টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!
শিরোনাম :
মডেল মসজিদগুলোয় যোগ্য আলেম নিয়োগের পরামর্শ র্যাবের জালে ধরা পড়লেন টেকনাফ সাংবাদিক ফোরামের সদস্য ও ইয়াবা কারবারি বিপুল পরিমাণ টাকা ও ইয়াবা উদ্ধার রোহিঙ্গাদের তথ্য মিয়ানমারে পাচার করছে জাতিসংঘ: এইচআরডব্লিউ প্রশাসনে তিন লাখ ৮০ হাজার পদ শূন্য গোদারবিলের জামালিদা ও নাইট্যংপাড়ার ফয়েজ ইয়াবা ও নগদ টাকাসহ গ্রেপ্তার পরীমনির কান্না অথবা নিখোঁজ ইসলামি বক্তা এসএসসি-এইচএসসির পরীক্ষার সিদ্ধান্ত পরিস্থিতি দেখে : শিক্ষামন্ত্রী টেকনাফে পাহাড় ধ্বসে ৩৩ জনের মর্মান্তিক মৃত্যুর ট্রাজেডি আজ পড়ে আছে বিলাসবহুল বাড়ি,নেই দাবিদার শিরোনামে প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ লম্বাবিলে বাস—সিএনজির মুখোমুখী সংঘর্ষে রোহিঙ্গাসহ ২ জন নিহত

ঈদগাঁওকে ডিজিটাল বাজারে পরিণত করা স্বপ্নই থেকে গেল

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ৬ অক্টোবর, ২০১৫
  • ১৯৭ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

মো. রেজাউল করিম,ঈদগাঁও = ঈদগাঁও বাজারকে ডিজিটাল বাজারে পরিণত করার স্বপ্ন স্বপ্নই থেকে গেলে। বাজার ব্যবসায়ী পরিচালনা পরিষদ গঠনের বছর অতিবাহিত হলেও এখনো দৃশ্যমান কোন উন্নয়ন হয়নি। বিষয়টি খোদ বাজার কমিটির সদস্যরাও স্বীকার করেছেন। তবে স্থানীয় সংসদ সদস্য ঈদগাঁওকে ডিজিটাল বাজারে পরিণত করার যে প্রতিশ্র“তি দিয়ে ছিলেন তার প্রথম ধাপ হিসেবে শীঘ্রই সিসি ক্যামরা স্থাপন কার্যক্রম শুরু হবে বলে জানান। এদিকে এ বিষয়টি নিয়ে ব্যবসায়ী পরিচালনা পরিষদ নেতৃবৃন্দের মধ্যেও নানা কাঁনাঘুষা রয়েছে। উল্লেখ্য রামু-কক্সবাজারের সংসদ সদস্য সাইমুম সরওয়ার কমল ২০১৪ সালের ১৩ আগষ্ট রাতে ঈদগাঁও বাজার ব্যবসায়ীবৃন্দ কর্তৃক আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে ঈদগাঁওকে ডিজিটাল বাজারে পরিণত করাই তার স্বপ্ন বলে প্রতিশ্র“তি দিয়েছিলেন। তিনি বলে ছিলেন, বিগত ৪৩ বছর ঈদগাঁও বাসীকে অনেকে স্বপ্ন দেখিয়েছে। আমি আর স্বপ্ন দেখাতে চাই না। আমি কাজের মানুষ। তাই আমার চেষ্টা হবে এলাকাবাসীর দাবী-দাওয়া ও স্বপ্ন পূরণে। অনুষ্ঠানে এমপি কমল ঈদগাঁওর উন্নয়নে মাষ্টারপ্লান করার কথাও বলেছিলেন। তিনি বাজারের যানজট সমস্যা নিরসনে বঙ্খিম বাজার থেকে কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ পর্যন্ত রানওয়ে করার ব্যবস্থা নিতে উপস্থিত পুলিশের আইসি মনজুর কাদেরকে নির্দেশনা দিয়েছিলেন। ব্যবসায়ীদের এ পরামর্শ সভায় তিনি বাজার নিয়ে রাজনীতি করতে চান না উল্লেখ করে আ’লীগ, বিএনপি ও জামায়াতের সমসংখ্যক ব্যবসায়ী প্রতিনিধি নিয়ে বাজার পরিচালনা পরিষদ গঠনে গুরুত্বারোপ করেছিলেন। পরে তার উদ্যোগেই বাজারের বিশিষ্ট ব্যবসায়ীদের নিয়ে পরিচালনা পরিষদ আহবায়ক কমিটি গঠিত হয়। প্রবীণ ব্যবসায়ী নুরুল আমিন সওদাগরকে আহবায়ক করে ২১ সদস্য বিশিষ্ট গঠিত এ কমিটির মেয়াদকাল ইতোমধ্যে বছর পূর্ণ হতে চলেছে। তিন মাস মেয়াদের উক্ত আহবায়ক কমিটি উন্নয়ন তো দূরের কথা নিয়মতান্ত্রিক নির্বাচনের ব্যবস্থাও করতে পারেন নি। ডিজিটাল বাজারের অংশ হিসেবে ড্রেনেজ ও পয়ঃনিস্কাশন ব্যবস্থার উন্নয়ন, গভীর নলকূপ স্থাপন, ঈদগাঁও নদীতে বেঁড়িবাধ নির্মাণ, হাসপাতাল সড়কের উন্নয়ন, বর্ষা মৌসুমে জলাবদ্ধতা নিরসন, আবর্জনার ডাস্টবিন স্থাপন, মহিলা পুলিশ নিয়োগ, ফায়ার ব্রিগেড স্থাপন, শেড ও ফুটপাত দখলমুক্ত করণ, শৌচাগারের জমি উদ্ধার, বাজারের বটগাছ অপসারণ, বঙ্খিম বাজার সড়কের উন্নয়ন, শহীদ মিনার তৈরি, মাছ বাজার সংস্কার ও পরিকল্পিত ভবণ নির্মাণ প্রভৃতির কোন উন্নয়নই এ পর্যন্ত দৃশ্যমান হয়নি। আর উপদেষ্টা নিয়োগের মাধ্যমে সংসদ সদস্য ব্যবসায়ীদের উত্থাপিত এসব দাবী পুরণে চেষ্টা করবেন বলে আশ্বাস দিলেও এখনো পর্যন্ত উপদেষ্টা নিয়োগের খবরও পাওয়া যাচ্ছে না। তবে চাউল বাজারের বটগাছটি ইউএনওর পরামর্শ মতে অপসারণ করেছেন ব্যবসায়ীরা। উল্লেখ্য ঈদগাঁও বাজার প্রায় ৫ লক্ষাধিক মানুষের প্রাণকেন্দ্র। দীর্ঘদিন যাবৎ বৃহত্তর ঈদগাঁওকে প্রশাসনিক উপজেলা ঘোষণার দাবীতে আন্দোলন চলমান। এমপি কমল যতবার সুযোগ পেয়েছেন ততবারই জাতীয় সংসদে ঈদগাঁওকে উপজেলা করার দাবী উত্থাপন করেছেন। এর প্রথম ধাপ হিসেবে অবশ্যই ঈদগাঁওতে পূর্ণাঙ্গ থানা স্থাপনের প্রাথমিক কার্যক্রম শুরুও হয়েছে। গঠিত বাজার কমিটির বিগত দিনের সফলতার মধ্যে কেবল বাজারের নিরাপত্তা রক্ষার কথাই বলা চলে। ইতোমধ্যে এ পরিষদের তত্ত্বাবধানে ৮ জন নৈশ প্রহারী ব্যবসায়ীদের প্রদত্ত টাকায় নিরাপত্তা রক্ষার কাজ করছেন। তবে বাজারের পরিস্কার পরিচ্ছন্নতার অবস্থা এখনো বেহাল। এর জন্য অবশ্যই সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীদের দোষারোপ করছেন অনেকে। তাদের মতে ব্যবসায়ীরাই ফুটপাত দখল, যানজট সৃষ্টি, অবৈধ স্থাপনা নির্মাণ ও সড়কের যত্রতত্র ময়লা আবর্জনা ফেলে হাজার হাজার ক্রেতা সাধারণকে প্রতিনিয়ত ভোগান্তিতে ফেলছেন। ব্যবসায়ী পরিচালনা পরিষদ আহবায়ক আলহাজ্ব নুরুল আমিন সওদাগর বিগত ২/৩ মাস যাবৎ অসুস্থ থাকায় পরিষদের কার্যক্রম এক প্রকার ঝিমিয়ে পড়েছে বলা চলে। বাজার উন্নয়নের ব্যপারে এ প্রতিনিধির সাথে কথা হয় পরিচালনা পরিষদের প্রভাবশালী সদস্য সহ এর উদ্যোগ গ্রহণকারী মাননীয় সংসদ সদস্য এমপি কমলের সাথে। আলাপকালে অধিকাংশ সদস্য নির্দ্বিধায় স্বীকার করেছেন যে, নিরাপত্তার রক্ষার ব্যবস্থা ব্যতিত কমিটির তত্ত্বাবধানে এ পর্যন্ত দেখার মত কোন উন্নয়ন হয়নি। তবে ব্যবসায়ীদের স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিষয় আশয় নিয়ে কোন কোন সদস্যদের তৎপরতা চোখে পড়ার মতো। সংসদ সদস্য সাইমুম সরওয়ার কমল কর্তৃক ব্যবসায়ীদের পরামর্শ সভায় ঈদগাঁওকে ডিজিটাল বাজারে পরিণত করাই তার স্বপ্ন বলে যে বক্তব্য দিয়েছিলেন সে ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি বাজার উন্নয়নে তার অগ্রাধিকার প্রকল্প থেকে দেড় কোটি টাকা বরাদ্দ করেছেন বলে উল্লেখ করে বলেন, ইতিমধ্যে এর প্রাক্কলন তৈরি হয়েছে। আর শুস্ক মৌসুমে বাজারে সিসিটিভি স্থাপন কার্যক্রম শুরু করা হবে। অন্যান্য উন্নয়নের ব্যাপারে তার নিকট প্রশ্ন করা হলে তিনি ব্যবসায়ীদের স্বার্থ সংক্রান্ত বিষয়ে ব্যবসায়ীদেরই এগিয়ে আসতে হবে বলে জানান। বাজার ব্যবসায়ী পরিচালনা পরিষদের প্রভাবশালী সদস্য মুক্তিযোদ্ধা মাষ্টার নুরুল আজিম জানান, ব্যবসায়ী পরিচালনা পরিষদ আর বাজার কমিটি এক কথা নয়। এ দু’য়ের মধ্যে বিস্তর ফারাক রয়েছে। এ পরিষদের নেতৃত্বে এ পর্যন্ত বাজারে দৃশ্যমান কোন উন্নয়ন হয়নি বলে স্বীকার করেন তিনি। বাজার ব্যবসায়ী পরিচালনা পরিষদের বিএনপি মনোনীত সদস্য শওকত আলমের বক্তব্য জানতে চাইলে তিনি বিব্রত বোধ করে বলেন, আমরা নামকা ওয়াস্তে আছি। এ ব্যাপারে সরকারি দলের ব্যবসায়ী প্রতিনিধিরা ভাল তথ্য দিতে পারবেন বলে তিনি বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর এড়িয়ে যান। জামায়াত সমর্থিত ব্যবসায়ী প্রতিনিধি সেলিম উল্লাহ জিহাদীর দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে তার কাছেও উন্নয়নের কোন খবর নেই বলে জানান। তবে বাজারে রাত্রিকালীন নিরাপত্তা রক্ষায় ব্যবসায়ী পরিষদ উদ্যোগ নিয়েছে বলে এ প্রতিনিধিকে তথ্য দেন। কমিটির বিএনপি মনোনীত অপর সদস্য ও ঈদগাঁও বিএনপি সভাপতি আলহাজ্ব আবদুস ছালাম কোন উন্নয়ন কাজ বাস্তবায়িত হয়নি স্বীকার করে বলেন, কেবল সিসি ক্যামরা স্থাপনের প্রজেক্ট কমিটি দাখিল করা হয়েছে। প্রভাবশালী সদস্য ও ঈদগাঁও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সেক্রেটারী তারেক আজিজ জানান, এমপির সাথে এখনো তাদের তেমন বৈঠকের আয়োজন হয়নি। সিসি ক্যামরা প্রকল্পের তিনি সভাপতি হলেও এ ব্যাপারে বিস্তারিত কিছু বলতে পারেননি। তবে সিসি ক্যামরা স্থাপনের বিষয়টি এমপির নির্দেশের অপেক্ষায় রয়েছে বলে জানান। অন্যান্য উন্নয়নের ব্যাপারে তাদের তেমন কোন এখতিয়ার নেই বলে জানান তিনি। পরিচালনা পরিষদের সরকার সমর্থিত প্রতিনিধি ও ইসলামাবাদ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম মেম্বার অবশ্যই কমিটির মেয়াদকাল ৬ মাস অতিক্রান্ত হয়েছে দাবী করে বলেন, এমপির কমিটমেন্ট অনুযায়ী বাজার উন্নয়নে ২৫ লাখ টাকার বাজেট দেয়া হয়েছে। জনপ্রতিনিধিদের সাথেও এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হচ্ছে। তিনি বাজারে স্থাপনের জন্য সিসি ক্যামরা কেনা হয়েছে দাবী করে বলেন, বৃষ্টি বাদলের কারণে প্রকল্পের কাজ বিলম্বিত হচ্ছে। তবে ক্যামরা স্থাপনের স্থান চিহিৃত করা শেষ হয়েছে। পরিচালনা পরিষদের উদীয়মানমান সদস্য রাজিবুল রিকো বলেন, পাহারার ব্যবস্থা ছাড়া এ পর্যন্ত দৃশ্যমান কোন উন্নয়ন হয়নি। তবে অভ্যন্তরীন সমস্যা সমাধানে কমিটি কাজ করছে বলে জানিয়ে বলেন, ড্রেনেজ ব্যবস্থা, প্রধান সড়কের উন্নয়ন ও গণশৌচাগার স্থাপনের দাবী জানানো হয়েছে এমপির নিকট। তিনি সিসি ক্যামরা স্থাপনের কাজ শীঘ্রই শুরু হবে বলে দাবী করেন। এ ব্যাপারে এমপি কমলের ঘনিষ্ঠজন ও জেলা যুবলীগের সহক্রীড়া সম্পাদক লুৎফুর রহমান লুতুর বক্তব্য জানার জন্য একাধিকবার তার মোবাইল নাম্বারে কল করেও রিসিভ না করায় কথা বলা সম্ভব হয়নি। ঈদগাঁও উপজেলা বাস্তবায়ন পরিষদ আহবায়ক সমাজসেবক আলহাজ্ব ছব্বির আহমদ এমএ দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, এমপি সাহেবের সদিচ্ছা থাকলেও এক শ্রেণির মানুষের অসহযোগিতার কারণে ঈদগাঁও বাজারকে ডিজিটাল বাজারে পরিণত করার এমপির স্বপ্ন বাঁধাগ্রস্ত হচ্ছে। তিনি ঈদগাঁও উপজেলা বাস্তবায়িত না হওয়া পর্যন্ত বৃহত্তর এলাকাবাসী সমূহ উন্নয়ন থেকে বঞ্চিত থাকবেন বলে দাবী করেন।

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT