সরকারি ক্ষমতা অপব্যবহার করে বিএমএ নির্বাচনে প্রভাব কাটাচ্ছে এক চিকিৎসক

প্রকাশ: ২৭ নভেম্বর, ২০১৬ ৬:১৯ : অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেক ::: জেলার চিকিৎসকদের স্বার্থ সংশ্লিষ্ট সবচেয়ে বড় ও নীতি-নির্ধারণী সংগঠন বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশনের (বিএমএ) নির্বাচনে সরকারী ক্ষমতা অপব্যবহার করে নির্বাচনের মাঠে রয়েছেন কক্সবাজার সিভিল সার্জন ডা. পুচনু। চলতি বছরে সিভিল সার্জন কার্যালয়ে যোগদানের পর থেকে গোপনে গ্যাভি এবং এমএসআর টেন্ডার বানিজ্য ,গোপনে নিয়োগ কেলেঙ্কারিসহ নানা অনিয়মের অভিযোগে উঠে এই চিকিৎসকের বিরুদ্ধে।
সূত্র জানায়, গত ৭ জুন সিভিল সার্জন ডা. পুচনুর বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ উঠলে চট্রগ্রাম সিভিল সার্জন ডাঃ মোহাম্মদ আজিজুর রহমান সিদ্দিকী, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের উপ পরিচালক ও চট্রগ্রাম হিসাব রক্ষকসহ একটি বিভাগীয় টিম কক্সবাজার সিভিল সার্জন কার্যালয়ে এসে তদন্ত কার্যক্রম তদারকি করে গেছেন।
সূত্রের দাবী, ওই সময়ে স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা মন্ত্রনালয়সহ স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সদস্যদের তদন্ত কমিটির তদন্তে দুর্নীতির প্রমাণ পাওয়ায় তড়িগড়ি করে সরকারের উচ্চমহলে তা ধামাচাপা দিতে বড় অংকের টাকার মিশনে মাঠে নামেন সিভিল সার্জন ডাঃ পুচানু।
ইতিমধ্যে শুরু হওয়া বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশনের (বিএমএ) নির্বাচনে জেলার চিকৎসকদের সভাপতি পদে তাকে জিতাতে নানা ভাবে চাপ প্রয়োগ করছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।
স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ (স্বাচিপ) এর পক্ষে আসন্ন বিএমএ নির্বাচনে সভাপতি পদে প্রতিদ্বন্দ্বি করা ডাঃ মোঃ সাইফুদ্দিন ফরাজী অভিযোগ করে জানান, আসন্ন জেলার বিএমএ নির্বাচনে নিরিহ চিকিৎসকদেরকে গভারমেন্টের লোক আর স্বাচিপের কেন্দ্রীয় নেতা বলে প্রভাব কাটাচ্ছেন। তাকে সমর্থন না দিলে জেলা থেকে বদলী ও অন্যান্য সুবিধা থেকে বঞ্চিত করবেন বলে হুমকী দিচ্ছেন।
ডাঃ মোঃ সাইফুদ্দিন ফরাজী বলেন, একসময়ে নন কেডার ডাঃ পুচনুকে আমি আওয়ামীলীগের নেতাদের অনুরোধ করে তাকে এডি করেছিলাম। অথচ সেই এখন আমার প্রতিদ্বন্দ্বি! সেতো চট্টগ্রামে জাসদের মিছিলে মাথায় লাল ফিতা বেধে মিটিং-মিছিল করেছেন। ফায়দা লোটার জন্য সে এখন আওয়ামী সমর্থিত। ডাঃ পুচনুর অনিয়মের বিরুদ্ধ বিভাগীয় পর্যায়ের একটি টিম সিভিল সার্জন কার্যালয়ে এসে তদন্ত করছে বলে অবগত রয়েছেন তিনি।
প্রসঙ্গত: আগামী ২২ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হচ্ছে বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশনের (বিএমএ) নির্বাচন।


সর্বশেষ সংবাদ