টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!

আজ শেখ হাসিনার ৬৬তম জন্মদিন

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : শুক্রবার, ২৮ সেপ্টেম্বর, ২০১২
  • ১৩৯ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার ৬৬তম জন্মদিন আজ। ১৯৪৭ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় তার জন্ম। তিনি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও বেগম শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের প্রথম সন্তান।
তার শৈশবকাল কাটে পিত্রালয়ে। ১৯৫৪-এর নির্বাচনের পর শেখ হাসিনা বাবা-মার সঙ্গে চলে আসেন ঢাকায়। শৈশব থেকেই শেখ হাসিনা ছিলেন বাবা-মা ও দাদা-দাদির আদরের দুলালী। আদর করে সবাই তাকে ডাকতেন ‘হাসু’ বলে। সেই হাসুই দীর্ঘ রাজনৈতিক পথ পাড়ি দিয়ে ছাত্রনেত্রী থেকে দেশের জননেত্রীতে পরিণত হয়েছেন।
রাজনৈতিক পরিবারের সন্তান হিসেবে ছাত্রজীবন থেকেই প্রত্যক্ষ রাজনীতির সঙ্গে জড়িত হন শেখ হাসিনা। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে গ্রাজুয়েট ডিগ্রি লাভকারী শেখ হাসিনা তৎকালীন ছাত্রলীগের অন্যতম নেত্রী ছিলেন।

গণতান্ত্রিক রাজনীতিতে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের যোগ্য উত্তরসূরি হিসেবে জনগণের কাছে সাহসী নেতৃত্ব ও অনুপ্রেরণার প্রতীক হয়ে আছেন তিনি। জঙ্গিবাদ, মৌলবাদ আর দেশী-বিদেশী বহুমুখী ষড়যন্ত্র ও মৃত্যুর কালো ছায়া নিরন্তর তাড়া করছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে। এর মধ্যেও জীবনবাজি রেখে দারিদ্র্যমুক্ত প্রগতিশীল অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ার সংগ্রামে নিয়োজিত তিনি।

প্রতি বছরের মতো এবারও রাজনৈতিক পথপরিক্রমায় ছাত্রনেত্রী থেকে জননেত্রীতে পরিণত হওয়া শেখ হাসিনার জন্মদিন পালিত হবে অতি সাধারণভাবে। গত বছরের মতো এবারও জন্মদিনে দেশের বাইরে থাকছেন শেখ হাসিনা। জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে যোগ দিতে নিউ ইয়র্কে আছেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের পাঁচ সন্তানের মধ্যে সবার বড়। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের নির্মম হত্যাযজ্ঞে পিতা, মাতা, তিন ভাইকে হারিয়ে একমাত্র ছোট বোন শেখ রেহানাকে নিয়ে তিনি বঙ্গবন্ধু পরিবারের দুঃসহ স্মৃতি বয়ে বেড়াচ্ছেন। স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতিকে সপরিবারে হত্যাকাণ্ডর কালরাতে বিদেশে থাকায় প্রাণে বেঁচে যান তাঁরা দু বোন। কিন্তু বিদেশের মাটিতে তাঁর থাকা হয়নি। দেশবাসীর প্রবল টানে ১৯৮১ সালের ১৭ মে দেশে প্রত্যাবর্তন করেন শেখ হাসিনা।

বিদেশে থাকতেই ৩৪ বছরেরও কম বয়সে তাঁকে দেশের প্রাচীন ও ঐতিহ্যবাহী বৃহৎ রাজনৈতিক দল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভানেত্রী নির্বাচিত করা হয়।

এ অঞ্চলে গণতন্ত্র, শান্তি ও মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে অসামান্য ভূমিকা রাখার স্বীকৃতি হিসেবে দেশী-বিদেশী বেশ কিছু আন্তর্জাতিক পুরস্কার ও সম্মানে ভূষিত হয়েছেন শেখ হাসিনা।

এর মধ্যে রয়েছে বিশ্ব খাদ্য সংস্থার সেরেস পদক, ইউনেস্কোর পার্ল এস বাক পদক, মাদার তেরেসা পদক, নেতাজী সুভাষচন্দ্র বোস স্মৃতিপদক, আন্তর্জাতিক লায়ন্স ক্লাব এসোসিয়েশনের ১৯৯৬ ও ১৯৯৮ সালের রাষ্ট্রপ্রধান পদক, রোটারি ফাউন্ডেশনের পল হ্যারিস ফেলোশিপ, ইন্দিরা গান্ধী শান্তি পুরস্কার। এছাড়া গণতন্ত্র, মানবাধিকার, শান্তি প্রতিষ্ঠা এবং সৃজনশীল লেখালেখির জন্য বিশ্বের খ্যাতনামা ১২টি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সম্মানসূচক ডি-লিট উপাধিতে ভূষিত হয়েছেন এ জননেত্রী।

গভীর সাহিত্যানুরাগী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিভিন্ন বিষয়ে রচনা করেছেন অনেক গ্রন্থ। এর কয়েকটি হচ্ছে ‘সামরিকতন্ত্র বনাম গণতন্ত্র’, ‘ওরা টোকাই কেন’, ‘বাংলাদেশে স্বৈরতন্ত্রের জন্ম’, ‘দারিদ্র্য দূরীকরণ : কিছু চিন্তাভাবনা’, ‘বৃহৎ জনগোষ্ঠীর জন্য উন্নয়ন’, ‘বিপন্ন গণতন্ত্র : লাঞ্ছিত মানবতা’, ‘আমার স্বপ্ন আমার সংগ্রাম’, ‘সহে না মানবতার অবমাননা’ ইত্যাদি।

২০০৭ সালের ১১ জানুয়ারি জরুরি অবস্থা জারি করে ড. ফখরুদ্দীন আহমদের নেতৃত্বাধীন তত্ত্বাবধায়ক সরকার ক্ষমতায় এলে ওই বছরের ১৬ জুলাই গ্রেফতার হন শেখ হাসিনা। এর মধ্য দিয়ে দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনে প্রথমবারের মতো কারাবন্দি হন তিনি। ওই সময় সংসদ ভবন চত্বরের বিশেষ কারাগারে তিনি প্রায় ১১ মাস বন্দি ছিলেন। গণতান্ত্রিক আন্দোলন করতে গিয়ে এর আগেও কয়েক দফা গৃহবন্দি হয়েছেন তিনি।

শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ এ পর্যন্ত দুই মেয়াদে ক্ষমতাসীন হয়েছে। ১৯৯৬ সালে তার নেতৃত্বে ২১ বছর পর রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় আসে মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্বদানকারী দলটি। ওই বছরের ১২ জুনের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সংখ্যাগরিষ্ঠ আসনে বিজয়ী হয়ে ২৩ জুন সরকার গঠন করে তারা।

এরপর ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বরের ঐতিহাসিক নির্বাচনে তিন-চতুর্থাংশ আসনে বিশাল বিজয় অর্জনের মাধ্যমে ২০০৯ সালের ৬ জানুয়ারি আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে মহাজোট সরকার গঠিত হয়। দ্বিতীয়বারের মতো প্রধানমন্ত্রী হন শেখ হাসিনা। এ ছাড়া ১৯৮৬ সালের তৃতীয়, ১৯৯১ সালের পঞ্চম এবং ২০০১ সালের অষ্টম সংসদে মোট তিন দফা বিরোধী দলের নেতা হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন তিনি।

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT