টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!

অভাবসুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা:আলীকদম বিসিক অনিশ্চিয়তার পথে

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : শুক্রবার, ৩ মে, ২০১৩
  • ১৩৩ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

এস,এম,জুয়েল আলীকদম (বান্দরবান) প্
বান্দরবানের আলীকদম ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প উন্নয়ন কর্পোরেশনে (বিসিক) কোনো কাজ নেই। বন্ধ রয়েছে সব রকমের কাজকর্ম। নামেই শিল্প প্রতিষ্ঠান এখানে কোনো শিল্প পণ্য তৈরী হয়না। বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদ এর দেখভাল করছে। লাভজনক প্রতিষ্ঠান হিসেবে এক সময় খ্যাতি থাকলেও সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনার অভাবে প্রতিষ্ঠানটি অনিশ্চিয়তার দিকে চলছে।

বিসিক সুত্রে জানা গেছে, আর্থ-সামাজিক প্রেক্ষাপট বিবেচনা করে গ্রামীণ দরিদ্র জনগোষ্ঠীকে কর্মসংস্থানমূখী ও আয়বর্ধকমূলক কাজে সম্পৃক্ত করণে সরকার তিন পার্বত্য জেলায় উপজেলা পর্যায়ে ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প উন্নয়ন কর্পোরেশন (বিসিক) সম্প্রসারণ করে। সেই সুবাদে এ উপজেলায়ও একটি বিসিক স্থাপন হয়। গ্রামীণ দরিদ্র বেকার যুবক যুবতীদের আত্মনির্ভরশীলতা অর্জনে বিসিকে নারীদের তাঁত বুনন, পুরুষদের বাঁশ-বেত ও বিভিন্ন হস্তশিল্প প্রশিক্ষণ দেয়া হতো। প্রশিক্ষণ শেষে বিসিকে এরা উৎপাদনকর্মী হিসেবে কাজ পেতেন। এতে করে বেকার যুবক যুবতীদের কর্মসংস্থান সৃষ্টি হতো। বর্তমানে একজন প্রশিক্ষক, একজন কার্পেন্টার ও একজন নৈশ প্রহরী কর্মরত রয়েছেন। প্রশিক্ষক ও একজন কার্পেন্টারের কাজ নেই। সুপার ভাইজার ও তাঁত সাহায্যকারিনী পদও রয়েছে। বিসিকে ১৪টি তাঁতকল রয়েছে। এখন একটিও চালু নেই। এক সময় ১৪টি তাঁতকল চালু ছিল। তাঁতকলগুলোও ব্যবহার না হওয়ায় পরিত্যক্ত হয়ে পড়েছে। উৎপাদন মূল্য কম হওয়ায় উৎপাদনকর্মীর সংকটে ভূগছে বিসিক।

জানা গেছে, বিসিক উৎপাদনকর্মীদের গামছা প্রতি তৈরী খরচ ২০ টাকা দেয়। একজনকর্মী প্রতিদিন দুই থেকে তিনটি গামছা তৈরী করতে পারেন। যার দৈনিক গড় আয় দাঁড়ায় চল্লিশ থেকে ৬০ টাকারও কম। কিন্তু বর্তমানে এলাকায় অন্য পেশার একজন শ্রমিকের দৈনিক মজুরী দেড়’শত থেকে ১৮০ টাকা। এহেন পরিস্থিতিতে এখানে কোনো কর্মী নেই। আর কর্মীর সংকটের কারণে উৎপাদনও শূণ্য কোটায় চলে গেছে। সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনার অভাবে এখন চরম সংকটকাল অতিক্রম করছে বিসিক। লাভজন প্রতিষ্ঠান হিসেবে সরকার প্রতিষ্ঠা করলেও এখন লোকসান গুণতে হচ্ছে। কর্মচারীদের কাজ না থাকলেও বেতন ভাতার টাকা গুণতে হচ্ছে প্রতিষ্ঠানটিকে। প্রতিষ্ঠার প্রথম দিকে ব্যাপক সম্ভাবনময়ী পথ দেখালেও এখন বিপন্নের পথে। এ সংকট উত্তোরণে বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদ থেকে উদ্যেগ নেয়া হলে প্রাণ ফিরে পাবে বিসিক।

ইনচার্জ প্রশিক্ষক মো. রকিব উদ্দিন বিসিকের সব কাজকর্ম বন্ধ রয়েছে বলে জানান। তবে প্রতিষ্ঠানটি এক সময় লাভজনক ছিল বলে জানিয়েছেন তিনি।

এস,এম,জুয়েল

আলীকদম (বান্দরবান) প্রতিনিধি

মোবাইল ০১৭২৫৪৭১৫৬০/০১৮২৮৪২৭৩৩৭।

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Comments are closed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT