টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!

আকিজ বিড়ির যত অনিয়ম: শতকোটি টাকা রাজস্ব ফাঁকি

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : বুধবার, ১৬ জানুয়ারি, ২০১৩
  • ১৬৯ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

ঢাকা: জালিয়াতির মাধ্যমে প্রতিবছর শতশত কোটি টাকার রাজস্ব ফাঁকি দিচ্ছে আকিজ বিড়ি। এনবিআরের অসৎ কর্মকর্তাদের সহায়তায় কোম্পানিটি এ জালিয়াতি করে যাচ্ছে। এরফলে প্রতি বছরই বিপুল পরিমান রাজস্ব হারাচ্ছে সরকার। যার পরিমান বছরে পাঁচশ কোটি টাকারও বেশি বলে জনিয়েছে সূত্র।

জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) সূত্র জানায়, খুচরা বিক্রেতাদের মাধ্যমে তৃনমূল পর্যায়ে ব্যান্ডরোল স্টিকার সংগ্রহ, বাজেটের আগে আগে বিপুল পরিমান বিড়ি উৎপাদন ও মজুদ, নিন্মমানের কাঁচামাল ব্যবহার ও এনবিআরের দুর্নীতিগ্রস্ত কর্মকর্তাদের মাধ্যমে নকল ব্যান্ডরোল তৈরি করে এ রাজস্ব ফাঁকি দিচ্ছে আকিজ কোম্পানি।

সংশ্লিষ্ট বিভাগের সূত্রটি এও জানায়, আকিজের এ জালিয়াতির ইতিহাস নতুন নয়। প্রতিষ্ঠার পর থেকেই আকিজ কোম্পানি বিভিন্ন কায়দায় রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে আসছিল। তবে বিড়ির ক্ষেত্রে প্রথম জালিয়াতি ধরা পড়ে এক দশক আগে চারদলীয় জোট সরকার ক্ষমতায় আসার পরপরই। সেবার ৫৯৮ কোটি টাকা রাজস্ব ফাঁকি ধরা পড়ে এনবিআরে।

সে সময় চারদলীয় জোটের একাধিক ক্ষমতাধর ব্যক্তির সহায়তায় এবং এনবিআরের অসৎ কর্মকর্তার সহযোগিতায় সরকারকে কোন রাজস্ব না দিয়েই রেহাই পায় আকিজ বিড়ি। এরপর থেকে কোম্পানিটি একই কায়দায় সরকারকে রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে চলছে বছরের পর বছর ধরে।

এদিকে আকিজের উৎপাদিত বিড়ি মানসম্মত নয় বলেও রয়েছে অভিযোগ। এ অভিযোগে একবার প্রতিষ্ঠানের নাভারণ কারখানাটি বন্ধও হয়ে যায়। বিড়িতে অতি নিম্নমানের অগ্রহণযোগ্য তামাক ব্যবহারের কারণেই এই ঘটনা ঘটে।

এছাড়াও কোম্পানির বিড়ি কারখানায় শ্রমিকদের সিংহভাগই শিশু শ্রমিক। দেশে শিশুশ্রম নিষিদ্ধ হলেও ১২ বছরের কম বয়সী শিশুদের কাজ দিয়ে শ্রম আইনের প্রতি বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে যাচ্ছে আকিজ বিড়ি। শিশুদের কাজ দিয়ে তাদের মজুরিতে ঠকানোর অভিযোগ ওইসব শ্রমিক পরিবারের ঘরে ঘরে। ন্যয্য মজুরি থেকে বঞ্চিত কারখানাটির বয়ষ্ক শ্রমিকরাও

এসব বঞ্চনার প্রতিবাদে ২০১২ সালে আকিজ বিড়ির কুষ্টিয়ার দৌলতপুর কারখানায় দেখা দেয় চরম শ্রমিক অসন্তোষ। এ অসন্তোষের পর শ্রমিকদের মজুরি না বাড়িয়ে বড়ং তাদের ওপর ব্যবহার করা হয় পেশি শক্তি। স্থানীয় প্রশাসনও তখন মালিক পক্ষের হয়ে কাজ করে। পরিস্থিতি মোকাবেলায় আকিজের নিয়োজিত আনসারের গুলিতে নিহত হয় দুই দরিদ্র শ্রমিক।

এদিকে এনবিআরের অপর একটি সূত্র জানায়, ব্যান্ডরোল নকল করে ৫০০ কোটি টাকারও বেশি রাজস্ব ফাঁকি দিয়েছে আকিজ বিড়ি। আর এই কাজে কোম্পানিটিকে সহায়তা করছে এনবিআরেরই একটি চক্র।

এছাড়া কোম্পানিটি যে সরকার যে সময় ক্ষমতায় থাকে সে দলের অসৎ নেতাদের তদবিরের মাধ্যমেও রাজস্ব ফাঁকির কাজ ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করে এমন অভিযোগের কথাও জানা যায় রাজস্ব বিভাগের দফতর থেকে।

তবে আকিজ বিড়ির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার প্রক্রিয়া চলছে বলে বাংলানিউজকে জানায় এনবিআর’র সূত্রটি। এনবিআর গোপন তদন্তের মাধ্যমে প্রতিবেদন তৈরি করে তা অর্থমন্ত্রণালয়ে পাঠানোর প্রক্রিয়া শুরু করেছে। একই সঙ্গে শিশু শ্রমিক ব্যবহারের বিষয়টি তদন্তের জন্য মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় এবং শ্রম মন্ত্রণালয়কে অনুরাধ জানানো হচ্ছে। এছাড়া কারখানার পরিবেশ তদন্ত করতে অনুরোধ জানানো হচ্ছে পরিবেশ মন্ত্রণালয়কে। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়কে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ ও ক্ষতিকর কাঁচামাল ব্যবহারের বিষয়ে কাজ করতে অনুরোধ করা হয়েছে । শিল্প ও বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ও এই প্রক্রিয়ার সঙ্গে সরাসরি সম্পৃক্ত থেকে কাজ করবে বলে সূত্র বাংলানিউজকে জানিয়েছে।

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Comments are closed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT