঠনিক উপজেলাভূক্ত ৫ ইউনিয়নের ৩৫৫ জন কাউন্সিলর অংশ নেন। এতে মহিলা কাউন্সিলর ছিলেন ৭৫ জন।
তিনি জানান, ১০১ সদস্য বিশিষ্ট নতুন কমিটিতে ১৫ শতাংশ নারী নেত্রী ও কর্মী রাখা হবে।
উল্লেখ্য, এবারও ডেমোক্রেসী ইন্টারন্যাশনাল বিএনপির এই সম্মেলন ও কাউন্সিলে কারিগরী সহায়তা দিয়েছে।

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT