টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!

ইতিকাফের কিছু মাসয়ালা

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : শুক্রবার, ১০ জুলাই, ২০১৫
  • ৬৯৫ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে
আলহাজ্ব মাওলানা সালাহ উদ্দিন মুহাম্মদ তারেক ::::
পবিত্র মাহে 11252859_856306727795500_8821530131475877393_nরমযানের ২১ তম দিবস। সৌভাগ্যবান মুসল্লীরা গতকালই ইতিকাফে প্রবিষ্ট হয়েছেন। আজ ইতিকাফের কিছু মাসয়ালা মাসায়েল নিয়ে আলোচনা করবো। ইতিকাফ অত্যন্ত সূক্ষè একটি আমল। সামান্য ভূলের কারণেইত পন্ড হয়ে যেতে পারে। মহান আল্লাহর নৈকট্য লাভের অনন্য মাধ্যম এ ইবাদত। আর যদি সঠিকভাবে তাকওয়ার ভিত্তিতে এবং যাবতীয় বিধানবলী মেনে এ ইবাদতটি সম্পন্ন করা যায়। তবে অল্পতেই সাফল্যের স্বর্নশিখরে পৌঁছা সম্ভব। তাই একজন ইতিকাফকারীকে অবশ্যই জানতে হবে এ অবস্থায় করণীয়-বজর্ণীয় কাজগুলো। ইতিকাফ অবস্থায় বিনা ওজরে মসজিদ থেকে বের হওয়া যাবে না। (হিদায়া:খন্ড-১,পৃষ্ঠা-২১০) মহিলাদের ক্ষেত্রেও একই হুকুম। তারাও ঘরের নির্ধারিত স্থান থেকে বের হবে না। পেশাব, পায়খানা ও জুমআর নামায আদায় ইত্যাদির প্রয়োজনে মসজিদ থেকে বের হওয়া জায়েয। (ফাতাওয়ায়ে আলমগীরী:খন্ড-১, পৃষ্ঠা-২২১) ইতিকাফকারী ইতিকাফের স্থানেই ঘুমাবে ও খাওয়া-দাওয়া করবে। এর জন্য মসজিদ থেকে বের হতে হবে না। (হিদায়া:খন্ড-১,পৃষ্ঠা-২১০০) মসজিদ ভেঙ্গে যাওয়ার কারণে অথবা জোরপূর্বক বের করে দেওয়ার কারণে ইতিকাফকারী ব্যক্তি যদি মসজিদ হতে বের হয়ে সঙ্গে সঙ্গে অন্য মসজিদে চলে যায়, তবে এতে ইতিকাফ ফাসেদ হবে না। জানমালের আশষ্কা হলেও এই হুকুম প্রযোজ্য। (ফাতাওয়ায়ে আলমগীরী:খন্ড-১, পৃষ্ঠা-২২২) অসুস্থ ব্যক্তির সেবার জন্য মসজিদ থেকে বের হলে, কোনো মৃত ব্যক্তিকে দেখার উদ্দেশ্য বা জানাযায় শরিক হওয়ার উদ্দেশ্য, এমনকি পানিতে ডুবন্ত বা আগুনে নিমজ্জিত কোনো মানুষকে রক্ষা করার জন্য মসজিদ থেকে বের হলেও ইতিকাফ ফাসেদ হয়ে যাবে। অনূরুপভাবে অসুস্থতার কারণে সামান্য সময়ের জন্য মসজিদ খেতে বের হলেও ইতিকাফ ফাসেদ হয়ে যাবে। অবশ্য মান্নত ইতিকাফকারী যদি মান্নতের সময় রোগীর সেবা, জানাযার নামায ও ইলমের মজলিসে যাওয়ার শর্ত করে, তাহলে এসব কাজ করা তার জন্য জায়েজ। ইতিকাফ ফাসেদ হওয়ার একটি কারণ হল, সহবাস বা সহবাসের দিকে আকৃষ্টকারী কাজ, তা দিনেই হোক বা রাতেই হোক। (হিদায়া:খন্ড-১,পৃষ্ঠা-২১১)
স্বপ্নদোষে ইতিকাফ ফাসেদ হয়না। কয়েকদিন পাগল বা বেহুঁশ থাকার কারণে লাগাতার ইতিকাফ করতে না পারলে ইতিকাফ ফাসেদ হয়ে যাবে। ((ফাতাওয়ায়ে আলমগীরী:খন্ড-১, পৃষ্ঠা-২২৩) চুপ থাকাকে ইবাদত মনে করে চুপ থাকলে ইতিকাফ মাকরুহ হয়। কেউ যদি মুখের গোনাহ সমূহ হতে রক্ষার জন্য চুপ থাকে, তবে এটি মহান পূণ্যের কাজ। ইতিকাফের স্থানকে ব্যবসাস্থল বানানো মাকরুহ। ইতিকাফকারী দিনের বেলায় ভুল ক্রমে পানাহার করলে ক্ষতি নেই। ওয়াজিব ইতিকাফ ফাসেদ হয়ে গেলে তার কাজা করা ওয়াজিব। ফাসেদ সে নিজে করুক কিংবা হায়েয-নিফাস ইত্যাদি প্রাকৃতিক কোনো কারণেই হোক।

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT