টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!
শিরোনাম :
করোনার উপসর্গ দেখা দিলে ‘আইসোলেশনে’ থাকবেন যেভাবে ১২-১৩ এপ্রিল দূরপাল্লার বাস চলবে না : জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী টেকনাফে সরকারি নির্দেশনা অমান্য করে বিকাল ৫.০০ টার পর একাধিক দোকান ও শপিংমল খোলা রাখায় জরিমানা চেয়ারম্যান -মেম্বারদের চলতি মেয়াদ আরও তিন মাস বাড়ছে স্বাস্থ্যসেবা ব্যবস্থাপনায় ৬৪ জেলার দায়িত্বে ৬৪ সচিব মেয়ের বিয়ের যৌতুকের টাকা জোগাড় করতে না পেরে বাবার আত্মহত্যা মিয়ানমারে গুলিতে আরও ১০ জন নিহত যুক্তরাষ্ট্রে বিশেষ স্বীকৃতি পাচ্ছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অপহরণ করে মুক্তিপণ, র‌্যাবের ৪ সদস্য পুলিশের হাতে গ্রেফতার ১৪ এপ্রিল থেকে সারা দেশে সর্বাত্মক লকডাউন

অপহৃত বাংলাদেশী জেলেকে মুক্তি দেয়নি নাসাকা বাহিনী

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : সোমবার, ৩ জুন, ২০১৩
  • ১২৫ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

হেলাল উদ্দিন,টেকনাফ…
টেকনাফে নাফনদীর হ্নীলা পয়েন্ট হতে মাছ শিকারকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষের ঘটনায় মিয়ানমারের জেলে কর্তৃক নৌকাসহ ১ বাংলাদেশী জেলেকে অপহরনের ৬০ঘন্টার মধ্যে বিজিবির পক্ষ থেকে ৩টি পত্র প্রেরণ করা হয়। তবুও নাসাকা বাহিনী কোন সাড়া না দেওয়ায় জনমনে ক্ষুদ্ধ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে। তবে একটি সূত্র আশাবাদ প্রকাশ করে সেদেশের প্রশাসনিক জটিলতার জন্য বিলম্ব ঘটছে বলে দাবী করেন।
স্থানীয় বিজিবি সূত্র জানায়-গত ১জুন দুপুর ১২টারদিকে টেকনাফ উপজেলার হ্নীলা ইউনিয়নস্থ বাংলাদেশ-মিয়ানমার আর্ন্তজাতিক সীমান্ত নাফনদীতে মাছ শিকারের জন্য বাংলাদেশী ২জেলে বড়শি ফেলে। অপরদিকে মিয়ানমারের জেলেরা কারেন্ট জাল ভাসিয়ে দেয়। জাল ভাসতে ভাসতে বড়শির সঙ্গে জাল আটকে গেলে দু‘দেশের জেলেদের মধ্যে কথা কাটাকাটি ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এক পর্যায়ে মিয়ানমারের জেলেরা হ্নীলা ইউনিয়নের গোদাম পাড়া এলাকার মৃত শামসুল আলমের পুত্র মোঃ ইসমাঈল(২৬)নামে জেলেকে কাঠের নৌকাসহ অপহরণ করে নিয়ে যায়।    সহযোগী সিকদার আলীর পুত্র নুরুল আলম নদীতে ঝাঁপ দিয়ে সাতার কেটে অন্য একটি নৌকার সহায়তায় কূলে ফিরে আসে। পরে অপহৃত জেলেকে জলদস্যু আখ্যায়িত করে নাসাকার হাতে সোর্পদ করে। টেকনাফ ৪২বিজিবি নাফনদী হতে বাংলাদেশী জেলে অপহরনের ঘটনার তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে তাৎক্ষণিক হ্নীলা বিওপি ক্যাম্পের মাধ্যমে নাসাকার নিকট পত্র প্রেরণ করেন। নাসাকা এই পত্রের কোন উত্তর না দেওয়ায় ২জুন বিকাল আড়াই টারদিকে আরও একটি পত্র নিয়ে বিজিবি প্রতিনিধি দল নাসাকার নিকট যায়। তাতেও কোন প্রকারের সাড়া না পাওয়ায় ৩জুন বিকাল সাড়ে ৪টারদিকে আরো একটি পত্র প্রেরণ করেন। রাত সাড়ে ৮টায় এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত নাসাকা বাহিনীর পক্ষ থেকে কোন সাড়া না পাওয়ায় সর্বস্তরে ক্ষুদ্ধ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়। নাসাকার এ ধরনের আচরণ পতাকা বৈঠকে গৃহীত সিদ্বান্তের শর্ত বিরোধী। নাসাকা বাহিনীর এই কর্মকান্ডে হ্নীলা সীমান্তে চিংড়ী ও কাঁকড়া ব্যবসায়ীদের যাতায়াত বন্ধ রয়েছে। নাফনদীর এই ইস্যুকে কেন্দ্র করে মিয়ানমার সীমান্ত রক্ষী বাহিনীর একগুয়েমী মনোভাব সীমান্ত পরিস্থিতিকে উত্তপ্ত করে তুলতে পারে বলে আশংকা করা হচ্ছে। মিয়ানমারের একটি নির্ভরযোগ্য সূত্র জানিয়েছে-প্রশাসনিক জটিলতার কারনে এই ব্যাপারে সিদ্বান্ত নিতে একটু বিলম্ব ঘটছে। আশা করা হচ্ছে শীঘ্রই এই ব্যাপারে একটি সাফল্যজনক পদক্ষেপ আসবে।
স্থানীয় বিওপি কোম্পানী কমান্ডার তোতা মিয়া জানান-মিয়ানমারের জেলে কর্তৃক অপহৃত বাংলাদেশী জেলে ইসমাঈলকে ফিরিয়ে আনতে প্রাণপণ চেষ্টা চলছে। নাসাকা বাহিনী পদক্ষেপ নিতে একটু বিলম্ব হওয়ায় একটু সময় লাগছে। এতে নিরাশ হওয়ার কোন কারণ নেই। #####

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Comments are closed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT