কক্সবাজারে পর্যটক প্রবেশ নিষিদ্ধ: প্রশাসন ও পুলিশের মাইকিং

প্রকাশ: ১৮ মার্চ, ২০২০ ১০:২৯ : অপরাহ্ণ

টেকনাফ নিউজ:: করোনা ভাইরাসে বাংলাদেশে প্রথম মৃত্যু হওয়ার পর আরও সতর্কতা গ্রহণ করা হয়েছে। এরই অংশ হিসেবে কক্সবাজারে জনসমাগম ও পর্যটক সমাগম নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

পর্যটক আগমনে নিরুৎসাহিত করা হচ্ছে। সমুদ্র সৈকতের তিনটি প্রবেশ মুখে বসানো হয়েছে চেকপোস্ট। চলছে প্রচারপত্র বিলি।

সমুদ্র সৈকত ও আশপাশের এলাকায় পর্যটকদের সৈকতে না নামার জন্য চলছে জেলা প্রশাসন ও পুলিশের পৃথক মাইকিং। এতে পর্যটন শিল্পে ধস নামার আশঙ্কা সংশ্লিষ্টদের।

বুধবার বিকেল ৫টার পর থেকে সমুদ্র সৈকত ও আশপাশের এলাকায় পর্যটকদের সৈকতে না আসার নির্দেশনা দিয়ে জেলা প্রশাসন ও পুলিশের পক্ষ থেকে মাইকিং করা হচ্ছে। একই সময় সৈকতে থাকা পর্যটকদের টুরিস্ট পুলিশ ও বীচ কর্মীরা সৈকত থেকে চলে যাওয়ার নির্দেশ দেন।

কক্সবাজার ট্যুরিস্ট পুলিশের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার ফখরুল ইসলাম বলেন: উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে আমরা মাইকিং করছি। একই সাথে সমুদ্র সৈকতের লাবণী, সুগন্ধা, ডায়বেটিক ও কলাতলী পয়েন্টে চেকপোস্ট বসানো হয়েছে। এসব পয়েন্ট দিয়ে সৈকতে কোনো পর্যটককে প্রবেশ করতে দেওয়া হচ্ছে না।

বৃহস্পতিবার সকাল থেকে শহরের প্রবেশমুখে ঝ চেকপোস্ট বসানো হবে বলেও জানান তিনি।

বিকেলে সৈকতে কথা হয় চট্টগ্রাম থেকে আসা পর্যটক রবিউল ইসলামের সাথে। তিনি বলেন, সৈকতে পর্যটকদের জন্য নিষিদ্ধ হবে সেই বিষয়টা আমরা আগে জানতে পারেনি। তাই পরিবার নিয়ে এখানে ঘুরতে এসেছিলাম।

ঢাকার মালিবাগ থেকে আসা পর্যটক ইরফান বলেন: আগে থেকে পরিকল্পনা না থাকায় কক্সবাজার ঘুরতে আসি। কিন্তু আজ দেখছি সৈকতে প্রবেশ করতে দিচ্ছে না পুলিশ। এখন কী আর করা। হোটেলে বসে সময় পার করতে হবে।

কক্সবাজার হোটেল মোটেল ওনার্স এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কৈইয়ুম বলেন: করোনা ভাইরাসের কারণে দেশের পর্যটন শিল্পে ধস নামতে শুরু করেছে। এভাবে সৈকতে পর্যটক আসতে না পারলে আমরা হোটেল চালাবো কী করে। এমনিতে কিছুদিন থেকে কোনো পর্যটক নেই। তারপর সৈকতে প্রবেশ নিষেধ করায় আজ থেকে মোটা লোক বন্ধ করে দিতে হবে। কক্সবাজারের শতাধিক হোটেল মোটেল গেস্ট হাউস গুলোর কি অবস্থা হবে বুঝতে পারছি না।

কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মোঃ কামাল হোসেন বলেন: সমুদ্র সৈকত ,হোটেল মোটেল জোন ও জেলা বিএনপির সকল সভা সমাবেশ ও গণ জমায়েত নিষিদ্ধ করা হয়েছে। সেই সাথে কক্সবাজার সৈকতে যাতে কোন পর্যটক আগমন না করে সেই বিষয়টি নিরুৎসাহিত করা হচ্ছে। সৈকতে পর্যটকর গণজমায়েতও করতে দেওয়া হবে না।


সর্বশেষ সংবাদ